alt

সম্পাদকীয়

গ্যাস জমে ভবন বিস্ফোরণ ও তিতাসের দায়

: বুধবার, ১৫ মার্চ ২০২৩

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বহুতল ভবনের একটি ফ্ল্যাটে গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস। তিতাসের গ্যাস জমে ভবন বিস্ফোরণের অভিযোগ আগেও পাওয়া গেছে। কিছু দিন আগে রাজধানীর সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণের ঘটনায়ও গ্যাস জমে থাকার অভিযোগ উঠেছিল। যদিও তিতাস কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এর আগে রাজধানীর মগবাজারে এ ধরনের বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তখনও তিতাস কর্তৃপক্ষ অভিযোগ অস্বীকার করেছিল।

অবৈধ গ্যাস সংযোগ ও ত্রুটিপূর্ণ লাইনের কারণে দেশে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে, জনগণের জানমালের ক্ষতি হয়। তিতাসের গ্যাস জমে থাকার কারণে বা সংযোগ লাইন ছিদ্র হয়ে নারায়াণগঞ্জে অতীতে অনেক দুর্ঘটনাই ঘটেছে। আমাদের মনে আছে, নারায়ণগঞ্জে একটি মসজিদে গ্যাস বিস্ফোরণে অনেকেই হতাহত হয়েছেন।

বিস্ফোরণের ঘটনায় কোনো অভিযোগ উঠলে সেটা তদন্তের আগেই অবৈধ সংযোগ থাকার কথা অস্বীকার করে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। অস্বীকার করা, দায় এড়ানো এটিই তাদের রুটিন ওয়ার্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ ও লিকেজের কারণে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটবে, জনগণের জানমাল ধ্বংস হবে আর তারা অস্বীকার করবে।

কোন দুর্ঘটনার পর তার দায় অস্বীকার করা বা অন্যের ঘাড়ে চাপানো দায়িত্বশীলতার পরিচায়ক নয়। তিতাস কর্তৃপক্ষের দায় এড়ানো বা অস্বীকার করার এ প্রবণতা ত্যাগ করতে হবে। বরং দেশের কোথায় অবৈধ সংযোগ আছে বা কোন লাইনে ত্রুটি আছে কিনা- সেটা নিয়ে কাজ করা জরুরি। এ কাজগুলো করা হলে নারায়ণগঞ্জের দুর্ঘটনা হয়তো দেশবাসীকে দেখতে হতো না।

কিভাবে তিতাসের অবৈধ সংযোগ দেয়া হয়, এর পেছনে কারা আছে, সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে হবে। অবৈধ গ্যাস বাণিজ্যর জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। লোক দেখানো অভিযান চালালে হবে না।

বিতরণ লাইনের ত্রুটি সংস্কারের জন্য তিতাস কর্তৃপক্ষকে তৎপর হতে হবে। জানা গেছে, তিতাসের কেন্দ্রীয় জরুরি গ্যাস নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে গ্রাহকরা যত অভিযোগ করেন তার সিংহভাগই গ্যাস লিকেজ সংক্রান্ত। এসব অভিযোগ আমলে নিতে হবে। লাইনের ত্রুটি মেরামত করা না হলে ভবিষ্যতে আবারো মানুষকে দুর্ঘটনার শিকার হতে হবে।

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

গাজীপুর রেলগেটে ওভারব্রিজ নির্মাণে আর কত দেরি

সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মান রক্ষা করা জরুরি

tab

সম্পাদকীয়

গ্যাস জমে ভবন বিস্ফোরণ ও তিতাসের দায়

বুধবার, ১৫ মার্চ ২০২৩

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বহুতল ভবনের একটি ফ্ল্যাটে গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস। তিতাসের গ্যাস জমে ভবন বিস্ফোরণের অভিযোগ আগেও পাওয়া গেছে। কিছু দিন আগে রাজধানীর সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণের ঘটনায়ও গ্যাস জমে থাকার অভিযোগ উঠেছিল। যদিও তিতাস কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এর আগে রাজধানীর মগবাজারে এ ধরনের বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তখনও তিতাস কর্তৃপক্ষ অভিযোগ অস্বীকার করেছিল।

অবৈধ গ্যাস সংযোগ ও ত্রুটিপূর্ণ লাইনের কারণে দেশে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে, জনগণের জানমালের ক্ষতি হয়। তিতাসের গ্যাস জমে থাকার কারণে বা সংযোগ লাইন ছিদ্র হয়ে নারায়াণগঞ্জে অতীতে অনেক দুর্ঘটনাই ঘটেছে। আমাদের মনে আছে, নারায়ণগঞ্জে একটি মসজিদে গ্যাস বিস্ফোরণে অনেকেই হতাহত হয়েছেন।

বিস্ফোরণের ঘটনায় কোনো অভিযোগ উঠলে সেটা তদন্তের আগেই অবৈধ সংযোগ থাকার কথা অস্বীকার করে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। অস্বীকার করা, দায় এড়ানো এটিই তাদের রুটিন ওয়ার্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ ও লিকেজের কারণে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটবে, জনগণের জানমাল ধ্বংস হবে আর তারা অস্বীকার করবে।

কোন দুর্ঘটনার পর তার দায় অস্বীকার করা বা অন্যের ঘাড়ে চাপানো দায়িত্বশীলতার পরিচায়ক নয়। তিতাস কর্তৃপক্ষের দায় এড়ানো বা অস্বীকার করার এ প্রবণতা ত্যাগ করতে হবে। বরং দেশের কোথায় অবৈধ সংযোগ আছে বা কোন লাইনে ত্রুটি আছে কিনা- সেটা নিয়ে কাজ করা জরুরি। এ কাজগুলো করা হলে নারায়ণগঞ্জের দুর্ঘটনা হয়তো দেশবাসীকে দেখতে হতো না।

কিভাবে তিতাসের অবৈধ সংযোগ দেয়া হয়, এর পেছনে কারা আছে, সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে হবে। অবৈধ গ্যাস বাণিজ্যর জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। লোক দেখানো অভিযান চালালে হবে না।

বিতরণ লাইনের ত্রুটি সংস্কারের জন্য তিতাস কর্তৃপক্ষকে তৎপর হতে হবে। জানা গেছে, তিতাসের কেন্দ্রীয় জরুরি গ্যাস নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে গ্রাহকরা যত অভিযোগ করেন তার সিংহভাগই গ্যাস লিকেজ সংক্রান্ত। এসব অভিযোগ আমলে নিতে হবে। লাইনের ত্রুটি মেরামত করা না হলে ভবিষ্যতে আবারো মানুষকে দুর্ঘটনার শিকার হতে হবে।

back to top