alt

সম্পাদকীয়

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

: শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ মাছ ধরার ওপর ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে গত ৪ অক্টোবর থেকে। এ সময় দেশব্যাপী ইলিশ আহরণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহন, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধ। ইলিশের প্রজনন ক্ষেত্রে সব ধরনের মৎস্য আহরণও এ সময় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ইলিশের নিরাপদ প্রজননের স্বার্থে মা ইলিশ সংরক্ষণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ নিধন চলছেই। গতকাল বৃহস্পতিবার এ নিয়ে সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ৪ অক্টোবর থেকে মানিকগঞ্জের শিবালয় অঞ্চলে ৩৪টি অভিযানে এক লাখ মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, প্রায় চার মণ ইলিশ, কয়েকটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা জব্দ করা হয়েছে। এ সময় ২৪ জন জেলেকে আটক করা হয়। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১৬ জনকে এক মাস করে কারাদণ্ড এবং বয়স বিবেচনায় আটজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এছাড়া নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শরীয়তপুরের জাজিরা, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জে পদ্মা নদীতে ইলিশ ধরার অপরাধে গত ১২ অক্টোবর ৭৩ জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও ৫৩ হাজার টাকা জরিমানা এবং গত ৯ অক্টোবর ৫২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গত ৮ অক্টোবর রাতে পটুয়াখালীর বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ ধরায় ২২ জেলে আটক করে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে পাঁচটি নৌকা, ১০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ৬০ কেজি ইলিশ জব্দ করা হয়েছে।

শুধু মানিকগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং পটুয়াখালীতেই নয় ‘মা ইলিশ’ নিধনের ঘটনা ঘটছে আরো অনেক জায়গায়। অতীতেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আরও এক শ্রেণীর জেলেকে ইলিশ মাছ শিকার করতে দেখা গেছে। তাদের সঙ্গে স্থানীয় মহাজন, এক শ্রেণীর জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের কর্মকর্তাদের যোগসাজোশ আছে বলে জানা যায়। অভিযানে জেলেদের আটক করা গেলেও তাদের কখনও আটক করার কথা জানা যায় না। অধিকাংশ জেলেই পেটের দায়ে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মাছ ধরতে যায়।

মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নিষেধাজ্ঞার সময় সরকার জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ২০ কেজি করে চাল দিয়েছে। এই পরিমাণ চাল একটি জেলে পরিবারের জন্য যথেষ্ট কিনা সেটা নিয়ে প্রশ্ন আছে। আবার সে চাল অনেক সময় ক্ষতিগ্রস্ত জেলেরা পায় না বলে অভিযোগ রয়েছে। শুধু চাল দিয়ে একটি পরিবারের প্রয়োজন মেটানো যায় না। জীবন ধারণের জন্য অন্যান্য জিনিসেরও প্রয়োজন আছে। নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের জীবন-ধারণের প্রয়োজন মেটানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

অনেক জেলেরই ঋণ আছে। নিষেধাজ্ঞা চলাকালে তাদের কাছ থেকে কিস্তি বা সুদ যাতে আদায় করা না হয় সেজন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে। অনেক সময় কিস্তি পরিশোধের তাগাদা থেকে জেলেরা মাছ শিকার করতে বাধ্য হয়। জেলেদের মাঝে সহজ শর্তে ঋণ বিতরণ করা যায় কিনা সেটা ভেবে দেখতে হবে।

শুধু অভিযান চালিয়ে জাল, নৌকা ও জেলে আটক করে কার্যকরভাবে ইলিশ নিধন বন্ধ করা যাবে না। জেলেদের সমস্যা সমাধানে বাস্তবে পদক্ষেপ নিতে হবে। বিষয়টি দেখতে হবে মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে।

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

শিল্পনগরে বারবার আগুন লাগার কারণ কী

প্রতিবন্ধীদের টেকসই উন্নয়ন ও সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ

‘মুজিবকিল্লা’ দখলমুক্ত করুন

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি থাকতে হবে

পদত্যাগ করার স্বাধীনতা কে কেড়ে নিয়েছে

ইঁদুরের উপদ্রব থেকে কৃষিকে রক্ষা করতে হবে

জলবায়ু সম্মেলন : প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব কি মিলল

অনিয়ম-দুর্নীতির আরেক উদাহরণ

বাসের ড্রাইভার-হেলপারদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাবে কীভাবে

পরীক্ষার্থীদের জন্য শুভ কামনা

ধর্ষণ মামলার রায় : আদালতের পর্যবেক্ষণ ও কিছু প্রশ্ন

সমন্বয়হীন রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের কারখানা কি সরবে না

লোকালয়ে এসে হাতিগুলোকে মারা পড়তে হচ্ছে কেন

নিত্যপণ্যের বাজার : মানুষ নিঃস্ব করার কল

প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের কী প্রয়োজন

দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচন

tab

সম্পাদকীয়

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ মাছ ধরার ওপর ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে গত ৪ অক্টোবর থেকে। এ সময় দেশব্যাপী ইলিশ আহরণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহন, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধ। ইলিশের প্রজনন ক্ষেত্রে সব ধরনের মৎস্য আহরণও এ সময় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ইলিশের নিরাপদ প্রজননের স্বার্থে মা ইলিশ সংরক্ষণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ নিধন চলছেই। গতকাল বৃহস্পতিবার এ নিয়ে সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ৪ অক্টোবর থেকে মানিকগঞ্জের শিবালয় অঞ্চলে ৩৪টি অভিযানে এক লাখ মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, প্রায় চার মণ ইলিশ, কয়েকটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা জব্দ করা হয়েছে। এ সময় ২৪ জন জেলেকে আটক করা হয়। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১৬ জনকে এক মাস করে কারাদণ্ড এবং বয়স বিবেচনায় আটজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এছাড়া নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শরীয়তপুরের জাজিরা, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জে পদ্মা নদীতে ইলিশ ধরার অপরাধে গত ১২ অক্টোবর ৭৩ জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও ৫৩ হাজার টাকা জরিমানা এবং গত ৯ অক্টোবর ৫২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গত ৮ অক্টোবর রাতে পটুয়াখালীর বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ ধরায় ২২ জেলে আটক করে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে পাঁচটি নৌকা, ১০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ৬০ কেজি ইলিশ জব্দ করা হয়েছে।

শুধু মানিকগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং পটুয়াখালীতেই নয় ‘মা ইলিশ’ নিধনের ঘটনা ঘটছে আরো অনেক জায়গায়। অতীতেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আরও এক শ্রেণীর জেলেকে ইলিশ মাছ শিকার করতে দেখা গেছে। তাদের সঙ্গে স্থানীয় মহাজন, এক শ্রেণীর জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের কর্মকর্তাদের যোগসাজোশ আছে বলে জানা যায়। অভিযানে জেলেদের আটক করা গেলেও তাদের কখনও আটক করার কথা জানা যায় না। অধিকাংশ জেলেই পেটের দায়ে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মাছ ধরতে যায়।

মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নিষেধাজ্ঞার সময় সরকার জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ২০ কেজি করে চাল দিয়েছে। এই পরিমাণ চাল একটি জেলে পরিবারের জন্য যথেষ্ট কিনা সেটা নিয়ে প্রশ্ন আছে। আবার সে চাল অনেক সময় ক্ষতিগ্রস্ত জেলেরা পায় না বলে অভিযোগ রয়েছে। শুধু চাল দিয়ে একটি পরিবারের প্রয়োজন মেটানো যায় না। জীবন ধারণের জন্য অন্যান্য জিনিসেরও প্রয়োজন আছে। নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের জীবন-ধারণের প্রয়োজন মেটানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

অনেক জেলেরই ঋণ আছে। নিষেধাজ্ঞা চলাকালে তাদের কাছ থেকে কিস্তি বা সুদ যাতে আদায় করা না হয় সেজন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে। অনেক সময় কিস্তি পরিশোধের তাগাদা থেকে জেলেরা মাছ শিকার করতে বাধ্য হয়। জেলেদের মাঝে সহজ শর্তে ঋণ বিতরণ করা যায় কিনা সেটা ভেবে দেখতে হবে।

শুধু অভিযান চালিয়ে জাল, নৌকা ও জেলে আটক করে কার্যকরভাবে ইলিশ নিধন বন্ধ করা যাবে না। জেলেদের সমস্যা সমাধানে বাস্তবে পদক্ষেপ নিতে হবে। বিষয়টি দেখতে হবে মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে।

back to top