alt

সম্পাদকীয়

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

: শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) নিয়মিত তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম নির্ধারণ করে দেয়। গত রোববার ভোক্তাপর্যায়ে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) ১২ কেজি ওজনের সিলিন্ডারের দাম ১ হাজার ৪৭৪ টাকা নির্ধারণ করেছে বিইআরসি। সেদিন থেকেই এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার কথা। জানুয়ারি মাসে ১২ কেজি ওজনের এলপিজি সিলিন্ডারের দাম ছিল ১ হাজার ৪৩৩ টাকা; কিন্তু রাজশাহীতে নির্ধারিত দরে সিলিন্ডার মিলছে না। এতে ভোক্তারা বিপাকে পড়েছেন।

বিশ্ববাজারে দাম বাড়লে বা কমলে দেশেও এলপিজির দর বাড়ানো বা কমানো হয়। সমস্যা হচ্ছে বিইআরসি যখন যে দামই নির্ধারণ করুক না কেন সেই দামে ভোক্তারা এলপিজি কিনতে পারেন না। সাধারণত গৃহস্থালির কাজে এলপিজির ১২ কেজি সিলিন্ডার বেশি ব্যবহৃত হয়। কেবল রাজশাহীতেই নয়, দেশের অনেক স্থানেই ভোক্তাদের নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দাম দিয়ে বাজার থেকে সিলিন্ডার কিনতে হচ্ছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

দেশে এলপিজি গ্যাসের দাম নিয়ে নৈরাজ্যের অবসান হচ্ছে না। দেশের একেক জায়গায় সিলিন্ডার বিক্রি হয় একেক দামে। এর আগে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। তবে দাম নিয়ে নৈরাজ্য চলছেই।

নির্ধারিত দরে বাজারে এলপিজি বিক্রি হচ্ছে না কেন সেটা একটা প্রশ্ন। এলপিজি তৈরির মূল দুই উপাদান হচ্ছে প্রপেন ও বিউটেন। এ দুটোই আমদানি করতে হয়। সৌদি আরামকো কর্তৃক প্রোপেন ও বিউটেন উভয়েরই ঘোষিত দাম বিবেচনায় নিয়ে দেশে এলপিজির দাম নির্ধারণ করা হয়। কাজেই ব্যবসায়ীদের এলপিজি বিক্রি করে লোকসান দেবার কথা নয়। তারপরও কোনো কোনো ব্যবসায়ী এই দর নিয়ে সন্তষ্ট হচ্ছেন না বলে জানা যায়।

বেঁধে দেয়া দরে যদি এলপিজি সিলিন্ডার না বিক্রি হয় তাহলে নিয়মিত এর দাম নির্ধারণ করার মানে কী সেটা আমরা জানতে চাইব। আমরা বলতে চাই, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে এলপিজির মূল্য নির্ধারণ করার পর সেটা কার্যকর করতে হবে। কমিশনঘোষিত মূল্যহার বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তৎপর হতে হবে। কেবল একটা দাম নির্ধারণ করে দায়িত্ব সারলে চলে না। নির্ধারিত দরে ভোক্তারা সিলিন্ডার কিনতে পারছে কিনাÑ সেটা মনিটর করা জরুরি।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

tab

সম্পাদকীয়

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) নিয়মিত তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম নির্ধারণ করে দেয়। গত রোববার ভোক্তাপর্যায়ে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) ১২ কেজি ওজনের সিলিন্ডারের দাম ১ হাজার ৪৭৪ টাকা নির্ধারণ করেছে বিইআরসি। সেদিন থেকেই এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার কথা। জানুয়ারি মাসে ১২ কেজি ওজনের এলপিজি সিলিন্ডারের দাম ছিল ১ হাজার ৪৩৩ টাকা; কিন্তু রাজশাহীতে নির্ধারিত দরে সিলিন্ডার মিলছে না। এতে ভোক্তারা বিপাকে পড়েছেন।

বিশ্ববাজারে দাম বাড়লে বা কমলে দেশেও এলপিজির দর বাড়ানো বা কমানো হয়। সমস্যা হচ্ছে বিইআরসি যখন যে দামই নির্ধারণ করুক না কেন সেই দামে ভোক্তারা এলপিজি কিনতে পারেন না। সাধারণত গৃহস্থালির কাজে এলপিজির ১২ কেজি সিলিন্ডার বেশি ব্যবহৃত হয়। কেবল রাজশাহীতেই নয়, দেশের অনেক স্থানেই ভোক্তাদের নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দাম দিয়ে বাজার থেকে সিলিন্ডার কিনতে হচ্ছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

দেশে এলপিজি গ্যাসের দাম নিয়ে নৈরাজ্যের অবসান হচ্ছে না। দেশের একেক জায়গায় সিলিন্ডার বিক্রি হয় একেক দামে। এর আগে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। তবে দাম নিয়ে নৈরাজ্য চলছেই।

নির্ধারিত দরে বাজারে এলপিজি বিক্রি হচ্ছে না কেন সেটা একটা প্রশ্ন। এলপিজি তৈরির মূল দুই উপাদান হচ্ছে প্রপেন ও বিউটেন। এ দুটোই আমদানি করতে হয়। সৌদি আরামকো কর্তৃক প্রোপেন ও বিউটেন উভয়েরই ঘোষিত দাম বিবেচনায় নিয়ে দেশে এলপিজির দাম নির্ধারণ করা হয়। কাজেই ব্যবসায়ীদের এলপিজি বিক্রি করে লোকসান দেবার কথা নয়। তারপরও কোনো কোনো ব্যবসায়ী এই দর নিয়ে সন্তষ্ট হচ্ছেন না বলে জানা যায়।

বেঁধে দেয়া দরে যদি এলপিজি সিলিন্ডার না বিক্রি হয় তাহলে নিয়মিত এর দাম নির্ধারণ করার মানে কী সেটা আমরা জানতে চাইব। আমরা বলতে চাই, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে এলপিজির মূল্য নির্ধারণ করার পর সেটা কার্যকর করতে হবে। কমিশনঘোষিত মূল্যহার বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তৎপর হতে হবে। কেবল একটা দাম নির্ধারণ করে দায়িত্ব সারলে চলে না। নির্ধারিত দরে ভোক্তারা সিলিন্ডার কিনতে পারছে কিনাÑ সেটা মনিটর করা জরুরি।

back to top