alt

উপ-সম্পাদকীয়

টেকসই উন্নয়নে সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গি

ইফতেখার নাজিম

: শুক্রবার, ০৫ আগস্ট ২০২২

টেকসই উন্নয়ন হলো সেই উন্নয়ন, যা বর্তমানের চাহিদা পূরণ করে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিজস্ব চাহিদা পূরণে সক্ষমতার সঙ্গে আপোস না করে। জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনায় ১৭টি লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে এবং এই লক্ষ্য অর্জনে ২০৩০ সাল চূড়ান্ত। জাতিসংঘের ১৭টি লক্ষ্যের প্রতিটির উদ্দেশ্য হলো বর্তমান প্রজন্মের জন্য উন্নত জীবনমান নিশ্চিত করে সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য নিরাপদ পৃথিবী গড়ে তোলা। এ কথা নিশ্চিতভাবে বলা যায়-বর্তমান প্রজন্মের জীবনাচারণের ওপর নির্ভর করে আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎমান কেমন হবে।

আমাদের বুঝতে হবে প্রকৃতিতে সম্পদ সীমিত। তাই, সম্পদের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার বন্ধে এর ব্যবস্থাপনার দিকে অধিক মনোযোগ দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলো এমনভাবে সাজাতে ও বাস্তবায়ন করতে হবে, যেন সম্পদের অপচয়ের ভারে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ঝুঁকিতে না পড়ে। মনে রাখা প্রয়োজন, যেকোন দুর্বল পরিকল্পনা শুধু সম্পদের অপচয় ঘটায় না বরং মানুষের জীবনযাত্রার মানকে হ্রাস করে এবং প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জাতীয় অর্থনীতিকে ঝুঁকির মুখে ঠেলে দেয়। প্রতিটি পরিকল্পনার বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্টদের মধ্যে দায়বদ্ধতা তখনই সৃষ্টি হয়, যখন সংশ্লিষ্টদের মধ্যে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের প্রতি দায়বদ্ধতা থাকে।

বাংলাদেশে অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। যে উন্নয়নের সব উপকরণ অর্থাৎ রড, সিমেন্ট, পাথর, বিটুমিন, ইস্পাত, টাইলস, মার্বেল পাথর বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। যেখানে রাষ্ট্রকে কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রার জোগান দিতে হচ্ছে। কিন্তু অপরিকল্পিত উন্নয়নের খোঁড়াখুঁড়িতে একদিকে যেমন উন্নয়নের সুফল জাতি পাচ্ছে না, তেমনি অপচয়ের বিশাল দায়ভার রাষ্ট্র ও জনগণকে বহন করতে হচ্ছে। যেমন আসা যাক, ঢাকা শহরের উন্নয়ন চিত্রে। ঢাকা শহরে বছরজুড়ে সড়ক নির্মাণ, ফুটপাত উন্নয়ন, ড্রেন নির্মাণ, বৈদ্যুতিক, টেলিফোন, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন সাবলাইন নির্মাণ হচ্ছে।

তবে, উন্নয়ন পরিকল্পনায় সমন্বিত রোডম্যাপ না থাকায় দেখা যায়-কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে সিটি করপোরেশন যে সড়ক নির্মাণ করছে (যেখানে উকরণের মান ও সড়ক টেকসইয়ে বিষয়ে অনেক প্রশ্ন রয়েছে) সেই সড়ক নির্মাণের কিছু দিন পর বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থা সাবলাইনের জন্য সড়কটি কেটে ফেলছে। দেখা গেল বিদ্যুৎ সংস্থার কাটা সড়ক কয়েক দিন পর সিটি করপোরেশন জোড়াতালি দিয়ে সংস্কার করে দিল। তারপর ওই সড়ক কেটে পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন লাইন তৈরি করছে ওয়াসা। এই ভাঙ্গা সড়ক কয়েক দিন পর আবার জোড়াতালি দিয়ে সিটি করপোরেশন মেরামত করল। এরপর আসে টেলিফোন সংস্থা। এভাবে ভাঙ্গাগড়ার মধ্য দিয়ে আমাদের ব্যাপক উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলতেই থাকে। অন্যদিকে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে সড়ক ও ফুটপাত নির্মাণের কারণে নির্দিষ্ট মেয়াদের পূর্বেই সড়কগুলো ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে এবং জনভোগান্তি বাড়তে থাকে। আবার টেন্ডার হয়, চলতে থাকে ঠিকাদার প্রকৌশলীর কমিশন বাণিজ্য। এ ধরনের আত্মঘাতী উন্নয়নের দায়ভার চূড়ান্তভাবে পড়ে দেশের অর্থনীতিতে, বিশেষ করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে।

ঢাকার যানজট নিরসনে ৭ হাজার কোটি ব্যয়ে কয়েকটি ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়েছে, যেখানে নকশা প্রণয়নের দায়িত্ব ছিল বিদেশি কনসালট্যান্সি ফার্ম। এই উন্নয়ন যে কার্যকর হয়নি, সেটির জন্য দৃষ্টি দেয়া যাক সাতরাস্তা-মগবাজার-মালিবাগ-শান্তিনগর ফ্লাইওভারের দিকে। এই ফ্লাইওভার নির্মাণের পরও এখনো মৌচাক মগবাজার হয়ে সাতরাস্তার দিকে গমনকারী যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা সিগন্যাল যানজটে বসে থাকতে হয়। আবার রামপুরা হয়ে শান্তিনগর আসার ক্ষেত্রে অনুরূপ অবস্থা মোকাবিলা করতে হয় আবুল হোটেল ও বেইলি রোড সিগন্যালে। ফ্লাইওভার নির্মাণে র‌্যাম্পগুলো নিয়ে নামানো হলো আবুল হোটেল ও বেইলি রোডের ক্রসিংয়ের সামনে। অন্যদিকে মগবাজার থেকে সাতরাস্তার দিকে যাওয়ার জন্য পৃথক লুপ নির্মাণ করা হয়নি। তাহলে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে টেকসই উন্নয়নের সুফলটা কোথায়! অনুরূপভাবে বিআরটি লেন নির্মাণে যে বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে, সেখানেও অপরিকল্পিত ফ্লাইওভার নির্মাণের চড়া মাশুল দিতে হবে বিমানবন্দন-উত্তরাগামী যাত্রীদের। বর্তমান প্রজন্মের ভুল উন্নয়ন পরিকল্পনা মাশুল দিতে হবে আগামী প্রজন্মকে।

প্রায় ৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে সাতরাস্তা থেকে উত্তরা পর্যন্ত নির্মিত ইউলুপগুলোর কোন কোনটা ভেঙে ফেলা হয়েছে, আবার কোন কোনটি বাসস্ট্যান্ডের ভূমিকায় পতিত। এই ইউলুপ নির্মাণ করতে গিয়ে পার্শ্ববর্তী ফুটপাতগুলোকে নষ্ট করা হয়েছে। ফলে ছোট যাত্রাপথে পথচারী হাঁটতে পারছে না। অথচ, জ্বালানি ব্যয় সাশ্রয়ের জন্য ছোটপথে হাঁটা বা সাইকেল চালানোতে অভ্যস্থ করা হলে একদিকে জ্বালানি সাশ্রয় হতো, অন্যদিকে স্বাস্থ্যের উন্নতি করার পাশাপাশি প্রকৃতি পরিবেশে কার্বন বৃদ্ধিজনিত বিরূপ প্রভাব হ্রাস পেত। যা জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিরূপ অবস্থা থেকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষায় সহায়ক হতো। আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনার বাস্তব চিত্র বলে দেয়-একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হয় যেন আরেকটি উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ অপরিহার্য করার জন্য, যা টেকসই উন্নয়নের সহায়ক হতে পারে না।

অপরিকল্পিত উন্নয়নের মাশুল শুধু সড়ক অবকাঠামোতেই বিদ্যমান নয়। আমাদের সেচ, জ্বালানি, পরিবহন, কৃষি, পণ্য বণ্টন ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ প্রতিটি ক্ষেত্রে লক্ষণীয়। নানান কারণে আমরা প্রাকৃতিক জলাধারগুলো ধ্বংস করে ক্রমেই ভূগর্ভস্থ পানির টেকসই ব্যবহারে অভ্যস্থ হয়ে পড়েছি। অথচ, কীভাবে ভূগর্ভস্থ পানির রিজার্ভার বৃদ্ধি করে আগামী প্রজন্মের জন্য নিরাপদ পানি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা যাবে, সেদিকে মনোযোগ নেই। টেকসই উন্নয়ন ও আগামী প্রজন্মের নিরাপত্তার স্বার্থে ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের পাশাপাশি কৃত্রিম রিচার্জ কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ পানির রিজার্ভ বাড়ানোতে মনোযোগ দেয়ার সময় এসেছে। এ ছাড়া, আগামী প্রজন্মের খাদ্য নিরাপত্তায় মূল্যবান কৃষি জমি রক্ষায় এর ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। উর্বর পলিমাটি নষ্ট করে ইট তৈরি করার প্রতিযোগিতার লাঘাম টেনে ধরতে হবে। হাওরাঞ্চলে দৃশ্যমান উন্নয়নের অপদৃষ্টান্ত স্থাপনের মাশুল দিয়েছে সিলেট অঞ্চলের অকাল বন্যা। এখন অকাল বন্যার দৃশ্য দেখে দৃশ্যমান অপরিকল্পিত উন্নয়ন ভেঙে ফেলার আওয়াজ উঠছে। এই অপচয়ের ভার কেন জাতিকে বহন করতে হবে।

সম্পদের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার বন্ধে এর ব্যবস্থাপনার দিকে অধিক মনোযোগ দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলো এমনভাবে সাজাতে ও বাস্তবায়ন করতে হবে, যেন সম্পদের অপচয়ের ভারে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ঝুঁকিতে না পড়ে

করোনা-পরবর্তী ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী খাদ্য ও জ্বালানি উপকরণের তীব্র সংকট বিশ্বের প্রতিটি দেশকে চরমভাবে ভোগাচ্ছে। বিশেষ করে জ্বালানি সংকট ও ভোগ্যপণ্যের আকাশ ছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধি প্রতিটি দেশের মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। যে সব দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক, ওই সব দেশ এই সংকট অত্যন্ত মুন্সীয়ানার সঙ্গে সামাল দিতে পারলেও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সাশ্রয়ী পন্থা অবলম্বন করে চলতে হচ্ছে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সুদিনে সাশ্রয়ী পন্থা অবলম্বন না করলে দুর্দিনে সাশ্রয়ী হওয়ার আবেদন কার্যকর হয় না। শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের বাস্তবচিত্র সেটিই নির্দেশ করে। শ্রীলঙ্কার দেউলিয়াত্ব আর পাকিস্তানের ত্রাহি ত্রাহি ভাব দেখে বাংলাদেশ সরকারও এই সংকট মোকাবিলায় দেশের জনগণকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান জানিয়েছে। জ্বালানি সংকট মোকাবিলায় বিদ্যুৎ উৎপাদন হ্রাসের পন্থা অবলম্বন করে লোডশেডিং ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে সংকট উত্তরণের পথ খুঁজছে। তবে যে সমাজ রাষ্ট্রব্যবস্থায় সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তি থেকে নিম্নস্তরের মানুষের মধ্যে সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গির অহরহ দৃৃষ্টান্ত নেই, সেই রাষ্ট্রব্যবস্থায় এ ধরনের আবেদন যে বেশি একটা ফলপ্রসূ হবে না, সেটা বলাই বাহুল্য। আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে, তার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহারে বহুমাত্রিকতাও এসেছে, বেড়েছে গ্রাহক সংখ্যাও। আমরা যদি পূর্ব থেকে সতর্ক অবস্থায় সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সংযমী হতে পারতাম, বিশেষ করে অঞ্চল ভেদে শিল্প অঞ্চল ব্যতীত প্রত্যেক এলাকায় দৈনিক অন্তত দুই ঘণ্টা লোডশেডিং চালু, শীতাতপযন্ত্র নিয়ন্ত্রণ, অপ্রয়োজনীয় আলোকসজ্জা ও অনুষ্ঠান বর্জনের ন্যায় সাশ্রয়ী হতে পারতাম, তাহলে এই বৈশ্বিক সংকট মূহূর্তে জাতিকে অনিশ্চয়তার দোলাচলে ঘুরপাক খেতে হতো না।

[লেখক : প্রাবন্ধিক]

সামাজিক সংঘের ভূমিকা

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ

আলোর ভেতর যত কালো

বাড়াতে হবে খাদ্য উৎপাদন

সাম্রাজ্যবাদের যুদ্ধ-যুদ্ধ খেলা ও যুদ্ধবিরোধিতার গুরুত্ব

পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি : কৃষিপণ্যে প্রভাব

সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনায় ইসি কতটা সক্ষম

ছবি

সোশ্যাল মিডিয়া কি একাকিত্ব ও অহংবোধ বাড়িয়ে দিচ্ছে?

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা : স্থপতি স্বর্ণকন্যা শেখ হাসিনা

আদিবাসী বিতর্ক

অনগ্রসর আদিবাসী জাতি

সাক্ষরতা ও শিক্ষা

সম্প্রীতির বাঁধন কি আলগা হয়ে আসছে?

অর্থনৈতিক সংকট : মুক্তি কোন পথে

গাড়িতে চাই শিশু আসন

ডলার সংকটের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও উত্তরণের উপায়

ছবি

পরিবহন খাতে জ্বালানির ব্যবহার

বিশ্ব মন্দায় বাংলাদেশের শক্তি

দাগ তো চেহারার, আয়না মুছে কি হবে

ছবি

ডলার সংকটের শেষ কোথায়?

পাবলিক পরীক্ষায় অপরাধ

মানব পাচারে প্রযুক্তির অপব্যবহার

ছবি

বাংলাদেশের কেন শ্রীলঙ্কা হওয়ার আশঙ্কা কম

শিক্ষকের মর্যাদা

ধেয়ে আসছে বৈশ্বিক ঋণসংকট, শ্রীলঙ্কাতেই শেষ নয়

সব ফিউজ বাল্বের মূল্য সমান

মাঙ্কিপক্সে আতঙ্ক নয়

বৈশ্বিক জ্বালানি সংকট : বাংলাদেশের উপায় কী

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা : স্থপতি স্বর্ণকন্যা শেখ হাসিনা

ছবি

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেতে যাচ্ছে

কাগজ সংকট সভ্যতারও সংকট

শিশুদের পঠনদক্ষতা বাড়াতে পারে ‘ডাকপড়া’

অর্থনীতির সংকট কাটবে কীভাবে?

ছবি

পারিসার সাহস

সংখ্যালঘু ও ধর্মীয় অনুভূতি

যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র বহনের সংস্কৃতি

tab

উপ-সম্পাদকীয়

টেকসই উন্নয়নে সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গি

ইফতেখার নাজিম

শুক্রবার, ০৫ আগস্ট ২০২২

টেকসই উন্নয়ন হলো সেই উন্নয়ন, যা বর্তমানের চাহিদা পূরণ করে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিজস্ব চাহিদা পূরণে সক্ষমতার সঙ্গে আপোস না করে। জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনায় ১৭টি লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে এবং এই লক্ষ্য অর্জনে ২০৩০ সাল চূড়ান্ত। জাতিসংঘের ১৭টি লক্ষ্যের প্রতিটির উদ্দেশ্য হলো বর্তমান প্রজন্মের জন্য উন্নত জীবনমান নিশ্চিত করে সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য নিরাপদ পৃথিবী গড়ে তোলা। এ কথা নিশ্চিতভাবে বলা যায়-বর্তমান প্রজন্মের জীবনাচারণের ওপর নির্ভর করে আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎমান কেমন হবে।

আমাদের বুঝতে হবে প্রকৃতিতে সম্পদ সীমিত। তাই, সম্পদের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার বন্ধে এর ব্যবস্থাপনার দিকে অধিক মনোযোগ দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলো এমনভাবে সাজাতে ও বাস্তবায়ন করতে হবে, যেন সম্পদের অপচয়ের ভারে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ঝুঁকিতে না পড়ে। মনে রাখা প্রয়োজন, যেকোন দুর্বল পরিকল্পনা শুধু সম্পদের অপচয় ঘটায় না বরং মানুষের জীবনযাত্রার মানকে হ্রাস করে এবং প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জাতীয় অর্থনীতিকে ঝুঁকির মুখে ঠেলে দেয়। প্রতিটি পরিকল্পনার বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্টদের মধ্যে দায়বদ্ধতা তখনই সৃষ্টি হয়, যখন সংশ্লিষ্টদের মধ্যে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের প্রতি দায়বদ্ধতা থাকে।

বাংলাদেশে অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। যে উন্নয়নের সব উপকরণ অর্থাৎ রড, সিমেন্ট, পাথর, বিটুমিন, ইস্পাত, টাইলস, মার্বেল পাথর বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। যেখানে রাষ্ট্রকে কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রার জোগান দিতে হচ্ছে। কিন্তু অপরিকল্পিত উন্নয়নের খোঁড়াখুঁড়িতে একদিকে যেমন উন্নয়নের সুফল জাতি পাচ্ছে না, তেমনি অপচয়ের বিশাল দায়ভার রাষ্ট্র ও জনগণকে বহন করতে হচ্ছে। যেমন আসা যাক, ঢাকা শহরের উন্নয়ন চিত্রে। ঢাকা শহরে বছরজুড়ে সড়ক নির্মাণ, ফুটপাত উন্নয়ন, ড্রেন নির্মাণ, বৈদ্যুতিক, টেলিফোন, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন সাবলাইন নির্মাণ হচ্ছে।

তবে, উন্নয়ন পরিকল্পনায় সমন্বিত রোডম্যাপ না থাকায় দেখা যায়-কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে সিটি করপোরেশন যে সড়ক নির্মাণ করছে (যেখানে উকরণের মান ও সড়ক টেকসইয়ে বিষয়ে অনেক প্রশ্ন রয়েছে) সেই সড়ক নির্মাণের কিছু দিন পর বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থা সাবলাইনের জন্য সড়কটি কেটে ফেলছে। দেখা গেল বিদ্যুৎ সংস্থার কাটা সড়ক কয়েক দিন পর সিটি করপোরেশন জোড়াতালি দিয়ে সংস্কার করে দিল। তারপর ওই সড়ক কেটে পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন লাইন তৈরি করছে ওয়াসা। এই ভাঙ্গা সড়ক কয়েক দিন পর আবার জোড়াতালি দিয়ে সিটি করপোরেশন মেরামত করল। এরপর আসে টেলিফোন সংস্থা। এভাবে ভাঙ্গাগড়ার মধ্য দিয়ে আমাদের ব্যাপক উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলতেই থাকে। অন্যদিকে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে সড়ক ও ফুটপাত নির্মাণের কারণে নির্দিষ্ট মেয়াদের পূর্বেই সড়কগুলো ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে এবং জনভোগান্তি বাড়তে থাকে। আবার টেন্ডার হয়, চলতে থাকে ঠিকাদার প্রকৌশলীর কমিশন বাণিজ্য। এ ধরনের আত্মঘাতী উন্নয়নের দায়ভার চূড়ান্তভাবে পড়ে দেশের অর্থনীতিতে, বিশেষ করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে।

ঢাকার যানজট নিরসনে ৭ হাজার কোটি ব্যয়ে কয়েকটি ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়েছে, যেখানে নকশা প্রণয়নের দায়িত্ব ছিল বিদেশি কনসালট্যান্সি ফার্ম। এই উন্নয়ন যে কার্যকর হয়নি, সেটির জন্য দৃষ্টি দেয়া যাক সাতরাস্তা-মগবাজার-মালিবাগ-শান্তিনগর ফ্লাইওভারের দিকে। এই ফ্লাইওভার নির্মাণের পরও এখনো মৌচাক মগবাজার হয়ে সাতরাস্তার দিকে গমনকারী যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা সিগন্যাল যানজটে বসে থাকতে হয়। আবার রামপুরা হয়ে শান্তিনগর আসার ক্ষেত্রে অনুরূপ অবস্থা মোকাবিলা করতে হয় আবুল হোটেল ও বেইলি রোড সিগন্যালে। ফ্লাইওভার নির্মাণে র‌্যাম্পগুলো নিয়ে নামানো হলো আবুল হোটেল ও বেইলি রোডের ক্রসিংয়ের সামনে। অন্যদিকে মগবাজার থেকে সাতরাস্তার দিকে যাওয়ার জন্য পৃথক লুপ নির্মাণ করা হয়নি। তাহলে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে টেকসই উন্নয়নের সুফলটা কোথায়! অনুরূপভাবে বিআরটি লেন নির্মাণে যে বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে, সেখানেও অপরিকল্পিত ফ্লাইওভার নির্মাণের চড়া মাশুল দিতে হবে বিমানবন্দন-উত্তরাগামী যাত্রীদের। বর্তমান প্রজন্মের ভুল উন্নয়ন পরিকল্পনা মাশুল দিতে হবে আগামী প্রজন্মকে।

প্রায় ৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে সাতরাস্তা থেকে উত্তরা পর্যন্ত নির্মিত ইউলুপগুলোর কোন কোনটা ভেঙে ফেলা হয়েছে, আবার কোন কোনটি বাসস্ট্যান্ডের ভূমিকায় পতিত। এই ইউলুপ নির্মাণ করতে গিয়ে পার্শ্ববর্তী ফুটপাতগুলোকে নষ্ট করা হয়েছে। ফলে ছোট যাত্রাপথে পথচারী হাঁটতে পারছে না। অথচ, জ্বালানি ব্যয় সাশ্রয়ের জন্য ছোটপথে হাঁটা বা সাইকেল চালানোতে অভ্যস্থ করা হলে একদিকে জ্বালানি সাশ্রয় হতো, অন্যদিকে স্বাস্থ্যের উন্নতি করার পাশাপাশি প্রকৃতি পরিবেশে কার্বন বৃদ্ধিজনিত বিরূপ প্রভাব হ্রাস পেত। যা জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিরূপ অবস্থা থেকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষায় সহায়ক হতো। আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনার বাস্তব চিত্র বলে দেয়-একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হয় যেন আরেকটি উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ অপরিহার্য করার জন্য, যা টেকসই উন্নয়নের সহায়ক হতে পারে না।

অপরিকল্পিত উন্নয়নের মাশুল শুধু সড়ক অবকাঠামোতেই বিদ্যমান নয়। আমাদের সেচ, জ্বালানি, পরিবহন, কৃষি, পণ্য বণ্টন ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ প্রতিটি ক্ষেত্রে লক্ষণীয়। নানান কারণে আমরা প্রাকৃতিক জলাধারগুলো ধ্বংস করে ক্রমেই ভূগর্ভস্থ পানির টেকসই ব্যবহারে অভ্যস্থ হয়ে পড়েছি। অথচ, কীভাবে ভূগর্ভস্থ পানির রিজার্ভার বৃদ্ধি করে আগামী প্রজন্মের জন্য নিরাপদ পানি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা যাবে, সেদিকে মনোযোগ নেই। টেকসই উন্নয়ন ও আগামী প্রজন্মের নিরাপত্তার স্বার্থে ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের পাশাপাশি কৃত্রিম রিচার্জ কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ পানির রিজার্ভ বাড়ানোতে মনোযোগ দেয়ার সময় এসেছে। এ ছাড়া, আগামী প্রজন্মের খাদ্য নিরাপত্তায় মূল্যবান কৃষি জমি রক্ষায় এর ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। উর্বর পলিমাটি নষ্ট করে ইট তৈরি করার প্রতিযোগিতার লাঘাম টেনে ধরতে হবে। হাওরাঞ্চলে দৃশ্যমান উন্নয়নের অপদৃষ্টান্ত স্থাপনের মাশুল দিয়েছে সিলেট অঞ্চলের অকাল বন্যা। এখন অকাল বন্যার দৃশ্য দেখে দৃশ্যমান অপরিকল্পিত উন্নয়ন ভেঙে ফেলার আওয়াজ উঠছে। এই অপচয়ের ভার কেন জাতিকে বহন করতে হবে।

সম্পদের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার বন্ধে এর ব্যবস্থাপনার দিকে অধিক মনোযোগ দিতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলো এমনভাবে সাজাতে ও বাস্তবায়ন করতে হবে, যেন সম্পদের অপচয়ের ভারে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ঝুঁকিতে না পড়ে

করোনা-পরবর্তী ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী খাদ্য ও জ্বালানি উপকরণের তীব্র সংকট বিশ্বের প্রতিটি দেশকে চরমভাবে ভোগাচ্ছে। বিশেষ করে জ্বালানি সংকট ও ভোগ্যপণ্যের আকাশ ছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধি প্রতিটি দেশের মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। যে সব দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক, ওই সব দেশ এই সংকট অত্যন্ত মুন্সীয়ানার সঙ্গে সামাল দিতে পারলেও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সাশ্রয়ী পন্থা অবলম্বন করে চলতে হচ্ছে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সুদিনে সাশ্রয়ী পন্থা অবলম্বন না করলে দুর্দিনে সাশ্রয়ী হওয়ার আবেদন কার্যকর হয় না। শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের বাস্তবচিত্র সেটিই নির্দেশ করে। শ্রীলঙ্কার দেউলিয়াত্ব আর পাকিস্তানের ত্রাহি ত্রাহি ভাব দেখে বাংলাদেশ সরকারও এই সংকট মোকাবিলায় দেশের জনগণকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান জানিয়েছে। জ্বালানি সংকট মোকাবিলায় বিদ্যুৎ উৎপাদন হ্রাসের পন্থা অবলম্বন করে লোডশেডিং ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে সংকট উত্তরণের পথ খুঁজছে। তবে যে সমাজ রাষ্ট্রব্যবস্থায় সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তি থেকে নিম্নস্তরের মানুষের মধ্যে সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গির অহরহ দৃৃষ্টান্ত নেই, সেই রাষ্ট্রব্যবস্থায় এ ধরনের আবেদন যে বেশি একটা ফলপ্রসূ হবে না, সেটা বলাই বাহুল্য। আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে, তার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহারে বহুমাত্রিকতাও এসেছে, বেড়েছে গ্রাহক সংখ্যাও। আমরা যদি পূর্ব থেকে সতর্ক অবস্থায় সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সংযমী হতে পারতাম, বিশেষ করে অঞ্চল ভেদে শিল্প অঞ্চল ব্যতীত প্রত্যেক এলাকায় দৈনিক অন্তত দুই ঘণ্টা লোডশেডিং চালু, শীতাতপযন্ত্র নিয়ন্ত্রণ, অপ্রয়োজনীয় আলোকসজ্জা ও অনুষ্ঠান বর্জনের ন্যায় সাশ্রয়ী হতে পারতাম, তাহলে এই বৈশ্বিক সংকট মূহূর্তে জাতিকে অনিশ্চয়তার দোলাচলে ঘুরপাক খেতে হতো না।

[লেখক : প্রাবন্ধিক]

back to top