alt

সম্পাদকীয়

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

: বৃহস্পতিবার, ১০ জুন ২০২১

কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্পগুলো থেকে এক লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে ভাসানচরে ১২০টি গুচ্ছগ্রাম তৈরি করা হয়েছে। সেখানে ঘর তৈরি করা হয়েছে ১,৪৪০টি। ভাসানচরে ইতোমধ্যে প্রায় ১৮ হাজার রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর করা হয়েছে। লক্ষ্য অনুযায়ী দ্রুতই আরও ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে সেখানে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে কক্সবাজারের ওপর শরাণার্থীদের চাপ কমবে। মায়নামার থেকে নতুন করে কোন রোহিঙ্গা সেখানে আসছে বলেও জানা যায়নি। এই অবস্থায় সেখানকার পাহাড় ও বনবিভাগের গাছ কেটে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প বানানোর প্রয়োজন পড়ল কেন?

শরণার্থী রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে ইতোমধ্যে কক্সবাজারের ৮ হাজার একরেরও বেশি বনভূমি উজার হয়েছে। স্থানীয় পরিবেশ বিপন্ন হয়ে পড়লে এক পর্যায়ে সরকার ঘোষণা দিয়েছে যে, রোহিঙ্গাদের জন্য নতুন করে আর কোন সরকারি বনভূমি দেয়া হবে না। অথচ টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরি করার জন্য পাহাড় ও বনবিভাগের গাছ কাটা হচ্ছে। গতকাল বুধবার প্রকাশিত সংবাদ-এর একটি প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে বাংলাদেশকে চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে। তাদের উপস্থিতির কারণে কেবল কক্সবাজারের পরিবেশের যে ক্ষতি হয়েছে টাকার অঙ্কে সেটা ৬ হাজার কোটি টাকার বেশি হবে বলে মনে করছেন পরিবেশবিদরা। দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিরও কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে শরণার্থী রোহিঙ্গারা।

পরিবেশের প্রশ্ন তো রয়েছেই, পাহাড় কেটে ক্যাম্প তৈরির সঙ্গে নিরাপত্তার প্রশ্নও রয়েছে। বৃষ্টিতে পাহাড় ধসে পড়লে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। গত শনিবার পাহাড় ধসের কারণে দুটি পৃথক ক্যাম্পের দুজন রোহিঙ্গা মারা গেছে। শরণার্থীদের নিরাপত্তার প্রশ্নেও পাহাড় কেটে ক্যাম্প তৈরি করা সঙ্গত নয়।

আমরা বলতে চাই, ক্যাম্প তৈরির নামে পাহাড় ও গাছ কাটা অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। পাহাড় কেটে ক্যাম্প বা চরে ঘর বানিয়ে আশ্রয় দিয়ে রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধান হবে না। শরণার্থী রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মায়ানমারে ফেরত পাঠাতে হবে। মায়ানমারে জান্তাবিরোধী জাতীয় ঐক্য সরকার ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট (এনইউজি) গত ৩ জুন রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি ঘোষণা করেছে। তারা ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের অঙ্গীকার করেছে। তাদের ঘোষণা বা অঙ্গীকারের ফলে যে রোহিঙ্গা সমস্যার নাটকীয় সমাধান হবে তা নয়। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর মায়ানমারের তরফ থেকে এটাই এখন সবচেয়ে বড় অগ্রগতি। আমরা বলতে চাই, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের পথে যে কোন অগ্রগতিকে ইতিবাচকভাবে কাজে লাগাতে হবে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশকে কূটনৈতিক মুন্সিয়ানা দেখাতে হবে। মায়নামারের ভেতরের একটি অংশ যে রোহিঙ্গাদের নাগরিক হিসেবে মেনে নিতে প্রস্তুত আছে সেটাকে বিশ্বদরবারে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। এতে দেশটিতে রোহিঙ্গাবিরোধী গোষ্ঠী ও তাদের আন্তর্জাতিক মিত্রদের ওপর চাপ বাড়বে।

রাজধানীর বৃত্তাকার নৌপথে চলুক ওয়াটার বাস

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুর্দশা দূর করুন

সাইবার বুলিং প্রতিরোধে আইনের প্রয়োগ ও সচেতনতা জরুরি

শিশুটিকে হত্যা করল কে

উপকূলে দ্রুত টেকসই বাঁধ নির্মাণ করুন

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘকে দৃশ্যমান ভূমিকা রাখতে হবে

বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, নিয়মিত নজরদারি চালাতে হবে

সুন্দরবনের বিস্তৃতি প্রসঙ্গে

জলাবদ্ধতা থেকে ফতুল্লাবাসীকে মুক্তি দিন

থামছে না মানব পাচার : গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

অগ্রহণযোগ্য

অবৈধ দখল উচ্ছেদ না করে সীমানা খুঁটি কার স্বার্থে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

tab

সম্পাদকীয়

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

বৃহস্পতিবার, ১০ জুন ২০২১

কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্পগুলো থেকে এক লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে ভাসানচরে ১২০টি গুচ্ছগ্রাম তৈরি করা হয়েছে। সেখানে ঘর তৈরি করা হয়েছে ১,৪৪০টি। ভাসানচরে ইতোমধ্যে প্রায় ১৮ হাজার রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর করা হয়েছে। লক্ষ্য অনুযায়ী দ্রুতই আরও ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে সেখানে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে কক্সবাজারের ওপর শরাণার্থীদের চাপ কমবে। মায়নামার থেকে নতুন করে কোন রোহিঙ্গা সেখানে আসছে বলেও জানা যায়নি। এই অবস্থায় সেখানকার পাহাড় ও বনবিভাগের গাছ কেটে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প বানানোর প্রয়োজন পড়ল কেন?

শরণার্থী রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে ইতোমধ্যে কক্সবাজারের ৮ হাজার একরেরও বেশি বনভূমি উজার হয়েছে। স্থানীয় পরিবেশ বিপন্ন হয়ে পড়লে এক পর্যায়ে সরকার ঘোষণা দিয়েছে যে, রোহিঙ্গাদের জন্য নতুন করে আর কোন সরকারি বনভূমি দেয়া হবে না। অথচ টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরি করার জন্য পাহাড় ও বনবিভাগের গাছ কাটা হচ্ছে। গতকাল বুধবার প্রকাশিত সংবাদ-এর একটি প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে বাংলাদেশকে চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে। তাদের উপস্থিতির কারণে কেবল কক্সবাজারের পরিবেশের যে ক্ষতি হয়েছে টাকার অঙ্কে সেটা ৬ হাজার কোটি টাকার বেশি হবে বলে মনে করছেন পরিবেশবিদরা। দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিরও কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে শরণার্থী রোহিঙ্গারা।

পরিবেশের প্রশ্ন তো রয়েছেই, পাহাড় কেটে ক্যাম্প তৈরির সঙ্গে নিরাপত্তার প্রশ্নও রয়েছে। বৃষ্টিতে পাহাড় ধসে পড়লে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। গত শনিবার পাহাড় ধসের কারণে দুটি পৃথক ক্যাম্পের দুজন রোহিঙ্গা মারা গেছে। শরণার্থীদের নিরাপত্তার প্রশ্নেও পাহাড় কেটে ক্যাম্প তৈরি করা সঙ্গত নয়।

আমরা বলতে চাই, ক্যাম্প তৈরির নামে পাহাড় ও গাছ কাটা অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। পাহাড় কেটে ক্যাম্প বা চরে ঘর বানিয়ে আশ্রয় দিয়ে রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধান হবে না। শরণার্থী রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মায়ানমারে ফেরত পাঠাতে হবে। মায়ানমারে জান্তাবিরোধী জাতীয় ঐক্য সরকার ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট (এনইউজি) গত ৩ জুন রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি ঘোষণা করেছে। তারা ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের অঙ্গীকার করেছে। তাদের ঘোষণা বা অঙ্গীকারের ফলে যে রোহিঙ্গা সমস্যার নাটকীয় সমাধান হবে তা নয়। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর মায়ানমারের তরফ থেকে এটাই এখন সবচেয়ে বড় অগ্রগতি। আমরা বলতে চাই, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের পথে যে কোন অগ্রগতিকে ইতিবাচকভাবে কাজে লাগাতে হবে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশকে কূটনৈতিক মুন্সিয়ানা দেখাতে হবে। মায়নামারের ভেতরের একটি অংশ যে রোহিঙ্গাদের নাগরিক হিসেবে মেনে নিতে প্রস্তুত আছে সেটাকে বিশ্বদরবারে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। এতে দেশটিতে রোহিঙ্গাবিরোধী গোষ্ঠী ও তাদের আন্তর্জাতিক মিত্রদের ওপর চাপ বাড়বে।

back to top