alt

সম্পাদকীয়

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

: শনিবার, ১১ মে ২০২৪

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মাটি ব্যবসায়ীরা ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। ফলে জমির উর্বরা শক্তি কমে যাচ্ছে এবং উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে। পাশাপাশি পরিবেশের ভারসাম্যও নষ্ট হচ্ছে। এসব মাটি কিনছে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ৫২টি ইটভাটা।

প্রশ্ন হচ্ছে, এতদিন ধরে মাটি ব্যবসায়ীরা ফসলি জমির ক্ষতি করে চলেছে, তবুও প্রশাসনের কেন টনক নড়ছে না? ফসলি জমির মাটি কাটা আইনত দ-ণীয় অপরাধ। কেউ এ আইন অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে জেল-জরিমানার বিধানও রয়েছে। আইন থাকলেও কর্তৃপক্ষকে আইন প্রয়োগ করতে দেখা যায় না সেভাবে। আইনই যদি প্রয়োগ করা হতো তাহলে ইটভাটার সামনে ফসলি জমির মাটির পাহাড় গড়ে উঠত না।

পরিবেশবিদরা বলছেন, ফসলি জমির উপরিভাগের ৬ থেকে ৭ ইঞ্চির মধ্যে থাকে মাটির জৈব পদার্থ; যা মাটির উর্বরা শক্তি বাড়ায়। এতে ফসল উৎপাদনও বাড়ে। কেউ যদি জমির সেই টপসয়েল কেটে নেয় তাহলে বহু বছর ধরে সেই জমিতে আর ফসল হয় না। অবৈধভাবে গড়ে ওঠা এসব ইটভাটা মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে একসময় এলাকায় আর ফসলি জমি থাকবে না।

কৃষিজমির টপসয়েল কেটে কোনো কাজে ব্যবহার করা যাবে না। যারা এসব অন্যায় কর্মকা- করছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে। এমন আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি। একই রকম আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও। শুধু আশ্বাস দিলেই হবে না। কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। একটি দুটি নয়, অবৈধভাবে অর্ধশতাধিক ইটভাটা কী করে গড়ে উঠল, সেই প্রশ্ন এসে যায়।

শুধু মিঠাপুকুরে ফসলি জমির মাটি ইটভাটায় যাচ্ছে তা না। দেশের বিভিন্ন এলাকায় এসব অন্যায় কর্মকা- ঘটে। প্রশাসনের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে এসব অন্যায় কর্মকা- করে মাটি ব্যবসায়ীরা। এমনটিই হচ্ছে মিঠাপুকুরে। সেখানে ৫২টি অবৈধ ইটভাটা চলছে। ফসলি জমির মাটি দিয়েই সেখানে চলছে ইট তৈরি; কিন্তু এক্ষেত্রে প্রশাসনের কোনো নজরদারি নেই।

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির মাটি যদি এভাবে ইটভাটায় যেতে থাকে তাহলে অদূর ভবিষ্যতে কৃষিজমির অস্তিত্ব থাকবে না বলে কৃষিবিদরা যে আশঙ্কা করছেন, সেটি কর্তৃপক্ষকে মাথায় নিতে হবে। যে কোনো মূল্যে সেখানকার কৃষিজমিগুলো রক্ষা করতে হবে। কেননা এর সঙ্গে খাদ্য নিরাপত্তার প্রশ্নটিও জড়িত। মিঠাপুকুরসহ দেশের যেসব এলাকায় ফসলি জমির মাটি কাটা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি কৃষি বিভাগকেও ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কাটার ক্ষতি সম্পর্কে সচেতন করতে হবে।

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

গোবিন্দগঞ্জে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে গাছ কাটার অভিযোগ আমলে নিন

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা জরুরি

অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম ব্যবহারে চাই সচেতনতা

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

tab

সম্পাদকীয়

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

শনিবার, ১১ মে ২০২৪

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মাটি ব্যবসায়ীরা ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। ফলে জমির উর্বরা শক্তি কমে যাচ্ছে এবং উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে। পাশাপাশি পরিবেশের ভারসাম্যও নষ্ট হচ্ছে। এসব মাটি কিনছে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ৫২টি ইটভাটা।

প্রশ্ন হচ্ছে, এতদিন ধরে মাটি ব্যবসায়ীরা ফসলি জমির ক্ষতি করে চলেছে, তবুও প্রশাসনের কেন টনক নড়ছে না? ফসলি জমির মাটি কাটা আইনত দ-ণীয় অপরাধ। কেউ এ আইন অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে জেল-জরিমানার বিধানও রয়েছে। আইন থাকলেও কর্তৃপক্ষকে আইন প্রয়োগ করতে দেখা যায় না সেভাবে। আইনই যদি প্রয়োগ করা হতো তাহলে ইটভাটার সামনে ফসলি জমির মাটির পাহাড় গড়ে উঠত না।

পরিবেশবিদরা বলছেন, ফসলি জমির উপরিভাগের ৬ থেকে ৭ ইঞ্চির মধ্যে থাকে মাটির জৈব পদার্থ; যা মাটির উর্বরা শক্তি বাড়ায়। এতে ফসল উৎপাদনও বাড়ে। কেউ যদি জমির সেই টপসয়েল কেটে নেয় তাহলে বহু বছর ধরে সেই জমিতে আর ফসল হয় না। অবৈধভাবে গড়ে ওঠা এসব ইটভাটা মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে একসময় এলাকায় আর ফসলি জমি থাকবে না।

কৃষিজমির টপসয়েল কেটে কোনো কাজে ব্যবহার করা যাবে না। যারা এসব অন্যায় কর্মকা- করছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে। এমন আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি। একই রকম আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও। শুধু আশ্বাস দিলেই হবে না। কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। একটি দুটি নয়, অবৈধভাবে অর্ধশতাধিক ইটভাটা কী করে গড়ে উঠল, সেই প্রশ্ন এসে যায়।

শুধু মিঠাপুকুরে ফসলি জমির মাটি ইটভাটায় যাচ্ছে তা না। দেশের বিভিন্ন এলাকায় এসব অন্যায় কর্মকা- ঘটে। প্রশাসনের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে এসব অন্যায় কর্মকা- করে মাটি ব্যবসায়ীরা। এমনটিই হচ্ছে মিঠাপুকুরে। সেখানে ৫২টি অবৈধ ইটভাটা চলছে। ফসলি জমির মাটি দিয়েই সেখানে চলছে ইট তৈরি; কিন্তু এক্ষেত্রে প্রশাসনের কোনো নজরদারি নেই।

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির মাটি যদি এভাবে ইটভাটায় যেতে থাকে তাহলে অদূর ভবিষ্যতে কৃষিজমির অস্তিত্ব থাকবে না বলে কৃষিবিদরা যে আশঙ্কা করছেন, সেটি কর্তৃপক্ষকে মাথায় নিতে হবে। যে কোনো মূল্যে সেখানকার কৃষিজমিগুলো রক্ষা করতে হবে। কেননা এর সঙ্গে খাদ্য নিরাপত্তার প্রশ্নটিও জড়িত। মিঠাপুকুরসহ দেশের যেসব এলাকায় ফসলি জমির মাটি কাটা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি কৃষি বিভাগকেও ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কাটার ক্ষতি সম্পর্কে সচেতন করতে হবে।

back to top