alt

সম্পাদকীয়

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

: রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

খাবার অপচয় হচ্ছে বিশ্বজুড়েই। কিন্তু যখন জানা যায় যে, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং রাশিয়ার চেয়ে বেশি অপচয় হয় বাংলাদেশে তখন বিস্মিত হতে হয়, উদ্বেগও দেখা দেয়।

জাতিসংঘের ‘খাবার অপচয় সূচক প্রতিবেদন ২০২৪’ থেকে জানা যাচ্ছে, বাংলাদেশে একজন ব্যক্তি গড়ে বছরে ৮২ কেজি খাবার অপচয় করেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে একজন ব্যক্তি গড়ে বছরে অপচয় করেন ৭৩ কেজি খাবার এবং যুক্তরাজ্যে অপচয়ের পরিমাণ হচ্ছে গড়ে ৭৬ কেজি। রাশিয়ায় অপচয় হয় গড়ে ৩৩ কেজি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বে বছরের প্রতিদিন এক বেলায় যে পরিমাণ খাবার নষ্ট হয়, সেটা দিয়ে অনাহারে থাকা প্রায় ৮০ কোটি মানুষের সবাইকে খাওয়ানো সম্ভব। বাংলাদেশে এমন অনেক মানুষ আছেন যাদেরকে দুবেলা দুমুঠো খাবার জোগাড় করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বমুখী দামে তাদের অন্ন সংস্থানের কাজ কঠিন থেকে কঠিনতর হয়েছে।

খাবার অপচয়ের ক্ষতিকর প্রভাব কেবল এটা নয় যে- অনাহারি মানুষরা বঞ্চিত হচ্ছেন। এর প্রভাব অত্যন্ত গভীর। খাদ্য উৎপাদনে পানি, জ্বালানি, সার, কীটনাশক, শ্রমশক্তি অনেক কিছু লাগে। খাবারের অপচয় মানে খাদ্য উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় সব উপকরণের অপচয়। যেটা পরিবেশ ও আর্থিক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

প্রশ্ন হচ্ছে, অনেক উন্নত দেশের তুলনায় বাংলাদেশে খাবার অপচয় বেশি হওয়ার কারণ কী আর এ থেকে মুক্তির পথইবা কী।

জাতিসংঘের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বাসাবাড়িতেই খাবার অপচয় হয় বেশি। এটাও বিস্ময়কর তথ্য যে রোস্তোরাঁর চেয়ে মানুষের নিজের ঘরেই বেশি খাবার নষ্ট হচ্ছে। সাধারণভাবে ধারণা করা যায় যে, নিজ ঘরে নাগরিকরা খাবার সংরক্ষণে বেশি যতœবান হবেন। কিন্তু গবেষণা দেখাচ্ছে উল্টো চিত্র।

গবেষণা বলছে, দরিদ্র পরিবারে তুলনায় সচ্ছল বা উচ্চবিত্ত পরিবারে খাবার বেশি অপচয় হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, সচ্ছল পরিবারে খাবার সংরক্ষণ করবার মতো যথেষ্ট প্রযুক্তি থাকার কথা। আর দেশে উচ্চবিত্ত বা সচ্ছল পরিবারের সংখ্যা কত? কেবল কি এই কারণেই বাংলাদেশের খাবার অপচয়ের পরিমাণ যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের চেয়ে বেশি? এর উত্তর হয়তো গবেষকদের কাছে আছে। বা না থাকলে এ বিষয়ে বিশদ গবেষণা দেশের অভ্যন্তরে হবে বলে আমরা আশা করি।

নীতিনির্ধারকদেরকে খাবারের অপচয় রোধের পথ খুঁজতে হবে। সংশ্লিষ্ট গবেষকদের নিয়ে একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা যেতে পারে। মানুষকে খাবার সদ্ব্যবহার ও সংরক্ষণে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম ব্যবহারে চাই সচেতনতা

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

কিশোর গ্যাংয়ের প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

আদমজী ইপিজেড সড়ক মেরামতে আর কত কালক্ষেপণ

নদ-নদীর নাব্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিন

চকরিয়ায় পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

গরমে দুর্বিষহ জনজীবন

ভালুকায় খাবার পানির সংকট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

সড়কে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

tab

সম্পাদকীয়

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

খাবার অপচয় হচ্ছে বিশ্বজুড়েই। কিন্তু যখন জানা যায় যে, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং রাশিয়ার চেয়ে বেশি অপচয় হয় বাংলাদেশে তখন বিস্মিত হতে হয়, উদ্বেগও দেখা দেয়।

জাতিসংঘের ‘খাবার অপচয় সূচক প্রতিবেদন ২০২৪’ থেকে জানা যাচ্ছে, বাংলাদেশে একজন ব্যক্তি গড়ে বছরে ৮২ কেজি খাবার অপচয় করেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে একজন ব্যক্তি গড়ে বছরে অপচয় করেন ৭৩ কেজি খাবার এবং যুক্তরাজ্যে অপচয়ের পরিমাণ হচ্ছে গড়ে ৭৬ কেজি। রাশিয়ায় অপচয় হয় গড়ে ৩৩ কেজি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বে বছরের প্রতিদিন এক বেলায় যে পরিমাণ খাবার নষ্ট হয়, সেটা দিয়ে অনাহারে থাকা প্রায় ৮০ কোটি মানুষের সবাইকে খাওয়ানো সম্ভব। বাংলাদেশে এমন অনেক মানুষ আছেন যাদেরকে দুবেলা দুমুঠো খাবার জোগাড় করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বমুখী দামে তাদের অন্ন সংস্থানের কাজ কঠিন থেকে কঠিনতর হয়েছে।

খাবার অপচয়ের ক্ষতিকর প্রভাব কেবল এটা নয় যে- অনাহারি মানুষরা বঞ্চিত হচ্ছেন। এর প্রভাব অত্যন্ত গভীর। খাদ্য উৎপাদনে পানি, জ্বালানি, সার, কীটনাশক, শ্রমশক্তি অনেক কিছু লাগে। খাবারের অপচয় মানে খাদ্য উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় সব উপকরণের অপচয়। যেটা পরিবেশ ও আর্থিক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

প্রশ্ন হচ্ছে, অনেক উন্নত দেশের তুলনায় বাংলাদেশে খাবার অপচয় বেশি হওয়ার কারণ কী আর এ থেকে মুক্তির পথইবা কী।

জাতিসংঘের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বাসাবাড়িতেই খাবার অপচয় হয় বেশি। এটাও বিস্ময়কর তথ্য যে রোস্তোরাঁর চেয়ে মানুষের নিজের ঘরেই বেশি খাবার নষ্ট হচ্ছে। সাধারণভাবে ধারণা করা যায় যে, নিজ ঘরে নাগরিকরা খাবার সংরক্ষণে বেশি যতœবান হবেন। কিন্তু গবেষণা দেখাচ্ছে উল্টো চিত্র।

গবেষণা বলছে, দরিদ্র পরিবারে তুলনায় সচ্ছল বা উচ্চবিত্ত পরিবারে খাবার বেশি অপচয় হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, সচ্ছল পরিবারে খাবার সংরক্ষণ করবার মতো যথেষ্ট প্রযুক্তি থাকার কথা। আর দেশে উচ্চবিত্ত বা সচ্ছল পরিবারের সংখ্যা কত? কেবল কি এই কারণেই বাংলাদেশের খাবার অপচয়ের পরিমাণ যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের চেয়ে বেশি? এর উত্তর হয়তো গবেষকদের কাছে আছে। বা না থাকলে এ বিষয়ে বিশদ গবেষণা দেশের অভ্যন্তরে হবে বলে আমরা আশা করি।

নীতিনির্ধারকদেরকে খাবারের অপচয় রোধের পথ খুঁজতে হবে। সংশ্লিষ্ট গবেষকদের নিয়ে একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা যেতে পারে। মানুষকে খাবার সদ্ব্যবহার ও সংরক্ষণে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

back to top