alt

সম্পাদকীয়

আসন্ন বর্ষায় চট্টগ্রাম নগরে জলাবদ্ধতার আশঙ্কা

: মঙ্গলবার, ২১ মার্চ ২০২৩

চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন এলাকার ৬৪ পয়েন্টে কালভার্ট ও ব্রিজের নিচে ওয়াসা ও কর্ণফুলী গ্যাস লাইনের ১০৩টি পাইপ লাইন রয়েছে। এই পাইপ লাইনগুলোর সঙ্গে ময়লা-আবর্জনা আটকে ব্রিজ ও কালভার্টসমূহ বন্ধ হয়ে গেছে। বর্ষার আগেই এসব পাইপ লাইন সরানো না হলে মহানগরীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সাধারণভাবে মনে করা হয় বৃষ্টির পানিতে শুধু রাজধানীতেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়; কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে রাজধানী ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের মতো মহানগরীতেও নিয়মিত জলাবদ্ধতা হচ্ছে। আর যখন চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়, তখন নগরবাসীকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সামান্য বৃষ্টির পানিতেই নগরীর রাস্তা ও গলি পানিতে ডুবে যায়। সেখানে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা নাজুক। নালা-নর্দমাগুলো ময়লা-আবর্জনায় ভর্তি। ময়লা আবর্জনার স্তূপে খাল ও কালভার্ট ভরাট হয়ে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি নামতে সময় লাগে। তখন নগরবাসীর দুর্ভোগের শেষ থাকে না।

চট্টগ্রামে অতীতে জলাবদ্ধতার কারণে একাধিকবার মানুষের প্রাণহানির মতো মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে। ২০২১ সালের ২৫ আগস্ট চট্টগ্রাম মহানগরের পানিমগ্ন ফুটপাথ দিয়ে হাঁটতে গিয়ে এক ব্যক্তি পা পিছলে পড়ে যান নালার ভেতরে; তার সলিল সমাধি হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরের জলাবদ্ধতা নিরসনে সংশ্লিষ্ট সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও পানি উন্নয়ন বোর্ড ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৪টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বছরে পর বছর ধরে এসব প্রকল্পের কাজ চলছে; কিন্তু জলাবদ্ধতার সমস্যার তেমন উন্নতি হয়নি।

চট্টগ্রামে মহানগরে অতীতে জলাবদ্ধতার অভিজ্ঞতা মোটেও সুখকর নয়। চট্টগ্রাম নগরে কী কারণে জলাবদ্ধতা হয় তা কারও অজানা নয়। সেবা সংস্থাগুলো নগরবাসীদের সেবায় আন্তরিক হলেই জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ নিরসন হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

এবারের বর্ষায় নগরবাসীকে যেন জলাবদ্ধতার শিকার হতে না হয় সেজন্য এখন থেকেই সতর্ক থাকতে হবে। যেসব কারণে জলাবদ্ধতা হয় সেগুলো চিহ্নিত করে এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। নগরীর বিভিন্ন এলাকার যেসব পয়েন্টে কালভার্ট ও ব্রিজের নিচে পাইপ লাইন রয়েছে, সেসব পাইপ লাইন বর্ষার আগেই সরিয়ে নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ নেবে- এটাই আমরা আশা করি।

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

গোবিন্দগঞ্জে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে গাছ কাটার অভিযোগ আমলে নিন

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা জরুরি

অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম ব্যবহারে চাই সচেতনতা

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

tab

সম্পাদকীয়

আসন্ন বর্ষায় চট্টগ্রাম নগরে জলাবদ্ধতার আশঙ্কা

মঙ্গলবার, ২১ মার্চ ২০২৩

চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন এলাকার ৬৪ পয়েন্টে কালভার্ট ও ব্রিজের নিচে ওয়াসা ও কর্ণফুলী গ্যাস লাইনের ১০৩টি পাইপ লাইন রয়েছে। এই পাইপ লাইনগুলোর সঙ্গে ময়লা-আবর্জনা আটকে ব্রিজ ও কালভার্টসমূহ বন্ধ হয়ে গেছে। বর্ষার আগেই এসব পাইপ লাইন সরানো না হলে মহানগরীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সাধারণভাবে মনে করা হয় বৃষ্টির পানিতে শুধু রাজধানীতেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়; কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে রাজধানী ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের মতো মহানগরীতেও নিয়মিত জলাবদ্ধতা হচ্ছে। আর যখন চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়, তখন নগরবাসীকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সামান্য বৃষ্টির পানিতেই নগরীর রাস্তা ও গলি পানিতে ডুবে যায়। সেখানে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা নাজুক। নালা-নর্দমাগুলো ময়লা-আবর্জনায় ভর্তি। ময়লা আবর্জনার স্তূপে খাল ও কালভার্ট ভরাট হয়ে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি নামতে সময় লাগে। তখন নগরবাসীর দুর্ভোগের শেষ থাকে না।

চট্টগ্রামে অতীতে জলাবদ্ধতার কারণে একাধিকবার মানুষের প্রাণহানির মতো মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে। ২০২১ সালের ২৫ আগস্ট চট্টগ্রাম মহানগরের পানিমগ্ন ফুটপাথ দিয়ে হাঁটতে গিয়ে এক ব্যক্তি পা পিছলে পড়ে যান নালার ভেতরে; তার সলিল সমাধি হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরের জলাবদ্ধতা নিরসনে সংশ্লিষ্ট সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও পানি উন্নয়ন বোর্ড ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৪টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বছরে পর বছর ধরে এসব প্রকল্পের কাজ চলছে; কিন্তু জলাবদ্ধতার সমস্যার তেমন উন্নতি হয়নি।

চট্টগ্রামে মহানগরে অতীতে জলাবদ্ধতার অভিজ্ঞতা মোটেও সুখকর নয়। চট্টগ্রাম নগরে কী কারণে জলাবদ্ধতা হয় তা কারও অজানা নয়। সেবা সংস্থাগুলো নগরবাসীদের সেবায় আন্তরিক হলেই জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ নিরসন হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

এবারের বর্ষায় নগরবাসীকে যেন জলাবদ্ধতার শিকার হতে না হয় সেজন্য এখন থেকেই সতর্ক থাকতে হবে। যেসব কারণে জলাবদ্ধতা হয় সেগুলো চিহ্নিত করে এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। নগরীর বিভিন্ন এলাকার যেসব পয়েন্টে কালভার্ট ও ব্রিজের নিচে পাইপ লাইন রয়েছে, সেসব পাইপ লাইন বর্ষার আগেই সরিয়ে নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ নেবে- এটাই আমরা আশা করি।

back to top