alt

সম্পাদকীয়

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

: সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় বরদেশ্বরী মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষে উৎসব হচ্ছিল। শতাধিক সনাতন ধর্মাবলম্বী শ্যালো ইঞ্জিনচালিত একটি নৌকায় চড়ে যাচ্ছিলেন সেই মন্দিরে। কিন্তু তাদের কেউই সেখানে পৌঁছাতে পারেননি। করতোয়া নদীতে নৌকাটি উল্টে যায়। এতে তীর্থযাত্রীদের অনেকে মারা গেছেন। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন বহু মানুষ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মারা গেছেন ৪০ জনের বেশি আর নিখোঁজ রয়েছেন আরও অনেকে।

তীর্থযাত্রীদের মর্মান্তিক মৃত্যু আমাদের মর্ম স্পর্শ করেছে। নৌকাডুবির ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের প্রতি আমরা গভীর সমবেদনা জানাই। এখনও যারা নিখোঁজ রয়েছেন তাদের সন্ধান মিলবে সেই প্রত্যাশা করি। ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

নৌকাটি ডুবেছে ওই উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের আউলিয়া ঘাট এলাকায়। সেখানে করতোয়া নদীর গভীরতা বেশি নয়। যদিও বৃষ্টির প্রভাবে গত কয়েকদিনে উজানের ঢলে নদীতে পানি বেড়েছে। তবে নদীটির স্রোত তেমন তীব্র নয়। মোটামুটি শান্ত একটি নদীতে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটল কীভাবে আর এতো মানুষইবা কেন মারা গেল সেই প্রশ্ন উঠেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন, নৌকাটিতে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী উঠেছিল। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ নিতে না পেরেই সেটি ডুবেছে। যাত্রীদের মধ্যে যারা সাঁতার জানতেন তাদের অনেকেই নদী সাঁতরে তীরে উঠতে পেরেছেন। নয়তো মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারত। নদীতে ডুবে মারা যাওয়া মানুষের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যাই বেশি।

দেশে এখন ইঞ্জিনচালিত নৌকার ব্যবহার বেড়েছে। স্বল্প দূরত্বের নৌপথে অনেক যাত্রীই ট্রলারে যাতায়াত করেন। কিন্তু ট্রলারের নিবন্ধন বা অনুমোদনের কোন ব্যবস্থা আছে বলে আমাদের জানা নেই। ট্রলারগুলো চলাচলের উপযোগী কিনা, এর চালকদের দক্ষতা-সক্ষমতা কতটুকু সেটা জানবার উপায় নেই।

এই নৌযান ব্যবহারে যাত্রীসাধারণের মধ্যেও সচেতনতার ঘাটতি আছে। ট্রলার চালকরা যেমন ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে, তেমনি যাত্রীরাও ঝুঁঁকি নিয়ে তাতে চড়ে বসেন। যে কারণে দেশে প্রায়ই ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। এতে অনেকে হতাহতও হন।

ইঞ্জিনচালিত নৌযান নিয়ন্ত্রণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে উদ্যোগী হতে হবে। এগুলোকে একটি নিয়মের মধ্যে আনতে হবে। তাতে অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনার সংখ্যা কমানো সম্ভব হতে পারে।

বয়স্ক ভাতা প্রসঙ্গে

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের পথে বাধা দূর করুন

পদ্মা সেতুর কাছে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

ওএমএসের পণ্য : অনিয়ম দুর্নীতি দূর করতে হবে

সেতু না করেই বিল তুলে নেয়া প্রসঙ্গে

রেলক্রসিং কেন অরক্ষিত

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের দুরবস্থা

অনলাইন সহিংসতা বন্ধে চাই সচেতনতা

অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ আমলে নিন

মানবপাচার সংক্রান্ত মামলা প্রসঙ্গে

সেন্টমার্টিন রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

মীরসরাইয়ে বিকল্প সেচ ব্যবস্থাপনা চালু করা হোক

ফসলি জমি কেটে বালু তোলা বন্ধ করুন

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা করুন

বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিন

তাজরীন ট্র্যাজেডি : বিচার পেতে আর কত অপেক্ষা করতে হবে

বিসিকের শিল্প নগরীতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট নেই কেন

সংরক্ষিত বন ধ্বংস করে ইটভাটা নয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

দোকানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রসঙ্গে

আলুর বীজ সংকট দূর করুন

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

দুই জঙ্গি ছিনতাই : প্রশ্নবিদ্ধ নিরাপত্তা ব্যবস্থা

সড়ক সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

কক্সবাজারে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া হোটেল চলছে কীভাবে

বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ, সতর্ক থাকতে হবে

বরগুনা হাসপাতালের নতুন ভবনে কার্যক্রম কবে শুরু হবে

নারী নির্যাতনের উদ্বেগজনক চিত্র

পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বছরের শুরুতে নতুন বই পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সরকারি হাসপাতালগুলোর দুর্দশা

আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

যাত্রী ছাউনি দখলমুক্ত করুন

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

tab

সম্পাদকীয়

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় বরদেশ্বরী মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষে উৎসব হচ্ছিল। শতাধিক সনাতন ধর্মাবলম্বী শ্যালো ইঞ্জিনচালিত একটি নৌকায় চড়ে যাচ্ছিলেন সেই মন্দিরে। কিন্তু তাদের কেউই সেখানে পৌঁছাতে পারেননি। করতোয়া নদীতে নৌকাটি উল্টে যায়। এতে তীর্থযাত্রীদের অনেকে মারা গেছেন। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন বহু মানুষ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মারা গেছেন ৪০ জনের বেশি আর নিখোঁজ রয়েছেন আরও অনেকে।

তীর্থযাত্রীদের মর্মান্তিক মৃত্যু আমাদের মর্ম স্পর্শ করেছে। নৌকাডুবির ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের প্রতি আমরা গভীর সমবেদনা জানাই। এখনও যারা নিখোঁজ রয়েছেন তাদের সন্ধান মিলবে সেই প্রত্যাশা করি। ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

নৌকাটি ডুবেছে ওই উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের আউলিয়া ঘাট এলাকায়। সেখানে করতোয়া নদীর গভীরতা বেশি নয়। যদিও বৃষ্টির প্রভাবে গত কয়েকদিনে উজানের ঢলে নদীতে পানি বেড়েছে। তবে নদীটির স্রোত তেমন তীব্র নয়। মোটামুটি শান্ত একটি নদীতে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটল কীভাবে আর এতো মানুষইবা কেন মারা গেল সেই প্রশ্ন উঠেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন, নৌকাটিতে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী উঠেছিল। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ নিতে না পেরেই সেটি ডুবেছে। যাত্রীদের মধ্যে যারা সাঁতার জানতেন তাদের অনেকেই নদী সাঁতরে তীরে উঠতে পেরেছেন। নয়তো মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারত। নদীতে ডুবে মারা যাওয়া মানুষের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যাই বেশি।

দেশে এখন ইঞ্জিনচালিত নৌকার ব্যবহার বেড়েছে। স্বল্প দূরত্বের নৌপথে অনেক যাত্রীই ট্রলারে যাতায়াত করেন। কিন্তু ট্রলারের নিবন্ধন বা অনুমোদনের কোন ব্যবস্থা আছে বলে আমাদের জানা নেই। ট্রলারগুলো চলাচলের উপযোগী কিনা, এর চালকদের দক্ষতা-সক্ষমতা কতটুকু সেটা জানবার উপায় নেই।

এই নৌযান ব্যবহারে যাত্রীসাধারণের মধ্যেও সচেতনতার ঘাটতি আছে। ট্রলার চালকরা যেমন ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে, তেমনি যাত্রীরাও ঝুঁঁকি নিয়ে তাতে চড়ে বসেন। যে কারণে দেশে প্রায়ই ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। এতে অনেকে হতাহতও হন।

ইঞ্জিনচালিত নৌযান নিয়ন্ত্রণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে উদ্যোগী হতে হবে। এগুলোকে একটি নিয়মের মধ্যে আনতে হবে। তাতে অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনার সংখ্যা কমানো সম্ভব হতে পারে।

back to top