alt

সম্পাদকীয়

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

: শনিবার, ১৭ জুলাই ২০২১

বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে আজ গাজীপুরের লক্ষ্মীপুরায় পোশাক শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন। স্টাইল ক্র্যাফট লিমিটেড নামক তৈরি পোশাক কারখানার আন্দোলনরত শ্রমিকরা অভিযোগ করেছেন যে, তাদের ৮ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। ঈদের আগে একাধিকবার প্রতিশ্রুতি দিলেও মালিকপক্ষ বেতন-ভাতা পরিশোধ করছে না।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে, দেশের সাড়ে পাঁচশ’র বেশি রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক ও বস্ত্র কারখানা এখনও জুনের বেতন পরিশোধ করেনি। সাব-কন্ট্রাক্টিংয়েয় কাজ করে এমন কারখানা হিসাবে নিলে বেতন না দেয়া কারখানার সংখ্যা হবে প্রায় এক হাজার।

শিল্পপুলিশের হিসাব অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিজিএমইএর ৩৪৬, বিকেএমইএর ১৫২ ও বিটিএমএর ৮১ কারখানা শ্রমিকদের জুনের বেতন-ভাতা দেয়নি। শিল্পপুলিশ বলছে, বিজিএমইএর ১ হাজার ৩৮২, বিকেএমইএর ৪৯৫ ও বিটিএমএর ২৪২টি কারখানা এখনও ঈদ বোনাস দেয়নি। তবে বিজিএমইএ দাবি করছে যে, ৯০ শতাংশ কারখানা বেতন পরিশোধ করেছে।

শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের জুনের বেতন ও ঈদ-বোনাস আগামী ১৯ জুলাইয়ের মধ্যে পরিশোধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তবে এ সময়ের মধ্যে সব পোশাক কারখানায় বেতন-বোনাস পরিশোধ করা সম্ভব হবে কিনা সেটা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এবারই প্রথম নয়, প্রতি ঈদের আগেই এক শ্রেণীর পোশাক কারখানা বেতন-বোনাস পরিশোধ করা নিয়ে নানা টালবাহানা করে। বিশেষ করে সাব-কন্ট্রাক্টে কাজ করা কারখানাগুলো যথাসময়ে বেতন-বোনাস পরিশোধ করে না। শেষ সময়ে বেতন-বোনাস না পেয়ে অনেক শ্রমিককে ফিরতে হয় শূন্য হাতে।

ঈদুল আজহার বাকি আছে আর মাত্র ২ দিন। ঈদ উৎসবেও শ্রমিকদের যথাসময়ে বেতন-বোনাস না দেয়া অমানবিক। আমরা এ অমানবিকতার অবসান চাই। শ্রম আইনের বিধান হচ্ছে, এক মাসের বেতন পরের মাসের ৭ কর্মদিবস বা ১০ তারিখের মধ্যে দিতে হবে। সেটা মানেনি বহু কারখানা। শ্রম প্রতিমন্ত্রী ১৯ জুলাইয়ের মধ্যে জুনের বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধের আহ্বান জানিয়েছেন। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্টরা এ আহ্বানে ইতিবাচকভাবে সাড়া দেবে।

যথাসময়ে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস না দেয়ার সমস্যা শুধু পোশাক কারখানার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। অন্যান্য অনেক শিল্পকারখানায়ও বেতন বকেয়া আছে। এসব কারখানার শ্রমিকদের বকেয়াও পরিশোধ করতে হবে। যেসব কারখানার বেতন-বোনাস ঝুলিয়ে রেখেছে সেগুলোকে নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে না দিয়ে কেউ যেন পার না পায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

শনিবার, ১৭ জুলাই ২০২১

বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে আজ গাজীপুরের লক্ষ্মীপুরায় পোশাক শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন। স্টাইল ক্র্যাফট লিমিটেড নামক তৈরি পোশাক কারখানার আন্দোলনরত শ্রমিকরা অভিযোগ করেছেন যে, তাদের ৮ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। ঈদের আগে একাধিকবার প্রতিশ্রুতি দিলেও মালিকপক্ষ বেতন-ভাতা পরিশোধ করছে না।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে, দেশের সাড়ে পাঁচশ’র বেশি রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক ও বস্ত্র কারখানা এখনও জুনের বেতন পরিশোধ করেনি। সাব-কন্ট্রাক্টিংয়েয় কাজ করে এমন কারখানা হিসাবে নিলে বেতন না দেয়া কারখানার সংখ্যা হবে প্রায় এক হাজার।

শিল্পপুলিশের হিসাব অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিজিএমইএর ৩৪৬, বিকেএমইএর ১৫২ ও বিটিএমএর ৮১ কারখানা শ্রমিকদের জুনের বেতন-ভাতা দেয়নি। শিল্পপুলিশ বলছে, বিজিএমইএর ১ হাজার ৩৮২, বিকেএমইএর ৪৯৫ ও বিটিএমএর ২৪২টি কারখানা এখনও ঈদ বোনাস দেয়নি। তবে বিজিএমইএ দাবি করছে যে, ৯০ শতাংশ কারখানা বেতন পরিশোধ করেছে।

শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের জুনের বেতন ও ঈদ-বোনাস আগামী ১৯ জুলাইয়ের মধ্যে পরিশোধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তবে এ সময়ের মধ্যে সব পোশাক কারখানায় বেতন-বোনাস পরিশোধ করা সম্ভব হবে কিনা সেটা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এবারই প্রথম নয়, প্রতি ঈদের আগেই এক শ্রেণীর পোশাক কারখানা বেতন-বোনাস পরিশোধ করা নিয়ে নানা টালবাহানা করে। বিশেষ করে সাব-কন্ট্রাক্টে কাজ করা কারখানাগুলো যথাসময়ে বেতন-বোনাস পরিশোধ করে না। শেষ সময়ে বেতন-বোনাস না পেয়ে অনেক শ্রমিককে ফিরতে হয় শূন্য হাতে।

ঈদুল আজহার বাকি আছে আর মাত্র ২ দিন। ঈদ উৎসবেও শ্রমিকদের যথাসময়ে বেতন-বোনাস না দেয়া অমানবিক। আমরা এ অমানবিকতার অবসান চাই। শ্রম আইনের বিধান হচ্ছে, এক মাসের বেতন পরের মাসের ৭ কর্মদিবস বা ১০ তারিখের মধ্যে দিতে হবে। সেটা মানেনি বহু কারখানা। শ্রম প্রতিমন্ত্রী ১৯ জুলাইয়ের মধ্যে জুনের বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধের আহ্বান জানিয়েছেন। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্টরা এ আহ্বানে ইতিবাচকভাবে সাড়া দেবে।

যথাসময়ে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস না দেয়ার সমস্যা শুধু পোশাক কারখানার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। অন্যান্য অনেক শিল্পকারখানায়ও বেতন বকেয়া আছে। এসব কারখানার শ্রমিকদের বকেয়াও পরিশোধ করতে হবে। যেসব কারখানার বেতন-বোনাস ঝুলিয়ে রেখেছে সেগুলোকে নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে না দিয়ে কেউ যেন পার না পায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

back to top