alt

সম্পাদকীয়

বাঘ রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন কী

: রোববার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২

বাঘ রক্ষার লক্ষ্যে বাঘসমৃদ্ধ ১৩টি দেশকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ওপর জোর দিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। বাঘ সংরক্ষণবিষয়ক চতুর্থ এশিয়া মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

সম্মেলনে বাঘ রক্ষার আহ্বান জানানো হয়। প্রশ্ন হচ্ছে- এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ কী করছে। পরিবেশমন্ত্রী বলছেন, বন্য বাঘ সংরক্ষণের দৃঢ়প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার। তিনি এ সংক্রান্ত কিছু আইন ও পদক্ষেপের কথাও উল্লেখ করেছেন; কিন্তু দেশে বাঘের সংখ্যা কত হওয়া উচিত ছিল আর কতটি আছে সে বিষয়ে কিছু তার বক্তব্য থেকে জানা যায়নি।

প্রথম বাঘ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১০ সালে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবুর্গে। সেই সম্মেলনে বলা হয়েছিল- ২০২২ সালের মধ্যে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে। ২০১০ সালে করা এক যৌথ জরিপ অনুযায়ী, তখন বাংলাদেশে বাঘের সংখ্যা ছিল ৪০০ থেকে ৪৫০টি। ২০১৮ সালে বাঘের সংখ্যা ছিল ১১৪টি। প্রথম বাঘ সম্মেলনের পর দেশে বাঘের সংখ্যা বাড়ার পরিবর্তে কমেছে; কিন্তু ভুটান, থাইল্যান্ড, নেপাল এবং ভারতে বাঘের সংখ্যা ঠিকই বেড়েছে।

সরকারের হিসাব অনুযায়ী- সুন্দরবনের অভয়ারণ্যের আয়তন বেড়েছে। ২০১৭ সালে সুন্দরবনের অভয়ারণ্য এলাকা তিন লাখ ১৭ হাজার ৯০০ হেক্টরে উন্নীত করা হয়েছে। এর আগে অভয়ারণ্যের আয়তন ছিল এক লাখ ৩৯ হাজার ৭০০ হেক্টর। বনের আয়তন দ্বিগুণেরও বেশি বাড়া সত্ত্বেও বাঘের সংখ্যা কাক্সিক্ষত হারে বাড়েনি কেন সেটা খতিয়ে দেখা দরকার।

কেবল সম্মেলনে যোগ দিয়ে বক্তব্য দিলে বাঘ রক্ষা করা যাবে না। বাঘ রক্ষার কাজে বন বিভাগের সক্ষমতা ও দক্ষতা বাড়াতে হবে। করতে হবে অর্থায়ন। বাঘ হত্যা ও চোরা শিকার বন্ধ করতে হবে কঠোরভাবে।

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মৌলিক পয়োনিষ্কাশনের পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা করুন

বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করুন

ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা

ভোজ্যতেলের বাজার ব্যবস্থাপনায় ছাড় নয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখনই ব্যবস্থা নিন

ঈদযাত্রায় স্বস্তি

tab

সম্পাদকীয়

বাঘ রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন কী

রোববার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২

বাঘ রক্ষার লক্ষ্যে বাঘসমৃদ্ধ ১৩টি দেশকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ওপর জোর দিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। বাঘ সংরক্ষণবিষয়ক চতুর্থ এশিয়া মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

সম্মেলনে বাঘ রক্ষার আহ্বান জানানো হয়। প্রশ্ন হচ্ছে- এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ কী করছে। পরিবেশমন্ত্রী বলছেন, বন্য বাঘ সংরক্ষণের দৃঢ়প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার। তিনি এ সংক্রান্ত কিছু আইন ও পদক্ষেপের কথাও উল্লেখ করেছেন; কিন্তু দেশে বাঘের সংখ্যা কত হওয়া উচিত ছিল আর কতটি আছে সে বিষয়ে কিছু তার বক্তব্য থেকে জানা যায়নি।

প্রথম বাঘ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১০ সালে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবুর্গে। সেই সম্মেলনে বলা হয়েছিল- ২০২২ সালের মধ্যে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে। ২০১০ সালে করা এক যৌথ জরিপ অনুযায়ী, তখন বাংলাদেশে বাঘের সংখ্যা ছিল ৪০০ থেকে ৪৫০টি। ২০১৮ সালে বাঘের সংখ্যা ছিল ১১৪টি। প্রথম বাঘ সম্মেলনের পর দেশে বাঘের সংখ্যা বাড়ার পরিবর্তে কমেছে; কিন্তু ভুটান, থাইল্যান্ড, নেপাল এবং ভারতে বাঘের সংখ্যা ঠিকই বেড়েছে।

সরকারের হিসাব অনুযায়ী- সুন্দরবনের অভয়ারণ্যের আয়তন বেড়েছে। ২০১৭ সালে সুন্দরবনের অভয়ারণ্য এলাকা তিন লাখ ১৭ হাজার ৯০০ হেক্টরে উন্নীত করা হয়েছে। এর আগে অভয়ারণ্যের আয়তন ছিল এক লাখ ৩৯ হাজার ৭০০ হেক্টর। বনের আয়তন দ্বিগুণেরও বেশি বাড়া সত্ত্বেও বাঘের সংখ্যা কাক্সিক্ষত হারে বাড়েনি কেন সেটা খতিয়ে দেখা দরকার।

কেবল সম্মেলনে যোগ দিয়ে বক্তব্য দিলে বাঘ রক্ষা করা যাবে না। বাঘ রক্ষার কাজে বন বিভাগের সক্ষমতা ও দক্ষতা বাড়াতে হবে। করতে হবে অর্থায়ন। বাঘ হত্যা ও চোরা শিকার বন্ধ করতে হবে কঠোরভাবে।

back to top