alt

সম্পাদকীয়

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

: মঙ্গলবার, ১০ মে ২০২২

জি টুয়েন্টি ওয়ার্ল্ড নামের একটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) কোম্পানির বিরুদ্ধে গ্রাহকের দশ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতারণার অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) সিআইডি গ্রেপ্তার করলেও তিনি বর্তমানে জামিনে রয়েছেন। এ নিয়ে গতকাল সোমবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

জানা গেছে, উপসচিব পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান। সুনির্দিষ্ট অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হলেও তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। তিনিসহ এ কোম্পানির নেপথ্যে যারা রয়েছেন তারা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এক সময় দেশে বহু এমএলএম কোম্পানি গড়ে উঠেছিল। যুবক, ডেসটিনি, ইউনিপেটুইউর মতো কোম্পানিগুলো ব্যবসার নামে মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। একপর্যায়ে সরকার ব্যবস্থা নেয়। গ্রেপ্তার করা হয় এমএলএম কোম্পানির শীর্ষ কর্মকর্তাদের। এরপর ধারণা করা হয়েছিল, এমএলএমের নামে প্রতারণা বন্ধ হয়ে যাবে।

কিন্তু এখনও কিছু প্রতিষ্ঠান চলেছে বহাল তবিয়তে।

অতীতের ঘটনাগুলোর যদি দ্রুত ও কঠোর বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা যেত, তাহলে কোন কৌশলেই কেউ এমন প্রতারণা করার সাহস পেত না। ডেসটিনিসহ বিভিন্ন এমএলএম কোম্পানির হাজার হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও মানি লন্ডারিংয়ের দায়ে করা মামলাগুলোর এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। কবে নিষ্পত্তি হবে, তাও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছে না। বছরের পর বছর ধরে বিনা বিচারে ঝুলে আছে এসব মামলা। বিচারহীনতার এ অপসংস্কৃতি বন্ধ করা না গেলে এমএলএম ব্যবসার প্রতারণা থেকে মানুষকে রক্ষা করা যাবে না।

আমরা জি টুয়েন্টি ওয়ার্ল্ডসহ এমএলএম ব্যবসা পরিচালনাকারী সব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করছি। কোন প্রতিষ্ঠান কত টাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে, সেটা খুঁজে বের করতে হবে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। মূল হোতাদের গ্রেপ্তার করে আইনের মুখোমুখি করতে হবে। পূর্বের ঘটনাগুলো দ্রুত বিচার কাজ সম্পাদন করতে হবে।

পাশাপাশি জনসাধারণকেও সচেতন হতে হবে। তাদের বুঝতে হবে অধিক মুনাফার লোভে নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করলে প্রতারিত হতে হবে। ভুল জায়গায় বিনিয়োগ করলে মুনাফা তো দূরের কথা মূল অর্থও ফেরত পাওয়া যাবে না।

পীরগাছায় আড়াইকুঁড়ি নদীতে সেতু নির্মাণ করুন

বাড়ছে ডেঙ্গু : আতঙ্ক নয়, চাই সচেতনতা

খুলনা নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে টেকসই পদক্ষেপ নিন

শিশু নির্যাতন বন্ধে সমাজের মনোভাব বদলানো জরুরি

তেঁতুলিয়ায় ভিডব্লিউবির চাল বিতরণে অনিয়ম বন্ধ করুন

শিশুর বিকাশে চাই পুষ্টি সচেতনতা

রংপুর শিশু হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু করতে দেরি কেন

পেঁয়াজের বাড়তি দাম, লাভের গুড় খাচ্ছে কে

পানি সংকট নিরসনে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

কক্সবাজারে অপহরণ বাণিজ্য কেন বন্ধ করা যাচ্ছে না

ভালুকায় সড়ক সংস্কারের কাজ বন্ধ কেন

মানুষ ও হাতি উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

দালাল চক্রের হাত থেকে বিদেশ গমনেচ্ছুদের রক্ষা করতে হবে

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রসঙ্গে

বিএসটিআইর সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

অগ্নিদুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে হবে

সৈয়দপুরে রেলের পয়ঃনিষ্কাশনের নালা দখলমুক্ত করুন

সাইবার অপরাধ দমনে আইনের প্রয়োগ ঘটাতে হবে

ফরিদপুরে পদ্মার বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বজ্রপাত ও অতি উষ্ণতা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নিতে হবে

নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

পেঁয়াজের দাম ও কিছু প্রশ্ন

সুন্দরগঞ্জে কালভার্ট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

প্রান্তিক দরিদ্রদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হবে

ব্রহ্মপুত্র নদে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

তারাকান্দার সড়কটি সংস্কার করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

মোরেলগঞ্জে পানগুছি নদীতীরে বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি

শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় চূড়ান্ত ব্যবস্থা নিতে বিলম্ব কেন

দশমিনার খালগুলো রক্ষা করুন

পাহাড় দখল বন্ধে টেকসই পদক্ষেপ নিন

সাতছড়ি উদ্যান রক্ষা করুন

নার্স সংকট নিরসন করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে ময়লার ভাগাড় কেন

প্রকৃত উপকারভোগীদের বয়স্ক ভাতা নিশ্চিত করুন

tab

সম্পাদকীয়

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

মঙ্গলবার, ১০ মে ২০২২

জি টুয়েন্টি ওয়ার্ল্ড নামের একটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) কোম্পানির বিরুদ্ধে গ্রাহকের দশ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতারণার অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) সিআইডি গ্রেপ্তার করলেও তিনি বর্তমানে জামিনে রয়েছেন। এ নিয়ে গতকাল সোমবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

জানা গেছে, উপসচিব পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান। সুনির্দিষ্ট অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হলেও তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। তিনিসহ এ কোম্পানির নেপথ্যে যারা রয়েছেন তারা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এক সময় দেশে বহু এমএলএম কোম্পানি গড়ে উঠেছিল। যুবক, ডেসটিনি, ইউনিপেটুইউর মতো কোম্পানিগুলো ব্যবসার নামে মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। একপর্যায়ে সরকার ব্যবস্থা নেয়। গ্রেপ্তার করা হয় এমএলএম কোম্পানির শীর্ষ কর্মকর্তাদের। এরপর ধারণা করা হয়েছিল, এমএলএমের নামে প্রতারণা বন্ধ হয়ে যাবে।

কিন্তু এখনও কিছু প্রতিষ্ঠান চলেছে বহাল তবিয়তে।

অতীতের ঘটনাগুলোর যদি দ্রুত ও কঠোর বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা যেত, তাহলে কোন কৌশলেই কেউ এমন প্রতারণা করার সাহস পেত না। ডেসটিনিসহ বিভিন্ন এমএলএম কোম্পানির হাজার হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও মানি লন্ডারিংয়ের দায়ে করা মামলাগুলোর এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। কবে নিষ্পত্তি হবে, তাও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছে না। বছরের পর বছর ধরে বিনা বিচারে ঝুলে আছে এসব মামলা। বিচারহীনতার এ অপসংস্কৃতি বন্ধ করা না গেলে এমএলএম ব্যবসার প্রতারণা থেকে মানুষকে রক্ষা করা যাবে না।

আমরা জি টুয়েন্টি ওয়ার্ল্ডসহ এমএলএম ব্যবসা পরিচালনাকারী সব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করছি। কোন প্রতিষ্ঠান কত টাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে, সেটা খুঁজে বের করতে হবে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। মূল হোতাদের গ্রেপ্তার করে আইনের মুখোমুখি করতে হবে। পূর্বের ঘটনাগুলো দ্রুত বিচার কাজ সম্পাদন করতে হবে।

পাশাপাশি জনসাধারণকেও সচেতন হতে হবে। তাদের বুঝতে হবে অধিক মুনাফার লোভে নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করলে প্রতারিত হতে হবে। ভুল জায়গায় বিনিয়োগ করলে মুনাফা তো দূরের কথা মূল অর্থও ফেরত পাওয়া যাবে না।

back to top