alt

সম্পাদকীয়

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

: শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

কক্সবাজারের রামু, উখিয়া ও টেকনাফে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনার বিচার হয়নি ১০ বছরেও। ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রামুর ১২টি বৌদ্ধবিহারে হামলা হয়। হামলায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ৩৪টি ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়। তার পরের দিন ৩০ সেপ্টেম্বর হামলা হয় উখিয়া ও টেকনাফে। সেদিন সাতটি বৌদ্ধবিহারের পাশাপাশি হিন্দু মন্দিরেও হামলা হয়।

ভুক্তভোগী বৌদ্ধ সম্প্রদায় উক্ত হামলার বিচারের আশা ছেড়ে দিয়েছে। উত্তম বড়ুয়ার স্বজনরা আর তার ফেরার আশা করেন না। উত্তমের ফেসবুক পেজ থেকেই কোরআন অবমাননা করে পোস্ট দেয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল। এই অভিযোগেই ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক হামলা চালানো হয়। যদিও পরে তদন্তে জানা যায় যে, পরিকল্পিতভাবে তার পেজে ভুয়া ছবি ট্যাগ করা হয়েছিল। সাম্প্রদায়িক হামলার আগে উত্তম তার ঘর থেকে বেরিয়ে যান। এরপর গত ১০ বছরেও তার সন্ধান মেলেনি।

হামলার ঘটনায় ১৯টি মামলা করা হয়েছিল। পরে একটি মামলা প্রত্যাহার করা হয়। ১৮টি মামলার অভিযোগপত্রে ৯৩৬ জনকে আসামি করা হয়। এসব মামলার একটিরও নিষ্পত্তি হয়নি। আসামিদের সবাই জামিনে ছাড়া পেয়ে গেছে।

দেড় ডজন মামলায় ৯ শতাধিক মানুষকে আসামি করা হয়েছে। কিন্তু বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষেরা অভিযোগ করছেন যে, হামলার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের অনেককেই আসামি করা হয়নি। নিরপরাধ অনেক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মামলার গোড়াতেই যদি গলদ থাকে তাহলে সুবিচার মিলবে কী করে, সেটা একটা প্রশ্ন। গলদে ভরা মামলার তদন্তও সঠিক পথে এগোচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। সাক্ষ্য দেয়ার জন্য সাক্ষীদের পাওয়া যাচ্ছে না। তারা সাক্ষ্য দিতে চাচ্ছেন না। কারণ, তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ভুক্তভোগীরা এখন সাম্প্রদায়িক হামলার বিচারও চান না।

কক্সবাজারের ঘটনার যেমন বিচার হয়নি, তেমন বিচার হয়নি অন্যান্য সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনারও। এ ধরনের হামলার মামলার ক্ষেত্রে অভিযুক্তরা সবাই একপর্যায়ে ছাড়া পেয়ে যান। কিন্তু উত্তম বড়ুয়ার খোঁজ মেলে না। ১০ বছরের বেশি সময় ধরে একজন নাগরিককে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তাকে খুঁজে বের করার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী করেছে, সেই প্রশ্ন উঠেছে।

আমরা বলতে চাই, কক্সবাজারসহ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনার বিচার নিশ্চিত করতে হবে। বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা না হলে দেশে সাম্প্রদায়িক হামলার অপসংস্কৃতির অবসান হবে না। সুষ্ঠু বিচারের পথে যেসব বাধা আছে, তা দূর করার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, আইনজীবী এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

ফসলি জমি কেটে বালু তোলা বন্ধ করুন

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা করুন

বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিন

তাজরীন ট্র্যাজেডি : বিচার পেতে আর কত অপেক্ষা করতে হবে

বিসিকের শিল্প নগরীতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট নেই কেন

সংরক্ষিত বন ধ্বংস করে ইটভাটা নয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

দোকানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রসঙ্গে

আলুর বীজ সংকট দূর করুন

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

দুই জঙ্গি ছিনতাই : প্রশ্নবিদ্ধ নিরাপত্তা ব্যবস্থা

সড়ক সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

কক্সবাজারে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া হোটেল চলছে কীভাবে

বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ, সতর্ক থাকতে হবে

বরগুনা হাসপাতালের নতুন ভবনে কার্যক্রম কবে শুরু হবে

নারী নির্যাতনের উদ্বেগজনক চিত্র

পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বছরের শুরুতে নতুন বই পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সরকারি হাসপাতালগুলোর দুর্দশা

আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

যাত্রী ছাউনি দখলমুক্ত করুন

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

সিসার বিষক্রিয়ার ভয়াবহতা

সুন্দরবনের অভয়ারণ্যে মাছ শিকার বন্ধ করুন

নিউমোনিয়া প্রতিরোধে চাই সমন্বিত প্রচেষ্টা

পরিবহন খাতে চাঁদাবাজির অভিযোগের সুরাহা করুন

রাংসা নদীতে পাকা সেতু নির্মাণ করুন

শেবাচিম হাসপাতালে দ্রুত বিদ্যুৎ সংকট নিরসন করুন

বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজে গতি আনতে হবে

সমাজের মানসে শেকড় গেড়ে বসা সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেওয়া হবে

খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে আঙুলের ছাপ না মেলা প্রসঙ্গে

শব্দদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিন

পেঁয়াজ চাষে প্রণোদনা কার্যক্রমে অনিয়মের অভিযোগ প্রসঙ্গে

ব্যাংক খাতের অনিয়ম-দুর্নীতির বিচারে বিলম্ব কেন

tab

সম্পাদকীয়

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

কক্সবাজারের রামু, উখিয়া ও টেকনাফে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনার বিচার হয়নি ১০ বছরেও। ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রামুর ১২টি বৌদ্ধবিহারে হামলা হয়। হামলায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ৩৪টি ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়। তার পরের দিন ৩০ সেপ্টেম্বর হামলা হয় উখিয়া ও টেকনাফে। সেদিন সাতটি বৌদ্ধবিহারের পাশাপাশি হিন্দু মন্দিরেও হামলা হয়।

ভুক্তভোগী বৌদ্ধ সম্প্রদায় উক্ত হামলার বিচারের আশা ছেড়ে দিয়েছে। উত্তম বড়ুয়ার স্বজনরা আর তার ফেরার আশা করেন না। উত্তমের ফেসবুক পেজ থেকেই কোরআন অবমাননা করে পোস্ট দেয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল। এই অভিযোগেই ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক হামলা চালানো হয়। যদিও পরে তদন্তে জানা যায় যে, পরিকল্পিতভাবে তার পেজে ভুয়া ছবি ট্যাগ করা হয়েছিল। সাম্প্রদায়িক হামলার আগে উত্তম তার ঘর থেকে বেরিয়ে যান। এরপর গত ১০ বছরেও তার সন্ধান মেলেনি।

হামলার ঘটনায় ১৯টি মামলা করা হয়েছিল। পরে একটি মামলা প্রত্যাহার করা হয়। ১৮টি মামলার অভিযোগপত্রে ৯৩৬ জনকে আসামি করা হয়। এসব মামলার একটিরও নিষ্পত্তি হয়নি। আসামিদের সবাই জামিনে ছাড়া পেয়ে গেছে।

দেড় ডজন মামলায় ৯ শতাধিক মানুষকে আসামি করা হয়েছে। কিন্তু বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষেরা অভিযোগ করছেন যে, হামলার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের অনেককেই আসামি করা হয়নি। নিরপরাধ অনেক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মামলার গোড়াতেই যদি গলদ থাকে তাহলে সুবিচার মিলবে কী করে, সেটা একটা প্রশ্ন। গলদে ভরা মামলার তদন্তও সঠিক পথে এগোচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। সাক্ষ্য দেয়ার জন্য সাক্ষীদের পাওয়া যাচ্ছে না। তারা সাক্ষ্য দিতে চাচ্ছেন না। কারণ, তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ভুক্তভোগীরা এখন সাম্প্রদায়িক হামলার বিচারও চান না।

কক্সবাজারের ঘটনার যেমন বিচার হয়নি, তেমন বিচার হয়নি অন্যান্য সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনারও। এ ধরনের হামলার মামলার ক্ষেত্রে অভিযুক্তরা সবাই একপর্যায়ে ছাড়া পেয়ে যান। কিন্তু উত্তম বড়ুয়ার খোঁজ মেলে না। ১০ বছরের বেশি সময় ধরে একজন নাগরিককে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তাকে খুঁজে বের করার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী করেছে, সেই প্রশ্ন উঠেছে।

আমরা বলতে চাই, কক্সবাজারসহ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনার বিচার নিশ্চিত করতে হবে। বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা না হলে দেশে সাম্প্রদায়িক হামলার অপসংস্কৃতির অবসান হবে না। সুষ্ঠু বিচারের পথে যেসব বাধা আছে, তা দূর করার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, আইনজীবী এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

back to top