alt

সম্পাদকীয়

কম উচ্চতার সেতু বানানোর অপসংস্কৃতির অবসান চাই

: বুধবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৩

সেতু নির্মাণ করতে হয় নদীর পানির প্রবাহ, বন্যা ও পানি ব্যবস্থাপনা, পরিবেশগত বিষয় প্রভৃতি বিবেচনায় নিয়ে। শুধু সড়ক যোগাযোগের ক্ষেত্রে নয়, নৌ যোগাযোগের ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে সেতু। এর উপর দিয়ে যেমন বিভিন্ন পরিবহন চলে, নিচ দিয়ে তেমন নৌযান চলে। কিন্তু দেশের অনেক স্থানেই দেখা যায়, সেতুর উচ্চতা কম থাকায় তার নিচ দিয়ে বর্ষা মৌসুমে নৌযান চলাচল করতে পারে না।

দেশের ৯৯টি সেতুর ওপর জরিপ চালিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। জরিপে দেখা গেছে, এসব সেতুর মধ্যে ৮৫টিরই উচ্চতা প্রয়োজনের তুলনায় কম। উচ্চতা কম থাকায় বর্ষা মৌসুমে দেশের অনেক নৌপথ অকার্যকর হয়ে পড়ে। তখন সেতুর নিচ দিয়ে বড় নৌযান চলতে পারে না। এ নিয়ে প্রায়ই গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

অবশ্য নৌপথের বাধা দূর করতে সরকার কম উচ্চতার বেশ কিছু সেতু ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নিয়েছে। কম উচ্চতার সেতু ভাঙার উদ্যোগ নেয়া হলেও নতুন করে কম উচ্চতার সেতু তৈরি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রশ্ন হলো- কীভাবে এ ধরনের সেতু নির্মিত হয়?

নৌ চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়, এমন সেতু ও স্থাপনা নির্মাণ করার নিয়ম নেই। সেতু তৈরি করতে হলে নৌ মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে নিতে হয়ে ছাড়পত্র। বাস্তবে দেখা যায়, বিভিন্ন নদী ও খালের ওপর ছাড়পত্র ছাড়াই সেতু নির্মিত হয়েছে। তাই সেসব স্থানে নৌ চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এসব সেতু একবার নির্মাণ করা হচ্ছে, আবার তা ভেঙে ঠিক করা হচ্ছে। সেতু ভাঙাগড়ার খেলায় রাষ্ট্রের অর্থের অপচয় হচ্ছে।

নিয়ম ভেঙে কম উচ্চতার সেতু তৈরি যেন না হয় সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। সেতু নির্মাণে যারা অনিয়ম এবং গাফিলতি করছে, তাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনা সড়ক, রেল ও নৌপথের সঙ্গে সমন্বয় করে বাস্তবায়ন করতে হবে।

কোন একটি সংস্থা বা বিভাগের উন্নয়নের কারণে অন্য কোন সংস্থা বা বিভাগের পরিকল্পনা কিংবা সম্ভাবনা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সেতু নির্মাণে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে সমন্বয়ের ভিত্তিতে কাজ করতে হবে। সড়ক ও রেলপথের পাশাপাশি নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে। সেটা হলে মানুষের সময় ও অর্থ দুইই বাঁচবে। এজন্য নদীর উপর অপরিকল্পিতভাবে সেতু বানানোর অপসংস্কৃতি ত্যাগ করতে হবে।

কৃষিপণ্য সংরক্ষণে হিমাগার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

কৃষিজমি রক্ষা করতে হবে

অবৈধ সীসা কারখানা বন্ধ করুন

এই ট্র্যাজেডির শেষ কোথায়

হাসপাতালগুলোতে অবেদনবিদের সংকট

চাঁদাবাজি, সিন্ডিকেট ও নিত্যপণ্যের দাম

যাতায়াত-যোগাযোগে রৌমারীর মানুষের ভোগান্তি দূর করুন

উপকূলীয় অঞ্চলে জমির লবণাক্ততা প্রতিরোধে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিন

ট্রেডভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগে আর কত কালক্ষেপণ

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, কঠোর ব্যবস্থা নিন

মহাদেবপুরে সেচের পানি বঞ্চিত কৃষক

পশুর নদে জাহাজ চলাচলে নিয়ম মানতে হবে

মালঞ্চি রেলস্টেশনটি কি বন্ধ না করলেই নয়

ফসলি জমিতে ইটভাটা কেন

অতিরিক্ত সেচ খরচ বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মঙ্গলময় রাত

হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি কাম্য নয়

খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার করুন

কক্সবাজার সৈকতে কচ্ছপ মরার কারণ উদ্ঘাটন করুন, ব্যবস্থা নিন

বাড়বে বিদ্যুতের দাম, মূল্যস্ফীতির কী উপায় হবে

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

tab

সম্পাদকীয়

কম উচ্চতার সেতু বানানোর অপসংস্কৃতির অবসান চাই

বুধবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৩

সেতু নির্মাণ করতে হয় নদীর পানির প্রবাহ, বন্যা ও পানি ব্যবস্থাপনা, পরিবেশগত বিষয় প্রভৃতি বিবেচনায় নিয়ে। শুধু সড়ক যোগাযোগের ক্ষেত্রে নয়, নৌ যোগাযোগের ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে সেতু। এর উপর দিয়ে যেমন বিভিন্ন পরিবহন চলে, নিচ দিয়ে তেমন নৌযান চলে। কিন্তু দেশের অনেক স্থানেই দেখা যায়, সেতুর উচ্চতা কম থাকায় তার নিচ দিয়ে বর্ষা মৌসুমে নৌযান চলাচল করতে পারে না।

দেশের ৯৯টি সেতুর ওপর জরিপ চালিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। জরিপে দেখা গেছে, এসব সেতুর মধ্যে ৮৫টিরই উচ্চতা প্রয়োজনের তুলনায় কম। উচ্চতা কম থাকায় বর্ষা মৌসুমে দেশের অনেক নৌপথ অকার্যকর হয়ে পড়ে। তখন সেতুর নিচ দিয়ে বড় নৌযান চলতে পারে না। এ নিয়ে প্রায়ই গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

অবশ্য নৌপথের বাধা দূর করতে সরকার কম উচ্চতার বেশ কিছু সেতু ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নিয়েছে। কম উচ্চতার সেতু ভাঙার উদ্যোগ নেয়া হলেও নতুন করে কম উচ্চতার সেতু তৈরি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রশ্ন হলো- কীভাবে এ ধরনের সেতু নির্মিত হয়?

নৌ চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়, এমন সেতু ও স্থাপনা নির্মাণ করার নিয়ম নেই। সেতু তৈরি করতে হলে নৌ মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে নিতে হয়ে ছাড়পত্র। বাস্তবে দেখা যায়, বিভিন্ন নদী ও খালের ওপর ছাড়পত্র ছাড়াই সেতু নির্মিত হয়েছে। তাই সেসব স্থানে নৌ চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এসব সেতু একবার নির্মাণ করা হচ্ছে, আবার তা ভেঙে ঠিক করা হচ্ছে। সেতু ভাঙাগড়ার খেলায় রাষ্ট্রের অর্থের অপচয় হচ্ছে।

নিয়ম ভেঙে কম উচ্চতার সেতু তৈরি যেন না হয় সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। সেতু নির্মাণে যারা অনিয়ম এবং গাফিলতি করছে, তাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনা সড়ক, রেল ও নৌপথের সঙ্গে সমন্বয় করে বাস্তবায়ন করতে হবে।

কোন একটি সংস্থা বা বিভাগের উন্নয়নের কারণে অন্য কোন সংস্থা বা বিভাগের পরিকল্পনা কিংবা সম্ভাবনা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সেতু নির্মাণে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে সমন্বয়ের ভিত্তিতে কাজ করতে হবে। সড়ক ও রেলপথের পাশাপাশি নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে। সেটা হলে মানুষের সময় ও অর্থ দুইই বাঁচবে। এজন্য নদীর উপর অপরিকল্পিতভাবে সেতু বানানোর অপসংস্কৃতি ত্যাগ করতে হবে।

back to top