alt

সম্পাদকীয়

শিক্ষা আইন প্রণয়ন করা গেল না কেন

: বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নে একটি শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছিল ২০১০ সালে। শিক্ষানীতি হয়েছে কিন্তু শিক্ষা আইন না হওয়ার ফলে সুষ্ঠু শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলা যাচ্ছে না। শিক্ষানীতিতে বলা হয়েছিল, শিক্ষাসংক্রান্ত সব আইন, বিধিবিধান, আদেশগুলো একত্রিত করে শিক্ষানীতির আলোকে এবং এর যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য সমন্বিত শিক্ষা আইন প্রবর্তনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। গত ১২ বছর ধরে শিক্ষা আইনের খসড়া আলোচনাতে সীমাবদ্ধ থেকেছে।

শিক্ষা আইন কেন প্রণয়ন করা যাচ্ছে না সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, শিক্ষা-বাণিজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্তদের স্বার্থ রক্ষা করা হবে কি হবে না এমন দোলাচলে থমকে গেছে শিক্ষা আইন প্রণয়ন। নোট-গাইড, সহায়ক বই, কোচিং ও প্রাইভেটের মতো কিছু বিষয় শিক্ষা আইনে রাখা না রাখা নিয়েই আইন প্রণয়নে বিলম্ব হচ্ছে। শিক্ষা আইন না হওয়ায় শিক্ষানীতি আজও বাস্তবায়ন হয়নি। সেই আগের মতোই চলছে প্রাইভেট টিউশন, কোচিং সেন্টার ও নোট-গাইড বইয়ের ব্যবসা। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে শিক্ষা আইনের খসড়াটি চূড়ান্ত করে। সেই খসড়ায় কোচিং, প্রাইভেট ও নোট-গাইড, সহায়ক বই নিষিদ্ধের বিধান রাখার কারণে কোনো এক ‘অদৃশ্য শক্তিবলে’ আবার মুখ থুবড়ে পড়েছে আইন প্রণয়নের বিষয়টি।

খসড়া আইনে নোট-গাইড বই মুদ্রণ, বাঁধাই, প্রকাশ বা বাজারজাত নিষিদ্ধ রাখা হয়েছে। পাশাপাশি কোচিংবাণিজ্য ও প্রাইভেট টিউশনও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কেউ এটি অমান্য করলে জেল-জরিমানার বিধানও রাখা হয়েছে। এ কারণে এই ব্যবসার সঙ্গে যারা জড়িত তারা এই আইন যাতে দেশে চালু না হয় তার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন। এর পর শিক্ষা আইনটি আর আলোর মুখ দেখেনি বলে অনেকে মনে করে থাকেন।

শিক্ষাবিদরা বলছেন, সবাই নন, দেশের খুব কমসংখ্যক শিক্ষক প্রাইভেট বা কোচিং ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। শিক্ষা আইন করে নোট-গাইড বই ও কোচিংবাণিজ্যের লাগাম টানতে হবে। তবে তা রোধ করতে হবে স্থায়ীভাবে। আর স্থায়ীভাবে রোধ করা না গেলে দেশে শিক্ষা-বাণিজ্য কখনও বন্ধ হবে না।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

tab

সম্পাদকীয়

শিক্ষা আইন প্রণয়ন করা গেল না কেন

বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

শিক্ষাব্যবস্থার মানোন্নয়নে একটি শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছিল ২০১০ সালে। শিক্ষানীতি হয়েছে কিন্তু শিক্ষা আইন না হওয়ার ফলে সুষ্ঠু শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলা যাচ্ছে না। শিক্ষানীতিতে বলা হয়েছিল, শিক্ষাসংক্রান্ত সব আইন, বিধিবিধান, আদেশগুলো একত্রিত করে শিক্ষানীতির আলোকে এবং এর যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য সমন্বিত শিক্ষা আইন প্রবর্তনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। গত ১২ বছর ধরে শিক্ষা আইনের খসড়া আলোচনাতে সীমাবদ্ধ থেকেছে।

শিক্ষা আইন কেন প্রণয়ন করা যাচ্ছে না সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, শিক্ষা-বাণিজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্তদের স্বার্থ রক্ষা করা হবে কি হবে না এমন দোলাচলে থমকে গেছে শিক্ষা আইন প্রণয়ন। নোট-গাইড, সহায়ক বই, কোচিং ও প্রাইভেটের মতো কিছু বিষয় শিক্ষা আইনে রাখা না রাখা নিয়েই আইন প্রণয়নে বিলম্ব হচ্ছে। শিক্ষা আইন না হওয়ায় শিক্ষানীতি আজও বাস্তবায়ন হয়নি। সেই আগের মতোই চলছে প্রাইভেট টিউশন, কোচিং সেন্টার ও নোট-গাইড বইয়ের ব্যবসা। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে শিক্ষা আইনের খসড়াটি চূড়ান্ত করে। সেই খসড়ায় কোচিং, প্রাইভেট ও নোট-গাইড, সহায়ক বই নিষিদ্ধের বিধান রাখার কারণে কোনো এক ‘অদৃশ্য শক্তিবলে’ আবার মুখ থুবড়ে পড়েছে আইন প্রণয়নের বিষয়টি।

খসড়া আইনে নোট-গাইড বই মুদ্রণ, বাঁধাই, প্রকাশ বা বাজারজাত নিষিদ্ধ রাখা হয়েছে। পাশাপাশি কোচিংবাণিজ্য ও প্রাইভেট টিউশনও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কেউ এটি অমান্য করলে জেল-জরিমানার বিধানও রাখা হয়েছে। এ কারণে এই ব্যবসার সঙ্গে যারা জড়িত তারা এই আইন যাতে দেশে চালু না হয় তার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন। এর পর শিক্ষা আইনটি আর আলোর মুখ দেখেনি বলে অনেকে মনে করে থাকেন।

শিক্ষাবিদরা বলছেন, সবাই নন, দেশের খুব কমসংখ্যক শিক্ষক প্রাইভেট বা কোচিং ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। শিক্ষা আইন করে নোট-গাইড বই ও কোচিংবাণিজ্যের লাগাম টানতে হবে। তবে তা রোধ করতে হবে স্থায়ীভাবে। আর স্থায়ীভাবে রোধ করা না গেলে দেশে শিক্ষা-বাণিজ্য কখনও বন্ধ হবে না।

back to top