alt

সম্পাদকীয়

পদ্মায় প্রাণহানির দায় কার

: মঙ্গলবার, ০৪ মে ২০২১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বিধিনিষেধের আওতায় নৌপথে সব ধরনের যাত্রী পারাপার বন্ধ থাকার কথা। কিন্তু নৌপথে নানা ধরনের নৌযান চলছে, দুর্ঘটনাও ঘটছে। গতকাল সোমবার মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটের কাছে নোঙ্গর করা বালু বোঝাই বাল্কহেডের সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষে মারা গেছে ২৬ জন।

পদ্মায় স্পিডবোটে যাত্রী পরিবহনের কোন আইনি সুযোগ নেই। তারপরও বছরের পর বছর ধরে সেখানে স্পিডবোট চলছে। এমনকি চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও এগুলোর চলাচল বন্ধ হয়নি। স্পিডবোটে আটজনের বেশি যাত্রী ওঠানোর কথা নয়। অথচ উল্লিখিত স্পিডবোটে যাত্রী ছিল ৩০-৩৫ জন এবং তাদের কারোই লাইফজ্যাকেট ছিল না। সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্তৃপক্ষের চোখ ফাঁকি দিয়ে এতগুলো অনিয়ম কীভাবে ঘটলো সেটা একটা প্রশ্ন।

বাল্কহেডের সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষকে নিছক দুর্ঘটনা বলতে নারাজ অনেকে। তারা বলছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর উদাসীনতা আর অবহেলার কারণে এতগুলো মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। এটা হত্যাকান্ডের শামিল। তবে বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ বা নৌপুলিশ কেউ এই ঘটনার দায় নিতে চাচ্ছে না। এক কর্তৃপক্ষ আরেক কর্তৃপক্ষের ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে। বিআইডব্লিউটিএ বলছে, স্পিডবোট, ট্রলার দেখভালের দায়িত্ব নৌপুলিশের। নৌপুলিশ বলছে, নৌপথে সড়কের মতো অবৈধ যান তল্লাশি হয় না। বিআইডব্লিউটিএ কখনও বললে তখন কোন যান জব্দ করতে বা অভিযানে তাদের সহায়তা করা হয়।

বিআইডব্লিউটিএ ও নৌপরিবহন অধিদপ্তর নদীপথের শৃঙ্খলা বিধানের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে কিনা সেই প্রশ্ন ওঠেছে। নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই ও অদক্ষ চালকসহ নানা কারণে নৌপথে প্রাণহানি বাড়ছে। বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতির হিসাব অনুযায়ী ২০১৮ সাল থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ৬০১টি ছোট-বড় নৌদুর্ঘটনায় ৭৭৩ জন মারা গেছে। সিংহভাগ ঘটনায় কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

উল্লিখিত ঘটনা তদন্তে ৬ সদস্যের কমিটি করা হয়েছে। অতীতেও দেখা গেছে নৌপথে হতাহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি হয়েছে। অনেক তদন্তই আলোর মুখ দেখে না। কখনও কোন তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলেও সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না। এবারও যেন তেমনটা না হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। পদ্মায় প্রাণহানির জন্য দায়ীদের চিহ্নিত করে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে।

জলাবদ্ধতা থেকে ফতুল্লাবাসীকে মুক্তি দিন

থামছে না মানব পাচার : গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

অগ্রহণযোগ্য

অবৈধ দখল উচ্ছেদ না করে সীমানা খুঁটি কার স্বার্থে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

tab

সম্পাদকীয়

পদ্মায় প্রাণহানির দায় কার

মঙ্গলবার, ০৪ মে ২০২১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বিধিনিষেধের আওতায় নৌপথে সব ধরনের যাত্রী পারাপার বন্ধ থাকার কথা। কিন্তু নৌপথে নানা ধরনের নৌযান চলছে, দুর্ঘটনাও ঘটছে। গতকাল সোমবার মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটের কাছে নোঙ্গর করা বালু বোঝাই বাল্কহেডের সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষে মারা গেছে ২৬ জন।

পদ্মায় স্পিডবোটে যাত্রী পরিবহনের কোন আইনি সুযোগ নেই। তারপরও বছরের পর বছর ধরে সেখানে স্পিডবোট চলছে। এমনকি চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও এগুলোর চলাচল বন্ধ হয়নি। স্পিডবোটে আটজনের বেশি যাত্রী ওঠানোর কথা নয়। অথচ উল্লিখিত স্পিডবোটে যাত্রী ছিল ৩০-৩৫ জন এবং তাদের কারোই লাইফজ্যাকেট ছিল না। সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্তৃপক্ষের চোখ ফাঁকি দিয়ে এতগুলো অনিয়ম কীভাবে ঘটলো সেটা একটা প্রশ্ন।

বাল্কহেডের সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষকে নিছক দুর্ঘটনা বলতে নারাজ অনেকে। তারা বলছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর উদাসীনতা আর অবহেলার কারণে এতগুলো মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। এটা হত্যাকান্ডের শামিল। তবে বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ বা নৌপুলিশ কেউ এই ঘটনার দায় নিতে চাচ্ছে না। এক কর্তৃপক্ষ আরেক কর্তৃপক্ষের ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে। বিআইডব্লিউটিএ বলছে, স্পিডবোট, ট্রলার দেখভালের দায়িত্ব নৌপুলিশের। নৌপুলিশ বলছে, নৌপথে সড়কের মতো অবৈধ যান তল্লাশি হয় না। বিআইডব্লিউটিএ কখনও বললে তখন কোন যান জব্দ করতে বা অভিযানে তাদের সহায়তা করা হয়।

বিআইডব্লিউটিএ ও নৌপরিবহন অধিদপ্তর নদীপথের শৃঙ্খলা বিধানের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে কিনা সেই প্রশ্ন ওঠেছে। নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই ও অদক্ষ চালকসহ নানা কারণে নৌপথে প্রাণহানি বাড়ছে। বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতির হিসাব অনুযায়ী ২০১৮ সাল থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ৬০১টি ছোট-বড় নৌদুর্ঘটনায় ৭৭৩ জন মারা গেছে। সিংহভাগ ঘটনায় কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

উল্লিখিত ঘটনা তদন্তে ৬ সদস্যের কমিটি করা হয়েছে। অতীতেও দেখা গেছে নৌপথে হতাহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি হয়েছে। অনেক তদন্তই আলোর মুখ দেখে না। কখনও কোন তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলেও সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না। এবারও যেন তেমনটা না হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। পদ্মায় প্রাণহানির জন্য দায়ীদের চিহ্নিত করে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে।

back to top