alt

সম্পাদকীয়

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

: বুধবার, ১৮ মে ২০২২

ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের কামার খালের মুখে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ধলীগৌরনগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান ও তার স্বজনরা প্রবাহমান খালটিতে মাছ চাষ করছেন। এ কাজে স্থানীয় মৎস্য বিভাগ তাদের আর্থিক সহযোগিতা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত সোমবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কামারখালে বেশ কয়েকটি স্লুইসগেট রয়েছে এবং অন্য খালের সঙ্গে এর সংযোগ রয়েছে। ভেকু দিয়ে মাটি কেটে জনতা বাজারের পূর্বে কামারখালের জলকপাটের মুখে দুটি বাঁধ দেয়া হয়েছে। খালের অনেক অংশেই এমন বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে।

স্থানীয়রা এ খালে বছরের পর বছর মাছ শিকার করে নিজেদের চাহিতা মেটাতেন, অনেকে জীবিকা নির্বাহ করতেন। সেটা এখন বন্ধ হয়ে গেছে। খালের জলকপাট বিকল হয়ে থাকায় ওই এলাকার কয়েকটি বিলে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা এবং শুষ্ক মৌসুমে পানির অভাব দেখা দেয়। ফলে দুই মৌসুমেই ক্ষতিগ্রস্ত হন কৃষকরা। ব্যাহত হয় বোরোসহ অন্যান্য ফসলের আবাদ। এখন বাঁধ দেয়ার ফলে জলাবদ্ধতা ও পানি স্বল্পতা বা অভাব স্থায়ী রূপ ধারন করবে।

খালে বাঁধ না দিতে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মৎস্য অফিসার বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে। তাতেও কাজ না হওয়ায় গত ২৪ এপ্রিল তারা ভোলা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেয়। এরপরও বন্ধ হয়নি খালে বাঁধ দেয়ার কাজ।

খালটি যাদের দেখভাল করার কথা তাদের বিরুদ্ধেই অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। সর্ষের মধ্যেই ভূত রয়েছে! উপজেলা প্রশাসন ও সহকারী ভূমি কমিশনার ২০২১-২২ অর্থবছরে খালটি বদ্ধ জলাশয় হিসেবে অনুমোদন দিয়েছে। যুগ যুগ ধরে প্রবাহমান খালকে কীভাবে বা কোন আইনে একটি বদ্ধ জলাশয় হিসেবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে- সেটা একটা প্রশ্ন।

শুধু লালমোহন নয় দেশের অনেক অঞ্চলেই এভাবে প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করার খবর পাওয়া যায়। প্রায়ই গণমাধ্যমে এসব নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। আমরা বলতে চাই, কোনভাবে প্রবাহমান খালের বৈশিষ্ট্য নষ্ট করা কাম্য নয়। অবিলম্বে উল্লিখিত খালের বাঁধ খুলে দিতে হবে। খালটির অপব্যবহারের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

নওগাঁয় সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

জন্মনিবন্ধনে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করুন

দ্রুত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংস্কার করুন

শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শিক্ষক সংগঠনগুলোর ভূমিকা

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

শিল্পবর্জ্যে বিপন্ন পরিবেশ

বস্তিবাসীর সমস্যার টেকসই সমাধান করতে হবে

শিশু নিপীড়ন রোধের দায়িত্ব নিত হবে সমাজকে

বিজেপির দুই নেতার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ প্রসঙ্গে

অনুকরণীয় উদাহরণ

tab

সম্পাদকীয়

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

বুধবার, ১৮ মে ২০২২

ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের কামার খালের মুখে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ধলীগৌরনগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান ও তার স্বজনরা প্রবাহমান খালটিতে মাছ চাষ করছেন। এ কাজে স্থানীয় মৎস্য বিভাগ তাদের আর্থিক সহযোগিতা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত সোমবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কামারখালে বেশ কয়েকটি স্লুইসগেট রয়েছে এবং অন্য খালের সঙ্গে এর সংযোগ রয়েছে। ভেকু দিয়ে মাটি কেটে জনতা বাজারের পূর্বে কামারখালের জলকপাটের মুখে দুটি বাঁধ দেয়া হয়েছে। খালের অনেক অংশেই এমন বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে।

স্থানীয়রা এ খালে বছরের পর বছর মাছ শিকার করে নিজেদের চাহিতা মেটাতেন, অনেকে জীবিকা নির্বাহ করতেন। সেটা এখন বন্ধ হয়ে গেছে। খালের জলকপাট বিকল হয়ে থাকায় ওই এলাকার কয়েকটি বিলে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা এবং শুষ্ক মৌসুমে পানির অভাব দেখা দেয়। ফলে দুই মৌসুমেই ক্ষতিগ্রস্ত হন কৃষকরা। ব্যাহত হয় বোরোসহ অন্যান্য ফসলের আবাদ। এখন বাঁধ দেয়ার ফলে জলাবদ্ধতা ও পানি স্বল্পতা বা অভাব স্থায়ী রূপ ধারন করবে।

খালে বাঁধ না দিতে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মৎস্য অফিসার বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে। তাতেও কাজ না হওয়ায় গত ২৪ এপ্রিল তারা ভোলা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেয়। এরপরও বন্ধ হয়নি খালে বাঁধ দেয়ার কাজ।

খালটি যাদের দেখভাল করার কথা তাদের বিরুদ্ধেই অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। সর্ষের মধ্যেই ভূত রয়েছে! উপজেলা প্রশাসন ও সহকারী ভূমি কমিশনার ২০২১-২২ অর্থবছরে খালটি বদ্ধ জলাশয় হিসেবে অনুমোদন দিয়েছে। যুগ যুগ ধরে প্রবাহমান খালকে কীভাবে বা কোন আইনে একটি বদ্ধ জলাশয় হিসেবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে- সেটা একটা প্রশ্ন।

শুধু লালমোহন নয় দেশের অনেক অঞ্চলেই এভাবে প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করার খবর পাওয়া যায়। প্রায়ই গণমাধ্যমে এসব নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। আমরা বলতে চাই, কোনভাবে প্রবাহমান খালের বৈশিষ্ট্য নষ্ট করা কাম্য নয়। অবিলম্বে উল্লিখিত খালের বাঁধ খুলে দিতে হবে। খালটির অপব্যবহারের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top