alt

সম্পাদকীয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

: বৃহস্পতিবার, ০৩ জুন ২০২১

রাজধানীতে চার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে গত মঙ্গলবার। সেদিন সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ৩ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত হয়েছে ৮৫ মিলিমিটার। এর আগে ২০১৭ সালের ১২ জুন ১৩৩ মিমি. বৃষ্টিপাত হয়েছিল। যে রাজধানী সামান্য বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায় মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে তার কী অবস্থা হয়েছে সেটা সহজেই অনুমেয়। জলাবদ্ধ মহানগরীর দুরবস্থার চিত্র দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। জলাবদ্ধতায় নাগরিক দুর্ভোগের ছবিতে সয়লাব হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে রাজধানীর অধিকাংশ সড়কই তলিয়ে যায়। মিরপুর, ধানমন্ডি, রাজারবাগসহ অনেক এলাকার সড়ক পানির জন্য যান চলালের অনুপুযুক্ত হয়ে পড়ে। কোন কোন সড়কে গাড়ি নষ্ট হয়ে আটকে ছিল। এটা শুধু এ বছরের নয়, প্রতি বছরেরই সাধারণ চিত্র।

বর্ষা মৌসুম এখনও শুরু হয়নি। এখনই বৃষ্টির পানিতে রাজধানী তলিয়ে যাচ্ছে। বর্ষায় যদি বৃষ্টি বাড়ে তাহলে অবধারিতভাবে নাগরিক-দুর্ভোগ যে বাড়বে তা বলার প্রতীক্ষা রাখে না। জলাবদ্ধতার কারণে সৃষ্ট নাগরিক-দুর্ভোগ দূর করার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কোন ভাবনা আছে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

রাজধানীর খালগুলোর বেশিরভাগই দখল ও ভরাট হয়ে গেছে। যে কারণে বৃষ্টির পানি দ্রুত নিষ্কাশন হতে পারছে না। জলাশয়গুলো ভরাট করে ঘরবাড়ি, আবাসন প্রকল্প, অফিস ভবন অথবা শপিংমল তৈরি করা হয়েছে। নগরায়ণের ফলে রাজধানীতে পানির প্রবাহ মাটির নিচে যেতে পারছে না। এখানে বৃষ্টির পানি যাচ্ছে নর্দমা ও প্রাকৃতিক খালে। ঢাকার চারপাশের নদীগুলো দূষণ ও দখলে ধুঁকছে।

পরিকল্পিত একটি রাজধানীতে যে পরিমাণ জলাশয় থাকা জরুরি তা ঢাকায় নেই। ড্যাপ-এ জলাশয় রাখার যে পরিকল্পনা করা হয়েছিল তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। আর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন না হওয়ার কুফল রাজধানীবাসী দেখতে পাচ্ছে। গোটা রাজধানী এখন জলাশয়ে পরিণত হয়েছে।

জলাবদ্ধতার কারণ কারোরই অজানা নয়। রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনের পরিকল্পনাও সরকারের আছে। তবে পরিকল্পনা করাই জরুরি নয়, এর বাস্ততায়ন জরুরি। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আন্তরিক হলে ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা নিয়ন্ত্রণ অসম্ভব হবে না। অতীতে জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব ছিল ঢাকা ওয়াসার। এ প্রতিষ্ঠানের উপর্যুপরি ব্যর্থতার পর গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ওপর এ দায়িত্ব হস্তান্তর করা হয়েছে। দায়িত্ব বদলালেও নাগরিকদের দুর্ভোগ দূর হয়নি। দায়িত্ব বুঝে পাওয়ার পর গত কয়েক মাসে তারা কিছু কিছু কাজ করছে। তবে তা জলাবদ্ধতা নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেনি। জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীকে মুক্তি দিতে দুই সিটি করপোরেশন কী করে সেটা দেখার বিষয়। আমরা চাইব না যে, ওয়াসার মতো তারাও ব্যর্থ হোক।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

tab

সম্পাদকীয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বৃহস্পতিবার, ০৩ জুন ২০২১

রাজধানীতে চার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে গত মঙ্গলবার। সেদিন সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ৩ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত হয়েছে ৮৫ মিলিমিটার। এর আগে ২০১৭ সালের ১২ জুন ১৩৩ মিমি. বৃষ্টিপাত হয়েছিল। যে রাজধানী সামান্য বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায় মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে তার কী অবস্থা হয়েছে সেটা সহজেই অনুমেয়। জলাবদ্ধ মহানগরীর দুরবস্থার চিত্র দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। জলাবদ্ধতায় নাগরিক দুর্ভোগের ছবিতে সয়লাব হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে রাজধানীর অধিকাংশ সড়কই তলিয়ে যায়। মিরপুর, ধানমন্ডি, রাজারবাগসহ অনেক এলাকার সড়ক পানির জন্য যান চলালের অনুপুযুক্ত হয়ে পড়ে। কোন কোন সড়কে গাড়ি নষ্ট হয়ে আটকে ছিল। এটা শুধু এ বছরের নয়, প্রতি বছরেরই সাধারণ চিত্র।

বর্ষা মৌসুম এখনও শুরু হয়নি। এখনই বৃষ্টির পানিতে রাজধানী তলিয়ে যাচ্ছে। বর্ষায় যদি বৃষ্টি বাড়ে তাহলে অবধারিতভাবে নাগরিক-দুর্ভোগ যে বাড়বে তা বলার প্রতীক্ষা রাখে না। জলাবদ্ধতার কারণে সৃষ্ট নাগরিক-দুর্ভোগ দূর করার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কোন ভাবনা আছে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

রাজধানীর খালগুলোর বেশিরভাগই দখল ও ভরাট হয়ে গেছে। যে কারণে বৃষ্টির পানি দ্রুত নিষ্কাশন হতে পারছে না। জলাশয়গুলো ভরাট করে ঘরবাড়ি, আবাসন প্রকল্প, অফিস ভবন অথবা শপিংমল তৈরি করা হয়েছে। নগরায়ণের ফলে রাজধানীতে পানির প্রবাহ মাটির নিচে যেতে পারছে না। এখানে বৃষ্টির পানি যাচ্ছে নর্দমা ও প্রাকৃতিক খালে। ঢাকার চারপাশের নদীগুলো দূষণ ও দখলে ধুঁকছে।

পরিকল্পিত একটি রাজধানীতে যে পরিমাণ জলাশয় থাকা জরুরি তা ঢাকায় নেই। ড্যাপ-এ জলাশয় রাখার যে পরিকল্পনা করা হয়েছিল তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। আর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন না হওয়ার কুফল রাজধানীবাসী দেখতে পাচ্ছে। গোটা রাজধানী এখন জলাশয়ে পরিণত হয়েছে।

জলাবদ্ধতার কারণ কারোরই অজানা নয়। রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনের পরিকল্পনাও সরকারের আছে। তবে পরিকল্পনা করাই জরুরি নয়, এর বাস্ততায়ন জরুরি। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আন্তরিক হলে ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা নিয়ন্ত্রণ অসম্ভব হবে না। অতীতে জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব ছিল ঢাকা ওয়াসার। এ প্রতিষ্ঠানের উপর্যুপরি ব্যর্থতার পর গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ওপর এ দায়িত্ব হস্তান্তর করা হয়েছে। দায়িত্ব বদলালেও নাগরিকদের দুর্ভোগ দূর হয়নি। দায়িত্ব বুঝে পাওয়ার পর গত কয়েক মাসে তারা কিছু কিছু কাজ করছে। তবে তা জলাবদ্ধতা নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেনি। জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীকে মুক্তি দিতে দুই সিটি করপোরেশন কী করে সেটা দেখার বিষয়। আমরা চাইব না যে, ওয়াসার মতো তারাও ব্যর্থ হোক।

back to top