alt

সম্পাদকীয়

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যের গরমিল

: মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১

করোনা চিকিৎসা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দেশের ৯৬টি সরকারি হাসপাতালের তথ্য প্রতিদিন বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করে। বিজ্ঞপ্তিতে হাসপাতালগুলোর সাধারণ ও নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) শয্যা, ভর্তি রোগী, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলাসহ কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থার তথ্য থাকে। কিন্তু তাদের দেওয়া তথ্যের সঙ্গে দেশের মাঠপর্যায়ের হাসপাতালগুলোর দেওয়া তথ্যের মিল পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে- ভোলা, কুষ্টিয়া, বাগেরহাট, পটুয়াখালী এবং জামালপুর জেলার হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীদের জন্য ২০টি আইসিইউ রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এসব হাসপাতালে গত রোববার পর্যন্ত সচল কোনো আইসিইউ শয্যাই ছিল না। রাজধানীর মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৫৫৪টি সাধারণ শয্যার সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহ না থাকায় প্রতিদিনই প্রায় ৫০০টি শয্যা খালি থাকছে। গত রোবাবার সেখানেও ৪৮২টি শয্যা খালি দেখানো হয়েছে। তাছাড়া উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগী ভর্তির তথ্যও নেই বিজ্ঞপ্তিতে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর যে তথ্য জানাচ্ছে বাস্তবতার সঙ্গে তার কোন মিল পাওয়া যাচ্ছে না। এটা কী সংশ্লিষ্টদের অনিচ্ছাকৃত ভুল, নাকি ইচ্ছাকৃতভাবে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে তথ্য উপস্থাপন করা হচ্ছে- সেটা জানা জরুরি। তারা যদি জেনে-শুনে তথ্য বিকৃত করে থাকে, তাহলে এর পেছেনের কারণও জানতে হবে। খুঁজে দেখতে হবে তারা কী নিজেদের পিঠ বাঁচানোর জন্য এমন অসত্য তথ্য উপস্থাপন করছে, নাকি সরকার বা সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য করছে।

কাগজে-কলমে উপস্থাপিত তথ্যের সঙ্গে বাস্তবের মিল না থাকলে স্বাস্থ্যখাত নিয়ে সরকারের কর্মপরিকল্পনা বা কাজ করার ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে। কাগজে-কলমে আইসিইউ শয্যা খালি দেখানো হয়েছে। কিন্তু কেন খালি, সেটা কি তারা দেখিয়েছে? এ তথ্য দেখে নীতি-নির্ধারকরা ভাবতে পারেন যে, রোগীর চাপ নেই, তাই শয্যা খালি।

অনেক হাসপাতালে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও লোকবল দেওয়া হয়নি। আবার সরঞ্জাম দিলেও তা নষ্ট হয়ে আছে, মোরামত করা হচ্ছে না। কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৩৪টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলার ১২টি বিকল, আর দুটি স্থাপনই করা হয়নি।

হাসপাতালের আইসিইউ শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তির উপযোগী নয়, সাধারণ শয্যা রোগী রাখার মতো না, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা থাকলেও বিকল, অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপন করা হলেও তা শূন্য-এমন নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি দিনের পর দিন চলতে পারে না। দেশে করোনা মহামারীর সংকটকালে সংশ্লিষ্ট সব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও উপস্থাপন করতে হবে বাস্তবতার সঙ্গে মিল রেখে। নির্দিষ্ট সময় পর পর তা হালনাগাদ করতে হবে; যাতে পরিস্থিতি বুঝে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া যাবে। অবাধ তথ্যপ্রবাহের যুগে এটা কোন কঠিন কাজ নয়। সমস্যা দ্রুত চিহ্নিত করে সমাধান করা কোভিড-১৯-এর মতো সংক্রামক রোগের চিকিৎসার জন্য খুবই জরুরি।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যের গরমিল

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১

করোনা চিকিৎসা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দেশের ৯৬টি সরকারি হাসপাতালের তথ্য প্রতিদিন বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করে। বিজ্ঞপ্তিতে হাসপাতালগুলোর সাধারণ ও নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) শয্যা, ভর্তি রোগী, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলাসহ কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থার তথ্য থাকে। কিন্তু তাদের দেওয়া তথ্যের সঙ্গে দেশের মাঠপর্যায়ের হাসপাতালগুলোর দেওয়া তথ্যের মিল পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে- ভোলা, কুষ্টিয়া, বাগেরহাট, পটুয়াখালী এবং জামালপুর জেলার হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীদের জন্য ২০টি আইসিইউ রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এসব হাসপাতালে গত রোববার পর্যন্ত সচল কোনো আইসিইউ শয্যাই ছিল না। রাজধানীর মহাখালীর ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৫৫৪টি সাধারণ শয্যার সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহ না থাকায় প্রতিদিনই প্রায় ৫০০টি শয্যা খালি থাকছে। গত রোবাবার সেখানেও ৪৮২টি শয্যা খালি দেখানো হয়েছে। তাছাড়া উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগী ভর্তির তথ্যও নেই বিজ্ঞপ্তিতে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর যে তথ্য জানাচ্ছে বাস্তবতার সঙ্গে তার কোন মিল পাওয়া যাচ্ছে না। এটা কী সংশ্লিষ্টদের অনিচ্ছাকৃত ভুল, নাকি ইচ্ছাকৃতভাবে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে তথ্য উপস্থাপন করা হচ্ছে- সেটা জানা জরুরি। তারা যদি জেনে-শুনে তথ্য বিকৃত করে থাকে, তাহলে এর পেছেনের কারণও জানতে হবে। খুঁজে দেখতে হবে তারা কী নিজেদের পিঠ বাঁচানোর জন্য এমন অসত্য তথ্য উপস্থাপন করছে, নাকি সরকার বা সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য করছে।

কাগজে-কলমে উপস্থাপিত তথ্যের সঙ্গে বাস্তবের মিল না থাকলে স্বাস্থ্যখাত নিয়ে সরকারের কর্মপরিকল্পনা বা কাজ করার ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে। কাগজে-কলমে আইসিইউ শয্যা খালি দেখানো হয়েছে। কিন্তু কেন খালি, সেটা কি তারা দেখিয়েছে? এ তথ্য দেখে নীতি-নির্ধারকরা ভাবতে পারেন যে, রোগীর চাপ নেই, তাই শয্যা খালি।

অনেক হাসপাতালে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও লোকবল দেওয়া হয়নি। আবার সরঞ্জাম দিলেও তা নষ্ট হয়ে আছে, মোরামত করা হচ্ছে না। কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৩৪টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলার ১২টি বিকল, আর দুটি স্থাপনই করা হয়নি।

হাসপাতালের আইসিইউ শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তির উপযোগী নয়, সাধারণ শয্যা রোগী রাখার মতো না, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা থাকলেও বিকল, অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপন করা হলেও তা শূন্য-এমন নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি দিনের পর দিন চলতে পারে না। দেশে করোনা মহামারীর সংকটকালে সংশ্লিষ্ট সব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও উপস্থাপন করতে হবে বাস্তবতার সঙ্গে মিল রেখে। নির্দিষ্ট সময় পর পর তা হালনাগাদ করতে হবে; যাতে পরিস্থিতি বুঝে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া যাবে। অবাধ তথ্যপ্রবাহের যুগে এটা কোন কঠিন কাজ নয়। সমস্যা দ্রুত চিহ্নিত করে সমাধান করা কোভিড-১৯-এর মতো সংক্রামক রোগের চিকিৎসার জন্য খুবই জরুরি।

back to top