alt

সম্পাদকীয়

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

: বুধবার, ১৭ নভেম্বর ২০২১

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ আছে আর কয়েক মাস। শেষ বেলাতেও ইসির বিরুদ্ধে নির্বাচন নিয়ে নানা অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার অভিযোগ মিলছে। গত ১১ নভেম্বর দেশের ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে সংঘাত-সংঘর্ষ ছিল নিত্যদিনের ঘটনা। নির্বাচনের আগে-পরে সহিংসতায় মারা গেছেন ৩৯ জন।

দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচনেও ভোট কেন্দ্রে এজেন্ট ঢুকতে না দেয়া, গোপন বুথে প্রভাবশালী প্রার্থীদের কর্মীদের অবস্থান নেয়াসহ নানা অনিয়মের গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনেক ভোটার অভিযোগ করেছেন, তারা পছন্দমতো ভোট দিতে পারেননি। অনেকে বিশেষ প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য হয়েছেন বা ভোট না দিয়ে ফিরে এসেছেন।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার গোগ্রাম ইউনিয়নের বটতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের একজন প্রিসাইডিং অফিসার অভিযোগ করেছেন যে, ভোটের আগের রাতে তাকে একজন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার জন্য অনৈতিক প্রস্তাব দেয়া হয়। প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ভোটের দিন সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা কেন্দ্রে গিয়ে নির্বাচন শুরুর আগেই তাকে বরখাস্ত করেন। প্রিসাইডিং অফিসার যে অভিযোগ করেছেন ইসি তার সত্যতা যাচাই করে কোন ব্যবস্থা নিয়েছে কিনা সেটা আমরা জানতে চাইব।

ইউপি নির্বাচন নিয়ে অনেক অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার খবরই গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, ইসি এসব অনিয়মের অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে কিনা। তদন্তে অভিযোগের প্রমাণ মিললে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু সেটা কি করা হচ্ছে? নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা, ভোটের আগে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা আর আশ্বাস দেয়া, আর ভোটের পর ‘খুবই সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর’ নির্বাচন হয়েছে বলে আত্মতৃপ্তি লাভ করাই যেন ইসির কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের এমন দাবি জনগণ কতটা বিশ্বাস করে সেটা কখনো তারা ভেবে দেখে না।

ইসি তার ক্ষমতা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিলে নির্বাচনে অনিয়ম হতে পারত না বলে আমরা মনে করি। নির্বাচনী ব্যবস্থার ওপর যদি তাদের ন্যূনতম নিয়ন্ত্রণও থাকত তাহলে গোপন বুথে কোন প্রার্থী বিশেষের সাঙ্গপাঙ্গ বসে থাকতে পারত না।

অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে দেশের নির্বাচনের পরিবেশ-পরিস্থিতি বদলাবে না। আর ইসি যদি ব্যবস্থাই না নেবে তাহলে তার থাকবার দরকারটা কী- সেটা একটা প্রশ্ন।

সংকটে সংবাদপত্রশিল্প প্রয়োজন প্রণোদনা

প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করুন

উপকূলে জলদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একজন প্রতিনিধি

পিইসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

জননিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে রেলক্রসিংগুলো সুরক্ষিত করুন

বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে নাকি যেমন আছে তেমনই থাকবে

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

tab

সম্পাদকীয়

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

বুধবার, ১৭ নভেম্বর ২০২১

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ আছে আর কয়েক মাস। শেষ বেলাতেও ইসির বিরুদ্ধে নির্বাচন নিয়ে নানা অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার অভিযোগ মিলছে। গত ১১ নভেম্বর দেশের ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে সংঘাত-সংঘর্ষ ছিল নিত্যদিনের ঘটনা। নির্বাচনের আগে-পরে সহিংসতায় মারা গেছেন ৩৯ জন।

দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচনেও ভোট কেন্দ্রে এজেন্ট ঢুকতে না দেয়া, গোপন বুথে প্রভাবশালী প্রার্থীদের কর্মীদের অবস্থান নেয়াসহ নানা অনিয়মের গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনেক ভোটার অভিযোগ করেছেন, তারা পছন্দমতো ভোট দিতে পারেননি। অনেকে বিশেষ প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য হয়েছেন বা ভোট না দিয়ে ফিরে এসেছেন।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার গোগ্রাম ইউনিয়নের বটতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের একজন প্রিসাইডিং অফিসার অভিযোগ করেছেন যে, ভোটের আগের রাতে তাকে একজন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার জন্য অনৈতিক প্রস্তাব দেয়া হয়। প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ভোটের দিন সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা কেন্দ্রে গিয়ে নির্বাচন শুরুর আগেই তাকে বরখাস্ত করেন। প্রিসাইডিং অফিসার যে অভিযোগ করেছেন ইসি তার সত্যতা যাচাই করে কোন ব্যবস্থা নিয়েছে কিনা সেটা আমরা জানতে চাইব।

ইউপি নির্বাচন নিয়ে অনেক অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার খবরই গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, ইসি এসব অনিয়মের অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে কিনা। তদন্তে অভিযোগের প্রমাণ মিললে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু সেটা কি করা হচ্ছে? নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা, ভোটের আগে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা আর আশ্বাস দেয়া, আর ভোটের পর ‘খুবই সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর’ নির্বাচন হয়েছে বলে আত্মতৃপ্তি লাভ করাই যেন ইসির কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের এমন দাবি জনগণ কতটা বিশ্বাস করে সেটা কখনো তারা ভেবে দেখে না।

ইসি তার ক্ষমতা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিলে নির্বাচনে অনিয়ম হতে পারত না বলে আমরা মনে করি। নির্বাচনী ব্যবস্থার ওপর যদি তাদের ন্যূনতম নিয়ন্ত্রণও থাকত তাহলে গোপন বুথে কোন প্রার্থী বিশেষের সাঙ্গপাঙ্গ বসে থাকতে পারত না।

অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে দেশের নির্বাচনের পরিবেশ-পরিস্থিতি বদলাবে না। আর ইসি যদি ব্যবস্থাই না নেবে তাহলে তার থাকবার দরকারটা কী- সেটা একটা প্রশ্ন।

back to top