alt

সম্পাদকীয়

বন্যপ্রাণীদের খাবারের সংকট

: রোববার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

মাগুরার শালিখায় খাবারের সন্ধানে লোকালয়ে বিচরণ করছে দুটি হনুমান। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই হনুমান দুটোকে খাবার দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ নির্দয় আচরণও করছেন। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

হনুমান বা বানরের মতো প্রাণীকে প্রায়ই বন ছেড়ে খাবারের খোঁজে লোকালয়ে হাজির হতে দেখা যায় । এমনকি খাবারের খোঁজে হাতি, বাঘ, শেয়ালসহ অনেক প্রাণীই বিভিন্ন সময় লোকালয়ে এসে হাজির হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, বন্যপ্রাণীগুলোকে লোকালয়ে আসতে হয় কেন। বনের বাইরে তো বটেই, বনের ভেতরেও তাদের মানুষের অত্যাচারই বা সইতে হয় কেন?

বিশেষজ্ঞদের মতে, বনে বসবাসরত বানর বা হনুমানসহ অন্য বন্যপ্রাণী বিভিন্ন ধরনের বনজ খাবার খেয়েই প্রাণধারণ করে। সমস্যা হচ্ছে দেশের অনেক এলাকার বনভূমি সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। বনের গাছপালা উজাড় হচ্ছে, ফলদ গাছও কমছে। মানুষের বসতি বাড়তে বাড়তে বনে গিয়ে প্রবেশ করেছে। সেখানে ফসলও ফলানো হচ্ছে। ধ্বংস হতে হতে বনের যতটুকু অবশিষ্ট আছে সেটুকুর অস্তিত্বও হুমকির সম্মুখীন। এ কারণে সেখানকার প্রাণীদের খাবারে টান পড়েছে। তাই তারা খাবারের খোঁজে চলে আসছে লোকালয়ে।

বন উজাড় করে প্রাণ ও প্রকৃতি ধ্বংসের আয়োজন অব্যাহত আছে। বন বিভাগের নাকের ডগার ওপর দিয়েই গাছপালা ধ্বংস করা হয়। অভিযোগ রয়েছে, এই ধ্বংসযজ্ঞে বনবিভাগের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীও জড়িত। বন উজাড় করে কিভাবে নিজের আখের গোছানো যায় তারা সেই চিন্তায় ব্যস্ত। বনের কোনো প্রাণী খাবার সংকটে পড়ল তা নিয়ে তাদের মাথাব্যথা নেই।

বন্যপ্রাণীর খাদ্যচক্রকে অটুট রাখার জন্য বন রক্ষা করা জরুরি। বনে খাবার থাকলে কোন প্রাণীকে লোকালয়ে এসে মারমুখী মানুষের সামনে পড়তে হবে না। বন সম্প্রসারণের উদ্যোগও নিতে হবে। এক্ষেত্রে কেবল অর্থকরী গাছ লাগালে হবে না। বন্যপ্রাণীর খাদ্যচক্রকে বিবেচনায় নিয়ে ফলদ বা প্রয়োজনীয় অন্যান্য গাছ লাগাতে হবে।

বনভূমি সম্প্রসারণ করে বা গাছ লাগিয়ে বন্যপ্রাণীর খাদ্য সংস্থান করা সময়সাপেক্ষ কাজ। তাই দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার পাশাপাশি স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে, বানর বা হনুমানের মতো প্রাণীদের খাবার সরবরাহ করতে হবে। প্রাণীদের খাবারের জন্য বরাদ্দ ব্যয়ে যেন কোনরূপ অনিয়ম বা দুর্নীতি না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

সিংগাইরে নূরালীগঙ্গা খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

কৃষক কেন ন্যায্যমূল্য পান না

শিশুটির বিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন কি অপূর্ণ রয়ে যাবে

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

tab

সম্পাদকীয়

বন্যপ্রাণীদের খাবারের সংকট

রোববার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

মাগুরার শালিখায় খাবারের সন্ধানে লোকালয়ে বিচরণ করছে দুটি হনুমান। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই হনুমান দুটোকে খাবার দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ নির্দয় আচরণও করছেন। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

হনুমান বা বানরের মতো প্রাণীকে প্রায়ই বন ছেড়ে খাবারের খোঁজে লোকালয়ে হাজির হতে দেখা যায় । এমনকি খাবারের খোঁজে হাতি, বাঘ, শেয়ালসহ অনেক প্রাণীই বিভিন্ন সময় লোকালয়ে এসে হাজির হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, বন্যপ্রাণীগুলোকে লোকালয়ে আসতে হয় কেন। বনের বাইরে তো বটেই, বনের ভেতরেও তাদের মানুষের অত্যাচারই বা সইতে হয় কেন?

বিশেষজ্ঞদের মতে, বনে বসবাসরত বানর বা হনুমানসহ অন্য বন্যপ্রাণী বিভিন্ন ধরনের বনজ খাবার খেয়েই প্রাণধারণ করে। সমস্যা হচ্ছে দেশের অনেক এলাকার বনভূমি সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। বনের গাছপালা উজাড় হচ্ছে, ফলদ গাছও কমছে। মানুষের বসতি বাড়তে বাড়তে বনে গিয়ে প্রবেশ করেছে। সেখানে ফসলও ফলানো হচ্ছে। ধ্বংস হতে হতে বনের যতটুকু অবশিষ্ট আছে সেটুকুর অস্তিত্বও হুমকির সম্মুখীন। এ কারণে সেখানকার প্রাণীদের খাবারে টান পড়েছে। তাই তারা খাবারের খোঁজে চলে আসছে লোকালয়ে।

বন উজাড় করে প্রাণ ও প্রকৃতি ধ্বংসের আয়োজন অব্যাহত আছে। বন বিভাগের নাকের ডগার ওপর দিয়েই গাছপালা ধ্বংস করা হয়। অভিযোগ রয়েছে, এই ধ্বংসযজ্ঞে বনবিভাগের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীও জড়িত। বন উজাড় করে কিভাবে নিজের আখের গোছানো যায় তারা সেই চিন্তায় ব্যস্ত। বনের কোনো প্রাণী খাবার সংকটে পড়ল তা নিয়ে তাদের মাথাব্যথা নেই।

বন্যপ্রাণীর খাদ্যচক্রকে অটুট রাখার জন্য বন রক্ষা করা জরুরি। বনে খাবার থাকলে কোন প্রাণীকে লোকালয়ে এসে মারমুখী মানুষের সামনে পড়তে হবে না। বন সম্প্রসারণের উদ্যোগও নিতে হবে। এক্ষেত্রে কেবল অর্থকরী গাছ লাগালে হবে না। বন্যপ্রাণীর খাদ্যচক্রকে বিবেচনায় নিয়ে ফলদ বা প্রয়োজনীয় অন্যান্য গাছ লাগাতে হবে।

বনভূমি সম্প্রসারণ করে বা গাছ লাগিয়ে বন্যপ্রাণীর খাদ্য সংস্থান করা সময়সাপেক্ষ কাজ। তাই দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার পাশাপাশি স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে, বানর বা হনুমানের মতো প্রাণীদের খাবার সরবরাহ করতে হবে। প্রাণীদের খাবারের জন্য বরাদ্দ ব্যয়ে যেন কোনরূপ অনিয়ম বা দুর্নীতি না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

back to top