alt

সম্পাদকীয়

অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রসঙ্গে

: রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (তিতাস গ্যাস) প্রায় ৫০ হাজার অবৈধ সংযোগ রয়েছে বলে জানা গেছে। এসব সংযোগ দেয়ার বিনিময়ে প্রতি গ্রাহকের কাছ থেকে গড়ে ৩৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা করে নেয়া হয়েছে। সেখানে এখনও অবৈধভাবে সংযোগ দেয়া হচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতাকর্মী এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

শুধু সোনারগাঁয়েই নয় ঢাকা ও আশপাশের চার জেলায় তিতাস গ্যাসের প্রায় ২৪৫ কিলোমিটার অবৈধ পাইপলাইন রয়েছে বলে জানা গেছে। এ পাইপলাইন থেকে হাজার হাজার গ্রাহককে অবৈধভাবে সংযোগ দেয়া হয়েছে। যখন যে দল ক্ষমতায় আসে সেই দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা এই অবৈধ সংযোগ বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত হয়। তারা তিতাসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে যোগসাজশ করে একাধিক চক্রের মাধ্যমে এ বাণিজ্য চালিয়ে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এসব নিয়ে গণমাধ্যমে যখন প্রতিবেদন হয়, তখন কিছু অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়; কিন্তু কিছুদিন পর সেগুলো আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে যায়। যেমনটা হয়েছে সোনারগাঁয়ে, এখানে গত এক বছরে ১১টি অভিযান পরিচালনা করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। এতে আবাসিক, রেস্টুরেন্ট, বেকারি, শিল্পসহ প্রায় ১৫ হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। কিন্তু রাতের আঁধারে পুনরায় এসব সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়া তিতাসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে মিটার টেম্পারিং, কম গ্যাস সরবরাহ করেও সিস্টেম লস দেখানো এবং বাণিজ্যিক গ্রাহককে শিল্প শ্রেণীর গ্রাহক হিসেবে সংযোগ দেয়ার অভিযোগ প্রায়ই পাওয়া যায়। এর আগে এমন ২২টি বিষয়কে তিতাসে দুর্নীতির উৎস বলে চিহ্নিত করেছিল দুদক। এসব দুর্নীতি রোধে ১২ দফা সুপারিশও করেছিল তারা। কিন্তু সেসব সুপারিশ বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলে মনে হয় না। যদি বাস্তবায়নই করা হতো তাহলে এখনও এমন হাজার হাজার অবৈধ সংযোগের অস্তিত্ব কীভাবে পাওয়া যায়।

এসব সংযোগের বিনিময়ে আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে একটি গোষ্ঠী। এর ফলে সরকার যেমন বিপুল অঙ্কের রাজস্ব হারাচ্ছে, তেমনি বৈধ গ্রাহকরা নিয়মিত গ্যাস পাচ্ছেন না। গ্যাসের অভাবে ভুগছে শিল্পকলকারখানা। আবাসিক গ্যাসেও চলছে তীব্র সংকট। গত কয়েক বছর ধরে গ্যাস সংকটের কথা বলে বন্ধ রাখা হয়েছে বৈধ গ্যাস সংযোগ।

তিতাস গ্যাসের এ অবৈধ সংযোগ দেয়া বন্ধ করতে হবে। যারাই এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। সে যে চক্র বা দলেরই হোক না কেন। তিতাসের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে তার একটা সুরাহা করতে হবে।

পাহাড়ধস : সতর্ক হতে হবে

রোহিঙ্গা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে হাল ছাড়লে চলবে না

শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সেনাদের আত্মত্যাগ

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

জাতীয় গ্রিড বারবার বিপর্যয়ের কারণ কী

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

কেঁচো সারের ব্যবহার বাড়াতে হবে

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার নামে হরিলুট বন্ধ করুন

পর্যটকদের নিরাপত্তায় কোন ছাড় নয়

কন্যাশিশু নির্যাতনের ভয়াবহ চিত্র

মুহিবুল্লাহ হত্যার সুষ্ঠু বিচার করা জরুরি

অপ্রয়োজনীয় সি-সেকশন প্রসঙ্গে

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

নদী খননে জোর দিন

জ্বালানি নিরাপত্তার স্বার্থে তেল পরিশোধনের সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

বাল্যবিয়ে বন্ধে কাজীদের ভূমিকা

নদী দখল-দূষণ বন্ধে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল হতে হবে

পাহাড় কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিয়মের মধ্যে আনা যাচ্ছে না কেন

সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরা কঠোরভাবে বন্ধ করুন

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

বিদ্যালয়ে কেন ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই

কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভোগান্তি কমবে কবে

বন্যপ্রাণীর খাবারের সংকট দূর করতে হবে

রাস্তাটি সংস্কার করুন

মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের পর্যাপ্ত সহায়তা দিন

টিসিবির পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষককে কেন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে

শিশুর সুরক্ষায় সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে

রুখতে হবে বাল্যবিয়ে

দ্রুত রাস্তা নির্মাণ করুন

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ বন্ধ করুন

tab

সম্পাদকীয়

অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রসঙ্গে

রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (তিতাস গ্যাস) প্রায় ৫০ হাজার অবৈধ সংযোগ রয়েছে বলে জানা গেছে। এসব সংযোগ দেয়ার বিনিময়ে প্রতি গ্রাহকের কাছ থেকে গড়ে ৩৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা করে নেয়া হয়েছে। সেখানে এখনও অবৈধভাবে সংযোগ দেয়া হচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতাকর্মী এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

শুধু সোনারগাঁয়েই নয় ঢাকা ও আশপাশের চার জেলায় তিতাস গ্যাসের প্রায় ২৪৫ কিলোমিটার অবৈধ পাইপলাইন রয়েছে বলে জানা গেছে। এ পাইপলাইন থেকে হাজার হাজার গ্রাহককে অবৈধভাবে সংযোগ দেয়া হয়েছে। যখন যে দল ক্ষমতায় আসে সেই দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা এই অবৈধ সংযোগ বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত হয়। তারা তিতাসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে যোগসাজশ করে একাধিক চক্রের মাধ্যমে এ বাণিজ্য চালিয়ে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এসব নিয়ে গণমাধ্যমে যখন প্রতিবেদন হয়, তখন কিছু অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়; কিন্তু কিছুদিন পর সেগুলো আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে যায়। যেমনটা হয়েছে সোনারগাঁয়ে, এখানে গত এক বছরে ১১টি অভিযান পরিচালনা করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। এতে আবাসিক, রেস্টুরেন্ট, বেকারি, শিল্পসহ প্রায় ১৫ হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। কিন্তু রাতের আঁধারে পুনরায় এসব সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়া তিতাসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে মিটার টেম্পারিং, কম গ্যাস সরবরাহ করেও সিস্টেম লস দেখানো এবং বাণিজ্যিক গ্রাহককে শিল্প শ্রেণীর গ্রাহক হিসেবে সংযোগ দেয়ার অভিযোগ প্রায়ই পাওয়া যায়। এর আগে এমন ২২টি বিষয়কে তিতাসে দুর্নীতির উৎস বলে চিহ্নিত করেছিল দুদক। এসব দুর্নীতি রোধে ১২ দফা সুপারিশও করেছিল তারা। কিন্তু সেসব সুপারিশ বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলে মনে হয় না। যদি বাস্তবায়নই করা হতো তাহলে এখনও এমন হাজার হাজার অবৈধ সংযোগের অস্তিত্ব কীভাবে পাওয়া যায়।

এসব সংযোগের বিনিময়ে আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে একটি গোষ্ঠী। এর ফলে সরকার যেমন বিপুল অঙ্কের রাজস্ব হারাচ্ছে, তেমনি বৈধ গ্রাহকরা নিয়মিত গ্যাস পাচ্ছেন না। গ্যাসের অভাবে ভুগছে শিল্পকলকারখানা। আবাসিক গ্যাসেও চলছে তীব্র সংকট। গত কয়েক বছর ধরে গ্যাস সংকটের কথা বলে বন্ধ রাখা হয়েছে বৈধ গ্যাস সংযোগ।

তিতাস গ্যাসের এ অবৈধ সংযোগ দেয়া বন্ধ করতে হবে। যারাই এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। সে যে চক্র বা দলেরই হোক না কেন। তিতাসের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে তার একটা সুরাহা করতে হবে।

back to top