alt

সম্পাদকীয়

খেলার মাঠেই কেন থানা বানাতে হবে

: সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০২২

ঢাকার কলাবাগানের তেঁতুলতলা মাঠ রক্ষার দাবি জানিয়ে ফেইসবুকে লাইভ করার সময় গতকাল রোববার পুলিশের হাতে আটক হন সৈয়দা রত্না নামের এক সংগঠক। এ সময় তার কলেজপড়ুয়া ছেলেকেও আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। প্রতিবাদ-বিক্ষোভের মুখে তাদের একপর্যায়ে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

জানা গেছে, তেঁতুলতলার মাঠ বলে পরিচিত এক টুকরো জমিটি পরিত্যক্ত সম্পত্তি। উক্ত এলাকার সবেধন নীলমণি এই একচিলতে জায়গা ভিন্ন আর কোনো খোলা জায়গা নেই; যেখানে শিশুরা একটু খেলতে পারে। শহরজুড়েই খেলার মাঠ, পার্ক বা খোলা জায়গার বড় অভাব। সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী, প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে খেলার মাঠ থাকার কথা। বাস্তবে সেটা নেই।

এ শহরে মাঠের বিকল্প মেলা ভার। এ কারণেই স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরেই মাঠটি রক্ষার জন্য আন্দোলন করছিল। তাদের আন্দোলন করতে হচ্ছে কারণ, জায়গাটি কলাবাগান থানার ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কোন একটি থানার ভবন নির্মাণের প্রয়োজনকে অস্বীকার করা যায় না। প্রশ্ন হচ্ছে-ভবন নির্মাণ করার জন্য একটি এলাকার শিশুদের খেলার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত করা জরুরি কিনা। ভবন ভাড়া নিয়েও থানা হিসেবে ব্যবহার করা যায়। ইট-কংক্রিটের এই নগরে ভবনের অভাব নেই।

মাঠ রক্ষায় স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবিকে আমলে নেয়া জরুরি। যে কোন কাজে নাগরিকদের প্রয়োজনকে অগ্রগণ্য বিবেচনা করা দরকার। থানাও তৈরি করা হবে নাগরিকদের জন্য। থানা হলে অপরাধ দমন করা যাবে, নাগরিকদের নিরাপত্তা দেয়া যাবে। আমরা বলতে চাই, সমাজে কেউ যেন অপরাধী হিসেবে বেড়ে না ওঠে সেটা নিশ্চিত করার জন্য মাঠেরও প্রয়োজন আছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তেঁতুলতলার উক্ত স্থান খেলার মাঠ হিসেবে থাকবে নাকি সেখানে থানা হবে সেটা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আমরা মনে করি, খোলা মনে আলোচনা হলে গ্রহণযোগ্য সমাধান মিলতে পারে। আলোচনা না হওয়া পর্যন্ত সেখানে কোন ধরনের নির্মাণকাজ না চালানোই উত্তম।

শিশুরা আগের মতো সেখানে খেলতে পারছে- আমরা এমনটাই দেখতে চাই। খেলাকে কেউ যেন অপরাধ হিসেবে গণ্য না করে, খেলার জন্য কোন ?শিশুকে যেন শারীরিক-মানসিক নিপীড়নের শিকার হতে না হয় সেটা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নিশ্চিত করতে হবে। গত বছর ৩১ জানুয়ারি উক্ত মাঠে খেলতে যাওয়া কয়েকটি শিশুকে কান ধরে ওঠবস করিয়েছিল পুলিশ। শিশুদের সঙ্গে এমন অমানবিক আচরণ কাম্য নয়।

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মৌলিক পয়োনিষ্কাশনের পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা করুন

বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করুন

ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা

ভোজ্যতেলের বাজার ব্যবস্থাপনায় ছাড় নয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখনই ব্যবস্থা নিন

ঈদযাত্রায় স্বস্তি

tab

সম্পাদকীয়

খেলার মাঠেই কেন থানা বানাতে হবে

সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০২২

ঢাকার কলাবাগানের তেঁতুলতলা মাঠ রক্ষার দাবি জানিয়ে ফেইসবুকে লাইভ করার সময় গতকাল রোববার পুলিশের হাতে আটক হন সৈয়দা রত্না নামের এক সংগঠক। এ সময় তার কলেজপড়ুয়া ছেলেকেও আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। প্রতিবাদ-বিক্ষোভের মুখে তাদের একপর্যায়ে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

জানা গেছে, তেঁতুলতলার মাঠ বলে পরিচিত এক টুকরো জমিটি পরিত্যক্ত সম্পত্তি। উক্ত এলাকার সবেধন নীলমণি এই একচিলতে জায়গা ভিন্ন আর কোনো খোলা জায়গা নেই; যেখানে শিশুরা একটু খেলতে পারে। শহরজুড়েই খেলার মাঠ, পার্ক বা খোলা জায়গার বড় অভাব। সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী, প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে খেলার মাঠ থাকার কথা। বাস্তবে সেটা নেই।

এ শহরে মাঠের বিকল্প মেলা ভার। এ কারণেই স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরেই মাঠটি রক্ষার জন্য আন্দোলন করছিল। তাদের আন্দোলন করতে হচ্ছে কারণ, জায়গাটি কলাবাগান থানার ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কোন একটি থানার ভবন নির্মাণের প্রয়োজনকে অস্বীকার করা যায় না। প্রশ্ন হচ্ছে-ভবন নির্মাণ করার জন্য একটি এলাকার শিশুদের খেলার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত করা জরুরি কিনা। ভবন ভাড়া নিয়েও থানা হিসেবে ব্যবহার করা যায়। ইট-কংক্রিটের এই নগরে ভবনের অভাব নেই।

মাঠ রক্ষায় স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবিকে আমলে নেয়া জরুরি। যে কোন কাজে নাগরিকদের প্রয়োজনকে অগ্রগণ্য বিবেচনা করা দরকার। থানাও তৈরি করা হবে নাগরিকদের জন্য। থানা হলে অপরাধ দমন করা যাবে, নাগরিকদের নিরাপত্তা দেয়া যাবে। আমরা বলতে চাই, সমাজে কেউ যেন অপরাধী হিসেবে বেড়ে না ওঠে সেটা নিশ্চিত করার জন্য মাঠেরও প্রয়োজন আছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তেঁতুলতলার উক্ত স্থান খেলার মাঠ হিসেবে থাকবে নাকি সেখানে থানা হবে সেটা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আমরা মনে করি, খোলা মনে আলোচনা হলে গ্রহণযোগ্য সমাধান মিলতে পারে। আলোচনা না হওয়া পর্যন্ত সেখানে কোন ধরনের নির্মাণকাজ না চালানোই উত্তম।

শিশুরা আগের মতো সেখানে খেলতে পারছে- আমরা এমনটাই দেখতে চাই। খেলাকে কেউ যেন অপরাধ হিসেবে গণ্য না করে, খেলার জন্য কোন ?শিশুকে যেন শারীরিক-মানসিক নিপীড়নের শিকার হতে না হয় সেটা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নিশ্চিত করতে হবে। গত বছর ৩১ জানুয়ারি উক্ত মাঠে খেলতে যাওয়া কয়েকটি শিশুকে কান ধরে ওঠবস করিয়েছিল পুলিশ। শিশুদের সঙ্গে এমন অমানবিক আচরণ কাম্য নয়।

back to top