alt

সম্পাদকীয়

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

: মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১

নির্ধারিত সময়ে ও ব্যয়ে প্রকল্পের কাজ শেষ না হওয়ার অসংখ্য নজির রয়েছে দেশে। আবার নির্ধারিত মেয়াদে কাজ শুরুই হয়নি এমন প্রকল্পও রয়েছে। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) সূত্রে জানা গেছে, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাগেরহাটের রামপালে ‘আমাদের গ্রাম ক্যান্সার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার’ নামে একটি প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়েছে গত জুন মাসে। ১০৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০১৯ সালের জুলাই মাসে। কিন্তু বাস্তবে প্রকল্পটির কোন অগ্রগতিই হয়নি।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ টেলিভিশনের ছয়টি পূর্ণাঙ্গ টিভি কেন্দ্র স্থাপনের একটি প্রকল্পেরও একই অবস্থা। এক হাজার ৩৯১ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে। গত বছরের ডিসেম্বরে এর মেয়াদ শেষ হয়েছে। কিন্তু গত চার বছরেও এ প্রকল্পের কোন অগ্রগতি হয়নি। এমনকি নিয়োগ দেয়া হয়নি প্রকল্প পরিচালকও। একনেকে পাস হওয়া এমন আরও ডজনখানেকের মতো প্রকল্প রয়েছে, যেগুলোর মেয়াদ ফুরিয়ে আসছে, কিন্তু কাজই শুরু হয়নি।

আইএমইডি সচিব বলেছেন, এতো প্রকল্পের শূন্য অগ্রগতি খুবই দুঃখজনক। এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে চিঠি দেয়া হয়েছে। জবাব এলে করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

এককেটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয় জনগণের কল্যাণের জন্য। কিন্তু প্রকল্প যদি যথাসময়ে বাস্তবায়ন না করা যায়, বা কাজই শুরু না হয়, তাহলে জনগণকে কাক্সিক্ষত সেবা দেয়া সম্ভব হয় না। জনগণের কল্যাণের জন্য সরকার অনেক পরিকল্পনা করে, ভেবেচিন্তে প্রকল্প গ্রহণ করে। কিন্তু এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের সিংহভাগেরই উদাসীনতা ও অবহেলা দেখা যায়।

দেশে প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোর ঘটনা সাধারণ বিষয়। প্রকল্পের অর্থ নয়ছয় করার খবরও প্রায়ই পাওয়া যায়। সরকারও বিষয়গুলো সম্পর্কে অবহিত। বিভিন্ন সময় সরকারপ্রধান এ নিয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। জনগণের কল্যাণে সংশ্লিষ্টদের কাজ করার জন্য বার বার তাগাদা দেয়া হয়েছে। কিন্তু প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের এ নিয়ে কোন মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না। প্রকল্প পাস হওয়ার পর নির্ধারিত সময়ে কাজ শুরু না হওয়া এর একটি বড় উদাহরণ।

বিশেষজ্ঞদের মতে, কোন প্রকল্প সময়মতো বাস্তবায়ন না হওয়ার বহুবিদ ক্ষতি রয়েছে। দিন দিন নির্মাণসামগ্রীসহ শ্রমিকের মজুরি ও অন্যান্য সেবার দাম বাড়ছে। ফলে প্রকল্পের ব্যয় অনেক বেড়ে যায়। এতে সরকারের উন্নয়ন শৃঙ্খলা বিনষ্ট নয়।

একনেকে পাস হওয়ার পরেও কেন এসব প্রকল্পের কাজ শুরু হলো না সেটা খতিয়ে দেখতে হবে। বাস্তবায়নের দায়িত্ব যাদের হাতে ন্যস্ত ছিল তাদের কাজের স্বচ্ছতা ও জাবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। কারও অবহেলা ও উদাসীনতায় জনগণ সেবা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে, সরকারের উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনের কাজ বিঘ্নিত হবে, সেটা হতে পারে না।

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

রোহিঙ্গাদের নিয়ে ব্যবসা করতে চাওয়া গোষ্ঠীর নাম প্রকাশ করুন

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

শিক্ষার্থী উপস্থিতির প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সমস্যা দূর করুন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের ঋণ প্রসঙ্গে

দশমিনা-পটুয়াখালী সড়কটি দ্রুত সংস্কার করুন

সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিকার চাই

মাধ্যমিক শিক্ষায় দুর্নীতি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে

প্রতিমা ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করুন, ব্যবস্থা নিন

করোনার টিকা প্রয়োগে উল্লেখযোগ্য অর্জন

বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবন

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচারে অগ্রগতি নেই কেন

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া প্রসঙ্গে

মোটরবাইকে আগুন কিসের ক্ষোভে

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

tab

সম্পাদকীয়

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১

নির্ধারিত সময়ে ও ব্যয়ে প্রকল্পের কাজ শেষ না হওয়ার অসংখ্য নজির রয়েছে দেশে। আবার নির্ধারিত মেয়াদে কাজ শুরুই হয়নি এমন প্রকল্পও রয়েছে। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) সূত্রে জানা গেছে, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাগেরহাটের রামপালে ‘আমাদের গ্রাম ক্যান্সার কেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার’ নামে একটি প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়েছে গত জুন মাসে। ১০৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০১৯ সালের জুলাই মাসে। কিন্তু বাস্তবে প্রকল্পটির কোন অগ্রগতিই হয়নি।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ টেলিভিশনের ছয়টি পূর্ণাঙ্গ টিভি কেন্দ্র স্থাপনের একটি প্রকল্পেরও একই অবস্থা। এক হাজার ৩৯১ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে। গত বছরের ডিসেম্বরে এর মেয়াদ শেষ হয়েছে। কিন্তু গত চার বছরেও এ প্রকল্পের কোন অগ্রগতি হয়নি। এমনকি নিয়োগ দেয়া হয়নি প্রকল্প পরিচালকও। একনেকে পাস হওয়া এমন আরও ডজনখানেকের মতো প্রকল্প রয়েছে, যেগুলোর মেয়াদ ফুরিয়ে আসছে, কিন্তু কাজই শুরু হয়নি।

আইএমইডি সচিব বলেছেন, এতো প্রকল্পের শূন্য অগ্রগতি খুবই দুঃখজনক। এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে চিঠি দেয়া হয়েছে। জবাব এলে করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

এককেটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয় জনগণের কল্যাণের জন্য। কিন্তু প্রকল্প যদি যথাসময়ে বাস্তবায়ন না করা যায়, বা কাজই শুরু না হয়, তাহলে জনগণকে কাক্সিক্ষত সেবা দেয়া সম্ভব হয় না। জনগণের কল্যাণের জন্য সরকার অনেক পরিকল্পনা করে, ভেবেচিন্তে প্রকল্প গ্রহণ করে। কিন্তু এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের সিংহভাগেরই উদাসীনতা ও অবহেলা দেখা যায়।

দেশে প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোর ঘটনা সাধারণ বিষয়। প্রকল্পের অর্থ নয়ছয় করার খবরও প্রায়ই পাওয়া যায়। সরকারও বিষয়গুলো সম্পর্কে অবহিত। বিভিন্ন সময় সরকারপ্রধান এ নিয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। জনগণের কল্যাণে সংশ্লিষ্টদের কাজ করার জন্য বার বার তাগাদা দেয়া হয়েছে। কিন্তু প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের এ নিয়ে কোন মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না। প্রকল্প পাস হওয়ার পর নির্ধারিত সময়ে কাজ শুরু না হওয়া এর একটি বড় উদাহরণ।

বিশেষজ্ঞদের মতে, কোন প্রকল্প সময়মতো বাস্তবায়ন না হওয়ার বহুবিদ ক্ষতি রয়েছে। দিন দিন নির্মাণসামগ্রীসহ শ্রমিকের মজুরি ও অন্যান্য সেবার দাম বাড়ছে। ফলে প্রকল্পের ব্যয় অনেক বেড়ে যায়। এতে সরকারের উন্নয়ন শৃঙ্খলা বিনষ্ট নয়।

একনেকে পাস হওয়ার পরেও কেন এসব প্রকল্পের কাজ শুরু হলো না সেটা খতিয়ে দেখতে হবে। বাস্তবায়নের দায়িত্ব যাদের হাতে ন্যস্ত ছিল তাদের কাজের স্বচ্ছতা ও জাবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। কারও অবহেলা ও উদাসীনতায় জনগণ সেবা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে, সরকারের উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনের কাজ বিঘ্নিত হবে, সেটা হতে পারে না।

back to top