alt

সম্পাদকীয়

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

: সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

মায়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়নের শিকার হয়ে রোহিঙ্গারা প্রথম বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে ১৯৭৮ সালে। ওই বছর প্রায় দুই লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দেয়া হয়। ২০১৭ সালের আগপর্যন্ত এর সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় চার লাখে। এরপর ২০১৭ সালের আগস্টের পরের কয়েক মাসে বাংলাদেশে এসেছে আরও সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১১ লাখ রোহিঙ্গা রয়েছে বাংলাদেশে। মানাবিক কারণে তাদের আশ্রয় দেয়া হয়। কিন্তু বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রিত রোহিঙ্গারা জাতীয় পরিচয়পত্র এবং পাসপোর্ট নিচ্ছে। এগুলো প্রায়ই গণমাধ্যমে আসে। গতকাল রোববার সংবাদ-এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কক্সবাজার পৌরসভার একটি ওয়ার্ডের হাজারখানেক রোহিঙ্গার রয়েছে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি কার্ড)। তাদের অনেকেরই পাসপোর্টও আছে। বাংলাদেশি সেজে বিদেশ পাড়ি দিয়েছে বহু রোহিঙ্গা। একটি ওয়ার্ডের চিত্রই যদি এমন হয় তাহলে সামগ্রিক চিত্র কী, সেটা ভাববার বিষয়। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা এনআইডি নিয়ে যাচাই-বাছাই চলছে। এ বিষয়ে দুদক মামলাও দায়ের করেছে। রোহিঙ্গারা এনআইডি-পাসপোর্ট পেলে তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া জটিল হতে পারে।

রোহিঙ্গারা নিজ দেশে জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তারা রাখাইনে যে পরিস্থিতির শিকার হয়েছে সেজন্য তাদের প্রতি আমাদের সহানুভূতি রয়েছে। সমস্যা হয়েছে, এ দেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের একটি অংশ পাহাড় কাটা থেকে শুরু করে ছিনতাই, হত্যা, ধর্ষণসহ নানান অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে। তাদের উপস্থিতিতে কক্সবাজারের প্রাণ-প্রকৃতিও ইতোমধ্যে ধ্বংসের মুখে পতিত হয়েছে। বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে যারা বিদেশ যাচ্ছে তাদের অনেকেই সেখানে নানান অপরাধমূলক কর্মকা-ে জড়াচ্ছে। সে ক্ষেত্রে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। আবার প্রকৃত বাংলাদেশিরাও বিদেশ যাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী হওয়ার কারণে মধ্যপ্রাচ্য থেকে বিভিন্ন সময় অনেক রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট গেল কীভাবে, সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় একটি চক্র টাকার বিনিময়ে তাদের হাতে এগুলো তুলে দিয়েছে। এর সঙ্গে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ স্থানীয় কিছু জনপ্রতিনিধিও জড়িত বলে অভিযোগ মেলে।

রোহিঙ্গারা যেন কোনভাবেই জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট না পায় সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে। যারা তাদের হাতে এগুলো তুলে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। ইতোমধ্যে যেসব রোহিঙ্গার হাতে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট রয়েছে সেগুলো অবশ্যই সংগ্রহ করে ধ্বংস করতে হবে, যাতে এগুলোর অপব্যবহার না হয়। ভবিষ্যতেও তাদের হাতে যেন এগুলো না যায় সেজন্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে নজরদারি জোরদার করতে হবে।

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

আত্মহত্যা কোন সমাধান হতে পারে না

বৃত্তাকার নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে

অস্ত্র চোরাচালানের মূল হোতাদের ধরুন

আয়হীন প্রান্তিক নারীদের আয়কর পরিশোধের নোটিশ

এইচএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে কেন

সীমান্তহত্যা বন্ধে ভারতকে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে হবে

‘প্রকৃতির পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে’ বাঁচাতে হবে

সিডও সনদের ধারা দুটির ওপর থেকে সংরক্ষণ তুলে নিন

মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রটিতে লোকবল নিয়োগ দিন

কিশোর অপরাধ রুখতে চাই সম্মিলিত চেষ্টা

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার নিশ্চিত করুন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

দূষণের ক্রনিক রোগে ধুঁকছে রাজধানী, ভুগছে মানুষ

সর্বগ্রাসী দুর্নীতির আরেক নমুনা

বন্যপ্রাণী ও ফসল দুটোই রক্ষা পাক

tab

সম্পাদকীয়

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

মায়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়নের শিকার হয়ে রোহিঙ্গারা প্রথম বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে ১৯৭৮ সালে। ওই বছর প্রায় দুই লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দেয়া হয়। ২০১৭ সালের আগপর্যন্ত এর সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় চার লাখে। এরপর ২০১৭ সালের আগস্টের পরের কয়েক মাসে বাংলাদেশে এসেছে আরও সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১১ লাখ রোহিঙ্গা রয়েছে বাংলাদেশে। মানাবিক কারণে তাদের আশ্রয় দেয়া হয়। কিন্তু বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রিত রোহিঙ্গারা জাতীয় পরিচয়পত্র এবং পাসপোর্ট নিচ্ছে। এগুলো প্রায়ই গণমাধ্যমে আসে। গতকাল রোববার সংবাদ-এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কক্সবাজার পৌরসভার একটি ওয়ার্ডের হাজারখানেক রোহিঙ্গার রয়েছে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি কার্ড)। তাদের অনেকেরই পাসপোর্টও আছে। বাংলাদেশি সেজে বিদেশ পাড়ি দিয়েছে বহু রোহিঙ্গা। একটি ওয়ার্ডের চিত্রই যদি এমন হয় তাহলে সামগ্রিক চিত্র কী, সেটা ভাববার বিষয়। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা এনআইডি নিয়ে যাচাই-বাছাই চলছে। এ বিষয়ে দুদক মামলাও দায়ের করেছে। রোহিঙ্গারা এনআইডি-পাসপোর্ট পেলে তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া জটিল হতে পারে।

রোহিঙ্গারা নিজ দেশে জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তারা রাখাইনে যে পরিস্থিতির শিকার হয়েছে সেজন্য তাদের প্রতি আমাদের সহানুভূতি রয়েছে। সমস্যা হয়েছে, এ দেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের একটি অংশ পাহাড় কাটা থেকে শুরু করে ছিনতাই, হত্যা, ধর্ষণসহ নানান অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে। তাদের উপস্থিতিতে কক্সবাজারের প্রাণ-প্রকৃতিও ইতোমধ্যে ধ্বংসের মুখে পতিত হয়েছে। বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে যারা বিদেশ যাচ্ছে তাদের অনেকেই সেখানে নানান অপরাধমূলক কর্মকা-ে জড়াচ্ছে। সে ক্ষেত্রে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। আবার প্রকৃত বাংলাদেশিরাও বিদেশ যাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী হওয়ার কারণে মধ্যপ্রাচ্য থেকে বিভিন্ন সময় অনেক রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট গেল কীভাবে, সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় একটি চক্র টাকার বিনিময়ে তাদের হাতে এগুলো তুলে দিয়েছে। এর সঙ্গে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ স্থানীয় কিছু জনপ্রতিনিধিও জড়িত বলে অভিযোগ মেলে।

রোহিঙ্গারা যেন কোনভাবেই জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট না পায় সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে। যারা তাদের হাতে এগুলো তুলে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। ইতোমধ্যে যেসব রোহিঙ্গার হাতে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট রয়েছে সেগুলো অবশ্যই সংগ্রহ করে ধ্বংস করতে হবে, যাতে এগুলোর অপব্যবহার না হয়। ভবিষ্যতেও তাদের হাতে যেন এগুলো না যায় সেজন্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে নজরদারি জোরদার করতে হবে।

back to top