alt

সম্পাদকীয়

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

: রোববার, ৩০ মে ২০২১

দেশে কালো টাকার পরিমাণ কত, বারবার সুবিধা দিয়ে মোট কালো টাকার কত অংশ অর্থনীতির মূলধারায় আনা গেছে- সেটা জানবার উপায় নেই। ২০১৮ সালের মে মাসে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিত বলেছিলেন, ‘যতবার আমরা কালো টাকা সাদা করার ঘোষণা দিয়েছি, প্রতিবারই ফেল করেছি। খুবই কম পরিমাণ কালো টাকা সাদা করা সম্ভব হয়েছে।’

প্রতিবার ফেল করা সত্ত্বেও আগামী বাজেটেও অপ্রদর্শিত অর্থ বা কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রাখা হচ্ছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, কালো টাকাকে অর্থনীতির মূলধারায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে এ সুযোগ রাখা হবে। তিনি আরো বলেছেন, অর্থনীতিতে যতদিন কালো টাকা থাকবে, সরকার ততদিন তা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখবে। অর্থমন্ত্রীর যুক্তি, ‘দেশের কিছুক্ষেত্রে পদ্ধতিগত কারণে অনেক সময় টাকা অপ্রদর্শিত থাকে। এসব অর্থ যদি প্রদর্শন করার সুযোগ দেয়া না হয়, অর্থনীতির মূলধারায় না আনা হয়, তাহলে অর্থনীতি ঠিকভাবে কাজ করবে না।’

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়ার বিষয়ে সাবেক অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিত বিভিন্ন সময় অনীহা দেখিয়েছেন। কিন্তু বর্তমান অর্থমন্ত্রী কোন রাখঢাক না করে বলেছেন, অর্থনীতিতে যতদিন কালো টাকা থাকবে, সরকার ততদিন তা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখবে। প্রশ্ন হচ্ছে, তাহলে কি অনন্তকাল ধরে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হবে। কাদের স্বার্থে বারবারই কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হয় সেটা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অর্থনীতিবিদরা।

অর্থমন্ত্রী বলছেন, দেশের কিছুক্ষেত্রে পদ্ধতিগত কারণে অনেক সময় টাকা অপ্রদর্শিত থাকে। প্রশ্ন হচ্ছে, পদ্ধতিগুলোতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনা হচ্ছে না কেন। পদ্ধতি বদলানোই তো সরকারের কাজ। দেশে এমন কোন পদ্ধতি থাকা সঙ্গত নয় যার ফলে কালো টাকা তৈরি হয়। ক্ষেত্রভেদে বৈধ আয়ের একজন মানুষকে সর্বোচ্চ ৩২ শতাংশ পর্যন্ত কর দিতে হয়। অথচ কালো টাকার মালিক মাত্র ১০ শতাংশ কর দিয়েই টাকা সাদা করার সুযোগ পাচ্ছেন। আবার কালো টাকার মালিকদের অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্নও তোলা যাবে না। বৈষম্যমূলক এ ব্যবস্থার ফলে সৎ ও বৈধপন্থায় আয় করা মানুষ নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। এর বিপরীতে দুর্নীতিবাজরা অন্যায় উৎসাহ পাচ্ছেন। কালো টাকা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে দেশ থেকে দুর্নীতি নির্মূল করা হবে কীভাবে- সেই প্রশ্ন উঠেছে।

‘যতদিন কালো টাকা থাকবে ততদিন সাদা করার সুযোগ’ দেয়ার নীতি সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। উক্ত নীতি বাস্তবায়ন হলে মূলধারার অর্থনীতি রুগ্ন হয়ে পড়বে বলে আমরা মনে করি। জাতীয় অর্থনীতির জন্য আখেরে মঙ্গল বয়ে আনবে না- এমন একটি ব্যবস্থা অনন্তকাল ধরে চলতে দেয়া যায় না।

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

পানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অমানবিক

আতঙ্ক নয়, চাই সতর্কতা

tab

সম্পাদকীয়

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

রোববার, ৩০ মে ২০২১

দেশে কালো টাকার পরিমাণ কত, বারবার সুবিধা দিয়ে মোট কালো টাকার কত অংশ অর্থনীতির মূলধারায় আনা গেছে- সেটা জানবার উপায় নেই। ২০১৮ সালের মে মাসে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিত বলেছিলেন, ‘যতবার আমরা কালো টাকা সাদা করার ঘোষণা দিয়েছি, প্রতিবারই ফেল করেছি। খুবই কম পরিমাণ কালো টাকা সাদা করা সম্ভব হয়েছে।’

প্রতিবার ফেল করা সত্ত্বেও আগামী বাজেটেও অপ্রদর্শিত অর্থ বা কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রাখা হচ্ছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, কালো টাকাকে অর্থনীতির মূলধারায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে এ সুযোগ রাখা হবে। তিনি আরো বলেছেন, অর্থনীতিতে যতদিন কালো টাকা থাকবে, সরকার ততদিন তা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখবে। অর্থমন্ত্রীর যুক্তি, ‘দেশের কিছুক্ষেত্রে পদ্ধতিগত কারণে অনেক সময় টাকা অপ্রদর্শিত থাকে। এসব অর্থ যদি প্রদর্শন করার সুযোগ দেয়া না হয়, অর্থনীতির মূলধারায় না আনা হয়, তাহলে অর্থনীতি ঠিকভাবে কাজ করবে না।’

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়ার বিষয়ে সাবেক অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিত বিভিন্ন সময় অনীহা দেখিয়েছেন। কিন্তু বর্তমান অর্থমন্ত্রী কোন রাখঢাক না করে বলেছেন, অর্থনীতিতে যতদিন কালো টাকা থাকবে, সরকার ততদিন তা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখবে। প্রশ্ন হচ্ছে, তাহলে কি অনন্তকাল ধরে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হবে। কাদের স্বার্থে বারবারই কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হয় সেটা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অর্থনীতিবিদরা।

অর্থমন্ত্রী বলছেন, দেশের কিছুক্ষেত্রে পদ্ধতিগত কারণে অনেক সময় টাকা অপ্রদর্শিত থাকে। প্রশ্ন হচ্ছে, পদ্ধতিগুলোতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনা হচ্ছে না কেন। পদ্ধতি বদলানোই তো সরকারের কাজ। দেশে এমন কোন পদ্ধতি থাকা সঙ্গত নয় যার ফলে কালো টাকা তৈরি হয়। ক্ষেত্রভেদে বৈধ আয়ের একজন মানুষকে সর্বোচ্চ ৩২ শতাংশ পর্যন্ত কর দিতে হয়। অথচ কালো টাকার মালিক মাত্র ১০ শতাংশ কর দিয়েই টাকা সাদা করার সুযোগ পাচ্ছেন। আবার কালো টাকার মালিকদের অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্নও তোলা যাবে না। বৈষম্যমূলক এ ব্যবস্থার ফলে সৎ ও বৈধপন্থায় আয় করা মানুষ নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। এর বিপরীতে দুর্নীতিবাজরা অন্যায় উৎসাহ পাচ্ছেন। কালো টাকা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে দেশ থেকে দুর্নীতি নির্মূল করা হবে কীভাবে- সেই প্রশ্ন উঠেছে।

‘যতদিন কালো টাকা থাকবে ততদিন সাদা করার সুযোগ’ দেয়ার নীতি সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। উক্ত নীতি বাস্তবায়ন হলে মূলধারার অর্থনীতি রুগ্ন হয়ে পড়বে বলে আমরা মনে করি। জাতীয় অর্থনীতির জন্য আখেরে মঙ্গল বয়ে আনবে না- এমন একটি ব্যবস্থা অনন্তকাল ধরে চলতে দেয়া যায় না।

back to top