alt

উপ-সম্পাদকীয়

আইনে হিল্লা বিয়ে বলে কিছু নেই

সিরাজ প্রামাণিক

: শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

হিল্লা বিয়ে একটি কুসংস্কার ও আমাদের দেশের প্রচলিত আইনবিরোধী। তালাকের পর নিয়ম মেনে একই ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে করতে আইনে কোথাও বাধা নেই। মুসলিম আইনে এ ব্যাপারে যথাযথ বিধান থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। ‘নানা মুনির নানা মত’ নিয়ে শরিয়া নিয়মের অজুহাত দেখিয়ে কারও কারও দাম্পত্য জীবন বিষিয়ে তোলা হয়।

মূূলত হিল্লা বিয়ে হচ্ছে- তালাক হওয়া একই নারী বা পুরুষের মধ্যে পুনরায় বিয়ে হওয়ার ক্ষেত্রে তৃতীয় কোন ব্যক্তির কাছে একটি নিয়মের মাধ্যমে বিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া। ২০০১ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনের একটি বেঞ্চ এ জাতীয় হিল্লা বিয়ে, ফতোয়াকে অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করেছেন। হিল্লা বিয়ে সম্পর্কে ওই রায়ে বলা হয়েছে- হিল্লা বিয়ের ফতোয়া হচ্ছে ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ধারা নম্বর ৭ এবং বাংলাদেশ দন্ডবিধির ধারা নম্বর ৪৯৪, ৪৯৮, ৫০৮ ও ৫০৯ লঙ্ঘন করা।

কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে- ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৭ নম্বর ধারাটি আমাদের সমাজে কতটুকু মানা হচ্ছে এবং এ সম্পর্কে সাধারণ জনগণ বা কথিত ইসলামী চিন্তাবিদরা কতটুকুই বা জানে। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ধারা ৭-এ বলা আছে- কোনো লোক যদি তার স্ত্রীকে তালাক দিতে চান, তাহলে স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছে যত শিগগিরই সম্ভব লিখিত নোটিশ প্রদান করতে হবে এবং এর একটি কপি স্ত্রীকে দিতে হবে। নইলে তালাক কার্যকর হবে না। সুতরাং এখানে মৌখিক তালাকের অকার্যকরতাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

এ ধারায় বলা হয়েছে- নোটিশ জারি হওয়ার পর ৯০ দিন অতিবাহিত না হলে তালাক কার্যকর হবে না। পূর্ণভাবে তালাক কার্যকর হওয়ার পর স্ত্রী যদি স্বামীর কাছে ফিরে যেতে চান, তবে কাবিনের মাধ্যমে যথাযথ আইনগত পদ্ধতিতে পুনরায় বিয়ে করলেই যথেষ্ট হবে। এক্ষেত্রে তৃতীয় ব্যক্তির সঙ্গে সাময়িক বিয়ের প্রয়োজন নেই এবং তা তিনবার পর্যন্ত প্রযোজ্য হবে। তবে ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশে হিল্লা বিয়ের কিছু সংশোধিত বিধি লিপিবদ্ধ আছে। দম্পতির মধ্যে পূর্ণাঙ্গ তালাক হয়ে যাওয়ার পর যদি উভয়পক্ষ মনে করেন তারা পূর্বাবস্থায় ফিরতে ইচ্ছুক; তবে বিয়ের কাবিন মোতাবেক তৃতীয়বার পর্যন্ত পুনঃবিবাহ করা যায়। কিন্তু তৃতীয়বারের পরে হিল্লা বিয়ের প্রয়োজন হবে। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের কিছু বিধান নিয়ে মতভেদও রয়েছে। কিন্তু এ আইনের একটি ধারায় বলা আছে- এ আইন দেশে বলবৎ অন্য যে কোনো আইন বা প্রথা থেকে প্রাধান্য পাবে।

ফতোয়া কী? ফতোয়া আরবি শব্দ, যার অর্থ হচ্ছে ‘আইন সম্বন্ধীয় মত।’ ধর্মীয় আইন বিশেষজ্ঞ বা ফিকাহশাস্ত্রে অগাধ জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তিরা ফতোয়া দিতে পারেন। যেকোনো পরিস্থিতিতে যখন শরিয়ত-সম্পর্কিত অনুশাসনগুলোতে কোনো জটিল প্রশ্নের সরাসরি মীমাংসা পাওয়া যায় না, তখন মুফতিরা সাধারণত ফতোয়ার মাধ্যমে পূর্ববর্তী নজির এনে সমাধান দেন। বর্তমানে যেসব ফতোয়া জারি করা হচ্ছে, তার মধ্যে দোররা মারা, পাথর ছুড়ে মারা, জুতাপেটা, মাথার চুল কেটে দেওয়া, বেঁধে পেটানো, মাটিতে অর্ধেক পুঁতে পাথর ছোড়া, হিল্লা বিয়ে দেওয়া ইত্যাদি। এসব নির্দেশ কোনো মতেই ফতোয়ার সুস্পষ্ট সংজ্ঞাকে সমর্থন করে না।

সব ঘটনা বাংলাদেশের সংবিধানের মৌলিক অধিকার-সম্পর্কিত যেসব বিধান আছে এর ২৭, ২৮, ৩১ ও ৩৫ অনুচ্ছেদের সরাসরি লঙ্ঘন। ২০০১ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনের বেঞ্চ থেকে ফতোয়াকে যে অবৈধ বলে ঘোষণা করা হয়, তা সাইফুল ও শাহিদা দম্পতির মৌখিক তালাক ও হিল্লা বিয়েকে কেন্দ্র করে মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দেওয়া হয়। বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের মতামত সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা একমাত্র আদালতেরই আছে। ফতোয়াবাজির ঘটনাকে আমলে নিতে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের প্রতি নির্দেশ, স্বল্পমেয়াদি ব্যবস্থা হিসেবে সব স্কুল ও মাদ্রাসায় পারিবারিক আইন পাঠ বাধ্যতামূলক করা প্রভৃতি। এসব ফতোয়া বাংলাদেশের বিধিবদ্ধ ১৯৬১-এর মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৭ ধারার বহির্ভূত এবং এ আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

এ রায়ে স্পষ্টভাবে বলা হয়- এসব ফতোয়ায় বাংলাদেশে প্রচলিত মুসলিম আইনসহ বিভিন্ন আইনের লঙ্ঘন করা হচ্ছে। রায়ে বলা হয়- কেবল তিনবার ‘তালাক’ (একবারে বা একেক করে তিনবারে) করলেই বিবাহ বিচ্ছেদ হয় না। এই চর্চা কোরআন, হাদিস এমনকি মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ (ধারা-৭) এরও বিরোধী। ‘স্বামী কর্তৃক বিবাহ বিচ্ছেদের এই অসাধু পন্থা এবং এর অপপ্রয়োগ নবী স্বয়ং নিজেও দৃঢ়ভাবে নিষেধ করেছেন।

বাংলাদেশে হিল্লা বিয়ে সম্পূর্ণ বেআইনি কাজ ও আইনত দন্ডনীয়। হিল্লা বিয়ের উপস্থিত অতিথিসহ কাজির ৬ মাসের জেলের বিধান করে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ফিল্ড মার্শাল আইয়ূব খান হিল্লা বিয়ে নিষিদ্ধকরণ সংক্রান্ত আইন করেন। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন ৭(৬) ধারা অনুযায়ী তালাকের মাধ্যমে কোন বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটলে, তালাক হওয়া দম্পতি আবার বিয়ে করতে চাইলে হিল্লা বিয়ে ছাড়াই পুনরায় বিয়ে করতে পারবেন।

[লেখক : আইনজীবী, সুপ্রিম কোর্ট]

মেগা প্রকল্প ঘিরে পর্যটনের সম্ভাবনা

বিশ্বব্যাপী ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে

শেষ আফ্রিকান টিক ওক গাছটি কি মারা গেছে?

তথ্যপ্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক

ছবি

সময়মতো শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছাক পাঠ্যবই

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

আঞ্চলিক যোগাযোগের গুরুত্ব

কৃষি ও কম্পিউটার শিক্ষা বাস্তবমুখী হওয়া প্রয়োজন

জনপ্রিয়তা, সম্মান এবং সৃষ্টি সুখের গোপন তরিকা

ছবি

বছরে ১০ বিলিয়ন ডলার চামড়া রপ্তানি করা সম্ভব

ছবি

স্বপ্নছোঁয়া জয় ও এগিয়ে যাওয়ার পথনকশা

সড়ক দুর্ঘটনার মূল্য কত

ছবি

হার না মানা লাল-সবুজের মেয়েরা

ছবি

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

সেলিম : ভারতে বামপন্থার পুনর্জাগরণের ঋত্ত্বিক

ছবি

পোলট্রি শিল্পের সংকট

ছবি

বিদায় রানী এলিজাবেথ

সর্প দংশনের কার্যকর চিকিৎসা পেতে চ্যালেঞ্জ এবং বাধা

খেলনা শিল্পের সম্ভাবনা

অভিযোজন সক্ষমতা বাড়াতে গাছ লাগানোর গুরুত্ব

ছবি

যানজট : অর্থনীতির নীরব ঘাতক

বিপজ্জনক বর্জ্য এবং এর ব্যবস্থাপনা

কৃষি খাতের উন্নয়ন ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ

নতুন শিক্ষাক্রম ও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক

বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে ঢাকা

প্রাথমিক শিক্ষা ও প্রাসঙ্গিক বিষয়

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

রেলওয়ের অব্যবস্থাপনা

বিশ্বে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির আগ্রাসন

সুন্দরবনের সুরক্ষায় সমন্বিত ও টেকসই পদক্ষেপ নিতে হবে

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষার জন্য রিডিং কম্পিটিশন

দুগ্ধশিল্পের সম্ভাবনা ও সংকট

বাণিজ্য ঘাটতি কমবে কীভাবে

সেন্টার বেইজড বিশ্বমানের হাসপাতাল

ডিজিটাল বৈষম্য দূর করা জরুরি

tab

উপ-সম্পাদকীয়

আইনে হিল্লা বিয়ে বলে কিছু নেই

সিরাজ প্রামাণিক

শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

হিল্লা বিয়ে একটি কুসংস্কার ও আমাদের দেশের প্রচলিত আইনবিরোধী। তালাকের পর নিয়ম মেনে একই ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে করতে আইনে কোথাও বাধা নেই। মুসলিম আইনে এ ব্যাপারে যথাযথ বিধান থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। ‘নানা মুনির নানা মত’ নিয়ে শরিয়া নিয়মের অজুহাত দেখিয়ে কারও কারও দাম্পত্য জীবন বিষিয়ে তোলা হয়।

মূূলত হিল্লা বিয়ে হচ্ছে- তালাক হওয়া একই নারী বা পুরুষের মধ্যে পুনরায় বিয়ে হওয়ার ক্ষেত্রে তৃতীয় কোন ব্যক্তির কাছে একটি নিয়মের মাধ্যমে বিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া। ২০০১ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনের একটি বেঞ্চ এ জাতীয় হিল্লা বিয়ে, ফতোয়াকে অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করেছেন। হিল্লা বিয়ে সম্পর্কে ওই রায়ে বলা হয়েছে- হিল্লা বিয়ের ফতোয়া হচ্ছে ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ধারা নম্বর ৭ এবং বাংলাদেশ দন্ডবিধির ধারা নম্বর ৪৯৪, ৪৯৮, ৫০৮ ও ৫০৯ লঙ্ঘন করা।

কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে- ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৭ নম্বর ধারাটি আমাদের সমাজে কতটুকু মানা হচ্ছে এবং এ সম্পর্কে সাধারণ জনগণ বা কথিত ইসলামী চিন্তাবিদরা কতটুকুই বা জানে। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ধারা ৭-এ বলা আছে- কোনো লোক যদি তার স্ত্রীকে তালাক দিতে চান, তাহলে স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছে যত শিগগিরই সম্ভব লিখিত নোটিশ প্রদান করতে হবে এবং এর একটি কপি স্ত্রীকে দিতে হবে। নইলে তালাক কার্যকর হবে না। সুতরাং এখানে মৌখিক তালাকের অকার্যকরতাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

এ ধারায় বলা হয়েছে- নোটিশ জারি হওয়ার পর ৯০ দিন অতিবাহিত না হলে তালাক কার্যকর হবে না। পূর্ণভাবে তালাক কার্যকর হওয়ার পর স্ত্রী যদি স্বামীর কাছে ফিরে যেতে চান, তবে কাবিনের মাধ্যমে যথাযথ আইনগত পদ্ধতিতে পুনরায় বিয়ে করলেই যথেষ্ট হবে। এক্ষেত্রে তৃতীয় ব্যক্তির সঙ্গে সাময়িক বিয়ের প্রয়োজন নেই এবং তা তিনবার পর্যন্ত প্রযোজ্য হবে। তবে ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশে হিল্লা বিয়ের কিছু সংশোধিত বিধি লিপিবদ্ধ আছে। দম্পতির মধ্যে পূর্ণাঙ্গ তালাক হয়ে যাওয়ার পর যদি উভয়পক্ষ মনে করেন তারা পূর্বাবস্থায় ফিরতে ইচ্ছুক; তবে বিয়ের কাবিন মোতাবেক তৃতীয়বার পর্যন্ত পুনঃবিবাহ করা যায়। কিন্তু তৃতীয়বারের পরে হিল্লা বিয়ের প্রয়োজন হবে। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের কিছু বিধান নিয়ে মতভেদও রয়েছে। কিন্তু এ আইনের একটি ধারায় বলা আছে- এ আইন দেশে বলবৎ অন্য যে কোনো আইন বা প্রথা থেকে প্রাধান্য পাবে।

ফতোয়া কী? ফতোয়া আরবি শব্দ, যার অর্থ হচ্ছে ‘আইন সম্বন্ধীয় মত।’ ধর্মীয় আইন বিশেষজ্ঞ বা ফিকাহশাস্ত্রে অগাধ জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তিরা ফতোয়া দিতে পারেন। যেকোনো পরিস্থিতিতে যখন শরিয়ত-সম্পর্কিত অনুশাসনগুলোতে কোনো জটিল প্রশ্নের সরাসরি মীমাংসা পাওয়া যায় না, তখন মুফতিরা সাধারণত ফতোয়ার মাধ্যমে পূর্ববর্তী নজির এনে সমাধান দেন। বর্তমানে যেসব ফতোয়া জারি করা হচ্ছে, তার মধ্যে দোররা মারা, পাথর ছুড়ে মারা, জুতাপেটা, মাথার চুল কেটে দেওয়া, বেঁধে পেটানো, মাটিতে অর্ধেক পুঁতে পাথর ছোড়া, হিল্লা বিয়ে দেওয়া ইত্যাদি। এসব নির্দেশ কোনো মতেই ফতোয়ার সুস্পষ্ট সংজ্ঞাকে সমর্থন করে না।

সব ঘটনা বাংলাদেশের সংবিধানের মৌলিক অধিকার-সম্পর্কিত যেসব বিধান আছে এর ২৭, ২৮, ৩১ ও ৩৫ অনুচ্ছেদের সরাসরি লঙ্ঘন। ২০০১ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনের বেঞ্চ থেকে ফতোয়াকে যে অবৈধ বলে ঘোষণা করা হয়, তা সাইফুল ও শাহিদা দম্পতির মৌখিক তালাক ও হিল্লা বিয়েকে কেন্দ্র করে মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দেওয়া হয়। বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের মতামত সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা একমাত্র আদালতেরই আছে। ফতোয়াবাজির ঘটনাকে আমলে নিতে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের প্রতি নির্দেশ, স্বল্পমেয়াদি ব্যবস্থা হিসেবে সব স্কুল ও মাদ্রাসায় পারিবারিক আইন পাঠ বাধ্যতামূলক করা প্রভৃতি। এসব ফতোয়া বাংলাদেশের বিধিবদ্ধ ১৯৬১-এর মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৭ ধারার বহির্ভূত এবং এ আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

এ রায়ে স্পষ্টভাবে বলা হয়- এসব ফতোয়ায় বাংলাদেশে প্রচলিত মুসলিম আইনসহ বিভিন্ন আইনের লঙ্ঘন করা হচ্ছে। রায়ে বলা হয়- কেবল তিনবার ‘তালাক’ (একবারে বা একেক করে তিনবারে) করলেই বিবাহ বিচ্ছেদ হয় না। এই চর্চা কোরআন, হাদিস এমনকি মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ (ধারা-৭) এরও বিরোধী। ‘স্বামী কর্তৃক বিবাহ বিচ্ছেদের এই অসাধু পন্থা এবং এর অপপ্রয়োগ নবী স্বয়ং নিজেও দৃঢ়ভাবে নিষেধ করেছেন।

বাংলাদেশে হিল্লা বিয়ে সম্পূর্ণ বেআইনি কাজ ও আইনত দন্ডনীয়। হিল্লা বিয়ের উপস্থিত অতিথিসহ কাজির ৬ মাসের জেলের বিধান করে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ফিল্ড মার্শাল আইয়ূব খান হিল্লা বিয়ে নিষিদ্ধকরণ সংক্রান্ত আইন করেন। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন ৭(৬) ধারা অনুযায়ী তালাকের মাধ্যমে কোন বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটলে, তালাক হওয়া দম্পতি আবার বিয়ে করতে চাইলে হিল্লা বিয়ে ছাড়াই পুনরায় বিয়ে করতে পারবেন।

[লেখক : আইনজীবী, সুপ্রিম কোর্ট]

back to top