alt

সম্পাদকীয়

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

: বুধবার, ১৫ জুন ২০২২

বন্যার কারণে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার ৩৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। বন্যার পানিতে নলকূপ তলিয়ে গেছে। মিলছে না বিশুদ্ধ পানি। রান্নাঘর ডুবে যাওয়ায় খাবারের ব্যবস্থা করা কঠিন হয়ে পড়েছে। গবাদিপশু-পাখির আশ্রয় ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। রৌমারীর বন্যার্ত মানুষরা অভিযোগ করেছেন যে, তারা এখনো কোন ত্রাণ বা সাহায্য পাননি। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেশী দেশ ভারতের আসাম রাজ্য থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ও অতিবৃষ্টির কারণে রৌমারী উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে দেখা দিয়েছে আকস্মিক বন্যা। এতে ৪৯টি গ্রামের বহু ফসল তলিয়ে গেছে, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। অনেক কাঁচাপাকা সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় রৌমারীর মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। উপজেলার ৩৭টি বিদ্যালয় পানিতে ডুবে গেছে। এসব বিদ্যালয়ে এখন পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

বন্যা মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আগাম প্রস্তুতি ছিল কিনা সেটা একটা প্রশ্ন। আগাম ব্যবস্থা নেয়া হলে রৌমারীর মানুষকে খাবার ও পানির কষ্ট করতে হতো না। বন্যাদুর্গত মানুষের মধ্যে দ্রুত ত্রাণ বিতরণ করতে হবে। ত্রাণ বিতরণে যে কোন অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে শক্ত হাতে। রৌমারির মানুষ সুপেয় পানি পাচ্ছে না। তাদের পানি বিশুদ্ধকরণ সরঞ্জাম সরবরাহ করতে হবে। এ সময় পানিবাহী রোগের শঙ্কা থাকে। ডায়রিয়ার মতো পানিবাহিত রোগের প্রাথমিক চিকিৎসাসামগ্রীর পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করাও জরুরি। গবাদিপশু-পাখির কথা ভুললে চলবে না। তাদের আশ্রয় ও খাবার ব্যবস্থা করা দরকার।

বন্যার্তদের সহযোগিতায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগও দরকার। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ যেন ত্রাণ পান সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও সংগঠন বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াবে সেটা আমাদের আশা।

বন্যাপরবর্তী দ্রুত পুনর্বাসনের প্রস্তুতি নিতে হবে এখনই। যেসব মানুষের ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে হবে। কৃষক ও খামারিদের ক্ষতি নিরূপণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

শিল্পবর্জ্যে বিপন্ন পরিবেশ

বস্তিবাসীর সমস্যার টেকসই সমাধান করতে হবে

শিশু নিপীড়ন রোধের দায়িত্ব নিত হবে সমাজকে

বিজেপির দুই নেতার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ প্রসঙ্গে

অনুকরণীয় উদাহরণ

টিলা ধসে মৃত্যু প্রসঙ্গে

বাজেট : মানুষের স্বস্তি আর দেশের উন্নতির বাসনা

খাল অবৈধ দখলমুক্ত করুন

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

‘ঢলন’ প্রথা থেকে আমচাষিদের মুক্তি দিতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

বুধবার, ১৫ জুন ২০২২

বন্যার কারণে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার ৩৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। বন্যার পানিতে নলকূপ তলিয়ে গেছে। মিলছে না বিশুদ্ধ পানি। রান্নাঘর ডুবে যাওয়ায় খাবারের ব্যবস্থা করা কঠিন হয়ে পড়েছে। গবাদিপশু-পাখির আশ্রয় ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। রৌমারীর বন্যার্ত মানুষরা অভিযোগ করেছেন যে, তারা এখনো কোন ত্রাণ বা সাহায্য পাননি। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেশী দেশ ভারতের আসাম রাজ্য থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ও অতিবৃষ্টির কারণে রৌমারী উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে দেখা দিয়েছে আকস্মিক বন্যা। এতে ৪৯টি গ্রামের বহু ফসল তলিয়ে গেছে, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। অনেক কাঁচাপাকা সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় রৌমারীর মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। উপজেলার ৩৭টি বিদ্যালয় পানিতে ডুবে গেছে। এসব বিদ্যালয়ে এখন পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

বন্যা মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আগাম প্রস্তুতি ছিল কিনা সেটা একটা প্রশ্ন। আগাম ব্যবস্থা নেয়া হলে রৌমারীর মানুষকে খাবার ও পানির কষ্ট করতে হতো না। বন্যাদুর্গত মানুষের মধ্যে দ্রুত ত্রাণ বিতরণ করতে হবে। ত্রাণ বিতরণে যে কোন অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে শক্ত হাতে। রৌমারির মানুষ সুপেয় পানি পাচ্ছে না। তাদের পানি বিশুদ্ধকরণ সরঞ্জাম সরবরাহ করতে হবে। এ সময় পানিবাহী রোগের শঙ্কা থাকে। ডায়রিয়ার মতো পানিবাহিত রোগের প্রাথমিক চিকিৎসাসামগ্রীর পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করাও জরুরি। গবাদিপশু-পাখির কথা ভুললে চলবে না। তাদের আশ্রয় ও খাবার ব্যবস্থা করা দরকার।

বন্যার্তদের সহযোগিতায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগও দরকার। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ যেন ত্রাণ পান সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও সংগঠন বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াবে সেটা আমাদের আশা।

বন্যাপরবর্তী দ্রুত পুনর্বাসনের প্রস্তুতি নিতে হবে এখনই। যেসব মানুষের ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে হবে। কৃষক ও খামারিদের ক্ষতি নিরূপণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top