alt

সম্পাদকীয়

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

: মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চলতি বছরের ১১ জুলাই পর্যন্ত দেশে গ্রেপ্তার করা হয়েছে অন্তত ৪৩৩ জনকে। লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের করা এক গবেষণা প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে এই তথ্য। সংগঠনটি বলছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অনলাইনে ‘ভুয়া ও আক্রমণাত্মক’ বক্তব্য প্রকাশের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন সাংবাদিক, অধিকারকর্মী, উদ্যোক্তা, কার্টুনিস্ট, গায়ক, শিক্ষার্থী প্রভৃতি শ্রেণী-পেশার মানুষ। এমনকি লিখতে-পড়তে না জানা একজন কৃষককেও উক্ত আইনে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সংগঠনটির হিসাব অনুযায়ী, ২০১৮ সালের অক্টোবরে আইনটি প্রবর্তনের পর থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ২ হাজার ব্যক্তির বিরুদ্ধে ১ হাজার ৩০০টি মামলা করা হয়েছে।

মানুষকে সাইবার অপরাধের হাত থেকে রক্ষা করার লক্ষ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়। আইনে পুলিশকে অসীম ক্ষমতা দেয়া হয়েছে বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, এই অসীম ক্ষমতা ব্যবহার করা হয় দুর্বলের বিরুদ্ধে এবং সবলের পক্ষে। কিশোরগঞ্জে অক্ষরজ্ঞানহীন একজন কৃষকের বিরুদ্ধে এই আইনের অধীনে মামলা করা হয়েছে। কৃষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ হচ্ছে, তার পরামর্শে অন্য আরেক ব্যক্তি ফেইসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছে। যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মতো বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমের অপব্যবহার করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে হয়তো আইনটি নিয়ে প্রশ্ন উঠতো না।

বাস্তবক্ষেত্রে দেখা যায়, ফেইসবুক বা অন্য কোন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্ষমতাধর কোন ব্যক্তির সমালোচনা করা এমনকি কোন পোস্টে লাইক দেয়া, কমেন্ট করা বা শেয়ার করার অভিযোগে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিদের ওপর নির্যাতন চালানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এই আইনে পরোয়ানা ছাড়াই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তল্লাশি চালাতে এবং ডিজিটাল ডিভাইস জব্দ করতে পারে। এসব কারণে আইনটি সাধারণ মানুষের রক্ষাকবচ হওয়ার পরিবর্তে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর নির্যাতন-নিপীড়নের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কোন গণতান্ত্রিক দেশে আইনের সিলেক্টিভ প্রয়োগ কাম্য নয়।

সাইবার জগতে মানুষের নিরাপত্তা দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে। মানুষের ‘নিরাপত্তাকে’ আইনের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যে পরিণত করতে হবে। আইনকে মত দমন বা মত প্রকাশের জন্য পীড়ন করার যন্ত্রে পরিণত করলে চলবে না। আমরা মনে করি, দেশে এমন কোন আইন থাকা উচিত নয় যা মানুষের মত প্রকাশের সাংবিধানিক অধিকারকে খর্ব করে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চলতি বছরের ১১ জুলাই পর্যন্ত দেশে গ্রেপ্তার করা হয়েছে অন্তত ৪৩৩ জনকে। লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের করা এক গবেষণা প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে এই তথ্য। সংগঠনটি বলছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অনলাইনে ‘ভুয়া ও আক্রমণাত্মক’ বক্তব্য প্রকাশের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন সাংবাদিক, অধিকারকর্মী, উদ্যোক্তা, কার্টুনিস্ট, গায়ক, শিক্ষার্থী প্রভৃতি শ্রেণী-পেশার মানুষ। এমনকি লিখতে-পড়তে না জানা একজন কৃষককেও উক্ত আইনে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সংগঠনটির হিসাব অনুযায়ী, ২০১৮ সালের অক্টোবরে আইনটি প্রবর্তনের পর থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ২ হাজার ব্যক্তির বিরুদ্ধে ১ হাজার ৩০০টি মামলা করা হয়েছে।

মানুষকে সাইবার অপরাধের হাত থেকে রক্ষা করার লক্ষ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়। আইনে পুলিশকে অসীম ক্ষমতা দেয়া হয়েছে বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, এই অসীম ক্ষমতা ব্যবহার করা হয় দুর্বলের বিরুদ্ধে এবং সবলের পক্ষে। কিশোরগঞ্জে অক্ষরজ্ঞানহীন একজন কৃষকের বিরুদ্ধে এই আইনের অধীনে মামলা করা হয়েছে। কৃষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ হচ্ছে, তার পরামর্শে অন্য আরেক ব্যক্তি ফেইসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছে। যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মতো বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমের অপব্যবহার করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে হয়তো আইনটি নিয়ে প্রশ্ন উঠতো না।

বাস্তবক্ষেত্রে দেখা যায়, ফেইসবুক বা অন্য কোন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্ষমতাধর কোন ব্যক্তির সমালোচনা করা এমনকি কোন পোস্টে লাইক দেয়া, কমেন্ট করা বা শেয়ার করার অভিযোগে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিদের ওপর নির্যাতন চালানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এই আইনে পরোয়ানা ছাড়াই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তল্লাশি চালাতে এবং ডিজিটাল ডিভাইস জব্দ করতে পারে। এসব কারণে আইনটি সাধারণ মানুষের রক্ষাকবচ হওয়ার পরিবর্তে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর নির্যাতন-নিপীড়নের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কোন গণতান্ত্রিক দেশে আইনের সিলেক্টিভ প্রয়োগ কাম্য নয়।

সাইবার জগতে মানুষের নিরাপত্তা দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে। মানুষের ‘নিরাপত্তাকে’ আইনের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যে পরিণত করতে হবে। আইনকে মত দমন বা মত প্রকাশের জন্য পীড়ন করার যন্ত্রে পরিণত করলে চলবে না। আমরা মনে করি, দেশে এমন কোন আইন থাকা উচিত নয় যা মানুষের মত প্রকাশের সাংবিধানিক অধিকারকে খর্ব করে।

back to top