alt

সম্পাদকীয়

ঈদযাত্রায় রেকর্ড দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে

: বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই ২০২২

এবারের ঈদযাত্রায় দেশের সড়ক-মহাসড়কে ৩১৯টি দুর্ঘটনায় ৩৯৮ জন নিহত ও ৭৭৪ জন আহত হয়েছেন। গত ৭ বছরের ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির সর্বোচ্চ রেকর্ড এটি। সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও মৃত্যু হয়েছে মোটরসাইকেলে। এতে ১১৩টি দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৩১ জন। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

অনাকাক্সিক্ষতভাবে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ল, রেকর্ড হলো। কিসের মাশুল গুনতে হলো দুর্ঘটনা কবলিতদের? দেশের সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেল ও ইজিবাইকের ব্যাপক ব্যবহার হয়ে থাকে। এ ছাড়া উল্টো পথে যানবাহন চালানো, সড়কে চাঁদাবাজি, পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহনও করা হয়ে থাকে। ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অদক্ষ চালক, বেপরোয়া গতি, মহাসড়কে রোড সাইন এবং সড়কবাতি না থাকা-এমন সব অব্যবস্থাপনা রয়েছে সড়কে।

এত মানুষের প্রাণহানি, অঙ্গহানি এবং আর্থিক ক্ষতি হলো-এর দায়টা এখন কে নেবে। দেশের সড়কে অব্যস্থাপনা আছে, এটা সবাই জানে। ঈদের সময় সেটা বেড়ে যে আরও কয়েকগুণ হয়ে যায় সেটাও কারও অজানা নয়। জেনেশুনে এমন গা ছাড়া ভাব দেখিয়ে কর্তৃপক্ষ বসে থাকল কীভাবে-সেটা একটা প্রশ্ন। বছর বছর যে সড়ক দুর্ঘটনার রেকর্ড হচ্ছে এ অবস্থায় সরকার এর লাগাম টানবে কীভাবে?

সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে কাগজে-কলমে নানা পরিকল্পনা রয়েছে। জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ঘোষণা করে ২০১৫ সালে। সে বছরই সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ৫ হাজার তিনজন। ১৫ বছর মেয়াদি এসডিজি অর্জনে ২০৩০ সালে সরকার সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ শতাংশ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এর আগে জাতিসংঘ ২০১১ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে এক দশকে সারা বিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি অর্ধেক কমিয়ে আনার ঘোষণা দেয়। বাংলাদেশ এ ঘোষণাপত্রে সই করেছে।

এর বাইরে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকার ১৯৯৭ সাল থেকে ৩ বছর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনা করে আসছে। এর মধ্যে সাতটি পরিকল্পনা হয়েছে। সর্বশেষ পরিকল্পনায় ২০২৪ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে।

বাস্তবতা হচ্ছে, ২০২০ সালের লক্ষ্যমাত্রাই সরকার অর্জন করতে পারেনি। সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে পারেনি, বরং বাড়ছে। আর বাকি থাকল ২০২৪ এবং ২০৩০ সাল; সে লক্ষ্য কতটা অর্জন করতে পারবে সেটা একটা প্রশ্ন।

কার লক্ষ্য পূরণে কী কাজ করেছে- আমরা সেটা জানতে চাই। এক এক সময় এক একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করাই সার। একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে দিলেই আপনা আপনি পূরণ হয়ে যাবে না। লক্ষ্য পূরণে কাজও করতে হয়।

রাজধানীর পুকুরগুলো সংরক্ষণ করুন

ফ্যামিলি কার্ড বিতরণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ আমলে নিন

স্লুইস গেট সংস্কার করুন

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসের কারণ কী

পদ্মা সেতুর কাছে বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে

নিত্যপণ্যের দাম : সাধারণ মানুষের কথা ভাবতে হবে

মহাসড়ক দখলমুক্ত করুন

পরিবহন শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে

সরকারি গাছ বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

বিএডিসির গুদাম সংকট

গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি বোঝার উপর শাকের আঁটি

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর এই চাপ মানুষ কি সামলাতে পারবে

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

সরকারি কর্তাব্যক্তিদের বিদেশ সফর প্রসঙ্গে

ওয়াশ প্লান্ট ব্যবহারে রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ

মহাসড়ক প্রশস্ত করুন

হাসি ফুটুক কৃষকের মুখে

খাল রক্ষায় চাই জনসচেতনতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ প্রসঙ্গে

বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কঠোর বিচার করুন

বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে

মানবপাচার বন্ধে নতুন চ্যালেঞ্জ

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে নজরদারি বাড়ান

চাই সুরক্ষিত রেলক্রসিং

হেপাটাইটিস প্রতিরোধে তৎপরতা বাড়ান

পুলিশের গুলিতে শিশু মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক

এনআইডি সংশোধন প্রসঙ্গে

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

পানিতে ডুবে মৃত্যু রোধে সচেতনতা বাড়াতে হবে

রাজধানীর প্রবেশমুখের যানজট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

পর্যটকদের এই করুণ মৃত্যু কাম্য নয়

কারাগারে নির্যাতনের অভিযোগ আমলে নিন

tab

সম্পাদকীয়

ঈদযাত্রায় রেকর্ড দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে

বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই ২০২২

এবারের ঈদযাত্রায় দেশের সড়ক-মহাসড়কে ৩১৯টি দুর্ঘটনায় ৩৯৮ জন নিহত ও ৭৭৪ জন আহত হয়েছেন। গত ৭ বছরের ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির সর্বোচ্চ রেকর্ড এটি। সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও মৃত্যু হয়েছে মোটরসাইকেলে। এতে ১১৩টি দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৩১ জন। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

অনাকাক্সিক্ষতভাবে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ল, রেকর্ড হলো। কিসের মাশুল গুনতে হলো দুর্ঘটনা কবলিতদের? দেশের সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেল ও ইজিবাইকের ব্যাপক ব্যবহার হয়ে থাকে। এ ছাড়া উল্টো পথে যানবাহন চালানো, সড়কে চাঁদাবাজি, পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহনও করা হয়ে থাকে। ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অদক্ষ চালক, বেপরোয়া গতি, মহাসড়কে রোড সাইন এবং সড়কবাতি না থাকা-এমন সব অব্যবস্থাপনা রয়েছে সড়কে।

এত মানুষের প্রাণহানি, অঙ্গহানি এবং আর্থিক ক্ষতি হলো-এর দায়টা এখন কে নেবে। দেশের সড়কে অব্যস্থাপনা আছে, এটা সবাই জানে। ঈদের সময় সেটা বেড়ে যে আরও কয়েকগুণ হয়ে যায় সেটাও কারও অজানা নয়। জেনেশুনে এমন গা ছাড়া ভাব দেখিয়ে কর্তৃপক্ষ বসে থাকল কীভাবে-সেটা একটা প্রশ্ন। বছর বছর যে সড়ক দুর্ঘটনার রেকর্ড হচ্ছে এ অবস্থায় সরকার এর লাগাম টানবে কীভাবে?

সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে কাগজে-কলমে নানা পরিকল্পনা রয়েছে। জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ঘোষণা করে ২০১৫ সালে। সে বছরই সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ৫ হাজার তিনজন। ১৫ বছর মেয়াদি এসডিজি অর্জনে ২০৩০ সালে সরকার সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ শতাংশ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এর আগে জাতিসংঘ ২০১১ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে এক দশকে সারা বিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি অর্ধেক কমিয়ে আনার ঘোষণা দেয়। বাংলাদেশ এ ঘোষণাপত্রে সই করেছে।

এর বাইরে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকার ১৯৯৭ সাল থেকে ৩ বছর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনা করে আসছে। এর মধ্যে সাতটি পরিকল্পনা হয়েছে। সর্বশেষ পরিকল্পনায় ২০২৪ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে।

বাস্তবতা হচ্ছে, ২০২০ সালের লক্ষ্যমাত্রাই সরকার অর্জন করতে পারেনি। সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে পারেনি, বরং বাড়ছে। আর বাকি থাকল ২০২৪ এবং ২০৩০ সাল; সে লক্ষ্য কতটা অর্জন করতে পারবে সেটা একটা প্রশ্ন।

কার লক্ষ্য পূরণে কী কাজ করেছে- আমরা সেটা জানতে চাই। এক এক সময় এক একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করাই সার। একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে দিলেই আপনা আপনি পূরণ হয়ে যাবে না। লক্ষ্য পূরণে কাজও করতে হয়।

back to top