alt

সম্পাদকীয়

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

: শুক্রবার, ০৭ জানুয়ারী ২০২২

পরিবেশ অধিদপ্তর দুর্বল, দুর্নীতিগ্রস্ত এবং অনেকাংশে অক্ষম ও অকার্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। এই মন্তব্যের ভিত্তি হচ্ছে টিআইবির করা একটি গবেষণা প্রতিবেদন।

প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালের এপ্রিল থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে গবেষণা করেছে। আইনের শাসন, সক্ষমতা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহি, অংশগ্রহণ, কার্যসম্পাদন, সমন্বয় এবং অনিয়ম-দুর্নীতি-এই ৮টি সূচকের আলোকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে পরিবেশ অধিদপ্তরের দুর্নীতির শোচনীয় চিত্র দেখতে পেয়েছে।

কোন সূচকেই পরিবেশ অধিদপ্তরের অবস্থান ভালো নয়। টিআইবির গবেষণা প্রতিবেদন শুধু অধিদপ্তরের রুগ্ণতার প্রমাণই হাজির করেনি সেটা দেশের পরিবেশের দুরবস্থাও প্রকাশ করে। দেশে দখল-দূষণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। প্রশ্ন হচ্ছে পরিবেশ রক্ষায় অধিদপ্তর তার ভূমিকা যথাযথভাবে পালন করছে কিনা। তাদের ভূমিকা নিয়ে অতীতেও প্রশ্ন উঠেছে। পরিবেশ রক্ষায় দেশে অনেক আইন থাকলেও তার প্রয়োগ হয় সামান্যই। যারা দখল-দূষণের জন্য দায়ী তাদের সঙ্গে একশ্রেণির কর্তাব্যক্তিদের যোগসাজশের কথা শোনা যায়। শর্ষের মধ্যে ভূত থাকলে পরিবেশ রক্ষা পাবে কী করে!

বাংলাদেশ জলবায়ু প্রশ্নে বিশ্ব দরবারে সোচ্চার ভূমিকা পালন করছে। সরকার পরিবেশ রক্ষায় নানা সময় অনেক অঙ্গীকার করেছে। প্রশ্ন হচ্ছে, সেসব অঙ্গীকার পূরণের লক্ষ্যে অভ্যন্তরীণ প্রচেষ্টা কতটা জোরালো। পরিবেশ রক্ষার কাজে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ভূমিকাইবা কী?

পরিবেশ অধিদপ্তরের ভূমিকা নানান সময় প্রশ্নবিদ্ধ হলেও তা খতিয়ে দেখা হয় না। তাদের জবাবদিহি আদায় করা হয় না। কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা থাকলে প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের পরিবেশও উন্নত হতো। বিষয়টি সরকারকে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির যেসব অভিযোগ উঠেছে তা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। পরিবেশকে টেকসইভাবে রক্ষা করতে হলে সবার আগে শর্ষের মধ্যে থাক ভূত তাড়াতে হবে। পাশাপাশি পরিবেশ-সংক্রান্ত বিদ্যমান আইন প্রয়োগে তৎপর হতে হবে।

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

নদী রক্ষার দায়িত্ব সবাইকেই নিতে হবে

শিক্ষা কর্মকর্তার খামখেয়ালিপনা

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর লক্ষ্য কি যথাসময়ে পূরণ হবে

জলদস্যুদের অত্যাচার থেকে জেলেদের রক্ষা করুন

তিস্তায় কেন বিদ্যুৎ প্রকল্প

কৃষিযন্ত্র উদ্ভাবনের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার বন্ধে টেকসই ব্যবস্থা নিন

পাহাড়ে ‘ভ্রাতৃঘাতী সংঘর্ষ’ থামছে না কেন

প্রিপেইড গ্যাসের মিটার স্থাপনের পরিকল্পনা যথাসময়ে বাস্তবায়ন করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, ঝরে পড়াদের কথা ভাবতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

শুক্রবার, ০৭ জানুয়ারী ২০২২

পরিবেশ অধিদপ্তর দুর্বল, দুর্নীতিগ্রস্ত এবং অনেকাংশে অক্ষম ও অকার্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। এই মন্তব্যের ভিত্তি হচ্ছে টিআইবির করা একটি গবেষণা প্রতিবেদন।

প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালের এপ্রিল থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে গবেষণা করেছে। আইনের শাসন, সক্ষমতা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহি, অংশগ্রহণ, কার্যসম্পাদন, সমন্বয় এবং অনিয়ম-দুর্নীতি-এই ৮টি সূচকের আলোকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে পরিবেশ অধিদপ্তরের দুর্নীতির শোচনীয় চিত্র দেখতে পেয়েছে।

কোন সূচকেই পরিবেশ অধিদপ্তরের অবস্থান ভালো নয়। টিআইবির গবেষণা প্রতিবেদন শুধু অধিদপ্তরের রুগ্ণতার প্রমাণই হাজির করেনি সেটা দেশের পরিবেশের দুরবস্থাও প্রকাশ করে। দেশে দখল-দূষণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। প্রশ্ন হচ্ছে পরিবেশ রক্ষায় অধিদপ্তর তার ভূমিকা যথাযথভাবে পালন করছে কিনা। তাদের ভূমিকা নিয়ে অতীতেও প্রশ্ন উঠেছে। পরিবেশ রক্ষায় দেশে অনেক আইন থাকলেও তার প্রয়োগ হয় সামান্যই। যারা দখল-দূষণের জন্য দায়ী তাদের সঙ্গে একশ্রেণির কর্তাব্যক্তিদের যোগসাজশের কথা শোনা যায়। শর্ষের মধ্যে ভূত থাকলে পরিবেশ রক্ষা পাবে কী করে!

বাংলাদেশ জলবায়ু প্রশ্নে বিশ্ব দরবারে সোচ্চার ভূমিকা পালন করছে। সরকার পরিবেশ রক্ষায় নানা সময় অনেক অঙ্গীকার করেছে। প্রশ্ন হচ্ছে, সেসব অঙ্গীকার পূরণের লক্ষ্যে অভ্যন্তরীণ প্রচেষ্টা কতটা জোরালো। পরিবেশ রক্ষার কাজে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ভূমিকাইবা কী?

পরিবেশ অধিদপ্তরের ভূমিকা নানান সময় প্রশ্নবিদ্ধ হলেও তা খতিয়ে দেখা হয় না। তাদের জবাবদিহি আদায় করা হয় না। কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা থাকলে প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের পরিবেশও উন্নত হতো। বিষয়টি সরকারকে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির যেসব অভিযোগ উঠেছে তা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। পরিবেশকে টেকসইভাবে রক্ষা করতে হলে সবার আগে শর্ষের মধ্যে থাক ভূত তাড়াতে হবে। পাশাপাশি পরিবেশ-সংক্রান্ত বিদ্যমান আইন প্রয়োগে তৎপর হতে হবে।

back to top