alt

সম্পাদকীয়

চালের দামে লাগাম টানুন

: বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১

দেশে এ বছর বোরো ধানের উৎপাদন গত বছরের চেয়ে চার লাখ টন বেশি হয়েছে। আউশ, আমন এবং বোরো মৌসুমে সব মিলয়ে দেশে চাল উৎপাদন হয় তিন কোটি টন। খাদ্য অধিদপ্তরের গুদামে চালের মজুদ আছে ১২ লাখ ৬৬ হাজার টন। যা গত দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত এক বছরে কৃষকের উৎপাদন খরচ যে লক্ষ্যযোগ্যভাবে বেড়েছে তাও নয়। তারপরও চালের দাম বেড়েই চলছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, চাল উৎপাদনকারী অন্যতম চার দেশ ভারত, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামের তুলনায় বাংলাদেশে চালের দাম বেশি।

চালের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, বাজারে অনেক নতুন ফড়িয়া ব্যবসায়ী যুক্ত হয়ে ধান মজুত করছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের গুদামে চালের মজুদ প্রয়োজনের তুলনায় কম হওয়ার কারণেও দাম বাড়ছে বলে অনেকে মনে করছেন। সংশ্লিষ্টদের মতে, সরকারের মজুদ ১৫ লাখ টনের নিচে নামলেই বাজারে চালের দাম বেড়ে যায়।

এটা ঠিক যে, সরকারি গুদামে চালের ঘাটতি আছে। তবে গত বছরের তুলনায় ঘাটতি কমেছে। কিন্তু চালের দাম বাড়েনি। গত দেড় বছরে মজুদ সর্বোচ্চ পর্যায়ে আছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী বছরের শুরু থেকে এ পর্যন্ত কয়েক লাখ মেট্রিকটন চাল আমদানি করা হয়েছে। সম্প্রতি খাদ্যমন্ত্রী বলেছেন, কোনভাবেই চালের বাজার অস্থিতিশীল হতে দেয়া যাবে না। অভ্যন্তরীণ চাল সংগ্রহ জোরদার করার পাশাপাশি বেসরকারি ব্যবস্থাপনা শীঘ্রই চাল আমদানি করার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। কিন্তু এসবের ইতিবাচক প্রভাব চালের বাজারে পড়ছে না।

করোনা পরিস্থিতিতে দরিদ্র মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমে গেছে। এমনিতেই তারা খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ বা ভোগ কমিয়ে দিয়েছে। ভোগ কমার ফলে চাহিদাও কমে গেছে। চালের দাম কমা বা অন্ততপক্ষে স্থিতিশীল থাকার জন্য চাহিদা কমাই যথেষ্ট। কিন্তু এর দাম বাড়ছেই।

যৌক্তিক কোন কারণ ছাড়া দাম বাড়লে বুঝতে হবে কোথাও কোন একটা গলদ আছে। সরকারকে এ গলদ খুঁজে বেড় করতে হবে। অভিযোগ উঠেছে, অবৈধ মজুদদারের কারণে চালের বাজারে দিন দিন অস্থিরতা বাড়ছে। এই অভিযোগ খতিয়ে দেখতে হবে। মজুতদারদের খুঁজে বেড় করে আইনের আওতায় আনতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

করোনা পরিস্থিতিতে এমনিতেই অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করা মানুষের আয়রোজগার কম বা বন্ধ হয়ে গেছে। নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বেড়েই চলেছে। চালের মূল্যের অব্যাহত ঊর্ধ্বগতির কারণে দুমুঠো ভাত খেয়ে প্রাণ ধারণ করার পথও কঠিন হয়ে উঠছে।

দাম বাড়ানোর কারসাজির যাঁতাকল থেকে মানুষকে যেকোন উপায়েই হোক রক্ষা করতে হবে। সংকট উত্তরণে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে। বাজার স্থিতিশীল রাখতে খাদ্যের মজুদ ও সরবরাহ বাড়ানোর দিকে নজর দিতে হবে। টিসিবির মাধ্যমে খোলাবাজারে চাল বিক্রির পরিমাণ বাড়াতে হবে। বাজারের ওপর কঠোর নজরদারি রাখতে হবে, যাতে মজুত বাড়িয়ে ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে না পারে। প্রয়োজনে আরও চাল আমদানি করতে হবে। তবে আমানির ক্ষেত্রে কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

বায়ু ও শব্দদূষণ রোধে চাই সদিচ্ছা

ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির আরেকটি অভিযোগ

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

অক্সিজেন সরবরাহ নিয়ে রশি টানাটানি বন্ধ করুন

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

চালের দামে লাগাম টানুন

বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১

দেশে এ বছর বোরো ধানের উৎপাদন গত বছরের চেয়ে চার লাখ টন বেশি হয়েছে। আউশ, আমন এবং বোরো মৌসুমে সব মিলয়ে দেশে চাল উৎপাদন হয় তিন কোটি টন। খাদ্য অধিদপ্তরের গুদামে চালের মজুদ আছে ১২ লাখ ৬৬ হাজার টন। যা গত দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত এক বছরে কৃষকের উৎপাদন খরচ যে লক্ষ্যযোগ্যভাবে বেড়েছে তাও নয়। তারপরও চালের দাম বেড়েই চলছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, চাল উৎপাদনকারী অন্যতম চার দেশ ভারত, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামের তুলনায় বাংলাদেশে চালের দাম বেশি।

চালের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, বাজারে অনেক নতুন ফড়িয়া ব্যবসায়ী যুক্ত হয়ে ধান মজুত করছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের গুদামে চালের মজুদ প্রয়োজনের তুলনায় কম হওয়ার কারণেও দাম বাড়ছে বলে অনেকে মনে করছেন। সংশ্লিষ্টদের মতে, সরকারের মজুদ ১৫ লাখ টনের নিচে নামলেই বাজারে চালের দাম বেড়ে যায়।

এটা ঠিক যে, সরকারি গুদামে চালের ঘাটতি আছে। তবে গত বছরের তুলনায় ঘাটতি কমেছে। কিন্তু চালের দাম বাড়েনি। গত দেড় বছরে মজুদ সর্বোচ্চ পর্যায়ে আছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী বছরের শুরু থেকে এ পর্যন্ত কয়েক লাখ মেট্রিকটন চাল আমদানি করা হয়েছে। সম্প্রতি খাদ্যমন্ত্রী বলেছেন, কোনভাবেই চালের বাজার অস্থিতিশীল হতে দেয়া যাবে না। অভ্যন্তরীণ চাল সংগ্রহ জোরদার করার পাশাপাশি বেসরকারি ব্যবস্থাপনা শীঘ্রই চাল আমদানি করার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। কিন্তু এসবের ইতিবাচক প্রভাব চালের বাজারে পড়ছে না।

করোনা পরিস্থিতিতে দরিদ্র মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমে গেছে। এমনিতেই তারা খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ বা ভোগ কমিয়ে দিয়েছে। ভোগ কমার ফলে চাহিদাও কমে গেছে। চালের দাম কমা বা অন্ততপক্ষে স্থিতিশীল থাকার জন্য চাহিদা কমাই যথেষ্ট। কিন্তু এর দাম বাড়ছেই।

যৌক্তিক কোন কারণ ছাড়া দাম বাড়লে বুঝতে হবে কোথাও কোন একটা গলদ আছে। সরকারকে এ গলদ খুঁজে বেড় করতে হবে। অভিযোগ উঠেছে, অবৈধ মজুদদারের কারণে চালের বাজারে দিন দিন অস্থিরতা বাড়ছে। এই অভিযোগ খতিয়ে দেখতে হবে। মজুতদারদের খুঁজে বেড় করে আইনের আওতায় আনতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

করোনা পরিস্থিতিতে এমনিতেই অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করা মানুষের আয়রোজগার কম বা বন্ধ হয়ে গেছে। নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বেড়েই চলেছে। চালের মূল্যের অব্যাহত ঊর্ধ্বগতির কারণে দুমুঠো ভাত খেয়ে প্রাণ ধারণ করার পথও কঠিন হয়ে উঠছে।

দাম বাড়ানোর কারসাজির যাঁতাকল থেকে মানুষকে যেকোন উপায়েই হোক রক্ষা করতে হবে। সংকট উত্তরণে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে। বাজার স্থিতিশীল রাখতে খাদ্যের মজুদ ও সরবরাহ বাড়ানোর দিকে নজর দিতে হবে। টিসিবির মাধ্যমে খোলাবাজারে চাল বিক্রির পরিমাণ বাড়াতে হবে। বাজারের ওপর কঠোর নজরদারি রাখতে হবে, যাতে মজুত বাড়িয়ে ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে না পারে। প্রয়োজনে আরও চাল আমদানি করতে হবে। তবে আমানির ক্ষেত্রে কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

back to top