alt

সম্পাদকীয়

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

: রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ ও চিকিৎসা উপকরণের ব্যবস্থা না করেই উদ্বোধন করা হয়েছিল রংপুর ১০০ শয্যার শিশু হাসপাতালটি। উদ্বোধনের ১৩ মাস পেরিয়ে গেলেও সেটি এখনও চালু করা হয়নি। শিশু হাসপাতালটির কার্যক্রম কবে নাগাদ চালু করা সম্ভব হবে, তা-ও বলতে পারছেন না স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো কর্মকর্তা। ফলে কাজ নেই বলে অলস সময় পার করছেন আবাসিক চিকিৎসক, চারজন নার্স এবং নিরাপত্তা প্রহরীরা।

শিশুদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে রংপুর মহানগরীর প্রাণকেন্দ্রে প্রায় দুই একর জমির উপর তিন বছর আগে রংপুর শিশু হাসপাতালটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করা হয়। রংপুর বিভাগে দুই কোটি মানুষের বসবাস। সেখানকার শিশুদের বিশেষায়িত চিকিৎসাসেবার জন্য রাজধানী ঢাকায় ছুটে আসতে হয়। এতে রোগীর স্বজনদের খরচও বেড়ে যায়। আবার ভোগান্তিও পোহাতে হয়। তাই সরকার এ অঞ্চলের শিশুদের বিনামূল্যে জটিল অপারেশনসহ বিশেষায়িত উন্নত চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ১০০ শয্যার হাসপাতালটি নির্মাণ করে। শিশু হাসপাতালটি চালু হলে এখানকার দরিদ্র মা-বাবা তাদের সন্তানদের কম খরচে চিকিৎসা করাতে পারবেন, এমন আশায় বুক বেঁধে ছিলেন তারা।

শিশু হাসপাতালের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ এবং জনবলের চাহিদা র্নিধারণ করা হয়েছে। আর এসব চাহিদা বরাদ্দের জন্য মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে, এসব তথ্য জানিয়েছেন রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক। কিন্তু হাসপাতালটি কবে নাগাদ চালু করা হবে সে ব্যপারে তিনি কিছুই বলতে পারেননি। রাষ্ট্রের সাড়ে ৩১ কোটি টাকা ব্যয় করে শিশু হাসপাতালটি নির্মাণ করা হয়েছে। এদিকে ১৩ মাস হয়ে গেল উদ্বোধন করা হয়েছে, কিন্তু আজও কেন চালু করা হচ্ছে না, সে প্রশ্ন আমরা করতে চাই।

শিশু হাসপাতালটি চালুর ব্যাপরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করবে, এটা আমরা চাই। হাসপাতালটির চাহিদাপত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। দাপ্তরিক কাজগুলো সারতে যেন দেরি না হয় সে ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক হতে হবে। রংপুর শিশু হাসপাতালটি চালুর ব্যাপারে যত দ্রুত সম্ভব সব বাধা দূর হবে, এটা আমরা আশা করব।

অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম ব্যবহারে চাই সচেতনতা

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

কিশোর গ্যাংয়ের প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

আদমজী ইপিজেড সড়ক মেরামতে আর কত কালক্ষেপণ

নদ-নদীর নাব্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিন

চকরিয়ায় পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

গরমে দুর্বিষহ জনজীবন

ভালুকায় খাবার পানির সংকট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

সড়কে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

tab

সম্পাদকীয়

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ ও চিকিৎসা উপকরণের ব্যবস্থা না করেই উদ্বোধন করা হয়েছিল রংপুর ১০০ শয্যার শিশু হাসপাতালটি। উদ্বোধনের ১৩ মাস পেরিয়ে গেলেও সেটি এখনও চালু করা হয়নি। শিশু হাসপাতালটির কার্যক্রম কবে নাগাদ চালু করা সম্ভব হবে, তা-ও বলতে পারছেন না স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো কর্মকর্তা। ফলে কাজ নেই বলে অলস সময় পার করছেন আবাসিক চিকিৎসক, চারজন নার্স এবং নিরাপত্তা প্রহরীরা।

শিশুদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে রংপুর মহানগরীর প্রাণকেন্দ্রে প্রায় দুই একর জমির উপর তিন বছর আগে রংপুর শিশু হাসপাতালটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করা হয়। রংপুর বিভাগে দুই কোটি মানুষের বসবাস। সেখানকার শিশুদের বিশেষায়িত চিকিৎসাসেবার জন্য রাজধানী ঢাকায় ছুটে আসতে হয়। এতে রোগীর স্বজনদের খরচও বেড়ে যায়। আবার ভোগান্তিও পোহাতে হয়। তাই সরকার এ অঞ্চলের শিশুদের বিনামূল্যে জটিল অপারেশনসহ বিশেষায়িত উন্নত চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ১০০ শয্যার হাসপাতালটি নির্মাণ করে। শিশু হাসপাতালটি চালু হলে এখানকার দরিদ্র মা-বাবা তাদের সন্তানদের কম খরচে চিকিৎসা করাতে পারবেন, এমন আশায় বুক বেঁধে ছিলেন তারা।

শিশু হাসপাতালের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ এবং জনবলের চাহিদা র্নিধারণ করা হয়েছে। আর এসব চাহিদা বরাদ্দের জন্য মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে, এসব তথ্য জানিয়েছেন রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক। কিন্তু হাসপাতালটি কবে নাগাদ চালু করা হবে সে ব্যপারে তিনি কিছুই বলতে পারেননি। রাষ্ট্রের সাড়ে ৩১ কোটি টাকা ব্যয় করে শিশু হাসপাতালটি নির্মাণ করা হয়েছে। এদিকে ১৩ মাস হয়ে গেল উদ্বোধন করা হয়েছে, কিন্তু আজও কেন চালু করা হচ্ছে না, সে প্রশ্ন আমরা করতে চাই।

শিশু হাসপাতালটি চালুর ব্যাপরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করবে, এটা আমরা চাই। হাসপাতালটির চাহিদাপত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। দাপ্তরিক কাজগুলো সারতে যেন দেরি না হয় সে ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক হতে হবে। রংপুর শিশু হাসপাতালটি চালুর ব্যাপারে যত দ্রুত সম্ভব সব বাধা দূর হবে, এটা আমরা আশা করব।

back to top