alt

সম্পাদকীয়

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

: বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১

গত দুই বছরের তুলনায় চলতি বছর বজ্রপাতে বেশিসংখ্যক মানুষ মারা গেছে। ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, চলতি বছরের ১১ অক্টোবর পর্যন্ত দেশে বজ্রপাতে মারা গেছে ৩২৯ জন। ২০১৯ ও ২০২০ সালে মৃত্যুর সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ১৯৮ ও ২৫৫। গত এক দশকের মধ্যে বজ্রপাতে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে ২০১৬ সালে, ৩৯১ জন। চলতি বছর শেষ হতে এখনও আড়াই মাস বাকি। বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা বছর শেষে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটা একটা প্রশ্ন।

দেশে প্রতিবছর বজ্রপাতে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটছে। সরকার ২০১৬ সালে বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এক হিসাব অনুযায়ী, বজ্রপাতে গত ১১ বছরে মারা গেছে ২ হাজার ৮০০ জন। তবে এই সময়ের মধ্যে কত মানুষ আহত হয়েছে, গবাদি পশু মারা গেছে কতগুলো, কত গাছ ধ্বংস হয়েছে- সেই হিসাব জানা যায় না। বন্যা বা সাইক্লোনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের তুলনায় দেশে এখন বজ্রপাতেই বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে।

বজ্রপাত প্রতিরোধে এক কোটি তালগাছ রোপণের লক্ষ্য নিয়েছে সরকার। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় তালগাছ লাগাচ্ছে। তবে একাজে অনেক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তালগাছ লাগানোর স্থান নির্বাচন যথাযথ হয়েছে কিনা সেই প্রশ্ন উঠেছে। বজ্রপাতে সাধারণত মাঠে বা জলাশয়ের পাশে অবস্থানরত মানুষ মারা যায়। অথচ তালগাছ লাগানো হচ্ছে সড়কের পাশে। এসব তালগাছ বজ্রপাত রোধের উদ্দেশ্য পূরণ করতে পারবে কিনা সেটা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। তালগাছ লাগাতে হবে বজ্রপাতপ্রবণ স্থানে।

একেকটি তালগাছের বজ্রপাতরোধী ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে কমবেশি ১০ বছর সময় লাগবে। এজন্য লাইটনিং অ্যারেস্টার বসানো বেশি জরুরি। দেশের ৮টি স্থানে লাইটনিং ডিটেকশন সেন্সর বসানো হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এ ধরনের আরও যন্ত্র স্থাপন করতে হবে। বজ্রপাতপ্রবণ এলাকায় জরুরি ভিত্তিতে যথেষ্ট সংখ্যক লাইটনিং অ্যারেস্টার যন্ত্র বসানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

কৃষি জমি, খোলা মাঠ, খেলার মাঠ বা উন্মুক্ত প্রান্তরে বজ্রপাতের ঘটনা বেশি ঘটে। বৃষ্টিপাতের সময় এসব স্থানে আশ্রয় নেয়া সম্ভব হয় না। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, বজ্রপাতে যাদের মৃত্যু হয়েছে, তাদের সিংহভাগই খোলা মাঠ ও হাওরের মধ্যে কৃষিকাজ করছিলেন। অধিক ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে বজ্রপাতপ্রতিরোধী আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করার কথা আমরা এর আগে বলেছি। আশার কথা, সরকার বজ্রপাত আশ্রয়কেন্দ্র করার পরিকল্পনা করেছে। ৪৭৬ কোটি টাকার প্রকল্পটি বজ্রপাতপ্রবণ এলাকাগুলোতে বাস্তবায়ন করার কথা রয়েছে। আমরা আশা করব প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

মানুষের মধ্যে বজ্রপাত সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। বছরের কোন সময় কোন স্থানে বজ্রপাতের আশঙ্কা বেশি থাকে, বজ্রপাতের ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কী সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে- সেসব বিষয়ে মানুষকে জানাতে হবে। বিশেষ করে বজ্রপাতপ্রবণ এলাকার বাসিন্দাদের সচেতনতা বাড়ানো জরুরি।

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

রোহিঙ্গাদের নিয়ে ব্যবসা করতে চাওয়া গোষ্ঠীর নাম প্রকাশ করুন

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

শিক্ষার্থী উপস্থিতির প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সমস্যা দূর করুন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের ঋণ প্রসঙ্গে

দশমিনা-পটুয়াখালী সড়কটি দ্রুত সংস্কার করুন

সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিকার চাই

মাধ্যমিক শিক্ষায় দুর্নীতি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে

প্রতিমা ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করুন, ব্যবস্থা নিন

করোনার টিকা প্রয়োগে উল্লেখযোগ্য অর্জন

বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবন

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচারে অগ্রগতি নেই কেন

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া প্রসঙ্গে

মোটরবাইকে আগুন কিসের ক্ষোভে

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

tab

সম্পাদকীয়

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১

গত দুই বছরের তুলনায় চলতি বছর বজ্রপাতে বেশিসংখ্যক মানুষ মারা গেছে। ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, চলতি বছরের ১১ অক্টোবর পর্যন্ত দেশে বজ্রপাতে মারা গেছে ৩২৯ জন। ২০১৯ ও ২০২০ সালে মৃত্যুর সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ১৯৮ ও ২৫৫। গত এক দশকের মধ্যে বজ্রপাতে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে ২০১৬ সালে, ৩৯১ জন। চলতি বছর শেষ হতে এখনও আড়াই মাস বাকি। বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা বছর শেষে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটা একটা প্রশ্ন।

দেশে প্রতিবছর বজ্রপাতে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটছে। সরকার ২০১৬ সালে বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এক হিসাব অনুযায়ী, বজ্রপাতে গত ১১ বছরে মারা গেছে ২ হাজার ৮০০ জন। তবে এই সময়ের মধ্যে কত মানুষ আহত হয়েছে, গবাদি পশু মারা গেছে কতগুলো, কত গাছ ধ্বংস হয়েছে- সেই হিসাব জানা যায় না। বন্যা বা সাইক্লোনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের তুলনায় দেশে এখন বজ্রপাতেই বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে।

বজ্রপাত প্রতিরোধে এক কোটি তালগাছ রোপণের লক্ষ্য নিয়েছে সরকার। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় তালগাছ লাগাচ্ছে। তবে একাজে অনেক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তালগাছ লাগানোর স্থান নির্বাচন যথাযথ হয়েছে কিনা সেই প্রশ্ন উঠেছে। বজ্রপাতে সাধারণত মাঠে বা জলাশয়ের পাশে অবস্থানরত মানুষ মারা যায়। অথচ তালগাছ লাগানো হচ্ছে সড়কের পাশে। এসব তালগাছ বজ্রপাত রোধের উদ্দেশ্য পূরণ করতে পারবে কিনা সেটা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। তালগাছ লাগাতে হবে বজ্রপাতপ্রবণ স্থানে।

একেকটি তালগাছের বজ্রপাতরোধী ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে কমবেশি ১০ বছর সময় লাগবে। এজন্য লাইটনিং অ্যারেস্টার বসানো বেশি জরুরি। দেশের ৮টি স্থানে লাইটনিং ডিটেকশন সেন্সর বসানো হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এ ধরনের আরও যন্ত্র স্থাপন করতে হবে। বজ্রপাতপ্রবণ এলাকায় জরুরি ভিত্তিতে যথেষ্ট সংখ্যক লাইটনিং অ্যারেস্টার যন্ত্র বসানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

কৃষি জমি, খোলা মাঠ, খেলার মাঠ বা উন্মুক্ত প্রান্তরে বজ্রপাতের ঘটনা বেশি ঘটে। বৃষ্টিপাতের সময় এসব স্থানে আশ্রয় নেয়া সম্ভব হয় না। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, বজ্রপাতে যাদের মৃত্যু হয়েছে, তাদের সিংহভাগই খোলা মাঠ ও হাওরের মধ্যে কৃষিকাজ করছিলেন। অধিক ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে বজ্রপাতপ্রতিরোধী আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করার কথা আমরা এর আগে বলেছি। আশার কথা, সরকার বজ্রপাত আশ্রয়কেন্দ্র করার পরিকল্পনা করেছে। ৪৭৬ কোটি টাকার প্রকল্পটি বজ্রপাতপ্রবণ এলাকাগুলোতে বাস্তবায়ন করার কথা রয়েছে। আমরা আশা করব প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

মানুষের মধ্যে বজ্রপাত সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। বছরের কোন সময় কোন স্থানে বজ্রপাতের আশঙ্কা বেশি থাকে, বজ্রপাতের ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কী সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে- সেসব বিষয়ে মানুষকে জানাতে হবে। বিশেষ করে বজ্রপাতপ্রবণ এলাকার বাসিন্দাদের সচেতনতা বাড়ানো জরুরি।

back to top