alt

সম্পাদকীয়

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

: রোববার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ৫৩ বছর পেরিয়েছে। কিন্তু শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার ফেদুল্লা বেপারী কান্দি গ্রামের নদীর ওপরে সেতু নির্মিত হয়নি। এলাকার ভুক্তভোগী জনসাধারণ নিজেদের চেষ্টায় বাঁশের সাঁকো তৈরি করে নদী পার হয়। সেই বাঁশের সাঁকোটিও এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে।

পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে নদীর উপর একটি পাকা সেতু নির্মাণের জন্য দাবি জানিয়ে আসছে এ অঞ্চলের বাসিন্দারা কিন্তু পাকা সেতু তৈরি হয়নি। মিলেছে শুধু আশ্বাসের পর আশ্বাস।

বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে এলাকার হাজারও মানুষ। ছয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শত শত শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসা করছে। নড়বড়ে সাঁকো পার হতে গিয়ে অনেক সময় দুর্ঘটনারও শিকার হন কেউ কেউ। অসুস্থ রোগী ও গর্ভবতী মায়েদের হাসপাতালে নিতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় স্বজনদের।

পদ্মা সেতু হওয়ায় জাজিরা উপজেলার মানুষের জীবন-জীবিকার মানোন্নয়নে নানান পথ খুলে গেছে। কিন্তু এখানে একটি পাকা সেতু না থাকায় তারা কোনো সুবিধা ভোগ করতে পারছে না। এমন আক্ষেপের কথা তুলে ধরেছেন এলাকার মানুষ। স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যানও আগের চেয়ারম্যানদের মতোই আশ্বাস দিয়ে বলেছেন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। খুব শীঘ্রই একটি পাকা সেতু নির্মাণের ব্যবস্থা হয়ে যাবে।

দেশের কত জায়গায় সেতু নির্মাণের প্রয়োজন নেই, কিন্তু সেখানে সেতু নির্মিত হয়েছে। নির্মিত সেতু অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে এ খবর গণমাধ্যমের খবরে দেখা যায়। জাজিরার ফেদুল্লা বেপারী কান্দি গ্রামের নদীর উপর একটি পাকা সেতু এত বছরেও কেন হলো না, সে প্রশ্ন এসে যায়।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কর্তৃপক্ষ এত বছর পর বলছেন, এটি নদী নাকি জলাভূমি তা এখনও জানা যায়নি। সমস্যাটির সমাধান করতে হবে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ও জেলা প্রশাসনকে। আমরা আশা করব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুতই সমস্যাটির সমাধান করবে। সেখানে একটি পাকা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে এমনটাই আমরা দেখতে চাই।

জাজিরার মতো দেশের অনেক এলাকায় এখনও পাকা সেতু করা হয়নি। সেসব এলাকায়ও যেন সেতু নির্মাণ করা হয় এবং যাতায়াত-যোগাযোগ সমস্যা নিরসন করা হয় সেটাই আমাদের চাওয়া।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

tab

সম্পাদকীয়

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

রোববার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ৫৩ বছর পেরিয়েছে। কিন্তু শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার ফেদুল্লা বেপারী কান্দি গ্রামের নদীর ওপরে সেতু নির্মিত হয়নি। এলাকার ভুক্তভোগী জনসাধারণ নিজেদের চেষ্টায় বাঁশের সাঁকো তৈরি করে নদী পার হয়। সেই বাঁশের সাঁকোটিও এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে।

পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে নদীর উপর একটি পাকা সেতু নির্মাণের জন্য দাবি জানিয়ে আসছে এ অঞ্চলের বাসিন্দারা কিন্তু পাকা সেতু তৈরি হয়নি। মিলেছে শুধু আশ্বাসের পর আশ্বাস।

বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে এলাকার হাজারও মানুষ। ছয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শত শত শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসা করছে। নড়বড়ে সাঁকো পার হতে গিয়ে অনেক সময় দুর্ঘটনারও শিকার হন কেউ কেউ। অসুস্থ রোগী ও গর্ভবতী মায়েদের হাসপাতালে নিতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় স্বজনদের।

পদ্মা সেতু হওয়ায় জাজিরা উপজেলার মানুষের জীবন-জীবিকার মানোন্নয়নে নানান পথ খুলে গেছে। কিন্তু এখানে একটি পাকা সেতু না থাকায় তারা কোনো সুবিধা ভোগ করতে পারছে না। এমন আক্ষেপের কথা তুলে ধরেছেন এলাকার মানুষ। স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যানও আগের চেয়ারম্যানদের মতোই আশ্বাস দিয়ে বলেছেন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। খুব শীঘ্রই একটি পাকা সেতু নির্মাণের ব্যবস্থা হয়ে যাবে।

দেশের কত জায়গায় সেতু নির্মাণের প্রয়োজন নেই, কিন্তু সেখানে সেতু নির্মিত হয়েছে। নির্মিত সেতু অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে এ খবর গণমাধ্যমের খবরে দেখা যায়। জাজিরার ফেদুল্লা বেপারী কান্দি গ্রামের নদীর উপর একটি পাকা সেতু এত বছরেও কেন হলো না, সে প্রশ্ন এসে যায়।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কর্তৃপক্ষ এত বছর পর বলছেন, এটি নদী নাকি জলাভূমি তা এখনও জানা যায়নি। সমস্যাটির সমাধান করতে হবে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ও জেলা প্রশাসনকে। আমরা আশা করব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুতই সমস্যাটির সমাধান করবে। সেখানে একটি পাকা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে এমনটাই আমরা দেখতে চাই।

জাজিরার মতো দেশের অনেক এলাকায় এখনও পাকা সেতু করা হয়নি। সেসব এলাকায়ও যেন সেতু নির্মাণ করা হয় এবং যাতায়াত-যোগাযোগ সমস্যা নিরসন করা হয় সেটাই আমাদের চাওয়া।

back to top