alt

সম্পাদকীয়

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

: শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২

নওগাঁ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসকে ঘিরে কোটি টাকার ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাসপোর্ট অফিসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ আনসার সদস্যরা এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। এর বাইরে কিছু স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ একশ্রেণীর দালাল তো আছেই। এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, একটি পাসপোর্টের জন্য একজন নাগরিককে সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়াও তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা দিতে হয়। এর নাম দেয়া হয়েছে ‘চ্যানেল ফি’। চ্যানেলের টাকাসহ আবেদনপত্র দিলে তা সঙ্গে সঙ্গে জমা নিয়ে আঙুলের ছাপ ও ছবির কাজ মুহূর্তেই শেষ করা হয়। এর বাইরে কেউ নিজ উদ্যোগে লাইনে দাঁড়িয়ে আবেদনপত্র জমা দেয়ার চেষ্টা করলে নানান সমস্যা আর ভুল দেখিয়ে দিনের পর দিন ঘোরানো হয়। শুধু নওগাঁ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসই নয়, বরং সারা দেশেই এই চিত্রের দেখা মেলে। পাসপোর্ট পাওয়া নাগরিকের অধিকার। নাগরিকরা কেউ বিনামূল্যে পাসপোর্ট পায় না। সরকার নির্ধারিত ফি’র বিনিময়েই সেটা নিতে হয়। তার ওপর আছে পাসপোর্ট অফিসকেন্দ্রিক একটি অশুভ চক্র। তারাও নানান কায়দা-কৌশলে নাগরিকদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়। এ কাজে একশ্রেণীর দালালচক্র যেমন জড়িত, তেমন পাসপোর্ট অফিসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীও জড়িত। প্রশাসনের নাকের ডগার ওপর দিয়ে শত শত কোটি টাকার অবৈধ বাণিজ্য হচ্ছে। টাকা-পয়সা লুটে নিচ্ছে। হাজারো নাগরিক ভোগান্তি পোহাচ্ছে।

কিছুদিন আগেও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বিভিন্ন জেলার পাসপোর্ট অফিসে অভিযান চালিয়েছে। সেখানে দালালচক্রসহ একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর বাইরে বহির্গমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের বেশ কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ পায় দুদক। সেগুলো অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তালিকা ধরে কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদও করে এই সংস্থা।

কখনও কোন অভিযান চললে তখন পাসপোর্ট অফিসের সেবার মান কিছুটা বাড়ে। এরপর আবার আগের অবস্থায় ফিরে যায়। অনিয়ম ও দুর্নীত আর বন্ধ হয় না। বন্ধ হয় না নাগরিকের ভোগান্তি। পাসপোর্টকেন্দ্রিক ভোগান্তি দূর করার জন্য আবেদন থেকে শুরু করে প্রাপ্তি পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজড করা প্রয়োজন। মানুষ যেন ঘরে বসে পাসপোর্ট পায় সেই ব্যবস্থা করতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করার সময় নাগরিকদের আঙুলের ছাপ নেয়ার পাশাপশি আইরিশ স্ক্যানও করা হয়। সেখান যাবতীয় তথ্য থাকে। কাজেই ঘরে বসে পাসপোর্ট পাওয়ার আশা নাগরিকরা করতেই পারে। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলো সমন্বয় করে কাজ করলে এটা অসম্ভব কোন কাজ নয়।

নিরাপদ মাতৃত্ব

পণ্য পরিবহণে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বিদ্যালয়ের মাঠ ভাড়া দেয়া প্রসঙ্গে

হালদা নদীর মাছ রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

রাজধানীতে ফ্যামিলি কার্ড দেয়ার কাজে বিলম্ব কেন

হাতিরঝিল রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন

যানজট নিরসনে স্বল্পমেয়াদি পদক্ষেপগুলোকে ভুললে চলবে না

বন্যাপরবর্তী পানিবাহিত রোগ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সরকারি হাসপাতালে ওষুধ সরবরাহ স্বাভাবিক করুন

মাঙ্কিপক্স : আতঙ্ক নয় সচেতনতা জরুরি

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

tab

সম্পাদকীয়

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২

নওগাঁ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসকে ঘিরে কোটি টাকার ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাসপোর্ট অফিসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ আনসার সদস্যরা এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। এর বাইরে কিছু স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ একশ্রেণীর দালাল তো আছেই। এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, একটি পাসপোর্টের জন্য একজন নাগরিককে সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়াও তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা দিতে হয়। এর নাম দেয়া হয়েছে ‘চ্যানেল ফি’। চ্যানেলের টাকাসহ আবেদনপত্র দিলে তা সঙ্গে সঙ্গে জমা নিয়ে আঙুলের ছাপ ও ছবির কাজ মুহূর্তেই শেষ করা হয়। এর বাইরে কেউ নিজ উদ্যোগে লাইনে দাঁড়িয়ে আবেদনপত্র জমা দেয়ার চেষ্টা করলে নানান সমস্যা আর ভুল দেখিয়ে দিনের পর দিন ঘোরানো হয়। শুধু নওগাঁ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসই নয়, বরং সারা দেশেই এই চিত্রের দেখা মেলে। পাসপোর্ট পাওয়া নাগরিকের অধিকার। নাগরিকরা কেউ বিনামূল্যে পাসপোর্ট পায় না। সরকার নির্ধারিত ফি’র বিনিময়েই সেটা নিতে হয়। তার ওপর আছে পাসপোর্ট অফিসকেন্দ্রিক একটি অশুভ চক্র। তারাও নানান কায়দা-কৌশলে নাগরিকদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়। এ কাজে একশ্রেণীর দালালচক্র যেমন জড়িত, তেমন পাসপোর্ট অফিসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীও জড়িত। প্রশাসনের নাকের ডগার ওপর দিয়ে শত শত কোটি টাকার অবৈধ বাণিজ্য হচ্ছে। টাকা-পয়সা লুটে নিচ্ছে। হাজারো নাগরিক ভোগান্তি পোহাচ্ছে।

কিছুদিন আগেও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বিভিন্ন জেলার পাসপোর্ট অফিসে অভিযান চালিয়েছে। সেখানে দালালচক্রসহ একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর বাইরে বহির্গমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের বেশ কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জনের অভিযোগ পায় দুদক। সেগুলো অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তালিকা ধরে কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদও করে এই সংস্থা।

কখনও কোন অভিযান চললে তখন পাসপোর্ট অফিসের সেবার মান কিছুটা বাড়ে। এরপর আবার আগের অবস্থায় ফিরে যায়। অনিয়ম ও দুর্নীত আর বন্ধ হয় না। বন্ধ হয় না নাগরিকের ভোগান্তি। পাসপোর্টকেন্দ্রিক ভোগান্তি দূর করার জন্য আবেদন থেকে শুরু করে প্রাপ্তি পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজড করা প্রয়োজন। মানুষ যেন ঘরে বসে পাসপোর্ট পায় সেই ব্যবস্থা করতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করার সময় নাগরিকদের আঙুলের ছাপ নেয়ার পাশাপশি আইরিশ স্ক্যানও করা হয়। সেখান যাবতীয় তথ্য থাকে। কাজেই ঘরে বসে পাসপোর্ট পাওয়ার আশা নাগরিকরা করতেই পারে। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলো সমন্বয় করে কাজ করলে এটা অসম্ভব কোন কাজ নয়।

back to top