alt

সম্পাদকীয়

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

: বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ডাকাতের কবলে পড়েছিলেন চট্টগ্রামের জোলারগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন ও তার গাড়িচালক। ডাকাতরা তাদের কুপিয়ে আহত করে এবং নগদ টাকা, মোবাইল ফোন ও এটিএম কার্ড নিয়ে যায়। গত শুক্রবার ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা টোল প্লাজা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে সংবাদসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

মহাসড়কে ছিনতাই, ডাকাতি, অপহরণ, খুন, এমন কি যাত্রী সাধারণকে জিম্মি করে চলন্ত বাসে ধর্ষণের ঘটনা পর্যন্ত ঘটে। এতেই বোঝা যায়, সড়ক-মহাসড়কের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কতটা অরক্ষিত। বিশেষ করে, রাতের বেলা। এখন দেশের মানুষের যাতায়াত বাড়ছে। তারা প্রতিনিয়ত এক শহর থেকে আরেক শহরে যায়। দিনে-রাতে সমানতালে পণ্য পরিবহন করতে হয়। যাত্রী সাধারণকেও নানা কাজে ঢাকা আসা-যাওয়া করতে হয়।

যানজটপূর্ণ এলাকায় গাড়ির ধীরগতি কিংবা কোনো কারণে সড়কের পাশে গাড়ি দাঁড় করালেই হানা দিচ্ছে ডাকাত বা ছিনতাইকারী চক্র। অনেক ক্ষেত্রেই ডাকাতরা নির্বিঘ্নে অপকর্ম চালাতে ব্যবহার করে পুলিশসহ বিভিন্ন বাহিনীর নকল পোশাক। আর এসব ডাকাতের হামলায় প্রায়ই হতাহতের শিকার হতে হয় বিভিন্ন যানবাহনের চালক ও যাত্রীসাধারণের। প্রাণ হাতে নিয়ে মহাসড়কে চলাচল করতে হয় তাদের।

সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যই পরিবহন মালিক-শ্রমিক ও যাত্রী সাধারণের দাবির মুখে গঠন করা হয়েছিল হাইওয়ে পুলিশ। অথচ পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি। বরং মহাসড়ক ভয়ংকর হয়ে উঠেছে। যার প্রমাণ হলো, মেঘনা টোলপ্লাজার মতো সুরক্ষিত ও জনবহুল এলাকায় ডাকাতির ঘটনা। তাও আবার খোদ হাইওয়ে থানার ওসি ও তার গাড়ি চালক ডাকাতির শিকার।

প্রশ্ন হচ্ছে, হাইওয়ে পুলিশ কি করে। মহাসড়কে কোথায় কী ঘটছে কোন কিছুই হাইওয়ে পুলিশের অজানা থাকবার কথা নয়। সাধারণত মহাসড়কে যেসব জায়গায় ডাকাতি হয়, সেসব স্থান চিহ্নিতই বলা চলে। এমনও অনেক জায়গা আছে যেখানে বারবার ডাকাতির ঘটনা ঘটে। অনেকে বলেন, হাইওয়ে পুলিশ চাইলেই মহাসড়ককে ডাকাতিমুক্ত করতে পারে, কিন্তু সেদিকে তাদের মনোযোগ নেই বললেই চলে। অভিযোগ আছে, হাইওয়ে পুলিশের বেশি নজর থাকে ট্রাকের দিকে; কারণ, সেখানেই তাদের লাভ।

সড়ক-মহাসড়কের যেসব জায়গায় ডাকাতি হয় সেসব জায়গায় পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে এখন অনেক তথ্য ও প্রযুক্তি রয়েছে। অপরাধী শনাক্ত করতে সেগুলোর যথাযথ ব্যবহার করতে হবে।

মহাসড়কে এভাবে ডাকাতির ঘটনা চলতে দেয়া যায় না। এসব অপরাধের ঘটনায় যারা জড়িত, তাদের আইনের আওতা আনতে হবে। তাদের কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। মহাসড়কে যেন কোন অপরাধ সংঘটিত হতে না পারে, সে জন্য আগাম পদক্ষেপ নিতে হবে। হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিতে হবে।

বয়স্ক ভাতা প্রসঙ্গে

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের পথে বাধা দূর করুন

পদ্মা সেতুর কাছে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

ওএমএসের পণ্য : অনিয়ম দুর্নীতি দূর করতে হবে

সেতু না করেই বিল তুলে নেয়া প্রসঙ্গে

রেলক্রসিং কেন অরক্ষিত

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের দুরবস্থা

অনলাইন সহিংসতা বন্ধে চাই সচেতনতা

অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ আমলে নিন

মানবপাচার সংক্রান্ত মামলা প্রসঙ্গে

সেন্টমার্টিন রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

মীরসরাইয়ে বিকল্প সেচ ব্যবস্থাপনা চালু করা হোক

ফসলি জমি কেটে বালু তোলা বন্ধ করুন

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা করুন

বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিন

তাজরীন ট্র্যাজেডি : বিচার পেতে আর কত অপেক্ষা করতে হবে

বিসিকের শিল্প নগরীতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট নেই কেন

সংরক্ষিত বন ধ্বংস করে ইটভাটা নয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

দোকানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রসঙ্গে

আলুর বীজ সংকট দূর করুন

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

দুই জঙ্গি ছিনতাই : প্রশ্নবিদ্ধ নিরাপত্তা ব্যবস্থা

সড়ক সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

কক্সবাজারে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া হোটেল চলছে কীভাবে

বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ, সতর্ক থাকতে হবে

বরগুনা হাসপাতালের নতুন ভবনে কার্যক্রম কবে শুরু হবে

নারী নির্যাতনের উদ্বেগজনক চিত্র

পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বছরের শুরুতে নতুন বই পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সরকারি হাসপাতালগুলোর দুর্দশা

আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

যাত্রী ছাউনি দখলমুক্ত করুন

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

tab

সম্পাদকীয়

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ডাকাতের কবলে পড়েছিলেন চট্টগ্রামের জোলারগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন ও তার গাড়িচালক। ডাকাতরা তাদের কুপিয়ে আহত করে এবং নগদ টাকা, মোবাইল ফোন ও এটিএম কার্ড নিয়ে যায়। গত শুক্রবার ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা টোল প্লাজা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে সংবাদসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

মহাসড়কে ছিনতাই, ডাকাতি, অপহরণ, খুন, এমন কি যাত্রী সাধারণকে জিম্মি করে চলন্ত বাসে ধর্ষণের ঘটনা পর্যন্ত ঘটে। এতেই বোঝা যায়, সড়ক-মহাসড়কের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কতটা অরক্ষিত। বিশেষ করে, রাতের বেলা। এখন দেশের মানুষের যাতায়াত বাড়ছে। তারা প্রতিনিয়ত এক শহর থেকে আরেক শহরে যায়। দিনে-রাতে সমানতালে পণ্য পরিবহন করতে হয়। যাত্রী সাধারণকেও নানা কাজে ঢাকা আসা-যাওয়া করতে হয়।

যানজটপূর্ণ এলাকায় গাড়ির ধীরগতি কিংবা কোনো কারণে সড়কের পাশে গাড়ি দাঁড় করালেই হানা দিচ্ছে ডাকাত বা ছিনতাইকারী চক্র। অনেক ক্ষেত্রেই ডাকাতরা নির্বিঘ্নে অপকর্ম চালাতে ব্যবহার করে পুলিশসহ বিভিন্ন বাহিনীর নকল পোশাক। আর এসব ডাকাতের হামলায় প্রায়ই হতাহতের শিকার হতে হয় বিভিন্ন যানবাহনের চালক ও যাত্রীসাধারণের। প্রাণ হাতে নিয়ে মহাসড়কে চলাচল করতে হয় তাদের।

সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যই পরিবহন মালিক-শ্রমিক ও যাত্রী সাধারণের দাবির মুখে গঠন করা হয়েছিল হাইওয়ে পুলিশ। অথচ পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি। বরং মহাসড়ক ভয়ংকর হয়ে উঠেছে। যার প্রমাণ হলো, মেঘনা টোলপ্লাজার মতো সুরক্ষিত ও জনবহুল এলাকায় ডাকাতির ঘটনা। তাও আবার খোদ হাইওয়ে থানার ওসি ও তার গাড়ি চালক ডাকাতির শিকার।

প্রশ্ন হচ্ছে, হাইওয়ে পুলিশ কি করে। মহাসড়কে কোথায় কী ঘটছে কোন কিছুই হাইওয়ে পুলিশের অজানা থাকবার কথা নয়। সাধারণত মহাসড়কে যেসব জায়গায় ডাকাতি হয়, সেসব স্থান চিহ্নিতই বলা চলে। এমনও অনেক জায়গা আছে যেখানে বারবার ডাকাতির ঘটনা ঘটে। অনেকে বলেন, হাইওয়ে পুলিশ চাইলেই মহাসড়ককে ডাকাতিমুক্ত করতে পারে, কিন্তু সেদিকে তাদের মনোযোগ নেই বললেই চলে। অভিযোগ আছে, হাইওয়ে পুলিশের বেশি নজর থাকে ট্রাকের দিকে; কারণ, সেখানেই তাদের লাভ।

সড়ক-মহাসড়কের যেসব জায়গায় ডাকাতি হয় সেসব জায়গায় পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে এখন অনেক তথ্য ও প্রযুক্তি রয়েছে। অপরাধী শনাক্ত করতে সেগুলোর যথাযথ ব্যবহার করতে হবে।

মহাসড়কে এভাবে ডাকাতির ঘটনা চলতে দেয়া যায় না। এসব অপরাধের ঘটনায় যারা জড়িত, তাদের আইনের আওতা আনতে হবে। তাদের কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। মহাসড়কে যেন কোন অপরাধ সংঘটিত হতে না পারে, সে জন্য আগাম পদক্ষেপ নিতে হবে। হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top