alt

সম্পাদকীয়

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

: শনিবার, ০৯ অক্টোবর ২০২১

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় শহর কুন্দুজের একটি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় মারা গেছেন অন্তত ৫০ জন এবং আহত হয়েছেন শতাধিক। স্থানীয় শিয়া সম্প্রদায় উক্ত মসজিদে নামাজ পড়ত। মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার পর এটাই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা। এখন পর্যন্ত কেউ হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে বিশ্লেষকরা মনে করছেন, দেশটির আঞ্চলিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘আইএস-কে’ এ হামলার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। এ জঙ্গিগোষ্ঠী সম্প্রতি কাবুল বিমানবন্দরসহ দেশটির পূর্বাঞ্চলে বেশ কিছু বোমা হামলা চালিয়েছে। অতীতে তারা সংখ্যালঘু শিয়া সম্প্রদায়ের ওপরও হামলা চালিয়েছে।

বোমা হামলার ঘটনায় আবারও এই প্রশ্ন উঠেছে যে, আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে। মার্কিন বাহিনীর হাতে তালেবানদের পতনের পর সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা পায়নি। মার্কিন বাহিনী বিদায় নেয়ার পরও শান্তির দেখা মিলছে না। তালেবান শাসন নিয়ে দেশটির ভেতরে-বাইরে নানা প্রশ্ন রয়েছে। তবে তারা কোন বহির্শক্তি নয়। বাস্তবতা হচ্ছে আগেও তারা দেশ শাসন করেছে, এখন তারা আবার ক্ষমতায় এসেছে। একটি অভ্যন্তরীণ শক্তি শাসন ক্ষমতায় থাকলে আফগানিস্তান অপেক্ষাকৃত স্থিতিশীল হতে পারে বলে অনেকে আশাবাদী ছিলেন। কিন্তু শান্তির দেখা মিলছে না। বরং সেখানে নতুন করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির নানা লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে। ইতোমধ্যে দেশটিতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও মাদক বাণিজ্য ছড়িয়ে পড়েছে।

সংঘাত-সংঘর্ষের অবসান ঘটানো না গেলে আফগানিস্তানে বড় ধরনের মানবিক সংকট দেখা দিতে পারে। এই অঞ্চল তো বটেই গোটা বিশ্বেই এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। দেশটির সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর অপতৎপরতা আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক শান্তির জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে। শরণার্থী সংকটের কথাও ভাবতে হবে।

আমরা দেখতে চাই যে, আফগানিস্তানে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বিশ্ব শক্তিগুলোকে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে বলে আমরা মনে করি। রক্তপাতের অবসান ঘটিয়ে দেশটির জনগণের দুর্দশা লাঘবে অভ্যন্তরীণ শক্তির পাশাপাশি আন্তর্জাতিক শক্তিকেও কাজ করতে হবে। কারণ আফগানিস্তানকে ঘিরে একাধিক পরাশক্তির নানা স্বার্থ কাজ করছে। কাজেই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্মিলিত অংশগ্রহণ ছাড়া দেশটির মানুষের পক্ষে বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলা করা কঠিন হবে।

আফগানিস্তানের মানুষ শান্তিপূর্ণ জীবন ফিরে পাক, দেশটির পরিবেশ নিরাপদ ও স্থিতিশীল হোক সেটাই আমাদের কামনা। তবে মানুষ হত্যা করে এর কোনটাই পূরণ করা যাবে না। সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে সবার আগে দেশটির বিভিন্ন গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়কে আত্মঘাতী ও ভ্রাতৃঘাতী হামলা বন্ধ করতে হবে।

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

রোহিঙ্গাদের নিয়ে ব্যবসা করতে চাওয়া গোষ্ঠীর নাম প্রকাশ করুন

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

শিক্ষার্থী উপস্থিতির প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সমস্যা দূর করুন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের ঋণ প্রসঙ্গে

দশমিনা-পটুয়াখালী সড়কটি দ্রুত সংস্কার করুন

সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিকার চাই

মাধ্যমিক শিক্ষায় দুর্নীতি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে

প্রতিমা ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করুন, ব্যবস্থা নিন

করোনার টিকা প্রয়োগে উল্লেখযোগ্য অর্জন

বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবন

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচারে অগ্রগতি নেই কেন

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া প্রসঙ্গে

মোটরবাইকে আগুন কিসের ক্ষোভে

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

tab

সম্পাদকীয়

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

শনিবার, ০৯ অক্টোবর ২০২১

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় শহর কুন্দুজের একটি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় মারা গেছেন অন্তত ৫০ জন এবং আহত হয়েছেন শতাধিক। স্থানীয় শিয়া সম্প্রদায় উক্ত মসজিদে নামাজ পড়ত। মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার পর এটাই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা। এখন পর্যন্ত কেউ হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে বিশ্লেষকরা মনে করছেন, দেশটির আঞ্চলিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘আইএস-কে’ এ হামলার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। এ জঙ্গিগোষ্ঠী সম্প্রতি কাবুল বিমানবন্দরসহ দেশটির পূর্বাঞ্চলে বেশ কিছু বোমা হামলা চালিয়েছে। অতীতে তারা সংখ্যালঘু শিয়া সম্প্রদায়ের ওপরও হামলা চালিয়েছে।

বোমা হামলার ঘটনায় আবারও এই প্রশ্ন উঠেছে যে, আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে। মার্কিন বাহিনীর হাতে তালেবানদের পতনের পর সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা পায়নি। মার্কিন বাহিনী বিদায় নেয়ার পরও শান্তির দেখা মিলছে না। তালেবান শাসন নিয়ে দেশটির ভেতরে-বাইরে নানা প্রশ্ন রয়েছে। তবে তারা কোন বহির্শক্তি নয়। বাস্তবতা হচ্ছে আগেও তারা দেশ শাসন করেছে, এখন তারা আবার ক্ষমতায় এসেছে। একটি অভ্যন্তরীণ শক্তি শাসন ক্ষমতায় থাকলে আফগানিস্তান অপেক্ষাকৃত স্থিতিশীল হতে পারে বলে অনেকে আশাবাদী ছিলেন। কিন্তু শান্তির দেখা মিলছে না। বরং সেখানে নতুন করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির নানা লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে। ইতোমধ্যে দেশটিতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও মাদক বাণিজ্য ছড়িয়ে পড়েছে।

সংঘাত-সংঘর্ষের অবসান ঘটানো না গেলে আফগানিস্তানে বড় ধরনের মানবিক সংকট দেখা দিতে পারে। এই অঞ্চল তো বটেই গোটা বিশ্বেই এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। দেশটির সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর অপতৎপরতা আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক শান্তির জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে। শরণার্থী সংকটের কথাও ভাবতে হবে।

আমরা দেখতে চাই যে, আফগানিস্তানে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বিশ্ব শক্তিগুলোকে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে বলে আমরা মনে করি। রক্তপাতের অবসান ঘটিয়ে দেশটির জনগণের দুর্দশা লাঘবে অভ্যন্তরীণ শক্তির পাশাপাশি আন্তর্জাতিক শক্তিকেও কাজ করতে হবে। কারণ আফগানিস্তানকে ঘিরে একাধিক পরাশক্তির নানা স্বার্থ কাজ করছে। কাজেই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্মিলিত অংশগ্রহণ ছাড়া দেশটির মানুষের পক্ষে বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলা করা কঠিন হবে।

আফগানিস্তানের মানুষ শান্তিপূর্ণ জীবন ফিরে পাক, দেশটির পরিবেশ নিরাপদ ও স্থিতিশীল হোক সেটাই আমাদের কামনা। তবে মানুষ হত্যা করে এর কোনটাই পূরণ করা যাবে না। সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে সবার আগে দেশটির বিভিন্ন গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়কে আত্মঘাতী ও ভ্রাতৃঘাতী হামলা বন্ধ করতে হবে।

back to top