alt

সম্পাদকীয়

ঝরে পড়া রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

: মঙ্গলবার, ১০ জানুয়ারী ২০২৩

বৈশ্বিক মহামারী করোনার সময় ঝরে পড়েছে সাড়ে নয় লাখ শিশু শিক্ষার্থী। করোনার ভয়াবহতা কমেছে আরও আগেই; কিন্তু যেসব শিশু শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে তাদের বেশির ভাগকেই আর বিদ্যালয়মুখী করা যায়নি। এ নিয়ে সরকার কিছু উদ্যোগ নিলেও তা কার্যকর প্রমাণিত হয়নি।

করোনাকালে দীর্ঘ সময় ধরে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। তখন এ নিয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে সমালোচনা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেসব সমালোচনাকে গঠনমূলক দৃষ্টিতে বিবেচনা করেনি বলে অভিযোগ রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা বা খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনায় ঘাটতি তখন দেখা গেছে। দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে অনেক শিক্ষার্থীই ঝরে পড়তে পারে বলে অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। প্রশ্ন হচ্ছে- ঝরে পড়া প্রতিরোধে সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পেরেছে কিনা?

করোনায় বহু পরিবারের আয় কমে গেছে। সংসারের ব্যয় নির্বাহের জন্য নিম্নআয়ের পরিবারগুলো তাদের সন্তানকে নানান কাজে যুক্ত করেছেন। যাদের বড় একটি অংশই আর পরে ক্লাসে ফেরেনি।

ঝরে পড়ার আরেকটি বড় কারণ বাল্যবিয়ে। দেশে বাল্যবিয়ের হার ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে ১০ শতাংশ বেড়েছে। বাল্যবিয়ের শিকার কিশোরীদের আর স্কুলের আঙিনায় দেখা যায় না।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরপরই স্কুলে-স্কুলে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের বিশদ তালিকা করা দরকার ছিল। দেশের কতটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কতজন শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, তাদের মধ্যে আলাদাভাবে ছেলেমেয়ের সংখ্যা, শহর-গ্রাম বা অঞ্চলভেদে ঝরে পড়ার হার কত- সেটা জেনে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিলে হয়তো ঝরে পড়ার সংখ্যা কমত।

আমরা বলতে চাই- ঝরে পড়া শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে আসুক, তারা আবার লেখাপড়া শুরু করুক। আর একটি শিশু শিক্ষার্থীও যেন ঝরে না পড়ে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এজন্য শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়ানোর পাশাপাশি আর যা যা করণীয় তাই করতে হবে।

বিনামূল্যে বই দেওয়া, শিক্ষাবৃত্তি ও স্কুল ফিডিং কর্মসূচির পাশাপাশি আর কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় সেটা ভেবে দেখতে হবে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থাগুলোও এক্ষেত্রে এগিয়ে আসবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় বেসরকারি সংস্থাগুলোর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। সব পক্ষ সমন্বিতভাবে উদ্যোগ নিলে ঝরে পড়া রোধ করা কঠিন হবে না বলে আমরা বিশ্বাস করতে চাই।

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

গাজীপুর রেলগেটে ওভারব্রিজ নির্মাণে আর কত দেরি

সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মান রক্ষা করা জরুরি

tab

সম্পাদকীয়

ঝরে পড়া রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

মঙ্গলবার, ১০ জানুয়ারী ২০২৩

বৈশ্বিক মহামারী করোনার সময় ঝরে পড়েছে সাড়ে নয় লাখ শিশু শিক্ষার্থী। করোনার ভয়াবহতা কমেছে আরও আগেই; কিন্তু যেসব শিশু শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে তাদের বেশির ভাগকেই আর বিদ্যালয়মুখী করা যায়নি। এ নিয়ে সরকার কিছু উদ্যোগ নিলেও তা কার্যকর প্রমাণিত হয়নি।

করোনাকালে দীর্ঘ সময় ধরে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। তখন এ নিয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে সমালোচনা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেসব সমালোচনাকে গঠনমূলক দৃষ্টিতে বিবেচনা করেনি বলে অভিযোগ রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা বা খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনায় ঘাটতি তখন দেখা গেছে। দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে অনেক শিক্ষার্থীই ঝরে পড়তে পারে বলে অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। প্রশ্ন হচ্ছে- ঝরে পড়া প্রতিরোধে সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পেরেছে কিনা?

করোনায় বহু পরিবারের আয় কমে গেছে। সংসারের ব্যয় নির্বাহের জন্য নিম্নআয়ের পরিবারগুলো তাদের সন্তানকে নানান কাজে যুক্ত করেছেন। যাদের বড় একটি অংশই আর পরে ক্লাসে ফেরেনি।

ঝরে পড়ার আরেকটি বড় কারণ বাল্যবিয়ে। দেশে বাল্যবিয়ের হার ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে ১০ শতাংশ বেড়েছে। বাল্যবিয়ের শিকার কিশোরীদের আর স্কুলের আঙিনায় দেখা যায় না।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরপরই স্কুলে-স্কুলে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের বিশদ তালিকা করা দরকার ছিল। দেশের কতটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কতজন শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, তাদের মধ্যে আলাদাভাবে ছেলেমেয়ের সংখ্যা, শহর-গ্রাম বা অঞ্চলভেদে ঝরে পড়ার হার কত- সেটা জেনে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিলে হয়তো ঝরে পড়ার সংখ্যা কমত।

আমরা বলতে চাই- ঝরে পড়া শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে আসুক, তারা আবার লেখাপড়া শুরু করুক। আর একটি শিশু শিক্ষার্থীও যেন ঝরে না পড়ে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এজন্য শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়ানোর পাশাপাশি আর যা যা করণীয় তাই করতে হবে।

বিনামূল্যে বই দেওয়া, শিক্ষাবৃত্তি ও স্কুল ফিডিং কর্মসূচির পাশাপাশি আর কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় সেটা ভেবে দেখতে হবে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থাগুলোও এক্ষেত্রে এগিয়ে আসবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় বেসরকারি সংস্থাগুলোর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। সব পক্ষ সমন্বিতভাবে উদ্যোগ নিলে ঝরে পড়া রোধ করা কঠিন হবে না বলে আমরা বিশ্বাস করতে চাই।

back to top