alt

সম্পাদকীয়

রাসায়নিক শিল্পপল্লীর কাজে ধীরগতি কেন

: সোমবার, ২৬ এপ্রিল ২০২১

২০১০ সালের ৩ জুন পুরান ঢাকার নিমতলীতে ভয়াবহ আগুনে ১২৪ জন মানুষ মারা যান। এরপর পেরিয়েছে ১০ বছরের বেশি সময়। কিন্তু রাসায়নিকের গুদাম সরিয়ে নিতে রাসায়নিক শিল্পপল্লী প্রতিষ্ঠার প্রকল্পে মাটি ভরাটই শুরু হয়নি। পল্লী প্রতিষ্ঠার আগে রাসায়নিকের ব্যবসা অস্থায়ী গুদামে সরিয়ে নেওয়ার যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তাও বাস্তবায়ন হয়নি। এরই মধ্যে গত শুক্রবার ভোররাতে পুরান ঢাকার আরমানিটোলায় আগুনে মারা গেলেন ৪ জন। এর আগে ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি চকবাজারের চুড়িহাট্টার ওয়াহেদ ম্যানশন নামের একটি ভবনে আগুনে মারা যান ৭১ জন।

পুরান ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি যে একটুও কমেনি, আরমানিটোলার অগ্নিকা-ই তার জলন্ত প্রমাণ। এই দুর্ঘটনার পর আবারো সামনে এসেছে আবাসিক এলাকায় দাহ্য রাসায়নিক মজুদের ভয়াবহতার বিষয়টি। দুঃখজনক হলো- অগ্নিকাণ্ডের প্রতিটি ঘটনার পর কর্তৃপক্ষ কিছুটা নড়াচড়া করে, কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই তা থেমে যায়।

নিমতলীর ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল-অবিলম্বে পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক পদার্থের সব দোকান ও গুদাম সরিয়ে ফেলা হবে। এজন্য কমিটি ও টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছিল, কিন্তু সেসবের কিছুই করা হয়নি। নিমতলীতে অগ্নিকা-ের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশকিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেসব নির্দেশনার বাস্তবায়ন হয়নি। চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ডের পর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কিছুটা তৎপর হয়েছিল কেমিকেল গোডাউনগুলো স্থানান্তরে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে সেই কাজগুলোও ঝিমিয়ে পড়েছে।

রাসায়নিক পল্লী প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল নিমতলীর আগুনের পরপরই। তবে ২০১৯ সাল পর্যন্ত শুধু প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছিল। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের মধ্যে এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হওয়ার কথা। অথচ বিসিক জানিয়েছে, প্রকল্পের জমিতে স্থান ভরাটের কাজ এখনো শুরু হয়নি।

আমরা জানতে চাই, এই নিঃস্পৃহতার কারণ কী? একটি রাসায়নিক পল্লী প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়ার ১০ বছর পর মাটি ভরাটই শুরু না হওয়ার দায় কার? পুরান ঢাকায় অনির্দিষ্টকালব্যাপী রাসায়নিক গোডাউন থাকবে, বার বার সেখানে অগ্নিকা- ঘটবে আর নিরীহ মানুষের প্রাণ যাবে- এটাই কী ভবিতব্য?

পুরান ঢাকা থেকে সব রাসায়নিক গুদাম ও কারখানা সরিয়ে নিতে হবে অবিলম্বে। এ ব্যাপারে আমরা কোনো অজুহাত শুনতে চাই না। রাসায়নিক শিল্পপল্লীর কাজে জোরালো তৎপরতা দরকার। এক্ষেত্রে কেন অগ্রগতি ঘটেনি বা কারা দায়ী, তা খতিয়ে দেখতে হবে। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা দিতে হবে।

জলাবদ্ধতা থেকে ফতুল্লাবাসীকে মুক্তি দিন

থামছে না মানব পাচার : গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

অগ্রহণযোগ্য

অবৈধ দখল উচ্ছেদ না করে সীমানা খুঁটি কার স্বার্থে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

tab

সম্পাদকীয়

রাসায়নিক শিল্পপল্লীর কাজে ধীরগতি কেন

সোমবার, ২৬ এপ্রিল ২০২১

২০১০ সালের ৩ জুন পুরান ঢাকার নিমতলীতে ভয়াবহ আগুনে ১২৪ জন মানুষ মারা যান। এরপর পেরিয়েছে ১০ বছরের বেশি সময়। কিন্তু রাসায়নিকের গুদাম সরিয়ে নিতে রাসায়নিক শিল্পপল্লী প্রতিষ্ঠার প্রকল্পে মাটি ভরাটই শুরু হয়নি। পল্লী প্রতিষ্ঠার আগে রাসায়নিকের ব্যবসা অস্থায়ী গুদামে সরিয়ে নেওয়ার যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তাও বাস্তবায়ন হয়নি। এরই মধ্যে গত শুক্রবার ভোররাতে পুরান ঢাকার আরমানিটোলায় আগুনে মারা গেলেন ৪ জন। এর আগে ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি চকবাজারের চুড়িহাট্টার ওয়াহেদ ম্যানশন নামের একটি ভবনে আগুনে মারা যান ৭১ জন।

পুরান ঢাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি যে একটুও কমেনি, আরমানিটোলার অগ্নিকা-ই তার জলন্ত প্রমাণ। এই দুর্ঘটনার পর আবারো সামনে এসেছে আবাসিক এলাকায় দাহ্য রাসায়নিক মজুদের ভয়াবহতার বিষয়টি। দুঃখজনক হলো- অগ্নিকাণ্ডের প্রতিটি ঘটনার পর কর্তৃপক্ষ কিছুটা নড়াচড়া করে, কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই তা থেমে যায়।

নিমতলীর ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল-অবিলম্বে পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক পদার্থের সব দোকান ও গুদাম সরিয়ে ফেলা হবে। এজন্য কমিটি ও টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছিল, কিন্তু সেসবের কিছুই করা হয়নি। নিমতলীতে অগ্নিকা-ের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশকিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেসব নির্দেশনার বাস্তবায়ন হয়নি। চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ডের পর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কিছুটা তৎপর হয়েছিল কেমিকেল গোডাউনগুলো স্থানান্তরে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে সেই কাজগুলোও ঝিমিয়ে পড়েছে।

রাসায়নিক পল্লী প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল নিমতলীর আগুনের পরপরই। তবে ২০১৯ সাল পর্যন্ত শুধু প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছিল। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের মধ্যে এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হওয়ার কথা। অথচ বিসিক জানিয়েছে, প্রকল্পের জমিতে স্থান ভরাটের কাজ এখনো শুরু হয়নি।

আমরা জানতে চাই, এই নিঃস্পৃহতার কারণ কী? একটি রাসায়নিক পল্লী প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়ার ১০ বছর পর মাটি ভরাটই শুরু না হওয়ার দায় কার? পুরান ঢাকায় অনির্দিষ্টকালব্যাপী রাসায়নিক গোডাউন থাকবে, বার বার সেখানে অগ্নিকা- ঘটবে আর নিরীহ মানুষের প্রাণ যাবে- এটাই কী ভবিতব্য?

পুরান ঢাকা থেকে সব রাসায়নিক গুদাম ও কারখানা সরিয়ে নিতে হবে অবিলম্বে। এ ব্যাপারে আমরা কোনো অজুহাত শুনতে চাই না। রাসায়নিক শিল্পপল্লীর কাজে জোরালো তৎপরতা দরকার। এক্ষেত্রে কেন অগ্রগতি ঘটেনি বা কারা দায়ী, তা খতিয়ে দেখতে হবে। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা দিতে হবে।

back to top