alt

সম্পাদকীয়

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

: সোমবার, ১২ জুলাই ২০২১

আজ থেকে দেশে আবার গণটিকাদান শুরু হয়েছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দেয়া হচ্ছে চীনের সিনোফার্মের টিকা। ১২টি মহানগরে আগামিকাল থেকে মডার্নার টিকা দেয়া শুরু হবে। সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্না- এই তিন কোম্পানির ৫৮ লাখ ৫৪ হাজারের কিছু বেশি টিকা দেশে এখন মজুদ আছে। সরকার বলেছে, চীন থেকে কেনা বাকি টিকা আসবে সেপ্টেম্বরের মধ্যে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩৫ লাখ টিকা আসবে আগস্টের শুরুর দিকে।

ভ্যাকসিনেশনের মাধ্যমে মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ গড়ে তুলতে হলে দেশের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষকে দুই ডোজ করে টিকা দিতে হবে। আর টিকা দিতে হবে এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে। কারণ মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা অ্যান্টিবডি সক্রিয় থাকে কমবেশি এক বছর।

সরকার দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে চায়। দেশের জনসংখ্যা কমবেশি ১৭ কোটি। সেই হিসাবে ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে হলে সাড়ে ১৩ কোটিরও বেশি মানুষকে ২ ডোজ করে মোট ২৭ কোটিরও বেশি ডোজ টিকা দিতে হবে। দেশে টিকা দেয়া শুরু হয়েছে ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে। এখন পর্যন্ত ১ কোটি ডোজের চেয়ে কিছু বেশি টিকা দেয়া হয়েছে। টিকাদানের শুরুর সময় থেকে হিসাব করলে দেখা যায়, হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করতে হলে আগামী বছর ফেব্রুয়ারি, বড়জোর আগস্টের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বাকি ২৬ কোটি ডোজ টিকা দিতে হবে। অর্থাৎ প্রতি মাসে টিকা লাগবে প্রায় ২ কোটি ডোজ।

প্রশ্ন হচ্ছে, যে গতিতে টিকা দেয়া হচ্ছে তাতে এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে ৮০ শতাংশ মানুষকে দুই ডোজ করে টিকা দেয়া সম্ভব হবে কিনা। টিকা দেয়ার সক্ষমতায় দেশ পিছিয়ে নেই। সরকারি কর্মকর্তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, দিনে ৭ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে। সমস্যা হচ্ছে টিকার জোগান নিয়ে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি হিসাব করে দেখেছে যে, দেশে প্রতি মাসে গড়ে ৫০ লাখ টিকা আনা হতে পারে। এই গতিতে টিকা এলে দেশের বেশির ভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে ২০২৪ সাল লেগে যাবে। করোনাভাইরাসের টিকা আমদানির অগ্রগতি নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সন্তুষ্ট নয়। এ বিষয়ে কমিটি আগেও অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল।

তিন-চার বছর ধরে টিকা দেয়া হলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন সম্ভব হবে কীভাবে সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। প্রয়োজন অনুযায়ী টিকার সংস্থান করা বড় একটি চ্যালেঞ্জ। একাধিক উৎস থেকে টিকা সংগ্রহ করা হলেও তা চাহিদার তুলনায় অনেক কম। টিকা কেনা বা আমদানির ক্ষেত্রে বাস্তবায়নযোগ্য বিশদ পরিকল্পনা থাকতে হবে। দেশে টিকা উৎপাদন করার যে ঘোষণা দিয়েছে সরকার তা বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে। মহামারীকে মোকাবিলা করতে হলে যেভাবেই হোক হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করতে হবে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

সোমবার, ১২ জুলাই ২০২১

আজ থেকে দেশে আবার গণটিকাদান শুরু হয়েছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দেয়া হচ্ছে চীনের সিনোফার্মের টিকা। ১২টি মহানগরে আগামিকাল থেকে মডার্নার টিকা দেয়া শুরু হবে। সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্না- এই তিন কোম্পানির ৫৮ লাখ ৫৪ হাজারের কিছু বেশি টিকা দেশে এখন মজুদ আছে। সরকার বলেছে, চীন থেকে কেনা বাকি টিকা আসবে সেপ্টেম্বরের মধ্যে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩৫ লাখ টিকা আসবে আগস্টের শুরুর দিকে।

ভ্যাকসিনেশনের মাধ্যমে মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ গড়ে তুলতে হলে দেশের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষকে দুই ডোজ করে টিকা দিতে হবে। আর টিকা দিতে হবে এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে। কারণ মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা অ্যান্টিবডি সক্রিয় থাকে কমবেশি এক বছর।

সরকার দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে চায়। দেশের জনসংখ্যা কমবেশি ১৭ কোটি। সেই হিসাবে ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে হলে সাড়ে ১৩ কোটিরও বেশি মানুষকে ২ ডোজ করে মোট ২৭ কোটিরও বেশি ডোজ টিকা দিতে হবে। দেশে টিকা দেয়া শুরু হয়েছে ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে। এখন পর্যন্ত ১ কোটি ডোজের চেয়ে কিছু বেশি টিকা দেয়া হয়েছে। টিকাদানের শুরুর সময় থেকে হিসাব করলে দেখা যায়, হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করতে হলে আগামী বছর ফেব্রুয়ারি, বড়জোর আগস্টের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বাকি ২৬ কোটি ডোজ টিকা দিতে হবে। অর্থাৎ প্রতি মাসে টিকা লাগবে প্রায় ২ কোটি ডোজ।

প্রশ্ন হচ্ছে, যে গতিতে টিকা দেয়া হচ্ছে তাতে এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে ৮০ শতাংশ মানুষকে দুই ডোজ করে টিকা দেয়া সম্ভব হবে কিনা। টিকা দেয়ার সক্ষমতায় দেশ পিছিয়ে নেই। সরকারি কর্মকর্তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, দিনে ৭ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে। সমস্যা হচ্ছে টিকার জোগান নিয়ে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি হিসাব করে দেখেছে যে, দেশে প্রতি মাসে গড়ে ৫০ লাখ টিকা আনা হতে পারে। এই গতিতে টিকা এলে দেশের বেশির ভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে ২০২৪ সাল লেগে যাবে। করোনাভাইরাসের টিকা আমদানির অগ্রগতি নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সন্তুষ্ট নয়। এ বিষয়ে কমিটি আগেও অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল।

তিন-চার বছর ধরে টিকা দেয়া হলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন সম্ভব হবে কীভাবে সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। প্রয়োজন অনুযায়ী টিকার সংস্থান করা বড় একটি চ্যালেঞ্জ। একাধিক উৎস থেকে টিকা সংগ্রহ করা হলেও তা চাহিদার তুলনায় অনেক কম। টিকা কেনা বা আমদানির ক্ষেত্রে বাস্তবায়নযোগ্য বিশদ পরিকল্পনা থাকতে হবে। দেশে টিকা উৎপাদন করার যে ঘোষণা দিয়েছে সরকার তা বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে। মহামারীকে মোকাবিলা করতে হলে যেভাবেই হোক হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করতে হবে।

back to top