alt

সম্পাদকীয়

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

: মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

বাংলাদেশে পানিতে ডুবে প্রতিবছর বহু শিশু মারা যায়। গত এপ্রিল মাসে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ পানিতে ডুবে মৃত্যুকে নীরব মহামারী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বিস্ময়কর হলেও সত্য যে, দেশে এখন শিশু মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ এটা।

সম্প্রতি গ্লোবাল হেলথ অ্যাডভোকেসি ইনকিউবেটর নামে একটি এনজিওর এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বাংলাদেশে গত ১৯ মাসে ১ হাজার ৫১২ জন পানিতে ডুবে মারা গেছে। এদের মধ্যে ১ হাজার ৩৩২ জন পানিতে পড়ে আর বাকিদের মৃত্যু হয়েছে বিভিন্ন নৌদুর্ঘটনায়। পানিতে পড়ে মৃত্যুর ৭০ শতাংশই শিশু। তবে এটা সম্পূর্ণ চিত্র নয়। গণমাধ্যমে প্রকাশিত কিছু প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করে তারা এই তথ্য দিয়েছে।

দ্য সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশে (সিআইপিআরবি) এবং আইসিডিডিআরবি- এর গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি বছর প্রায় ১৪ হাজার শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। সে হিসাবে প্রতিদিন গড়ে ৪০ জন শিশু পানিতে ডুবে প্রাণ হারায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে পানিতে ডুবে আহত হয় অন্তত এক লাখ শিশু, যাদের মধ্যে ১৩ হাজার পঙ্গুত্ববরণ করে।

বাংলাদেশ হেলথ অ্যান্ড ইনজুরি সার্ভের সর্বশেষ প্রতিবেদনেও দেখা গেছে, বাংলাদেশে দুর্ঘটনায় মৃত্যুর তিন নম্বর কারণ এই পানিতে ডুবে মৃত্যু।

পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুহার এবং পঙ্গুত্ববরণ করার এ পরিসংখ্যান আমাদের উদ্বিগ্ন করে। দেশে মৃত্যুহার কমাতে সরকার বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধকে এসডিজির অন্তর্ভুক্ত করেছে। কিন্তু সেখানে পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধ করার বিষয়টি গুরুত্ব পায়নি। পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চার বছর আগে একটি জাতীয় কৌশলের খসড়া করলেও তা চূড়ান্ত হয়ে আলোর মুখ দেখেনি।

তবে আশার কথা হলো, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় ১৬টি দুর্যোগপ্রবণ জেলা চিহ্নিত করে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। প্রকল্পের মাধ্যমে ১-৫ বছর বয়সী শিশুদের ডে-কেয়ার সেন্টারে রাখা হবে। আর ৬-১০ বছর বয়সী শিশুদের সাঁতার শেখানো হবে। চলতি বছরের অক্টোবর মাসে প্রকল্পটি অনুমোদন হবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

শিশুদের সঠিক তত্ত্বাবধানে রাখা এবং সাঁতার প্রশিক্ষণের কথা আমরা আগেও বলেছি। বিশেষজ্ঞদের মতে সাঁতার শেখানো গেলে ৯৬ শতাংশ মৃত্যু প্রতিরোধ করা সম্ভব। বিলম্ব হলেও সরকার এ বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে। তবে এখানে প্রশ্ন হচ্ছে এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টার’ করার উদ্যোগ কতটা বাস্তবসম্মত? পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর অধিকাংশই ঘটে গ্রামাঞ্চলে বা প্রত্যন্ত এলাকায়। সেই এলাকাগুলতে কী এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টার’ করা হবে? আর করা হলেও তার ব্যবস্থাপনা কী হবে? আর অভিভাবকদের তাদের সন্তানদের এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টারে’ দিনের একটা সময় রাখবার জন্য কীভাবে উদ্বুদ্ধ করা হবে?

আমরা আশা করবো, এই প্রশ্নগুলোর নিরসন করেই ‘ডে কেয়ার সেন্টার’ করা হবে। আর ডে-কেয়ার সেন্টারগুলো প্রকৃত অর্থে যেখানে করা দরকার সেখানেই যেন করা হয়। দুর্যোগপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করার কাজ যেন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়, কোন অঞ্চলপ্রীতি যেন না হয়।

স্কুল, ওয়ার্ড বা এলাকাভিত্তিক সাঁতার শেখানোর উদ্যোগ নেয়া সবচেয়ে জরুরি। এই কার্যক্রমে স্বেচ্ছাসেবী প্রশিক্ষকদের দিয়ে শিশুদের সাঁতার শেখানোর চিন্তা করা যেতে পারে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এতে সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করতে পারেন। তাছাড়া অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে। অভিভাবকরা সচেতন হলে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর হার শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার কাজ সহজ হবে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

বাংলাদেশে পানিতে ডুবে প্রতিবছর বহু শিশু মারা যায়। গত এপ্রিল মাসে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ পানিতে ডুবে মৃত্যুকে নীরব মহামারী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বিস্ময়কর হলেও সত্য যে, দেশে এখন শিশু মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ এটা।

সম্প্রতি গ্লোবাল হেলথ অ্যাডভোকেসি ইনকিউবেটর নামে একটি এনজিওর এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বাংলাদেশে গত ১৯ মাসে ১ হাজার ৫১২ জন পানিতে ডুবে মারা গেছে। এদের মধ্যে ১ হাজার ৩৩২ জন পানিতে পড়ে আর বাকিদের মৃত্যু হয়েছে বিভিন্ন নৌদুর্ঘটনায়। পানিতে পড়ে মৃত্যুর ৭০ শতাংশই শিশু। তবে এটা সম্পূর্ণ চিত্র নয়। গণমাধ্যমে প্রকাশিত কিছু প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করে তারা এই তথ্য দিয়েছে।

দ্য সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশে (সিআইপিআরবি) এবং আইসিডিডিআরবি- এর গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি বছর প্রায় ১৪ হাজার শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। সে হিসাবে প্রতিদিন গড়ে ৪০ জন শিশু পানিতে ডুবে প্রাণ হারায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে পানিতে ডুবে আহত হয় অন্তত এক লাখ শিশু, যাদের মধ্যে ১৩ হাজার পঙ্গুত্ববরণ করে।

বাংলাদেশ হেলথ অ্যান্ড ইনজুরি সার্ভের সর্বশেষ প্রতিবেদনেও দেখা গেছে, বাংলাদেশে দুর্ঘটনায় মৃত্যুর তিন নম্বর কারণ এই পানিতে ডুবে মৃত্যু।

পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুহার এবং পঙ্গুত্ববরণ করার এ পরিসংখ্যান আমাদের উদ্বিগ্ন করে। দেশে মৃত্যুহার কমাতে সরকার বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধকে এসডিজির অন্তর্ভুক্ত করেছে। কিন্তু সেখানে পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধ করার বিষয়টি গুরুত্ব পায়নি। পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চার বছর আগে একটি জাতীয় কৌশলের খসড়া করলেও তা চূড়ান্ত হয়ে আলোর মুখ দেখেনি।

তবে আশার কথা হলো, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় ১৬টি দুর্যোগপ্রবণ জেলা চিহ্নিত করে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। প্রকল্পের মাধ্যমে ১-৫ বছর বয়সী শিশুদের ডে-কেয়ার সেন্টারে রাখা হবে। আর ৬-১০ বছর বয়সী শিশুদের সাঁতার শেখানো হবে। চলতি বছরের অক্টোবর মাসে প্রকল্পটি অনুমোদন হবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

শিশুদের সঠিক তত্ত্বাবধানে রাখা এবং সাঁতার প্রশিক্ষণের কথা আমরা আগেও বলেছি। বিশেষজ্ঞদের মতে সাঁতার শেখানো গেলে ৯৬ শতাংশ মৃত্যু প্রতিরোধ করা সম্ভব। বিলম্ব হলেও সরকার এ বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে। তবে এখানে প্রশ্ন হচ্ছে এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টার’ করার উদ্যোগ কতটা বাস্তবসম্মত? পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর অধিকাংশই ঘটে গ্রামাঞ্চলে বা প্রত্যন্ত এলাকায়। সেই এলাকাগুলতে কী এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টার’ করা হবে? আর করা হলেও তার ব্যবস্থাপনা কী হবে? আর অভিভাবকদের তাদের সন্তানদের এই ‘ডে-কেয়ার সেন্টারে’ দিনের একটা সময় রাখবার জন্য কীভাবে উদ্বুদ্ধ করা হবে?

আমরা আশা করবো, এই প্রশ্নগুলোর নিরসন করেই ‘ডে কেয়ার সেন্টার’ করা হবে। আর ডে-কেয়ার সেন্টারগুলো প্রকৃত অর্থে যেখানে করা দরকার সেখানেই যেন করা হয়। দুর্যোগপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করার কাজ যেন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়, কোন অঞ্চলপ্রীতি যেন না হয়।

স্কুল, ওয়ার্ড বা এলাকাভিত্তিক সাঁতার শেখানোর উদ্যোগ নেয়া সবচেয়ে জরুরি। এই কার্যক্রমে স্বেচ্ছাসেবী প্রশিক্ষকদের দিয়ে শিশুদের সাঁতার শেখানোর চিন্তা করা যেতে পারে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এতে সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করতে পারেন। তাছাড়া অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে। অভিভাবকরা সচেতন হলে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর হার শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার কাজ সহজ হবে।

back to top