alt

সম্পাদকীয়

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

: রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সড়কপথের বিশৃঙ্খলা নৌপথেও সংক্রমিত হচ্ছে। নিবন্ধনবিহীন যান, অপ্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রশিক্ষিত চালক যেমন সড়ক পথের সমস্যা তেমনই নৌপথেরও সমস্যা।

গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, দেশের বিভিন্ন নৌপথে যাত্রীবাহী প্রায় দুই হাজার স্পিডবোট চলাচল করে। এর মধ্যে নিবন্ধন আছে মাত্র ৫৬৯টির। আবার যারা এসব নৌযান চালাচ্ছে তাদের অনেকেই অপ্রাপ্তবয়স্ক, অধিকাংশের নেই কোন প্রশিক্ষণ।

সংকট আছে অনেক, কিন্তু স্পিডবোটগুলো বছরের পর বছর ধরে নির্বিঘ্নেই চলছে। এর বিরুদ্ধে নেওয়া হয় না কোন ব্যবস্থা। বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটলে কর্তৃপক্ষ তখন নড়েচড়ে বসে। তাৎক্ষণিক কিছু ব্যবস্থা নেয়, তারপর যথারীতি পূর্বের অবস্থায় ফিরে যায়।

নাগরিক জীবন গতিশীল হয়েছে। অন্যান্য পথের মতো নৌপথেও মানুষ দ্রুতগতিতে যাতায়াত করতে চায়। তাই স্পিডবোটের মতো দ্রুতগতির নৌযানের চাহিদা বাড়ছে। বিশেষ করে হাওর ও উপকূলীয় এলাকা, পদ্মার মাওয়া ও আরিচার ফেরিঘাটসহ বিভিন্ন নৌপথে স্পিডবোটের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। এ প্রবণতা বজায় থাকলে এর চাহিদা আগামীতে আরও বাড়বে; কিন্তু এগুলো যদি বিশৃঙ্খল অবস্থায় চলতে থাকে তাহলে যাত্রী সাধারণসহ চালকের নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়বে।

স্পিডবোট চলতে পারে তাতে কোন সমস্যা নেই। তবে সেটা চালতে হবে সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম-কানুন মেনে। স্পিডবোটগুলো চালাতে হবে নিবন্ধন নিয়ে। সেগুলো যেন প্রাপ্তবয়স্ক ও প্রশিক্ষিত চালক চালায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে। মৌসুম ও সময় মেনে চালাতে হবে।

অভিযোগ আছে, স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতারা স্পিডবোটের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাই তাদের অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রশাসন চাইলেও সব সময় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে না। এসব নৌযান চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করতে হলে এগুলোকে ঘিরে যে প্রভাবশালী চক্র রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে হবে।

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

শিল্পনগরে বারবার আগুন লাগার কারণ কী

প্রতিবন্ধীদের টেকসই উন্নয়ন ও সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ

‘মুজিবকিল্লা’ দখলমুক্ত করুন

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি থাকতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সড়কপথের বিশৃঙ্খলা নৌপথেও সংক্রমিত হচ্ছে। নিবন্ধনবিহীন যান, অপ্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রশিক্ষিত চালক যেমন সড়ক পথের সমস্যা তেমনই নৌপথেরও সমস্যা।

গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, দেশের বিভিন্ন নৌপথে যাত্রীবাহী প্রায় দুই হাজার স্পিডবোট চলাচল করে। এর মধ্যে নিবন্ধন আছে মাত্র ৫৬৯টির। আবার যারা এসব নৌযান চালাচ্ছে তাদের অনেকেই অপ্রাপ্তবয়স্ক, অধিকাংশের নেই কোন প্রশিক্ষণ।

সংকট আছে অনেক, কিন্তু স্পিডবোটগুলো বছরের পর বছর ধরে নির্বিঘ্নেই চলছে। এর বিরুদ্ধে নেওয়া হয় না কোন ব্যবস্থা। বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটলে কর্তৃপক্ষ তখন নড়েচড়ে বসে। তাৎক্ষণিক কিছু ব্যবস্থা নেয়, তারপর যথারীতি পূর্বের অবস্থায় ফিরে যায়।

নাগরিক জীবন গতিশীল হয়েছে। অন্যান্য পথের মতো নৌপথেও মানুষ দ্রুতগতিতে যাতায়াত করতে চায়। তাই স্পিডবোটের মতো দ্রুতগতির নৌযানের চাহিদা বাড়ছে। বিশেষ করে হাওর ও উপকূলীয় এলাকা, পদ্মার মাওয়া ও আরিচার ফেরিঘাটসহ বিভিন্ন নৌপথে স্পিডবোটের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। এ প্রবণতা বজায় থাকলে এর চাহিদা আগামীতে আরও বাড়বে; কিন্তু এগুলো যদি বিশৃঙ্খল অবস্থায় চলতে থাকে তাহলে যাত্রী সাধারণসহ চালকের নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়বে।

স্পিডবোট চলতে পারে তাতে কোন সমস্যা নেই। তবে সেটা চালতে হবে সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম-কানুন মেনে। স্পিডবোটগুলো চালাতে হবে নিবন্ধন নিয়ে। সেগুলো যেন প্রাপ্তবয়স্ক ও প্রশিক্ষিত চালক চালায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে। মৌসুম ও সময় মেনে চালাতে হবে।

অভিযোগ আছে, স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতারা স্পিডবোটের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাই তাদের অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রশাসন চাইলেও সব সময় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে না। এসব নৌযান চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করতে হলে এগুলোকে ঘিরে যে প্রভাবশালী চক্র রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে হবে।

back to top