alt

সম্পাদকীয়

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

: রোববার, ২১ নভেম্বর ২০২১

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিস নানান সংকটে ভুগছে। সেখানে প্রথম শ্রেণীর ৩টি এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণীর ৩৫টি ফায়ার স্টেশন ছাড়াও রয়েছে দুটি রিভার ফায়ার স্টেশন। এসব প্রতিষ্ঠানে অনুমোদিত জনবল ৯৭৫ জন। তবে কর্মরত আছেন কমবেশি সাড়ে ৭০০ জন। বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ফায়ার সার্ভিসের থাকা ১৬টি অ্যাম্বুলেন্সের বেশিরভাগই বিকল। এ নিয়ে গতকাল শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

অগ্নি-দুর্ঘটনার পাশাপাশি অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগেও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সেবার প্রয়োজন পড়ে। ফায়ার সার্ভিসের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে জনবল ও অবকাঠামো সংকটের বিষয়টি উদ্বেগের। শুধু বরিশালেই নয়, দেশের অন্যান্য স্থানেও প্রতিষ্ঠানটির আধুনিক সরঞ্জাম ও জনবল সংকটে ধুঁকছে। দেশে বড় কোন অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে প্রতিষ্ঠানটির দুর্বলতা প্রকাশ পায়।

ফায়ার সার্ভিসের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে হলে এর সক্ষমতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে। দক্ষিণাঞ্চলের ফায়ার সার্ভিসে যে জনবল সংকট রয়েছে তা দূর করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অবিলম্বে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে- সেটা আমাদের আশা। সেখানকার অ্যাম্বুলেন্সগুলোও সংস্কার করতে হবে। অবকাঠামোগত দুর্বলতা কাটিয়ে প্রতিষ্ঠানটি যেন কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারে সেই প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

বরিশালের আগৈলঝাড়া, পটুয়াখালীর দুমকি ও রাঙ্গাবালীতে এখনো ফায়ার সার্ভিস সেবা পৌঁছেনি বলে জানা গেছে। এসব এলাকার বাসিন্দা যেন কোন দুর্যোগ বা দুর্ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়- সেই বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে।

নদ-নদীবেষ্টিত দক্ষিণাঞ্চলের দুটি নৌ-ফায়ার স্টেশনের সংস্কারও জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে। জানা গেছে, সেখানকার অগ্নি-নির্বাপণী নৌযান ৩০ বছরের পুরনো। সেগুলো চালানো হচ্ছে জোড়াতালি দিয়ে। জোড়াতালির ব্যবস্থা দিয়ে অগ্নি-দুর্ঘটনা মোকাবিলা করা আদৌ কি সম্ভব- সেটা একটা প্রশ্ন। জোড়াতালির অপসংস্কৃতির অবসান ঘটিয়ে নৌ-ফায়ার স্টেশন আধুনিকায়ন করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে- আমরা এমনটাই দেখতে চাই।

সংকটে সংবাদপত্রশিল্প প্রয়োজন প্রণোদনা

প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করুন

উপকূলে জলদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একজন প্রতিনিধি

পিইসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

জননিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে রেলক্রসিংগুলো সুরক্ষিত করুন

বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে নাকি যেমন আছে তেমনই থাকবে

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

tab

সম্পাদকীয়

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

রোববার, ২১ নভেম্বর ২০২১

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিস নানান সংকটে ভুগছে। সেখানে প্রথম শ্রেণীর ৩টি এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণীর ৩৫টি ফায়ার স্টেশন ছাড়াও রয়েছে দুটি রিভার ফায়ার স্টেশন। এসব প্রতিষ্ঠানে অনুমোদিত জনবল ৯৭৫ জন। তবে কর্মরত আছেন কমবেশি সাড়ে ৭০০ জন। বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ফায়ার সার্ভিসের থাকা ১৬টি অ্যাম্বুলেন্সের বেশিরভাগই বিকল। এ নিয়ে গতকাল শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

অগ্নি-দুর্ঘটনার পাশাপাশি অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগেও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সেবার প্রয়োজন পড়ে। ফায়ার সার্ভিসের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে জনবল ও অবকাঠামো সংকটের বিষয়টি উদ্বেগের। শুধু বরিশালেই নয়, দেশের অন্যান্য স্থানেও প্রতিষ্ঠানটির আধুনিক সরঞ্জাম ও জনবল সংকটে ধুঁকছে। দেশে বড় কোন অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে প্রতিষ্ঠানটির দুর্বলতা প্রকাশ পায়।

ফায়ার সার্ভিসের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে হলে এর সক্ষমতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে। দক্ষিণাঞ্চলের ফায়ার সার্ভিসে যে জনবল সংকট রয়েছে তা দূর করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অবিলম্বে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে- সেটা আমাদের আশা। সেখানকার অ্যাম্বুলেন্সগুলোও সংস্কার করতে হবে। অবকাঠামোগত দুর্বলতা কাটিয়ে প্রতিষ্ঠানটি যেন কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারে সেই প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

বরিশালের আগৈলঝাড়া, পটুয়াখালীর দুমকি ও রাঙ্গাবালীতে এখনো ফায়ার সার্ভিস সেবা পৌঁছেনি বলে জানা গেছে। এসব এলাকার বাসিন্দা যেন কোন দুর্যোগ বা দুর্ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়- সেই বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে।

নদ-নদীবেষ্টিত দক্ষিণাঞ্চলের দুটি নৌ-ফায়ার স্টেশনের সংস্কারও জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে। জানা গেছে, সেখানকার অগ্নি-নির্বাপণী নৌযান ৩০ বছরের পুরনো। সেগুলো চালানো হচ্ছে জোড়াতালি দিয়ে। জোড়াতালির ব্যবস্থা দিয়ে অগ্নি-দুর্ঘটনা মোকাবিলা করা আদৌ কি সম্ভব- সেটা একটা প্রশ্ন। জোড়াতালির অপসংস্কৃতির অবসান ঘটিয়ে নৌ-ফায়ার স্টেশন আধুনিকায়ন করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে- আমরা এমনটাই দেখতে চাই।

back to top