alt

সম্পাদকীয়

কৃষক কেন পাটের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না

: বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

এবারও পাট চাষের খরচ তুলতে পারছেন না রংপুর অঞ্চলের পাঁচ জেলার কৃষকরা। গত বছর এ অঞ্চলের কৃষকরা প্রতি মণ পাট বিক্রি করেছিলেন ৩ হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার ৩০০ টাকা দরে। কিন্তু এ বছর প্রতি মণ পাট বিক্রি করতে হচ্ছে ২ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ২ হাজার ৯০০ টাকা দরে। কৃষকদের অভিযোগ একটি সিন্ডিকেটের কারসাজিতে পাটের দাম কমে গেছে।

কৃষি বিভাগ বলছে, রংপুরসহ লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা ও নীলফামারীতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৩ হাজার ৫৩৭ হেক্টর জমিতে। চাষ হয়েছে ৫২ হাজার ২৫৪ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম আবাদ হলে পাটের সংকট হওয়ার কথা। আর সংকট হলে সাধারণত পণ্যের দাম বাড়ে। কিন্তু রংপুরের পাঁচ জেলায় পাটের দাম বাড়েনি বরং কমেছে। দাম কেন কমল? কারণ কী?

অভিযোগ উঠেছে, কম দরে পাট কেনার জন্য ব্যবসায়ীরা জোট বেঁধেছে। এখন পাটের মৌসুম। বাজারে কৃষকরা পাট আনবেই। একবার বাজারে পণ্য আনলে কৃষকরা সাধারণত দাম কম হলেও তা বিক্রি করেন। আর এই সুযোগটিই নিচ্ছে একশ্রেণীর ব্যবসায়ী।

শুধু রংপুরেই নয়; দেশের অন্যান্য এলাকাতেও কৃষকরা পাটের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না বলে জানা গেছে। ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। অনেক ঋণ করে চাষবাস করেন। কম দামে পাট বিক্রি করে কিভাবে ঋণ শোধ দেবেন এ চিন্তায় তারা দিশেহারা।

অনেকে বলছেন, সরকার পাটের দাম নির্ধারণ করে দিলে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পেত। কেউ কেউ মনে করছেন, ধান-চালের মতো সরকার যদি পাটও কিনত তাহলে চাষিরা হয়তো ক্ষতিগ্রস্ত হতো না। তবে কেবল দর বেঁধে দিলে সমস্যার সমাধান হবে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

আবার এমন কথাও অনেকে বলছেন যে, আবাদ কম হোক বা বেশি হোক- পাট উৎপাদনের পর চাষিরা তা বিক্রির জন্য একসঙ্গে বাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। এতে পাটের জোগান বেড়ে যায়। কাজেই তখন পাটের দাম কমে।

এক্ষেত্রে কৃষকরা যদি একটু কৌশলী হন, তাহলে তুলনামূলকভাবে পাটের ভালো দাম পেতে পারেন। একযোগে সবাই পাট বিক্রি না করলে বাজারে চাহিদা-জোগানের ভারসাম্য থাকে। আর এ কাজে কৃষি অধিদপ্তর কৃষকদের সহযোগিতা করতে পারে। তারা এ বিষয়ে চাষিদের স্বচ্ছ ধারণা দিতে পারে, উদ্বুদ্ধ করতে পারে।

পাটের দাম কমার পেছনে কি শুধু সিন্ডিকেটই দায়ী নাকি এর পেছনে অন্য আরও কারণ আছে সেটা খুঁজে দেখতে হবে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পাটের অভ্যন্তরীণ চাহিদা কমেছে। রপ্তানিও আশানুরূপ নয়। একযুগ আগেও যেখানে বছরে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার কাঁচা পাট রপ্তানি হয়েছে, সেখানে গত অর্থবছরে রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে মাত্র সাড়ে ৬০০ কোটি টাকায়। দেশে পলিথিন ও প্লাস্টিক বস্তার ব্যবহার বেড়েছে। কৃষককে পাটের ন্যায্য মজুরি দিতে হলে এসব সমস্যারও সমাধান করতে হবে।

সিংগাইরে নূরালীগঙ্গা খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

কৃষক কেন ন্যায্যমূল্য পান না

শিশুটির বিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন কি অপূর্ণ রয়ে যাবে

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

tab

সম্পাদকীয়

কৃষক কেন পাটের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না

বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

এবারও পাট চাষের খরচ তুলতে পারছেন না রংপুর অঞ্চলের পাঁচ জেলার কৃষকরা। গত বছর এ অঞ্চলের কৃষকরা প্রতি মণ পাট বিক্রি করেছিলেন ৩ হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার ৩০০ টাকা দরে। কিন্তু এ বছর প্রতি মণ পাট বিক্রি করতে হচ্ছে ২ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ২ হাজার ৯০০ টাকা দরে। কৃষকদের অভিযোগ একটি সিন্ডিকেটের কারসাজিতে পাটের দাম কমে গেছে।

কৃষি বিভাগ বলছে, রংপুরসহ লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা ও নীলফামারীতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৩ হাজার ৫৩৭ হেক্টর জমিতে। চাষ হয়েছে ৫২ হাজার ২৫৪ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম আবাদ হলে পাটের সংকট হওয়ার কথা। আর সংকট হলে সাধারণত পণ্যের দাম বাড়ে। কিন্তু রংপুরের পাঁচ জেলায় পাটের দাম বাড়েনি বরং কমেছে। দাম কেন কমল? কারণ কী?

অভিযোগ উঠেছে, কম দরে পাট কেনার জন্য ব্যবসায়ীরা জোট বেঁধেছে। এখন পাটের মৌসুম। বাজারে কৃষকরা পাট আনবেই। একবার বাজারে পণ্য আনলে কৃষকরা সাধারণত দাম কম হলেও তা বিক্রি করেন। আর এই সুযোগটিই নিচ্ছে একশ্রেণীর ব্যবসায়ী।

শুধু রংপুরেই নয়; দেশের অন্যান্য এলাকাতেও কৃষকরা পাটের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না বলে জানা গেছে। ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। অনেক ঋণ করে চাষবাস করেন। কম দামে পাট বিক্রি করে কিভাবে ঋণ শোধ দেবেন এ চিন্তায় তারা দিশেহারা।

অনেকে বলছেন, সরকার পাটের দাম নির্ধারণ করে দিলে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পেত। কেউ কেউ মনে করছেন, ধান-চালের মতো সরকার যদি পাটও কিনত তাহলে চাষিরা হয়তো ক্ষতিগ্রস্ত হতো না। তবে কেবল দর বেঁধে দিলে সমস্যার সমাধান হবে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

আবার এমন কথাও অনেকে বলছেন যে, আবাদ কম হোক বা বেশি হোক- পাট উৎপাদনের পর চাষিরা তা বিক্রির জন্য একসঙ্গে বাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। এতে পাটের জোগান বেড়ে যায়। কাজেই তখন পাটের দাম কমে।

এক্ষেত্রে কৃষকরা যদি একটু কৌশলী হন, তাহলে তুলনামূলকভাবে পাটের ভালো দাম পেতে পারেন। একযোগে সবাই পাট বিক্রি না করলে বাজারে চাহিদা-জোগানের ভারসাম্য থাকে। আর এ কাজে কৃষি অধিদপ্তর কৃষকদের সহযোগিতা করতে পারে। তারা এ বিষয়ে চাষিদের স্বচ্ছ ধারণা দিতে পারে, উদ্বুদ্ধ করতে পারে।

পাটের দাম কমার পেছনে কি শুধু সিন্ডিকেটই দায়ী নাকি এর পেছনে অন্য আরও কারণ আছে সেটা খুঁজে দেখতে হবে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পাটের অভ্যন্তরীণ চাহিদা কমেছে। রপ্তানিও আশানুরূপ নয়। একযুগ আগেও যেখানে বছরে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার কাঁচা পাট রপ্তানি হয়েছে, সেখানে গত অর্থবছরে রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে মাত্র সাড়ে ৬০০ কোটি টাকায়। দেশে পলিথিন ও প্লাস্টিক বস্তার ব্যবহার বেড়েছে। কৃষককে পাটের ন্যায্য মজুরি দিতে হলে এসব সমস্যারও সমাধান করতে হবে।

back to top