alt

উপ-সম্পাদকীয়

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

আনোয়ার হোসেন

: বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গণিত হলো বিজ্ঞানের ভাষা। সভ্যতার উন্নতির সাথে গণিতের রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। জীবনকে নিয়মমাফিক পরিচালনার জন্য ন্যূনতম গণিতের জ্ঞান অপরিহার্য। অল্পশিক্ষিত বা অশিক্ষিত যারা তারাও গুনতে জানে। গণিত ছাড়া কোন মানুষ বেঁচে থাকতে পারে না। শুধু মানুষ নয়, পৃথিবীর সকল প্রাণীর মধ্যে ন্যূনতম গণিতের জ্ঞান রয়েছে। আণুবীক্ষণিক ব্যাকটেরিয়া থেকে শুরু করে গাছপালা, আকাশ-বাতাশ, গ্রহ-নক্ষত্র সবকিছুতে গণিতের ছোঁয়া রয়েছে।

গাণিতিক নিয়ম ছাড়া কোন কিছুই চলমান রাখা সম্ভব নয়। এজন্য গণিতকে সকল বিজ্ঞানের জননী বলা হয়। গ্রিক ‘ম্যাথেমা’ শব্দ থেকে এসেছে ইংরেজি ‘ম্যাথমেটিক্স’ শব্দটি। গ্রিক ম্যাথেমার অর্থ জ্ঞান বা শিক্ষা। জ্ঞানের সমার্থক হবার কারণে গ্রিসে জ্ঞানী বা শিক্ষক প্রত্যেককেই ম্যাথমেটিসিয়ান বা গণিতবিদ বলা হয়। প্রাচীন ও মধ্যযুগের সব প-িত-ধর্মবিদ, ইতিহাসবিদ, ভূগোলবিদ, দার্শনিক, চিকিৎসক, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, সমাজতাত্ত্বিক যাই হোন না কেনÑ প্রায় সবাই গণিতে দক্ষ হতেন। আসলে গণিত ছাড়া কারোই পেশাগত দক্ষতা অর্জন করা সম্ভব না।

গণিতকে বলা হয় প্রকৃতির ব্যাকরণ। আদিকাল থেকে তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে বিজ্ঞানের প্রায় প্রতিটি শাখাসহ দৈনন্দিন জীবনের সর্বত্র গণিত ওতপ্রোতভাবে জড়িত। অ্যালার্মের মাধ্যমে ঘুম থেকে ওঠা থেকে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত সারা দিনই অতিবাহিত হয় গাণিতিকভাবে। নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট কার্যকলাপ করতে সময় মেনটেইন করাও গণিত বিষয়ভুক্ত, দিন না রাত তাও গণিতের পাক-প্রাথমিক স্তর, দোকানে কিছু কিনতে গেলে জিনিসের দাম দেখে কিনি, ট্রেন- বাস, অটো-রিকশায় ভাড়া দিতেও গণিত প্রয়োজন।

গণিত ছাড়া প্রোগ্রামিং হচ্ছে সদ্যভূমিষ্ঠ একটি বাচ্চার মতো। যার কিছুই করার ক্ষমতা নেই। সবধরনের গণিতই প্রোগ্রামিংয়ের জন্য প্রয়োজন হয়। ক্যালকুলাস, লিনিয়ার অ্যালজেব্রা, পরিসংখ্যান ও সম্ভাবনা, ডিসক্রিট ম্যাথমেটিকস ছাড়া প্রোগ্রামিং অচল। কম্পিউটার, সফটওয়্যার, কোডিং, যাতায়াত ব্যবস্থা, স্থাপত্যশিল্পসহ সর্বত্র রয়েছে গণিতের ব্যবহার। গণিত প্রায় প্রতিটি বিষয়ের ভিত্তি। গণিতের প্রতিটি দিক বা রূপ যেমন বীজগণিত, জটিল সংখ্যা, ত্রিকোণমিতি ইত্যাদি প্রতিদিন আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করে।

আপনি যেক্ষেত্রে কাজ করেন সেক্ষেত্রে আপনি সর্বদা একই প্রভাব দেখতে পাবেন, তা ওষুধ, আবহাওয়াবিদ্যা বা ক্রিপ্টোগ্রাফি ইত্যাদিতেই হোক না কেন। মহাকাশচারীরা এটিকে মহাকাশে জীবনের সম্ভাবনা নির্ধারণ করতে ব্যবহার করে, পরিসংখ্যানবিদরা জনসংখ্যার প্রবণতা এবং হিসাবরক্ষকদের ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য ডেটার ওপর নির্ভর করে। এটি একটি কোম্পানি ভালো করছে নাকি লোকসান করছে তা নির্ধারণ করা। সংখ্যা দিয়ে সঠিকভাবে বিন্যাসের জ্ঞান মানুষের আছে বলেই বিশ্বকাপ ফুটবলে ৩২টি দলকে দিয়ে ৬৪টি ম্যাচ খেলিয়ে বিজয়ী বের করা যায়। গণিত না জানলে এই ৩২টি দলের মধ্যে একটি দলকে বিজয়ী ঘোষণা করতে আয়োজকদের ৫৩২টি খেলার আয়োজন করতে হতো।

জীববিজ্ঞান, অনুজীববিজ্ঞান, বংশগতিবিজ্ঞান এর জেনোটাইপ-ফেনোটাইপ নির্ধারণে সংখ্যার বিন্যাস জ্ঞান না থাকলে চলত না। এভাবে পরিবেশের নান্দনিক সবকিছুর অন্তরালে লুকিয়ে রয়েছে গাণিতিক যুক্তির সঠিক প্রয়োগ। বর্তমান সময় কম্পিউটারের যুগ। কম্পিউটারের আবিষ্কারক ছিলেন একজন গণিতবিদ। যে কোনো ধরনের গবেষণার ক্ষেত্রে গণিতের প্রয়োগ অত্যাবশ্যক। গবেষণার ক্ষেত্রে যে কোনো ধরনের বাস্তবভিত্তিক মডেল তৈরি গণিত ছাড়া অসম্ভব। গণিত না থাকলে, পৃথিবী আজ যে বিশাল অগ্রগতি করেছে তা তৈরি করত না কারণ এটি প্রাকৃতিক বিশ্বকে বোঝার জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। গণিত কণা এবং তরঙ্গের আচরণ, তরল প্রবাহ এবং জটিল সিস্টেমের গতিশীলতা বর্ণনা করে।

খ্যাতনামা জ্যোতির্বিদ ও পদার্থবিদ গ্যালিলিও বলেছিলেন, ‘আমি যদি আবার পড়াশোনা শুরু করতাম তবে আমি প্লেটোর পরামর্শ অনুসরণ করে গণিত দিয়ে শুরু করতাম।’ কিন্তু শৈশবে আমাদের সামনে গণিতকে ভীতিকর বিষয় হিসেবে উপস্থাপন করায় গণিতের ভীতি থেকে যায় সারা জীবন। ফলে গণিত আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে কী কাজে লাগে তা অজানাই থেকে যায়। গণিত সম্পর্কে অজ্ঞ হলে বিশ্বের অন্য জিনিস সঠিকভাবে জানা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। এ ব্যাপারে কান্ট বলেছেনÑ ‘প্রকৃত বিজ্ঞান হলো সেই বিজ্ঞান, যে বিজ্ঞান গাণিতিক।’

গণিত সব বিজ্ঞানকে নিখুঁত করে আধুনিক সভ্যতা গঠনে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এ যুগে পদার্থ, রসায়ন, জীববিজ্ঞান, মেডিসিন ও ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মতো বিজ্ঞানের ওপর জোর দেওয়া হয়। এসব বিজ্ঞান কেবল গণিতের সহায়তায় সামনের দিকে অগ্রসর হয়। তাই গণিতকে বলা হয় সব বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু। মস্তিষ্ককে সূচালো করার সেরা উপায় গণিতচর্চা। গণিত আমাদের মস্তিষ্কের বিকাশ ও বিশ্লেষণমূলক দক্ষতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গণিতের জাদুকরি শক্তি আমাদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত ও প্রতিটি স্তর করতে পারে সাফল্যম-িত। মোটকথা গণিতে দক্ষ হয়ে উঠলে এবং গুরুত্বসহকারে অধ্যয়ন করলে আমরা বিজ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে আরো অগ্রসর হতে পারব। তাই প্রাথমিক শ্রেণি থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত গণিত শিক্ষাকে আরো সুসংহত করে তুলতে হবে। তবেই গড়ে উঠবে যৌক্তিক জ্ঞানসম্পন্ন মেধাবী জনগোষ্ঠী, যাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশ ও জাতি সাফল্যের দিকে আরও একধাপ এগিয়ে যাবে।

[লেখক : শিক্ষার্থী, গণিত বিভাগ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর]

বিশ্ব ধরিত্রী দিবস

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিলের শেষ কোথায়

খুব জানতে ইচ্ছে করে

কোন দিকে মোড় নিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের সংকট?

কৃষিগুচ্ছ : ভর্তির আবেদনের নূ্যূনতম যোগ্যতা ও ফলাফল প্রস্তুতিতে বৈষম্য

ছবি

গণপরিবহনে নৈরাজ্যের শেষ কোথায়

ছাত্র রাজনীতি : পক্ষে-বিপক্ষে

ছবি

বি আর আম্বেদকর : নিম্নবর্গের মানুষের প্রতিনিধি

চেকের মামলায় আসামির মুক্তির পথ কী

রাম-নবমী : হিন্দুত্বের নয়া গবেষণাগার

‘একটি গ্রাম একটি পণ্য’ উদ্যোগ কি সফল হবে

কিশোর গ্যাং : সমস্যার মূলে যেতে হবে

গীতি চলচ্চিত্র ‘কাজল রেখা’ : সুস্থধারার চলচ্চিত্র বিকাশ ঘটুক

ছবি

ঋতুভিত্তিক চিরায়ত বাঙালি সংস্কৃতি

ছবি

স্মরণ : কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

দাবদাহে সুস্থ থাকবেন কীভাবে

কত দিন পরে এলে, একটু শোনো

রম্যগদ্য : আনন্দ, দ্বিগুণ আনন্দ...

ছবি

ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় নাম

বৈসাবি : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব

‘ইন্ডিয়া আউট’ ক্যাম্পেইন

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

আনোয়ার হোসেন

বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গণিত হলো বিজ্ঞানের ভাষা। সভ্যতার উন্নতির সাথে গণিতের রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। জীবনকে নিয়মমাফিক পরিচালনার জন্য ন্যূনতম গণিতের জ্ঞান অপরিহার্য। অল্পশিক্ষিত বা অশিক্ষিত যারা তারাও গুনতে জানে। গণিত ছাড়া কোন মানুষ বেঁচে থাকতে পারে না। শুধু মানুষ নয়, পৃথিবীর সকল প্রাণীর মধ্যে ন্যূনতম গণিতের জ্ঞান রয়েছে। আণুবীক্ষণিক ব্যাকটেরিয়া থেকে শুরু করে গাছপালা, আকাশ-বাতাশ, গ্রহ-নক্ষত্র সবকিছুতে গণিতের ছোঁয়া রয়েছে।

গাণিতিক নিয়ম ছাড়া কোন কিছুই চলমান রাখা সম্ভব নয়। এজন্য গণিতকে সকল বিজ্ঞানের জননী বলা হয়। গ্রিক ‘ম্যাথেমা’ শব্দ থেকে এসেছে ইংরেজি ‘ম্যাথমেটিক্স’ শব্দটি। গ্রিক ম্যাথেমার অর্থ জ্ঞান বা শিক্ষা। জ্ঞানের সমার্থক হবার কারণে গ্রিসে জ্ঞানী বা শিক্ষক প্রত্যেককেই ম্যাথমেটিসিয়ান বা গণিতবিদ বলা হয়। প্রাচীন ও মধ্যযুগের সব প-িত-ধর্মবিদ, ইতিহাসবিদ, ভূগোলবিদ, দার্শনিক, চিকিৎসক, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, সমাজতাত্ত্বিক যাই হোন না কেনÑ প্রায় সবাই গণিতে দক্ষ হতেন। আসলে গণিত ছাড়া কারোই পেশাগত দক্ষতা অর্জন করা সম্ভব না।

গণিতকে বলা হয় প্রকৃতির ব্যাকরণ। আদিকাল থেকে তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে বিজ্ঞানের প্রায় প্রতিটি শাখাসহ দৈনন্দিন জীবনের সর্বত্র গণিত ওতপ্রোতভাবে জড়িত। অ্যালার্মের মাধ্যমে ঘুম থেকে ওঠা থেকে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত সারা দিনই অতিবাহিত হয় গাণিতিকভাবে। নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট কার্যকলাপ করতে সময় মেনটেইন করাও গণিত বিষয়ভুক্ত, দিন না রাত তাও গণিতের পাক-প্রাথমিক স্তর, দোকানে কিছু কিনতে গেলে জিনিসের দাম দেখে কিনি, ট্রেন- বাস, অটো-রিকশায় ভাড়া দিতেও গণিত প্রয়োজন।

গণিত ছাড়া প্রোগ্রামিং হচ্ছে সদ্যভূমিষ্ঠ একটি বাচ্চার মতো। যার কিছুই করার ক্ষমতা নেই। সবধরনের গণিতই প্রোগ্রামিংয়ের জন্য প্রয়োজন হয়। ক্যালকুলাস, লিনিয়ার অ্যালজেব্রা, পরিসংখ্যান ও সম্ভাবনা, ডিসক্রিট ম্যাথমেটিকস ছাড়া প্রোগ্রামিং অচল। কম্পিউটার, সফটওয়্যার, কোডিং, যাতায়াত ব্যবস্থা, স্থাপত্যশিল্পসহ সর্বত্র রয়েছে গণিতের ব্যবহার। গণিত প্রায় প্রতিটি বিষয়ের ভিত্তি। গণিতের প্রতিটি দিক বা রূপ যেমন বীজগণিত, জটিল সংখ্যা, ত্রিকোণমিতি ইত্যাদি প্রতিদিন আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করে।

আপনি যেক্ষেত্রে কাজ করেন সেক্ষেত্রে আপনি সর্বদা একই প্রভাব দেখতে পাবেন, তা ওষুধ, আবহাওয়াবিদ্যা বা ক্রিপ্টোগ্রাফি ইত্যাদিতেই হোক না কেন। মহাকাশচারীরা এটিকে মহাকাশে জীবনের সম্ভাবনা নির্ধারণ করতে ব্যবহার করে, পরিসংখ্যানবিদরা জনসংখ্যার প্রবণতা এবং হিসাবরক্ষকদের ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য ডেটার ওপর নির্ভর করে। এটি একটি কোম্পানি ভালো করছে নাকি লোকসান করছে তা নির্ধারণ করা। সংখ্যা দিয়ে সঠিকভাবে বিন্যাসের জ্ঞান মানুষের আছে বলেই বিশ্বকাপ ফুটবলে ৩২টি দলকে দিয়ে ৬৪টি ম্যাচ খেলিয়ে বিজয়ী বের করা যায়। গণিত না জানলে এই ৩২টি দলের মধ্যে একটি দলকে বিজয়ী ঘোষণা করতে আয়োজকদের ৫৩২টি খেলার আয়োজন করতে হতো।

জীববিজ্ঞান, অনুজীববিজ্ঞান, বংশগতিবিজ্ঞান এর জেনোটাইপ-ফেনোটাইপ নির্ধারণে সংখ্যার বিন্যাস জ্ঞান না থাকলে চলত না। এভাবে পরিবেশের নান্দনিক সবকিছুর অন্তরালে লুকিয়ে রয়েছে গাণিতিক যুক্তির সঠিক প্রয়োগ। বর্তমান সময় কম্পিউটারের যুগ। কম্পিউটারের আবিষ্কারক ছিলেন একজন গণিতবিদ। যে কোনো ধরনের গবেষণার ক্ষেত্রে গণিতের প্রয়োগ অত্যাবশ্যক। গবেষণার ক্ষেত্রে যে কোনো ধরনের বাস্তবভিত্তিক মডেল তৈরি গণিত ছাড়া অসম্ভব। গণিত না থাকলে, পৃথিবী আজ যে বিশাল অগ্রগতি করেছে তা তৈরি করত না কারণ এটি প্রাকৃতিক বিশ্বকে বোঝার জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। গণিত কণা এবং তরঙ্গের আচরণ, তরল প্রবাহ এবং জটিল সিস্টেমের গতিশীলতা বর্ণনা করে।

খ্যাতনামা জ্যোতির্বিদ ও পদার্থবিদ গ্যালিলিও বলেছিলেন, ‘আমি যদি আবার পড়াশোনা শুরু করতাম তবে আমি প্লেটোর পরামর্শ অনুসরণ করে গণিত দিয়ে শুরু করতাম।’ কিন্তু শৈশবে আমাদের সামনে গণিতকে ভীতিকর বিষয় হিসেবে উপস্থাপন করায় গণিতের ভীতি থেকে যায় সারা জীবন। ফলে গণিত আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে কী কাজে লাগে তা অজানাই থেকে যায়। গণিত সম্পর্কে অজ্ঞ হলে বিশ্বের অন্য জিনিস সঠিকভাবে জানা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। এ ব্যাপারে কান্ট বলেছেনÑ ‘প্রকৃত বিজ্ঞান হলো সেই বিজ্ঞান, যে বিজ্ঞান গাণিতিক।’

গণিত সব বিজ্ঞানকে নিখুঁত করে আধুনিক সভ্যতা গঠনে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এ যুগে পদার্থ, রসায়ন, জীববিজ্ঞান, মেডিসিন ও ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মতো বিজ্ঞানের ওপর জোর দেওয়া হয়। এসব বিজ্ঞান কেবল গণিতের সহায়তায় সামনের দিকে অগ্রসর হয়। তাই গণিতকে বলা হয় সব বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু। মস্তিষ্ককে সূচালো করার সেরা উপায় গণিতচর্চা। গণিত আমাদের মস্তিষ্কের বিকাশ ও বিশ্লেষণমূলক দক্ষতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গণিতের জাদুকরি শক্তি আমাদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত ও প্রতিটি স্তর করতে পারে সাফল্যম-িত। মোটকথা গণিতে দক্ষ হয়ে উঠলে এবং গুরুত্বসহকারে অধ্যয়ন করলে আমরা বিজ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে আরো অগ্রসর হতে পারব। তাই প্রাথমিক শ্রেণি থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত গণিত শিক্ষাকে আরো সুসংহত করে তুলতে হবে। তবেই গড়ে উঠবে যৌক্তিক জ্ঞানসম্পন্ন মেধাবী জনগোষ্ঠী, যাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশ ও জাতি সাফল্যের দিকে আরও একধাপ এগিয়ে যাবে।

[লেখক : শিক্ষার্থী, গণিত বিভাগ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর]

back to top