alt

সম্পাদকীয়

শিশুর সুরক্ষায় সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে

: বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

শিশুদের বড় একটি অংশ অরক্ষিত। জাতীয় গৃহস্থালি জরিপের তথ্য মতে, ১৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের প্রায় ৮৯ শতাংশ বাড়িতে সহিংসতার শিকার হয়। সংখ্যার হিসাবে যা প্রায় সাড়ে চার কোটি। ঘরের বাইরেও শিশুরা মানসিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। শিশুশ্রমে লঙ্ঘিত হচ্ছে অধিকার।

জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদে শিশুর সর্বোত্তম স্বার্থ রক্ষায় ৫৪টি ধারা রয়েছে। এর মধ্যে সরাসরি শিশুর সুরক্ষাবিষয়ক ধারা রয়েছে ২৪টি। সেখানে একটি ধারায় বলা হয়েছে ‘শরিক রাষ্ট্রসমূহ অর্থনৈতিক শোষণ থেকে শিশুর অধিকারকে রক্ষা করবে এবং শিশুর শিক্ষায় ব্যাঘাত সৃষ্টিকারী কিংবা তার স্বাস্থ্য অথবা শারীরিক, মানসিক, আত্মিক, নৈতিক বা সামাজিক বিকাশের জন্য ক্ষতিকর কাজ করানো না হয়, সে ব্যবস্থা নেবে।’

জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদে স্বাক্ষরকারী দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। কিন্তু দেশে এই সনদের বাস্তবায়ন দেখা যায় না। এখনও দেশের প্রতি পাঁচজন শিশুর মধ্যে একজন প্রাথমিক বিদ্যালয় শেষ করে না। প্রায় অর্ধেক শিশুর জন্মনিবন্ধন নেই।

তাই শিশু সুরক্ষার প্রয়োজন ও গুরুত্ব অস্বীকার করার উপায় নেই। দেশের নীতিনির্ধারকরাও এ বিষয়ে ওয়াকিবহাল, তারা কাজ করছেন। পাশাপাশি দেশে-বিদেশের অনেক সংগঠন ও গোষ্ঠী শিশু অধিকার নিয়ে কাজ করছে। গত সোমবার ঢাকায় হয়ে গেল ‘বাংলাদেশে শিশু সুরক্ষাবিষয়ক জাতীয় সম্মেলন।’ সম্মেলনে শিশু সুরক্ষা পরিষেবা জোরদার করা এবং সমাজকর্মীর সংখ্যা ২০০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার। কিন্তু এটা সমস্যা অনুযায়ী যথেষ্ট কিনা- সেই প্রশ্ন করা যেতে পারে।

শিশু সুরক্ষার প্রশ্নে আরও বিস্তৃত পরিসরে কাজ করা ও নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন। কারণ নিপীড়নের শিকার শিশু নানা মানসিক ট্রমা নিয়ে বেড়ে ওঠে। তাদের মনোবৈকল্য তৈরি হয়, বিকাশ হয় বাধাগ্রস্ত। আর এর পরিণতি ভোগ করতে হয় দেশ ও জাতিকেই।

তাই শিশুদের সুরক্ষায় বিরতিহীনভাবে কাজ করতে হবে। সরকারের পাশাপাশি দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংগঠন ও এনজিও কাজ করছে। তাদের কাজের আওতা বাড়াতে হবে, নতুন নতুন প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করতে হবে। লোক দেখানো কিংবা মৌখিক প্রতিশ্রুতি নয়, শিশু সুরক্ষায় অবশ্যই কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

শিশু অধিকার সুরক্ষা ও তাদের নিপীড়নের হাত থেকে রক্ষার জন্য শুধু অঙ্গীকার নয়, সুনির্দিষ্ট আইনও রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর প্রয়োগ ও প্রতিফলন খুব একট দেখা যায় না। আইনের যথাযথ প্রয়োগ ঘটাতে হবে। শিশু সুরক্ষার বিষয়টি সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করতে হবে। শিশুদের সুরক্ষায় পরিবার, শিক্ষক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, এনজিও ও জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে হবে। আমরা চাই প্রতিটি শিশুই সুরক্ষিত থাকুক।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে হাল ছাড়লে চলবে না

শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সেনাদের আত্মত্যাগ

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

জাতীয় গ্রিড বারবার বিপর্যয়ের কারণ কী

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

কেঁচো সারের ব্যবহার বাড়াতে হবে

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার নামে হরিলুট বন্ধ করুন

পর্যটকদের নিরাপত্তায় কোন ছাড় নয়

কন্যাশিশু নির্যাতনের ভয়াবহ চিত্র

মুহিবুল্লাহ হত্যার সুষ্ঠু বিচার করা জরুরি

অপ্রয়োজনীয় সি-সেকশন প্রসঙ্গে

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

নদী খননে জোর দিন

জ্বালানি নিরাপত্তার স্বার্থে তেল পরিশোধনের সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

বাল্যবিয়ে বন্ধে কাজীদের ভূমিকা

নদী দখল-দূষণ বন্ধে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল হতে হবে

পাহাড় কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিয়মের মধ্যে আনা যাচ্ছে না কেন

সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরা কঠোরভাবে বন্ধ করুন

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

বিদ্যালয়ে কেন ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই

কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভোগান্তি কমবে কবে

বন্যপ্রাণীর খাবারের সংকট দূর করতে হবে

রাস্তাটি সংস্কার করুন

মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের পর্যাপ্ত সহায়তা দিন

টিসিবির পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষককে কেন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে

রুখতে হবে বাল্যবিয়ে

দ্রুত রাস্তা নির্মাণ করুন

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ বন্ধ করুন

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ

অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রসঙ্গে

নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

শিশুর সুরক্ষায় সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে

বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

শিশুদের বড় একটি অংশ অরক্ষিত। জাতীয় গৃহস্থালি জরিপের তথ্য মতে, ১৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের প্রায় ৮৯ শতাংশ বাড়িতে সহিংসতার শিকার হয়। সংখ্যার হিসাবে যা প্রায় সাড়ে চার কোটি। ঘরের বাইরেও শিশুরা মানসিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। শিশুশ্রমে লঙ্ঘিত হচ্ছে অধিকার।

জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদে শিশুর সর্বোত্তম স্বার্থ রক্ষায় ৫৪টি ধারা রয়েছে। এর মধ্যে সরাসরি শিশুর সুরক্ষাবিষয়ক ধারা রয়েছে ২৪টি। সেখানে একটি ধারায় বলা হয়েছে ‘শরিক রাষ্ট্রসমূহ অর্থনৈতিক শোষণ থেকে শিশুর অধিকারকে রক্ষা করবে এবং শিশুর শিক্ষায় ব্যাঘাত সৃষ্টিকারী কিংবা তার স্বাস্থ্য অথবা শারীরিক, মানসিক, আত্মিক, নৈতিক বা সামাজিক বিকাশের জন্য ক্ষতিকর কাজ করানো না হয়, সে ব্যবস্থা নেবে।’

জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদে স্বাক্ষরকারী দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। কিন্তু দেশে এই সনদের বাস্তবায়ন দেখা যায় না। এখনও দেশের প্রতি পাঁচজন শিশুর মধ্যে একজন প্রাথমিক বিদ্যালয় শেষ করে না। প্রায় অর্ধেক শিশুর জন্মনিবন্ধন নেই।

তাই শিশু সুরক্ষার প্রয়োজন ও গুরুত্ব অস্বীকার করার উপায় নেই। দেশের নীতিনির্ধারকরাও এ বিষয়ে ওয়াকিবহাল, তারা কাজ করছেন। পাশাপাশি দেশে-বিদেশের অনেক সংগঠন ও গোষ্ঠী শিশু অধিকার নিয়ে কাজ করছে। গত সোমবার ঢাকায় হয়ে গেল ‘বাংলাদেশে শিশু সুরক্ষাবিষয়ক জাতীয় সম্মেলন।’ সম্মেলনে শিশু সুরক্ষা পরিষেবা জোরদার করা এবং সমাজকর্মীর সংখ্যা ২০০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার। কিন্তু এটা সমস্যা অনুযায়ী যথেষ্ট কিনা- সেই প্রশ্ন করা যেতে পারে।

শিশু সুরক্ষার প্রশ্নে আরও বিস্তৃত পরিসরে কাজ করা ও নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন। কারণ নিপীড়নের শিকার শিশু নানা মানসিক ট্রমা নিয়ে বেড়ে ওঠে। তাদের মনোবৈকল্য তৈরি হয়, বিকাশ হয় বাধাগ্রস্ত। আর এর পরিণতি ভোগ করতে হয় দেশ ও জাতিকেই।

তাই শিশুদের সুরক্ষায় বিরতিহীনভাবে কাজ করতে হবে। সরকারের পাশাপাশি দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংগঠন ও এনজিও কাজ করছে। তাদের কাজের আওতা বাড়াতে হবে, নতুন নতুন প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করতে হবে। লোক দেখানো কিংবা মৌখিক প্রতিশ্রুতি নয়, শিশু সুরক্ষায় অবশ্যই কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

শিশু অধিকার সুরক্ষা ও তাদের নিপীড়নের হাত থেকে রক্ষার জন্য শুধু অঙ্গীকার নয়, সুনির্দিষ্ট আইনও রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর প্রয়োগ ও প্রতিফলন খুব একট দেখা যায় না। আইনের যথাযথ প্রয়োগ ঘটাতে হবে। শিশু সুরক্ষার বিষয়টি সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করতে হবে। শিশুদের সুরক্ষায় পরিবার, শিক্ষক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, এনজিও ও জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে হবে। আমরা চাই প্রতিটি শিশুই সুরক্ষিত থাকুক।

back to top