alt

সম্পাদকীয়

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

: মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর ১৮ মাস পার হয়েছে। মহামারীর কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ব্যাহত হচ্ছে অসংখ্য শিশুর পড়াশোনা। এ অবস্থায় বিভিন্ন দেশের বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক ও ইউনেসকোর মহাপরিচালক। গতকাল সোমবার এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান তারা।

দেশে করোনা সংক্রমণ এখন চরম পর্যায়ে। প্রতিদিন সংক্রমণ ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হচ্ছে। এ অবস্থায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা ভাবা যায় না। তবে সংক্রমণ পরিস্থিতি যখন কম ভয়াবহ ছিল, এমন কি করোনা যখন নিয়ন্ত্রণে ছিল তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে কার্যত কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এ বছরের জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু করে প্রায় দুই মাস করোনা শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে ছিল। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল এবং প্রায় সব দেশের বিজ্ঞানীদের পরামর্শ অনুযায়ী পরপর দুই সপ্তাহ শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে করোনা নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরে নেয়া হয়। অথচ তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হয়নি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছাড়া সবই খোলা ছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে, গ্রামাঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া যেত। কারণ প্রত্যন্ত অঞ্চলে তখনও করোনা ছড়ায়নি।

গত এক বছরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে কার্যকর কোন আলোচনাই হয়নি। করোনার অজুহাতে পুরো সময় নীরব থেকেছে সরকার। এদিকে দীর্ঘদিন শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে আছে। প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থীর পড়াশোনা বিঘিœত হচ্ছে। তাদের একটা অংশের পড়াশোনা চিরকালের জন্য বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সম্প্রতি একটি বেসরকারি গবেষণায় দেখা গেছে, করোনা সংক্রমণের পর বিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকার কারণে প্রাথমিকের ১৯ শতাংশ এবং মাধ্যমিকের ২৫ শতাংশ শিক্ষার্থী শিখতে না পারার বা শিক্ষণঘাটতির ঝুঁকিতে আছে। ইউনিসেফের মতে, শিশুদের পড়াশোনা ও সার্বিক সুস্থতার ক্ষেত্রে স্কুল বন্ধ রাখার পরিণতি ধ্বংসাত্মক। সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা এবং যারা দূরশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পায় না, তারা আর কখনও ক্লাসরুমে ফিরতে না পারার ঝুঁকিতে রয়েছে। এমনকি বাল্যবিয়ে বা শিশুশ্রমে সম্পৃক্ত হওয়ার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকিতে রয়েছে এসব শিশু। যার বাইরে বাংলাদেশের শিশুরাও নয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে আদতে সরকারের পরিকল্পনা কী সেটা একটা প্রশ্ন। এ নিয়ে কখনই ধোঁয়াশা কাটেনি। টানা প্রায় দুই মাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকার সময়ও স্কুল-কলেজ খোলা হয়নি। তাহলে কি করোনা শূন্যের কোটায় নামার পর সেগুলো খোলা হবে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বহু আগেই হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, পৃথিবী থেকে করোনা সহসাই বিদায় নিচ্ছে না। বরং এই ভাইরাসের সঙ্গেই আগামীতে বিশ্ববাসীকে বসবাস করতে হতে পারে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সবাইকে টিকার আওতায় এনে তারপর স্কুল-কলেজ খোলার চিন্তা কতটা বাস্তবসম্মত সেই প্রশ্ন রয়েছে। এক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে, ১৮ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার বিষয়ে এখনও বিশ্বের বিজ্ঞানীরা কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেননি।

দেশে করোনা সংক্রমণ যে পর্যায়ে আছে তাতে এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা ভাবা যায় না। তবে বিভিন্ন দেশের অভিজ্ঞতা থেকে ধারণা করা যায় যে, করোনার সংক্রমণের গতি এক সময় ধীর হবে, করোনা শনাক্তের হার নিয়ন্ত্রণে আসবে। তাছাড়া টিকাও আসছে। শুরু হয়েছে গণটিকাদান। কাজেই আগামীতে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি আশা করা যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে কিনা সে বিষয়ে বাস্তবায়নযোগ্য পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। আমরা চাই না, বাংলাদেশ বিশ্বের সেইসব গুটিকয়েক দেশের একটি হয়ে থাকুক যেসব দেশ মহামারীকালে বছরাধিককাল জুড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর ১৮ মাস পার হয়েছে। মহামারীর কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ব্যাহত হচ্ছে অসংখ্য শিশুর পড়াশোনা। এ অবস্থায় বিভিন্ন দেশের বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক ও ইউনেসকোর মহাপরিচালক। গতকাল সোমবার এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান তারা।

দেশে করোনা সংক্রমণ এখন চরম পর্যায়ে। প্রতিদিন সংক্রমণ ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হচ্ছে। এ অবস্থায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা ভাবা যায় না। তবে সংক্রমণ পরিস্থিতি যখন কম ভয়াবহ ছিল, এমন কি করোনা যখন নিয়ন্ত্রণে ছিল তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে কার্যত কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এ বছরের জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু করে প্রায় দুই মাস করোনা শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে ছিল। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল এবং প্রায় সব দেশের বিজ্ঞানীদের পরামর্শ অনুযায়ী পরপর দুই সপ্তাহ শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে করোনা নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরে নেয়া হয়। অথচ তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হয়নি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছাড়া সবই খোলা ছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে, গ্রামাঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া যেত। কারণ প্রত্যন্ত অঞ্চলে তখনও করোনা ছড়ায়নি।

গত এক বছরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে কার্যকর কোন আলোচনাই হয়নি। করোনার অজুহাতে পুরো সময় নীরব থেকেছে সরকার। এদিকে দীর্ঘদিন শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে আছে। প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থীর পড়াশোনা বিঘিœত হচ্ছে। তাদের একটা অংশের পড়াশোনা চিরকালের জন্য বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সম্প্রতি একটি বেসরকারি গবেষণায় দেখা গেছে, করোনা সংক্রমণের পর বিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকার কারণে প্রাথমিকের ১৯ শতাংশ এবং মাধ্যমিকের ২৫ শতাংশ শিক্ষার্থী শিখতে না পারার বা শিক্ষণঘাটতির ঝুঁকিতে আছে। ইউনিসেফের মতে, শিশুদের পড়াশোনা ও সার্বিক সুস্থতার ক্ষেত্রে স্কুল বন্ধ রাখার পরিণতি ধ্বংসাত্মক। সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা এবং যারা দূরশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পায় না, তারা আর কখনও ক্লাসরুমে ফিরতে না পারার ঝুঁকিতে রয়েছে। এমনকি বাল্যবিয়ে বা শিশুশ্রমে সম্পৃক্ত হওয়ার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকিতে রয়েছে এসব শিশু। যার বাইরে বাংলাদেশের শিশুরাও নয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে আদতে সরকারের পরিকল্পনা কী সেটা একটা প্রশ্ন। এ নিয়ে কখনই ধোঁয়াশা কাটেনি। টানা প্রায় দুই মাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকার সময়ও স্কুল-কলেজ খোলা হয়নি। তাহলে কি করোনা শূন্যের কোটায় নামার পর সেগুলো খোলা হবে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বহু আগেই হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, পৃথিবী থেকে করোনা সহসাই বিদায় নিচ্ছে না। বরং এই ভাইরাসের সঙ্গেই আগামীতে বিশ্ববাসীকে বসবাস করতে হতে পারে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সবাইকে টিকার আওতায় এনে তারপর স্কুল-কলেজ খোলার চিন্তা কতটা বাস্তবসম্মত সেই প্রশ্ন রয়েছে। এক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে, ১৮ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার বিষয়ে এখনও বিশ্বের বিজ্ঞানীরা কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেননি।

দেশে করোনা সংক্রমণ যে পর্যায়ে আছে তাতে এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা ভাবা যায় না। তবে বিভিন্ন দেশের অভিজ্ঞতা থেকে ধারণা করা যায় যে, করোনার সংক্রমণের গতি এক সময় ধীর হবে, করোনা শনাক্তের হার নিয়ন্ত্রণে আসবে। তাছাড়া টিকাও আসছে। শুরু হয়েছে গণটিকাদান। কাজেই আগামীতে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি আশা করা যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে কিনা সে বিষয়ে বাস্তবায়নযোগ্য পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। আমরা চাই না, বাংলাদেশ বিশ্বের সেইসব গুটিকয়েক দেশের একটি হয়ে থাকুক যেসব দেশ মহামারীকালে বছরাধিককাল জুড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে।

back to top