alt

সম্পাদকীয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

: শুক্রবার, ০৬ মে ২০২২

মৌসুমের আগে আধাপাকা ফল কার্বাইড ও ইথোফেন দিয়ে পাকিয়ে বাজারে বিক্রি করার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমন আশঙ্কা দেখা দেয়া অবশ্য অমূলক নয়। কারণ, অতীতে কার্বাইড দিয়ে ফল পাকিয়ে বিক্রি করেতে দেখা গেছে। মূলত মৌসুমের আগে ফল বাজারে বিক্রি করার জন্য এ কারসাজি করা হয়। এ সময় দাম বেশি পাওয়ায় একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বেশি মুনাফার আশায় এ কাজ করেন।

সাম্প্রতিক সময়ে নানা বৈজ্ঞানিক গবেষণায় উঠে এসেছে, ফল পাকাতে নির্ধারিত মাত্রায় রাসায়নিক ব্যবহার করলে স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হয় না। সমস্যা হচ্ছে, দেশে মৌসুমি ফলের মধ্যে বিভিন্ন রকম রাসায়নিক অতিমাত্রায় ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া ‘নির্দিষ্ট পরিমাণ, কীভাবে নির্ধারণ করা হবে এবং সে অনুযায়ী তার ব্যবহার নিশ্চিত করা হবে, সেটা একটা প্রশ্ন। আর এ কারণেই জনস্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ দেখা দেয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অতিরিক্ত রাসায়নিক মেশানো ফল খেলে লিভার, কিডনি ও পাকস্থলীর সমস্যা দেখা দিতে পারে, এমনকি ক্যানসারও হতে পারে। বিশেষ করে শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের জন্য এসব ফল মারাত্মক ক্ষতিকর। অতিরিক্ত রাসায়নিক প্রয়োগ করলে ফলের স্বাদও নষ্ট হয়ে যায়।

তাই কার্বাইড, ইথোফেনসহ বিভিন্ন রাসায়নিক আমদানি, বিক্রি, ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ-সংক্রান্ত যেসব আইন ও বিধিমালা রয়েছে, সেগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন করেতে হবে। তাহলে ফলে অতিরিক্ত রাসায়নিক মেশানোর মন্দ প্রবণতা নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সহজ হবে।

পাশাপাশি ক্রেতাদের সচেতন হতে হবে। ক্রেতা-সচেতনতা না থাকার কারণে ব্যবসায়ীরা এ নিয়ে কোন চাপ অনুভব করেন না। ক্রেতা সাধারণের বুঝতে হবে, মৌসুমের আগে কোন ফল পাকানো হলে তাতে অতি মাত্রায় রাসায়নিক মেশানোর আশঙ্কা থাকে। তারা যদি ধৈর্য ধরে ফলের মৌসুম আসার অপেক্ষা করেন তাহলে যেমন স্বাস্থ্য সুরক্ষা হবে, তেমনি অর্থও সাশ্রয় হবে।

যানজট নিরসনে স্বল্পমেয়াদি পদক্ষেপগুলোকে ভুললে চলবে না

বন্যাপরবর্তী পানিবাহিত রোগ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সরকারি হাসপাতালে ওষুধ সরবরাহ স্বাভাবিক করুন

মাঙ্কিপক্স : আতঙ্ক নয় সচেতনতা জরুরি

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মৌলিক পয়োনিষ্কাশনের পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা করুন

বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করুন

ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা

tab

সম্পাদকীয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

শুক্রবার, ০৬ মে ২০২২

মৌসুমের আগে আধাপাকা ফল কার্বাইড ও ইথোফেন দিয়ে পাকিয়ে বাজারে বিক্রি করার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমন আশঙ্কা দেখা দেয়া অবশ্য অমূলক নয়। কারণ, অতীতে কার্বাইড দিয়ে ফল পাকিয়ে বিক্রি করেতে দেখা গেছে। মূলত মৌসুমের আগে ফল বাজারে বিক্রি করার জন্য এ কারসাজি করা হয়। এ সময় দাম বেশি পাওয়ায় একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বেশি মুনাফার আশায় এ কাজ করেন।

সাম্প্রতিক সময়ে নানা বৈজ্ঞানিক গবেষণায় উঠে এসেছে, ফল পাকাতে নির্ধারিত মাত্রায় রাসায়নিক ব্যবহার করলে স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হয় না। সমস্যা হচ্ছে, দেশে মৌসুমি ফলের মধ্যে বিভিন্ন রকম রাসায়নিক অতিমাত্রায় ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া ‘নির্দিষ্ট পরিমাণ, কীভাবে নির্ধারণ করা হবে এবং সে অনুযায়ী তার ব্যবহার নিশ্চিত করা হবে, সেটা একটা প্রশ্ন। আর এ কারণেই জনস্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ দেখা দেয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অতিরিক্ত রাসায়নিক মেশানো ফল খেলে লিভার, কিডনি ও পাকস্থলীর সমস্যা দেখা দিতে পারে, এমনকি ক্যানসারও হতে পারে। বিশেষ করে শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের জন্য এসব ফল মারাত্মক ক্ষতিকর। অতিরিক্ত রাসায়নিক প্রয়োগ করলে ফলের স্বাদও নষ্ট হয়ে যায়।

তাই কার্বাইড, ইথোফেনসহ বিভিন্ন রাসায়নিক আমদানি, বিক্রি, ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ-সংক্রান্ত যেসব আইন ও বিধিমালা রয়েছে, সেগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন করেতে হবে। তাহলে ফলে অতিরিক্ত রাসায়নিক মেশানোর মন্দ প্রবণতা নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সহজ হবে।

পাশাপাশি ক্রেতাদের সচেতন হতে হবে। ক্রেতা-সচেতনতা না থাকার কারণে ব্যবসায়ীরা এ নিয়ে কোন চাপ অনুভব করেন না। ক্রেতা সাধারণের বুঝতে হবে, মৌসুমের আগে কোন ফল পাকানো হলে তাতে অতি মাত্রায় রাসায়নিক মেশানোর আশঙ্কা থাকে। তারা যদি ধৈর্য ধরে ফলের মৌসুম আসার অপেক্ষা করেন তাহলে যেমন স্বাস্থ্য সুরক্ষা হবে, তেমনি অর্থও সাশ্রয় হবে।

back to top