alt

সম্পাদকীয়

বাজেট : মানুষের স্বস্তি আর দেশের উন্নতির বাসনা

: বৃহস্পতিবার, ০৯ জুন ২০২২

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের ধকল কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ভার বইবার চ্যালেঞ্জ নিতে হচ্ছে অর্থমন্ত্রীকে। মহামারী আর যুদ্ধের জোড়া আঘাতে বিশ্বজুড়েই অর্থনৈতিক মন্দার পূর্বাভাস মিলছে। দেশে মূল্যস্ফীতির রেখাটি ঊর্ধ্বমুখী। ডলারের দাম বেড়েই চলেছে। কারণ আমদানি ব্যয় বাড়ছে। এতে কমছে রিজার্ভ। পরিস্থিতি দিন দিন কঠিন হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে সরকারকে কঠিন পরিস্থিতি, মোকাবিলা করতে হতে পারে। অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায়ও বিষয়টি উঠে এসেছে।

আগামী অর্থবছরের প্রধান চ্যালেঞ্জ হিসেবে যেসব বিষয়কে চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা এবং অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা; গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের মূল্যবৃদ্ধিজনিত বর্ধিত ভর্তুকির জন্য অর্থের সংস্থান; বৈদেশিক সহায়তার অর্থ ব্যবহার এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগের উচ্চ-অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহ নির্ধারিত সময়ে শেষ করা; শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের প্রকল্প যথাসময়ে বাস্তবায়ন; অভ্যন্তরীণ মূল্য সংযোজন কর সংগ্রহের পরিমাণ এবং ব্যক্তি আয়করদাতার সংখ্যা বৃদ্ধি করা এবং টাকার বিনিময় হার স্থিতিশীল এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক পর্যায়ে রাখা।

অর্থমন্ত্রী এক কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। চ্যালেঞ্জটা হচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রায় স্বস্তি আনার পাশাপাশি দেশের উন্নতি অব্যাহত রাখা। এই চ্যালেঞ্জ উত্তরণের আশাবাদ নিয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় মূল কৌশল হবে বিদ্যমান চাহিদার প্রবদ্ধি কমিয়ে সরবরাহ বৃদ্ধি করা। সে লক্ষ্যে আমদানিনির্ভরতা ও কম গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ব্যয় বন্ধ রাখা অথবা হ্রাস করা হবে। নিম্ন অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়নের গতি হ্রাস করা হবে এবং একই সময়ে উচ্চ ও মধ্যম অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করা হবে। জ্বালানি তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের বিক্রয়মূল্য পর্যায়ক্রমে ও স্বল্প আকারে সমন্বয় করা হবে। রাজস্ব আহরণ কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে কর সংগ্রহে অটোমেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে এবং মূল্য সংযোজন কর ও আয়করের নেট বৃদ্ধি করা হবে। বিলাসী ও অপ্রয়োজনীয় আমদানি নিরুৎসাহিত করা হবে এবং আন্ডার/ওভার ইনভয়েসিংয়ের বিষয়টি সতর্ক পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার বিনিময় হার প্রতিযোগিতামূলক রাখা হবে।

মহামারীতে কাজের সুযোগ কমায় মানুষের আয়ে টান পড়েছে। তার ওপর জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। মানুষ চায় স্বস্তি। তারা চায় কাজ। তেল-চাল কিনতে গিয়ে পকেট যেন গড়ের মাঠ হয়ে না পড়ে সেটিই সাধারণ মানুষের চাওয়া।

দেশের উন্নতির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে চাচ্ছে সরকার। উন্নতিকে হতে হবে টেকসই। আবার উন্নতির লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে নির্ধারিত সময়ে, ২০৪১ সালে। মহামারী উন্নতির গতি শ্লথ করেছে। এখন বোঝার ওপর শাকের আঁটি হয়ে হাজির হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। তারপরও ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ।

মানুষকে স্বস্তি দিতে হলে কর কমাতে হয়। আবার দেশকে এগিয়ে নিতে হলে রাজস্ব বাড়ানোর বিকল্প নেই। কর্মসংস্থান বাড়াতে হলে বেসরকারি খাতে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে গতিশীলতা আনতে হবে। মানুষকে স্বস্তি দেয়া আবার উন্নতির অগ্রযাত্রাকে বেগবান করা বিদ্যমান বাস্তবতায় কতটা সম্ভব সেই প্রশ্ন রয়েছে। তবে অর্থমন্ত্রী আশা ছাড়ছেন না। তিনি আশা করছেন, এবারের বাজেটে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জন করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখা সম্ভব হবে। মূল্যস্ফীতিও নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

নতুন অর্থবছরে আয়ের লক্ষ্য ধরা হচ্ছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা বেশি। সামগ্রিক কর ব্যবস্থার সক্ষমতা ও দক্ষতা বাড়ানো না গেলে এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা কঠিন হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। আয় বাড়াতে করদাতাদের আওতা বাড়ানো হচ্ছে। মধ্যবিত্তদের অনেকেই করজালের মধ্যে আসবেন। কেবল করের টাকার ওপর নির্ভর করে বাজেট দেয়া হয় না। এর মধ্যে ধারদেনার হিসাবও থাকে। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আহরণ করা না গেলে ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা আরও বাড়ে। তাতে বাড়ে সুদ ব্যয়।

দেশ থেকে পাচার হওয়া টাকা বাজেটে বৈধ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। কর দিয়ে এসব অর্থ বৈধ হয়ে গেলে তা নিয়ে কেউ প্রশ্ন তুলতে পারবে না। যদিও এই সুযোগ দেয়া কতটা নৈতিক সে প্রশ্ন উঠেছে। তবে অর্থমন্ত্রী বলছেন, এর ফলে অর্থনীতির মূল স্রোতে বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ বাড়বে, আয়কর রাজস্ব আহরণ বাড়বে।

করপোরেট কর আড়াই শতাংশ কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা করপোরেট কর কমানোর দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কর কমালে যদিও রাজস্ব কমে যাওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয় তবে এতে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়। দারিদ্র্য আর বেকারত্ব দূর করে অর্থনীতিকে সামনে এগিয়ে নিতে হলে কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে। বাজেটে উৎপাদনমুখী শিল্প খাতের কোম্পানির কর কমানো হয়েছে আড়াই শতাংশ। কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এর ইতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে বেশি কর্মসংস্থান হয় এসএমই খাতে কিন্তু সুবিধা বেশি পায় বড় শিল্পমালিকেরা।

ব্যক্তির করমুক্ত আয় সীমা বাড়ানো হয়নি। মূল্যস্ফিতীর চাপে পিষ্ট মানুষের জন্য করমুক্ত আয় সীমা বাড়ানো জরুরি বলে অনেকে মত দিয়েছিলেন। ব্যক্তির করমুক্ত আয় সীমা না বাড়ায় মধ্যবিত্ত, এমনকি নিম্নবিত্ত শ্রেণীর অনেক মানুষ বিপাকে পড়তে পারেন।

খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাল ও গম সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হয়েছে। সরকার আগামী অর্থবছরে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রতিবন্ধী ভাতা বাড়ানো হয়েছে।

করোনা স্বাস্থ্য খাতের সমস্যা-সংকটকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে। তবে স্বাস্থ্য খাত বাজেটে যথাযথ গুরুত্ব পায়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ রাখা হয়ছে স্বাস্থ্যের জন্য। স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ নিয়ে দেশে বরাবরই বিতর্ক দেখা দেয়। অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, স্বাস্থ্য খাতের প্রয়োজনের তুলনায় বরাদ্দ কম দেয়া হয়। আবার এটাও সত্য যে, বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য খাতের সক্ষমতায়ও ঘাটতি রয়েছে।

শিক্ষা খাতে টাকার অঙ্কে মোট বরাদ্দ বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের তুলনায় আসন্ন অর্থবছরে মোট ৯ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। টাকার অঙ্ক বাড়লেও শতাংশের হিসাবে শুভংকরের ফাঁকি রয়েই যায়।

বাজেট বাস্তবায়নে বরাবরই চ্যালেঞ্জ থাকে। মহামারী আর যুদ্ধ সেই চ্যালেঞ্জকে আরও বড় করে তুলেছে। চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার যে লক্ষ্য অর্থমন্ত্রী নির্ধারণ করেছেন তা বছর শেষে কতটা অর্জিত হয় সেটাই দেখার বিষয়। আমরা চাই, মূল্যস্ফীতির চাপে মানুষ আর পিষ্ট না হোক, তাদের জীবনে স্বস্তি ফিরে আসুক।

পথচারীবান্ধব ফুটপাতের আকাঙ্ক্ষা

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক দ্রুত সংস্কার করুন

সেতু নির্মাণ করে জনদুর্ভোগ লাঘব করুন

পাঠ্যবই ছাপার দরপত্র প্রসঙ্গে

নতুন শ্রমবাজারে নজর দিন

পেঁয়াজের দাম কেন বাড়ছে

নওগাঁয় সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

জন্মনিবন্ধনে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করুন

দ্রুত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংস্কার করুন

শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শিক্ষক সংগঠনগুলোর ভূমিকা

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

tab

সম্পাদকীয়

বাজেট : মানুষের স্বস্তি আর দেশের উন্নতির বাসনা

বৃহস্পতিবার, ০৯ জুন ২০২২

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের ধকল কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ভার বইবার চ্যালেঞ্জ নিতে হচ্ছে অর্থমন্ত্রীকে। মহামারী আর যুদ্ধের জোড়া আঘাতে বিশ্বজুড়েই অর্থনৈতিক মন্দার পূর্বাভাস মিলছে। দেশে মূল্যস্ফীতির রেখাটি ঊর্ধ্বমুখী। ডলারের দাম বেড়েই চলেছে। কারণ আমদানি ব্যয় বাড়ছে। এতে কমছে রিজার্ভ। পরিস্থিতি দিন দিন কঠিন হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে সরকারকে কঠিন পরিস্থিতি, মোকাবিলা করতে হতে পারে। অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায়ও বিষয়টি উঠে এসেছে।

আগামী অর্থবছরের প্রধান চ্যালেঞ্জ হিসেবে যেসব বিষয়কে চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা এবং অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা; গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের মূল্যবৃদ্ধিজনিত বর্ধিত ভর্তুকির জন্য অর্থের সংস্থান; বৈদেশিক সহায়তার অর্থ ব্যবহার এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগের উচ্চ-অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহ নির্ধারিত সময়ে শেষ করা; শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের প্রকল্প যথাসময়ে বাস্তবায়ন; অভ্যন্তরীণ মূল্য সংযোজন কর সংগ্রহের পরিমাণ এবং ব্যক্তি আয়করদাতার সংখ্যা বৃদ্ধি করা এবং টাকার বিনিময় হার স্থিতিশীল এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক পর্যায়ে রাখা।

অর্থমন্ত্রী এক কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। চ্যালেঞ্জটা হচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রায় স্বস্তি আনার পাশাপাশি দেশের উন্নতি অব্যাহত রাখা। এই চ্যালেঞ্জ উত্তরণের আশাবাদ নিয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় মূল কৌশল হবে বিদ্যমান চাহিদার প্রবদ্ধি কমিয়ে সরবরাহ বৃদ্ধি করা। সে লক্ষ্যে আমদানিনির্ভরতা ও কম গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ব্যয় বন্ধ রাখা অথবা হ্রাস করা হবে। নিম্ন অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়নের গতি হ্রাস করা হবে এবং একই সময়ে উচ্চ ও মধ্যম অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করা হবে। জ্বালানি তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের বিক্রয়মূল্য পর্যায়ক্রমে ও স্বল্প আকারে সমন্বয় করা হবে। রাজস্ব আহরণ কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে কর সংগ্রহে অটোমেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে এবং মূল্য সংযোজন কর ও আয়করের নেট বৃদ্ধি করা হবে। বিলাসী ও অপ্রয়োজনীয় আমদানি নিরুৎসাহিত করা হবে এবং আন্ডার/ওভার ইনভয়েসিংয়ের বিষয়টি সতর্ক পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার বিনিময় হার প্রতিযোগিতামূলক রাখা হবে।

মহামারীতে কাজের সুযোগ কমায় মানুষের আয়ে টান পড়েছে। তার ওপর জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। মানুষ চায় স্বস্তি। তারা চায় কাজ। তেল-চাল কিনতে গিয়ে পকেট যেন গড়ের মাঠ হয়ে না পড়ে সেটিই সাধারণ মানুষের চাওয়া।

দেশের উন্নতির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে চাচ্ছে সরকার। উন্নতিকে হতে হবে টেকসই। আবার উন্নতির লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে নির্ধারিত সময়ে, ২০৪১ সালে। মহামারী উন্নতির গতি শ্লথ করেছে। এখন বোঝার ওপর শাকের আঁটি হয়ে হাজির হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। তারপরও ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ।

মানুষকে স্বস্তি দিতে হলে কর কমাতে হয়। আবার দেশকে এগিয়ে নিতে হলে রাজস্ব বাড়ানোর বিকল্প নেই। কর্মসংস্থান বাড়াতে হলে বেসরকারি খাতে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে গতিশীলতা আনতে হবে। মানুষকে স্বস্তি দেয়া আবার উন্নতির অগ্রযাত্রাকে বেগবান করা বিদ্যমান বাস্তবতায় কতটা সম্ভব সেই প্রশ্ন রয়েছে। তবে অর্থমন্ত্রী আশা ছাড়ছেন না। তিনি আশা করছেন, এবারের বাজেটে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জন করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখা সম্ভব হবে। মূল্যস্ফীতিও নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

নতুন অর্থবছরে আয়ের লক্ষ্য ধরা হচ্ছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা বেশি। সামগ্রিক কর ব্যবস্থার সক্ষমতা ও দক্ষতা বাড়ানো না গেলে এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা কঠিন হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। আয় বাড়াতে করদাতাদের আওতা বাড়ানো হচ্ছে। মধ্যবিত্তদের অনেকেই করজালের মধ্যে আসবেন। কেবল করের টাকার ওপর নির্ভর করে বাজেট দেয়া হয় না। এর মধ্যে ধারদেনার হিসাবও থাকে। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আহরণ করা না গেলে ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা আরও বাড়ে। তাতে বাড়ে সুদ ব্যয়।

দেশ থেকে পাচার হওয়া টাকা বাজেটে বৈধ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। কর দিয়ে এসব অর্থ বৈধ হয়ে গেলে তা নিয়ে কেউ প্রশ্ন তুলতে পারবে না। যদিও এই সুযোগ দেয়া কতটা নৈতিক সে প্রশ্ন উঠেছে। তবে অর্থমন্ত্রী বলছেন, এর ফলে অর্থনীতির মূল স্রোতে বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ বাড়বে, আয়কর রাজস্ব আহরণ বাড়বে।

করপোরেট কর আড়াই শতাংশ কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা করপোরেট কর কমানোর দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কর কমালে যদিও রাজস্ব কমে যাওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয় তবে এতে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়। দারিদ্র্য আর বেকারত্ব দূর করে অর্থনীতিকে সামনে এগিয়ে নিতে হলে কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে। বাজেটে উৎপাদনমুখী শিল্প খাতের কোম্পানির কর কমানো হয়েছে আড়াই শতাংশ। কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এর ইতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে বেশি কর্মসংস্থান হয় এসএমই খাতে কিন্তু সুবিধা বেশি পায় বড় শিল্পমালিকেরা।

ব্যক্তির করমুক্ত আয় সীমা বাড়ানো হয়নি। মূল্যস্ফিতীর চাপে পিষ্ট মানুষের জন্য করমুক্ত আয় সীমা বাড়ানো জরুরি বলে অনেকে মত দিয়েছিলেন। ব্যক্তির করমুক্ত আয় সীমা না বাড়ায় মধ্যবিত্ত, এমনকি নিম্নবিত্ত শ্রেণীর অনেক মানুষ বিপাকে পড়তে পারেন।

খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাল ও গম সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হয়েছে। সরকার আগামী অর্থবছরে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রতিবন্ধী ভাতা বাড়ানো হয়েছে।

করোনা স্বাস্থ্য খাতের সমস্যা-সংকটকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে। তবে স্বাস্থ্য খাত বাজেটে যথাযথ গুরুত্ব পায়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ রাখা হয়ছে স্বাস্থ্যের জন্য। স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ নিয়ে দেশে বরাবরই বিতর্ক দেখা দেয়। অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, স্বাস্থ্য খাতের প্রয়োজনের তুলনায় বরাদ্দ কম দেয়া হয়। আবার এটাও সত্য যে, বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য খাতের সক্ষমতায়ও ঘাটতি রয়েছে।

শিক্ষা খাতে টাকার অঙ্কে মোট বরাদ্দ বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের তুলনায় আসন্ন অর্থবছরে মোট ৯ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। টাকার অঙ্ক বাড়লেও শতাংশের হিসাবে শুভংকরের ফাঁকি রয়েই যায়।

বাজেট বাস্তবায়নে বরাবরই চ্যালেঞ্জ থাকে। মহামারী আর যুদ্ধ সেই চ্যালেঞ্জকে আরও বড় করে তুলেছে। চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার যে লক্ষ্য অর্থমন্ত্রী নির্ধারণ করেছেন তা বছর শেষে কতটা অর্জিত হয় সেটাই দেখার বিষয়। আমরা চাই, মূল্যস্ফীতির চাপে মানুষ আর পিষ্ট না হোক, তাদের জীবনে স্বস্তি ফিরে আসুক।

back to top